অক্টোবর 3, 2020

প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলি বিশ্লেষণ :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। গত সপ্তাহে আমরা যা সমাধানের চেষ্টা করেছিলাম তা হল এই জোড়া এর পতন অব্যাহত রাখবে নাকি আবার ফিরে আসবে 1.1700-1.2010 চ্যানেলে। বিশেষজ্ঞরা তখন এবিষয়ে কোনো স্পষ্ট উত্তর দেননি। তাঁদের ভোট ভাগ হয়েছিল এরকমভাবে : ৩০ শতাংশ জোড়াটির পতনের পক্ষে ছিলেন, 30 শতাংশ এর আরোহণের দিকে এবং 40 শতাংশের অবস্থান ছিল নিরপেক্ষ। ফলাফল ছিল জোড়াটি ধারাবাহিকভাবে পড়েনি, কিন্তু এর গতি চ্যানেলে ফিরে এসেছিল বলা কঠিন : বৃহস্পতিবার, 1 অক্টোবর স্থানীয় উচ্চতায় 1.1700 পৌঁছেছিল, তারপর জোড়াটি ঘুরে দাঁড়ায় এবং পাঁচদিনের পর্ব শেষ করে 1.1715-এ।
    বিনিয়োগকারী নির্দিষ্টভাবে এই তথ্যে মুগ্ধ হয়নি যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভে ডেমোক্র্যাটরা 2.2 ট্রিলিয়ন ডলারের আর্থিক স্টিমুলাসের নতুন প্যাকেজে একটি আইন পাস করেছে, বিশেষ করে আগে এটা যখন ছিল প্রায় 3 ট্রিলিয়ন ডলারের বেশি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শ্রম বাজার তথ্যও এবিষয়ে কোনো প্রভাব ফেলতে পারেনি। এডিপি-র সেপ্টেম্বর প্রাইভেট সেক্টর এমপ্লয়মেন্ট রিপোর্ট দেখিয়েছে, এক মাস আগের 481K থেকে 749K পর্যন্ত একটি বৃদ্ধি, এবং অনুমান ছিল 650K। এর বিপরীতে, কৃষিক্ষেত্রের বাইরে নতুন কাজ সৃষ্টি হয়েছে আগস্ট এবং অনুমান মূল্য উভয়ের চেয়ে কম : সেপ্টেম্বরে 661K, আগস্টে 1489K আর সেপ্টেম্বরের ফোরকাস্ট ছিল 850K।
    বিনিয়োগকারীরা বেশি খুশি হয়েছিল মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং তাঁর স্ত্রীর সংক্রমণের খবরে। যখন এই খবর প্রকাশ্যে আসে, ইউএস ডলার ও জাপানি ইয়েন বৃদ্ধি পেয়েছিল, কিন্তু তারপর প্রশ্ন উঠল, এই অসুখ কতটা মারাত্মক এবং এটা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তথা গোটা বিশ্বের আর্থিক অবস্থার ওপর কীভাবে প্রভাব ফেলতে পারে। এবং অন্তত কিছু স্পষ্টতা প্রকাশের আগেই বাজার থমকে গিয়েছিল, এবং ইউরো/মার্কিন ডলার জোড়া গিয়েছিল একটি সাইডওয়ে মুভমেন্টে 1.1685-1.1770 ডলারের সংকীর্ণ পরিসরে, যার মধ্যে, যেটা ইতিমধ্যে উল্লেখিত, এটা হয়েছিল সাপ্তাহিক ট্রেডিং সেশনের শেষে।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। ব্রেক্সিট অনিশ্চয়তার প্রেক্ষাপটে এই জোড়া ফিরে এসেছিল যেখানে এটা ইতিমধ্যে ছিল 15-21 সেপ্টেম্বর - 1.2805-1.3000, এভাবে এটি গত সপ্তাহের অনুমান নিশ্চিত করেছে যা করেছিলেন 35 শতাংশ বিশ্লেষক, গ্রাফিক্যাল অ্যানালিসিস ও 15 শতাংশ অসিলেটর, তাঁদের ইঙ্গিত ছিল জোড়াটি অতিরিক্ত বিক্রীত। 230 পয়েন্ট উপরে ওঠার পর, বুলসের শক্তি কমে গিয়েছিল, তারা 1.3000-র রেজিস্ট্যান্স অতিক্রম করতে পারেনি এবং জোড়াটি পাঁচদিনের পর্ব শেষ করেছিল 1.2935 অঞ্চলে।
