অক্টোবর 17, 2020

প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলির পর্যালোচনা :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। বাজার এখন দুটি প্রধান বিষয় দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে : কোভিড-19 অতিমারির দ্বিতীয় ঢেউ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন 3 নভেম্বর রাষ্ট্রপতি নির্বাচন।
    বেকার ভাতার জন প্রায় 9 লক্ষ আবেদন দেখায় যে শ্রম বাজার এবং মার্কিন অর্থনীতির আরও স্টিমুলাস পন্থা দরকার। এবং যদিও, মার্কিন ট্রেজারি সচিব স্টিফেন এমনুচিনের মতে, ওই পন্থা গ্রহণে ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানদের মধ্যে কোনো চুক্তি নির্বাচনের আগে সম্ভব নয়, নেতিবাচক পরিসংখ্যান বাজারের ঝুঁকি প্রবণতায় বিশেষ প্রভাব ফেলেছ এবং স্টক ইন্ডাইসকে নীচে ঠেলেছে যেমন S&P500। এতে স্পষ্টভাবে সুবিধা হয়েছে মার্কিন কারেন্সির : বৃহস্পতিবারের মধ্যে ডলার অর্জন করেছিল 135 পয়েন্ট এবং ইউরো মার্কিন ডলার জোড়া পৌঁছেছিল স্থানীয় নিম্ন 1.1685-এ। এরপর হয়েছিল ঘুরে দাঁড়ানো, শেষপর্যন্ত এই জোড়া পাঁচদিনের পর্ব শেষ করে 1.1715-এ।
    এটা সম্ভব যে ‘মার্কিন’রা ধারাবাহিকভাবে তাদের অবস্থান শক্তিশালী করবে, কিন্তু ‘ইউরোপিয়ান’রা সক্রিয়ভাবে সাহায্য পেয়েছ চীন ও ইসিবি-র অর্থনীতির আত্মবিশ্বাসী উন্নয়ন দ্বারা, যা অবশ্যই এর কোয়ান্টিটিভ ইজিং (কিউই) কর্মসূচির পরিমাণ বৃদ্ধি করে না।
    ইউরোপে কোভি-19 কেসের সংখ্যা ক্রবর্ধমান, যা হয়তো নতুন করে কড়া কোয়ারান্টাইন পদক্ষেপে ইন্ধন জোগাতে পারে এর ফলে অর্থনৈতিক কার্যকলাপে বিধিনিষেধ এসে যাবে। যদিও, জুলাইয়ের শেষে ইউরোপীয় অর্থনীতিকে সহায়তা করতে 1.8 ট্রিলিয়ন ডলারের কর্মসূচি গ্রহণের পর ইউরোপিয়ান সেন্ট্রাল ব্যাংক চায় না এর আর্থিক স্টিমুলাস কর্মসূচিকে আরও উন্নত ও সম্প্রসারিত করতে। এই মুহূর্তে, মোট ফান্ডের অর্ধেকেরও কম খরচ করা হেয়েছ ইতিমধ্যে চালু কিইউ কর্মসূচির অধীনে, সুতরাং, নতুন ইনসেনটিভ সম্পর্কে বেশি কথা বলে কোনো লাভ নেই, বলেছেন ইসিবি লুইস ডি গুইন্ডোস।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। অক্টোবরের প্রথম 12 দিনের উচ্চ প্রবণতা শেষ হয়েছে, এবং জোড়াটি গিয়েছিল পাশের দিকে 1.2860-1.3080 রেঞ্জে। এ ছাড়া, সপ্তাহের শেষটা ছাড়া হয়েছিল বিয়ার্সে, যে চূড়ান্ত পয়েন্ট 1.2915 স্তরে রাখতে সমর্থ হয়েছিল। পাউন্ডের বৃদ্ধির একটি বাধা ছিল লন্ডনে করোনা ভাইরাসের কারণে অতিরিক্ত বিধিনিষেধ প্রবর্তন, পাশাপাশি ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের নেতৃত্বের বিবৃতি যে এই ব্লক, যদিও যুক্তরাজ্যের সঙ্গে এর ভালো পার্টনারশিপ আছে, কোনো মূল্যেই আপস করবে না।