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। জাপানি কারেন্সির জন্য গত সপ্তাহকে উল্লেখযোগ্য বলা যায়নি। শুক্রবারের আগে পর্যন্ত, জোড়াটি চলাফেরা করছিল খুব সংকীর্ণ চ্যানেল 105.30-105.75-এ, এবং ডোনাল্ড ও মেলানিয়া ট্রাম্পের করোনা ভাইরাস টেস্ট পজিটিভ হওয়ার খবর পাওয়া মাত্র জোড়াটি  পৌঁছয় 104.95-এ।  এই গতি দেখিয়েছিল যে এইরকম সংকটজনক পরিস্থিতিতে, বিনিয়োগকারীরা বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে ইয়েনকে অগ্রাধিকার দেন, ডলারের তুলনায় একে নিরাপদতর প্রতিরক্ষামূলক সম্পদ বিবেচনা করেছেন। যদিও ডলারে 70 পয়েন্ট পতনকে বড় ক্ষতি হিসেবে বিবেচনা করা যায় না। উপরন্তু, পরে এই পরিস্থিতি স্থিতিশীল হয়েছিল, জোড়াটিও ঊর্ধ্বে ওঠে, এবং শেষ করে 105.35 স্তরে।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। আমাদের পূর্ববর্তী ডিজিটাল বাজারের বিশ্লেষণাত্মক পর্যালোচনা আমরা শুরু করেছিলাম এই কথা দিয়ে, ‘বিটকয়েন দ্বারা 11000 ডলারের ওপরে পা রাখার আরেকটা চেষ্টা পর্যবসিত হবে আরেকটি ব্যর্থতা রূপে,’ একই কথা বলা যায় চলতি সপ্তাহ সম্পর্কেও। 10,940-10,970 ডলারের সিলিঙের বিপরীতে তাদের মাথা ঝুঁকিয়ে বুলস হাল ছেড়ে দিয়েছিল এবং বিটিসি মার্কিন ডলার জোড়া ফিরে এসেছিল 10,400-10,500 ডলার অঞ্চলে, যা অনুমানকে সম্পূর্ণ নিশ্চিত করে, যার পক্ষে ছিলেন বিশেষজ্ঞদের অধিকাংশ (65 শতাংশ)। ক্রিপ্টো ফিয়ার ও গ্রিড ইনডেক্সের ক্ষেত্রে যেমন, এটি গত সাতদিন ধরে সামান্য নেমেছে, 46 থেকে 41-এ, এবং এখনও রয়েছে নিরপেক্ষ অঞ্চলে।
    বিশ্লেষক পোর্টাল মেসারি অনুযায়ী, এই প্রথমবার দৈনিক বিটকয়েন শিখা টানা 63 দিন শেষ হয়েছে 10000 ডলারের ওপরে। পূর্ববর্তী দীর্ঘতম শৃঙ্খলা ছিল 62 দিন এবং সেটি হয়েছিল 1 ডিসেম্বর 2017 থেকে 31 জানুয়ারি 2018। একই সময়ে, ক্রিপ্টোকারেন্সি 50 দিন ছিল 11000 ডলারের ওপরে এবং 12000 ডলারের ওপর 41 দিন।
    হোয়েলম্যাপ অ্যানালিটিকাল সার্ভিসের বিশেষজ্ঞদের মতে, বিটকয়েন এখন 10000 ডলারের নীচে পতন আটকেছে বড় বিনিয়োগকারীদের দ্বারা যাঁরা নিজেদের রিজার্ভ পুনরুজ্জীবিত করবেন যখনই বিটিসি এই স্তরে পৌঁছবে। ঠিক এই কারণেই, কোটেশনে পতন হওয়া সত্ত্বেও, ক্রিপ্টো মার্কেটের মোট ক্যাপিটালাইজেশন সপ্তাহের উচ্চতায় পৌঁছেছিল 350 বিলিয়ন ডলারে। যদিও, 1-2 অক্টোবর, ফের একবার আরেকটি কয়েনের বিক্রি কমেছে 330 বিলিয়ন ডলারে।
    ক্রিপ্টোকারেন্সি বাজারের ডায়নামিক্স ক্রমশ ঐতিহ্যবাহী বাজারের মেজাজ ওপর বেশি নির্ভরশীল এবং এটা বিনিয়োগকারীদের রুচির পরিবর্তন সাপেক্ষে হচ্ছে। বিনিয়োগকারীরা করোনা ভাইরাস পরস্থিতি এবং এর প্রতি রেগুলেটরদের প্রতিক্রিয়ার ওপর নির্ভর করে।
    গ্যালাক্সি ডিজিটাল ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট-এর বিশেষজ্ঞদের মতে, বিটকয়েনকে সংস্থামূলক গোষ্ঠী দেখা শুরু করেছে  মুদ্রাস্ফীতির কারণ হিসেবে, যার অর্থ, এটি এক ধরনের ‘ইনস্যুরেন্স’ যদি মার্কিন ডলার বিশ্বের রিজার্ভ কারেন্সির মর্যাদা হারায়। সোনা (12 ট্রিলিয়ন ডলারের বেশি) ও বিটকয়েনের (প্রায় 200 বিলিয়ন ডলার) ক্যাপিটালাইজেশনের তুলনার ক্ষেত্রে এই কোম্পানির বিশ্লেষকরা উপসংহার টেনেছেন যে ‘পরিস্থিতি মূল ক্রিপ্টোকারেন্সির দিকে যাবে, যেখানে থাকবে মূল্যবান ধাতু থেকে লগ্নির আউটফ্লো, যা ভবিষ্যতে এর মূল্য 60 গুণ বাড়াতে পারে।’
    আপনি যদি 2020 সালের প্রথম 9 মাসের ফলাফলের দিকে তাকান, এটা অবশ্যম্ভাবী দেখা যাবে যে কোভিড-19 অতিমারি ইতিমধ্যে বিটকয়েনকে সুবিধা দিয়েছে। এমনকি মধ্য ফেব্রুয়ারি মার্চের প্রথমের আতঙ্ক সত্ত্বেও, কয়েনের মূল্য বৃদ্ধি হয়েছে প্রায় 40 শতাংশ (সোনা-25 শতাংশ)। আমরা যদি 13 মার্চকে সূচনাবিন্দু হিসেবে ধরি, তাহলে এই সময়কালে মূল ক্রিপ্টোকারেন্সি বৃদ্ধি পেয়েছে 2.75 গুণ (সোনা – 1.3 গুণ)।
    এই পরিস্থিতি ক্রিপ্টোকারেন্সির ভক্তদের বৃদ্ধিতেও অবদান জুগিয়েছে। কেমব্রিজ সেন্টার ফর অল্টারনেটিভ ফিনান্সের একটি সমীক্ষা বলে, বিশ্বের প্রায় 100 মিলিয়ন মানুষ ইতিমধ্যে বিটকয়েন এবং অন্যান্য কয়েনের মালিক হয়েছেন। 2018-এ এঁরা ছিলেন 35 মিলিয়ন, যার অর্থ তিনগুণ কম। বিটিসি ও অন্যান্য কয়েনের মালিকদের সিংহভাগ রয়েছেন উত্তর আমেরিকা ও ইউরোপে, এরপর রয়েছে লাতিন আমেরিকা ও এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলে। 2020-র তৃতীয় ত্রৈমাসিকের শেষে, 191 মিলিয়ন মানুষ ক্রিপ্টোকারেন্সি বিনিয়মের জন্য রেজিস্টার করেছেন।

 

আগামী সপ্তাহের অনুমানের ক্ষেত্রে, বেশকিছু সংখ্যক বিশেষজ্ঞের মতামতের সংক্ষেপের পাশাপাশি টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে আমরা বলতে পারি :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। 65 শতাংশ বিশ্লেষককে H4-এ গ্রাফিক্যাল অ্যানালিসিস দ্বারা সমর্থন করা হয়েছে, তাঁদের প্রত্যাশা যে ডলার আগামী দিনে যেভাবেই হোক নিজের পজিশন শক্তিশালী করতে সক্ষম হবে, এবং এই জোড়া ফের একবার 1.1600-র সাপোর্ট পরখ করতে পারবে। আর এর বিপরীত দিকে D1-এ গ্রাফিক্যাল অ্যানালিসিস এবং 35 শতাংশ বিশেষজ্ঞে, যাঁদের মতে, ইউরো/মার্কিন ডলার জোড়া, ফিরে এসেছে 1.1700-1.2010 পরিধিতে, ধারাবাহিকভাবে যাবে এর কেন্দ্রীয় অংশে এবং সপ্তাহের দ্বিতীয়ার্ধে জমাট বাঁধবে 1.1800-1.1900 পরিধিতে।