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। এই জোড়া সাপ্তাহিক সেশন শেষ করেছিল 105.40-তে, যে অঞ্চল হল খুব শক্তিশালী মাঝারি-মেয়াদের সাপোর্টের, যা গত 12 সপ্তাহ ধরে বহুবার এর পতন ঠেকিয়েছিল। এবং এখন প্রশ্ন হল বিনিয়োগকারীদের জন্য নিরাপদ স্বর্গ কী, ডলার নাকি ইয়েন, উত্তর পাওয়া যায়নি। প্রতিযোগিতা চলছে।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। আমরা অনেক সময় আমাদের ক্রিপ্টোকারেন্সি পর্যালোচনা শুরু করি অপরাধের খবর দিয়ে। এই ক্ষেত্রে গত সপ্তাহে কোনো বিশেষ ঘটনা ঘটেনি। যদিও পুলিশ রিপোর্টে এখানে সেখানে ব্ল্যাকমেল ও ক্রিপ্টোকারেন্সি আত্মসাতের খবর ছিল।
    সেজন্য, জাপানে অন্তত 18 প্রিফেকচারে মাইনিং বিল্ডিং সম্পর্কে আহ্বানের ঢেউ ছিল। স্ক্যামারদের চাহিদা ছিল ক্রিপ্টোকারেন্সিতে একটি মুক্তিপণ। জাপান টুডে বলেছিল, ‘অপরাধীদের সবচেয়ে জনপ্রিয় পছন্দ হল বিটকয়েন। কিন্তু কোনো ক্ষেত্রেই বিস্ফোরক সম্পর্কিত তথ্য নিশ্চিত হয়নি। এর ফলে, অপরাধীরা টাকা পায়নি, কিন্তু তারা ধরাও পড়েনি, শুধু লিঙ্কনশায়ারের (ইংল্যান্ড) একজন ভেড়াপালক বাদে, যার ইতিমধ্যে 14 বছরের কারাদণ্ড হয়েছে টেসকো সুপারমার্কেট চেইন থেকে 1.4 মিলিয়ন পাউন্ড মূল্যের বিটকয়েন আত্মসাতের জন্য।
    ডেইলি মেল অনুসারে, 45 বর্ষীয় নাইজেল রাইট চেইন স্টোরের শেলফে হেইঞ্জ এবং কাউ অ্যাড গেট বেবিফুড ব্র্যান্ডের ক্যান রেখেছিলেন দুবছরের জন্য, যা স্টাফ করা ছিল ধাতব ফ্র্যাগমেন্ট দিয়ে, এইসঙ্গে ছিল একটি স্টেশনারি ছুরির শার্ডও। এরপর তিনি এই বিপজ্জনক ক্যানগুলির অবস্থান প্রকাশের প্রতিশ্রুতি বিনিময়ে অর্থ দাবি করেছেন। টেসকোর এক কর্মী তাঁকে 1 লক্ষ পাউন্ড ট্রান্সফার করেছেন এটা একজন ডিটেক্টিভ আবিষ্কার করার পর ভেড়ার ব্রিডার নাইজকে আটক করা হয়েছিল।
    রাইটের হুমকির ফলে, টেসকো তাদের স্টোর থেকে মোট ১৪০০০০ বেবিফুডের ক্যান সরিয়ে রেখেছিল, যার মধ্যে ধ্বংস করা হয়েছে 42 হাজার ক্যান। এতে ট্রেডিং নেটওয়ার্কে ক্ষতির পরিমাণ হল 2.7 মিলিয়ন পাউন্ড।
    যদি টেসকোর ক্ষতি হয়, বিটকয়েনধারীদের লাভ জারি থাকবে, গত 7 দিনে মূল ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্য বেড়েছে প্রায় 3 শতাংশ। যেমন আমরা অনুমান করেছিলাম, বিটিসি/মার্কিন ডলার জোড়া, বহু প্রচেষ্টার পর, 11,500 ডলারের রেজিস্ট্যান্স পেরোতে ব্যর্থ হয়েছে এবং 11,300-11,400 ডলার অঞ্চলে নতুন করে জমাট বেঁধেছে।
    এই সময়কালে ক্রিপ্টো মার্কেটের মোট ক্যাপিটালাইজেশনও সামান্য বৃদ্ধি পেয়েছে এবং সেটা রয়েছে 357 বিলিয়ন ডলারে। ক্রিপ্টো ফিয়ার অ্যান্ড গ্রিড ইনডেক্সের জন্য, এটা এখন নিরপেক্ষ হলুদ অঞ্চলে আছে স্কেলের একেবারে কেন্দ্রে – 52 (48 সপ্তাহ আগে এটি ছিল)।
    গত 6 সপ্তাহে বিটকয়েন বৃদ্ধি হয়েছে 8.5 শতাংশ। কিন্তু এরকম শীর্ষ অল্টকয়েনের ফলাফল যেমন লাইটকয়েন (এলটিসি/মার্কিন ডলার), রিপল (এক্সআরপি/মার্কিন ডলার) ও ইথেরিয়াম (ইটিএইচ/মার্কিন ডলার) প্রায় শূন্য। গত মাসে ইথেরিয়ামের মাইনিং রেভেনিউ বৃদ্ধি হয়েছে প্রায় 40 শতাংশ। বিশ্লেষণী প্ল্যাটফর্ম গ্রাসনোডের মতে, নতুন আয়ের মূল ছিল বর্ধিত কমিশন। DeFi বাজারের জনপ্রিয়তাও মাইনারদের আয়ে প্রতিফলিত হেয়েছ, যা ইথেরিয়াম ব্লকচেনের ওপর কৃত অপারেশনের সংখ্যা তাৎপর্যপূণ বৃদ্ধি করেছে।
    DeFi ও DAO প্রজেক্টের ফ্রেমওয়ার্কের মধ্যে বিকেন্দ্রীকৃত আর্থিক ব্যবস্থা সৃষ্টিতে সপ্রতিভ চুক্তি সৃষ্টির অনুমোদনের প্রটোকল এবং সামর্থ্য আপনাকে অনুমতি দেয় ক্রিপ্টোকারেন্সি ধার করতে এবং এইসঙ্গে এর সহজ রিটেনশনে (জড়ো করা) উপার্জনের। এর ফলে ইথেরিয়াম নেটওয়ার্কে দৈনিক অ্যাক্টিভ ওয়ালেটের সংখ্যা হয়েছে চতুর্গুণ – এবছরের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকের 12.8 হাজার থেকে তৃতীয় ত্রৈমাসিকে দাঁড়িয়েছে 50.2 হাজার। বিকেন্দ্রীকৃত অ্যাপ্লিকেশন (dapps) সংক্রান্ত সব লেনদেনের 96 শতাংশ হয়েছে ইথেরিয়াম ব্লকচেনে, মোট পরিমাণ প্রায় 120 বিলিয়ন ডলার।
    প্রতিযোগীদের এরকম ক্রিয়াকলাপ মূল ক্রিপ্টোকারেন্সি - বিটকয়েনধারীদের উত্তেজিত ছাড়া আর কিছুই করেনি এবং কাইবার নেটওয়ার্ক, রেন ইকোসিস্টেম ও বিটগো-র যৌথ কাজে ফলে, এরকমই একটি প্রজেক্ট রূপায়িত হয়েছে - DAO WBTC । চতুর্থ ত্রৈমাসিক দেখাবে এটা কতটা কার্যকরী ও জনপ্রিয় হবে।

 

আগামী সপ্তাহের অনুমানের ক্ষেত্রে, বেশকিছু সংখ্যক বিশেষজ্ঞের মতামতের সংক্ষেপের পাশাপাশি টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে আমরা বলতে পারি :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। এই জোড়াটির চার্টের দিকে তাকালে এটা স্পষ্ট হবে যে H4 ও D1 উভয়ের অসিলেটররাই অভিজ্ঞ ট্রেডারদের ক্ষেত্রে এখন নিখুঁত কোনো ভবিষ্যদ্বাণী করতে পারেনি। ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরদের মধ্যে, কিছুটা অংশ লাল দিকে – দুটি সময়সীমাতেই 70 শতাংশ। যদিও D1-এর ওপর গ্রাফিক্যাল অ্যানালিসিসের সাপোর্ট সত্ত্বেও, টেকনিক্যাল অ্যানালিসিস গ্যারান্টি দিতে পারেনি নিম্ন প্রবণতার ধারাবাহিকতার। মূল শব্দটি বরাবরের মতো মৌলিক বিশ্লেষণ। অথবা, সেইসব উপাদান যা এই পর্যালোচনার একেবারে প্রথমে উল্লেখিত।
    অবশ্যই, আমরা হয়তো পরের সপ্তাহে নতুন কিছু শুনব। এটা মনে হচ্ছে যে রেগুলেটর প্রধানদের মূল লক্ষ্য একমাত্র কথা দিয়ে অর্জন করা। ইসিবি প্রধান ক্রিস্টিন লাগার্ডের বিবৃতির সূচি 18, 19 ও 21 অক্টোবর, মার্কিন ফেডারেল রিজার্ভ প্রধান জেরোম পাওয়েলের বিবৃতি আসবে সোমবার, 10 অক্টোবর। কিন্তু এগুলোই সব নয় – মার্কিন রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জো বাইডেনের বিতর্ক দিনক্ষণ হল শুক্রবার, 23 অক্টোর। চূড়ান্ত দিনের মাত্র 10 দিন আগে, সুতরাং উভয় রাজনীতিকেরই প্রতিশ্রুতি হবে অস্বাভাবিক গরম।
    লাগার্ডে ও পাওয়েলের বিবৃতি এবং হোয়াইট হাউসের প্রার্থীদের বিতর্ক উভয়ই বিনিয়োগকারীদের মনে ব্যাপক প্রভাব ফেলতে পারে। এবং যদি স্টক ইন্ডাইসের পতন চলে, এটা ডলারকে আরও শক্তিশালী করবে এবং ইউরো/মার্কিন ডলার জোড়া যাবে আরও দক্ষিণে। 60 শতাংশ বিশ্লেষক সম্মত যে এরকম উন্নয়ন, যা লক্ষ্য রূপে নির্দেশ করেছে সেপ্টেম্বরের নিম্নে, 1.1610-এর আশেপাশে। বাকি 40 শতাংশের বিশ্বাস, 1.1715 স্তর থেকে জোড়াটি উপরে উঠবে। নিকটতম রেজিস্ট্যান্স স্তর হল 1.1755 ও 1.1825। পরের বাধা আছে 1.1900 অঞ্চলে।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। শুধু ইসিবি ও ফেড-এর প্রধান নয়, বরং এইসঙ্গে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের গভর্নর অ্যান্ড্রু বেইলিও নিকট ভবিষ্যতে বিবৃতি দেবেন। তাঁর ভাষণের সূচি 18 ও 22 অক্টোবর। যদিও, সেটা প্রধান খবর হবে না। পাউন্ডের এখনও আরও বৃদ্ধির সম্ভাবনা আছে, কিন্তু এর জন্য দরকার ব্রেক্সিটের মেয়াদ নিয়ে যুক্তরাজ্য ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের বোঝাপড়ায় প্রকৃত সাফল্য। এবং তারা, আপাতভাবে, আরও দুসপ্তাহ অথবা আরও বেশিদিন টেনে নিয়ে যাবে। সত্যিটা হল যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সমঝোতা প্রক্রিয়া থেকে চলে যাচ্ছেন না এটা ভালো সংকেত নয় এবং এটা আমাদের আশা দেয় যে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সঙ্গে চুক্তি এরপরও হতে পারে। কিন্তু আসন্ন দিনগুলিতে নয়। সেজন্য, 70 শতাংশ বিশেষজ্ঞ, H4 ও D1 দ্বারা সমর্থিত, H4-এ 80 শতাংশ অসিলেটর ও 90 ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরেরও বিশ্বাস যে জিবিপি/মার্কিন ডলার জোড়া আগামী সপ্তাহে পড়তে পারে 1.2700 অঞ্চলে। সাপোর্ট হল 1.2845 ও 1.2770।
    বাকি 30 শতাংশ বিশ্লেষকের আশা যে জোড়াটি থাকবে 1.2845-1.3035 চ্যানেলের সীমানার ভেতরে এবং খুব দ্রুত ফিরবে এর ঊর্ধ্ব সীমানায়। পরের রেজিস্ট্যান্স লেভেল হল 1.3080।
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। বর্তমানে, জাপানি কারেন্সি রিস্ক সেন্টিমেন্ট এবং নিরাপদ বন্ডে লাভ বৃদ্ধি দ্বারা সমর্থিত। যদিও, ইয়েন রয়েছে প্রধান সাপোর্ট 105.00-র কাছাকাছি, এটা অতিক্রম করা কঠিন কাজ। গত 12 সপ্তাহের চার্টের দিকে তাকান। 2018-19 সালে এই স্তরের জন্য যুদ্ধ অনেকেরই স্মৃতিতে আছে, বিয়ার্সের শরীরের না-মোছা দাগ।
    বিশেষজ্ঞদের অধিকাংশের (70 শতাংশ), যাদের সমর্থন করেছে D1-এ 75 শতাংশ অসিলেটর ও 90 শতাংশ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটর, বিশ্বাস যে এই জোড়াটির দুতিন সপ্তাহের মধ্যে এই বাধা অতিক্রমের ক্ষমতা আছে এবং 21 সেপ্টেম্বরের নিম্ন 104.00-তে অন্তত একবার। সাপোর্ট হল 105.00 ও 104.45।
    বাকি 30 শতাংশ বিশ্লেষক ও গ্রাফিক্যাল অ্যানালিসিসের অনুমান ডলার বৃদ্ধি পাবে এবং মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই জোড়া অতিক্রম করবে 105.00 দিগন্ত এবং খুব দ্রুত 106.00 রেজিস্ট্যান্সের কাছে পৌঁছবে, তারপর 106.40-তে এবং শেষ পর্যন্ত 107.20 উচ্চতায়।

  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। এই পর্যালোচনার প্রথম অংশে আমরা লিখেছি যে DeFi মার্কেটের উন্নয়ন তাৎপর্যপূর্ণভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে ইথেরিয়ামের জনপ্রিয়তার জন্য। যদিও রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে যদি জো বাইডেন জিতে যান তাহলে পরিস্থিতির নাটকীয় পরিবর্তন ঘটতে পারে। এটি আর্থিক বাজারে পর্যবেক্ষণ ও কড়া নিয়ন্ত্রণের নতুন ঢেউয়ের কারণ হবে, যার জন্য কয়েকটি DeFi প্রজেক্ট বন্ধ হবে।
    কিন্তু বিটকয়েন, ব্লুমবার্গ বিশেষজ্ঞদের মতে, জিতবে যদি জো বাইডেন জেতে। ডোনাল্ড ট্রাম্পের অধীনে, গুরুত্ব ছিল ডলার এবং এর সঙ্গে জড়িত সব শিল্পের শক্তিবৃদ্ধি। বিশ্লেষকরা আত্মবিশ্বাসী যে নতুন মার্কিন প্রশাসন অর্থনীতির বিষয়ে অনেক প্রগতিশীল চিন্তাভাবনা করবেন, সেই দৃষ্টিভঙ্গিতে রেগুলেটরদের দ্বারা বিটকয়েন গ্রহণ তাৎপর্যপূর্ণভাবে ত্বরান্বিত হবে।
    এই মুহূর্তে এই কয়েনের মূল কাজ হল 12000 ডলারের গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্যান্স অতিক্রম করা এবং তার ওপর পদচ্ছাপ রাখা। এটি এই স্তরে ছিল 2019 ও 2020-এর আগস্টে, সেখানে বিয়ার্সের সক্রিয়তা ছিল এবং ছিল একটি নিম্নগামী প্রবণতার বৈপরীত্য। এবং বুলস যদি সেলারদের রেজিস্ট্যান্স অতিক্রম করতে পারে, বিটিসি মার্কিন ডলার জোড়ার সুযোগ আছে গত গ্রীষ্মের উচ্চতা 13,000-13,750 ডলারে পৌঁছনোর।
    ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানি আইল্যান্ড অল্টারনেটিভ অ্যাডভাইজর্স-এর ম্যানেজার টিমোথি পিটারসেনের হিসেব অনুযায়ী, যিনি অনুমানের জন্য মেটক্লফের সূত্র ব্যবহার করেন, বিটকয়েনের মূল্য ৯০ শতাংশ সম্ভাব্যতা যে 11000 ডলারের নীচে আসবে না। এ ছাড়া, ওই একই সম্ভাব্যতায় এটির উচিত 30 নভেম্বর 2020-এর মধ্যে 12000 ডলারের সীমা অতিক্রম করা।
    ক্রিপ্টো মার্কেটে মেটক্লফের সূত্রের প্রয়োগ বলে যে বিটকয়েনের মূল্য নির্ভর করে এটা কতজন ব্যক্তি ব্যবহার করছেন তার ওপর। এবং পিটারসনের মতে, এই মানসিকতা তাঁকে সাহায্য করেছে 2018 ও 2019 সালের শেষ বিটিসি-র মূল্য অনুমান করতে।
    আরেকজন বিশেষজ্ঞ, অ্যানালিস্ট ফার্ম ক্রিপ্টোকোয়ান্টের সিইও, কি ইয়োং জু বিশ্বাস করেন যে কয়েনটি ধারাবাহিকভাবে বৃদ্ধি পাবে, বিনিময়ের ক্ষেত্রে বিটকয়েনের সম্মেলনের অনুপস্থিতি এর কারণ। এক্সচেঞ্জে বিটিসি ট্রান্সফারের পরিমাণ নির্ধারণে, ক্রিপ্টোকোয়ান্ট সৃষ্টি করেছে এর নিজস্ব ইন্ডিকেটর অল এক্সচেঞ্জ ইনফ্লো মিন, এবং বর্তমানে এটি রয়েছে ‘নিরাপদ’ অঞ্চলে : ‘তিমিদের’ কোনো তাড়াহুড়ো নেই তাদের রিজার্ভ পাওয়ার। এবং কি ইয়োঙের অনুমান অনুযায়ী, 11500 ডলারের ওপর বিটকয়েনের আরোহণ খুব বড় সেল-অফ ঘটাবে না।
    আজ, chain.info-র মতে, পাঁচটি বৃহত্তম ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জ একাই ধরে রেখেছে প্রায় 2 মিলিয়ন বিটিসি কয়েন, যা প্রকৃতপক্ষে, মোট নির্গমনের 11 শতাংশ। এই এক্সচেঞ্জগুলি শুধু হ্যাকিং সাপেক্ষে নয়, বরং এইসঙ্গে রেগুলেটর ও আইন প্রণয়নকারী এজেন্সি দ্বারাও আক্রান্ত হতে পারে, যার ফলে প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সির ক্ষতি অথবা তাৎপর্যপূর্ণ পরিমাণ ব্লক হতে পারে। এবং কিছু বিশেষজ্ঞ বিশ্বাস করেন, এর ফলে বাজারে বিটকয়েনের অত্যাল্পতা দেখা দিতে পারে এবং এর মূল্য বাড়তে পারে। যদিও, কেউই বিশ্বাস করেন না যে এখন বিটিসি মার্কিন ডলার জোড়া সর্বকালের উচ্চতা 20000 ডলারে পৌঁছতে পারবে এবছরের শেষে। এমনকি এর 13000 ডলারের সীমা অতিক্রমের সম্ভাব্যতাও মাত্র 25 শতাংশ। আবার 9000 ডলারে পতনের সম্ভাব্যতাও সেই একইরকম।

 

নর্ডএফএক্স অ্যানালিটিক্যাল গ্রুপ

 

বিজ্ঞপ্তি : এসব তথ্য আর্থিক বাজারে কাজের জন্য বিনিয়োগ বা পরামর্শ হিসেবে কোনো সুপারিশ নয় : এগুলি একমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং এর ফলে ডিপোজিটকৃত ফান্ডের পরিপূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)