    অসিলেটর ও ট্রেন্ড ইন্ডিকেটররা এমন কোনো সংকেত দেননি যা অনুমানের জন্য কম বা বেশি মানানসই। বিশেষ করে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাক্রো পরিসংখ্যানও আজকাল আশা করা হয় না। মঙ্গলবার, 6 অক্টোবর ইউএস ফেডারেল রিজার্ভ প্রধান জেরোম পাওয়েল ও তাঁর ইউরোপিয়ান সতীর্থ ক্রিশ্টিন লাগার্ডে বুধবার, 7 অক্টোবরের বক্তব্য দ্বারা সুদে হয়তো প্রভাব পড়বে। ওই একই দিনে প্রকাশিত হবে ইউএস ফেড ওপেন মার্কেট কমিটির মিনিটস।
    যদিও, সপ্তাহের মূল কৌতূহল নিঃসন্দেহে ট্রাম্প প্রেসিডেন্সিয়াল দম্পতির স্বাস্থ্য। যদি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যথেষ্ট বৃদ্ধ প্রেসিডেন্ট পূর্ণ সময়ের কাজে দ্রুত ফেরেন, এটা নির্বাচনের দৌড়েও ভালো ট্রাম্প কার্ড হবে। এভাবে, তিনি দেখাতে সক্ষম হবেন যে করোনা ভাইরাসের বিপদের মাত্রা তিনি আগেই সঠিক অনুমান করেছিলেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই অতিমারির সঙ্গে যুঝতে পর্যাপ্ত পন্থা গ্রহণ করেছিলেন। যদি এই রোগটির উপসর্গ মারাত্মক আকার নেয়, এটা শুধু ট্রামের নির্বাচনী প্রচার সংক্ষিপ্ত করতে বাধ্য করবে না, বরং এইসঙ্গে ভীতির গুরুত্ব দেখাবে, যা অনেক ভোটারকে তাঁর বিরুদ্ধে নিয়ে যাবে।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। গত সপ্তাহে এই জোড়ার বৃদ্ধির কারণে, ইন্ডিকেটরদের অধিকাংশেরই (85 শতাংশ) রং সবুজ। কিন্তু ভবিষ্যতে কি এই প্রবণতা বজায় থাকবে?
    এটা স্পষ্ট যে এই প্রশ্নের উত্তরের জন্য ইন্ডিকেটরদের রিডিঙের দিকে না তাকানোই ভালো। 2 অক্টোবর, শুক্রবার সন্ধ্যায় যখন এই অনুমান লেখা হচ্ছে, ব্রেক্সিট খবর বৈপরীত্যে ভরে রয়েছে। ব্রিটিশ প্রাইম মিনিস্টার বরিস জনসন শনিবার, 3 অক্টোবর সাক্ষাৎ করবেন ইউরোপিয়ান কমিশন প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লেয়েনের সঙ্গে। এই বৈঠক কীভাবে শেষ হবে তা কেউ অনুমান করতে পারছেন না। এবং তার পর অনিশ্চয়তার আরেকটি বিষয় সময়মতো আসবে – কোভিড 19 ভাইরাসে ডোনাল্ড ও মেলানিয়া ট্রাম্পের সংক্রমণ। এজন্যই বিশ্লেষকদের মতামত বিভাজিত নিম্নরূপ : 40 শতাংশ জোড়াটির বৃদ্ধির পক্ষে, 40 শতাংশ এর পতনের দিকে এবং 20 শতাংশ নিরপেক্ষ অবস্থান নিয়েছেন। বিয়ারের নিকটতম লক্ষ্য হল 1.2675, এরপর 1.2500 অঞ্চলে সাপোর্ট। বুলসের কাজ হল 1.3000-এ রেজিস্ট্যান্স ভাঙা এবং জোড়াটি ফিরে আসা 1.3000-1.3200-এ। 
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। H4 ও D1 উভয়েই গ্রাফিক্স অ্যানালিসিস দেখায় গত সপ্তাহের নিম্নতম 105.00 অঞ্চলে জোড়াটির পতন, এবং আরও 100 পয়েন্ট নীচে, যেখানে এটি ইতিমধ্যে ঘুরে এসেছে 31 জুলাই ও 21 সেপ্টেম্বর। এক্ষেত্রে রেজিস্ট্যান্স হবে 105.80-র স্তরে। 
    দক্ষিণে ভ্রমণ শেষ করে, যেমন D1-এ গ্রাফিক্যাল অ্যানালিসিস জানিয়েছে, জোড়াটির ফিরে আসা উচিত 105.00-106.00 অঞ্চলে এবং অক্টোবরের শেষদিকে আরও এগোবে 107.00-এ।
    বিয়ারধর্মী সেন্টিমেন্টও 85 শতাংশ বিশেষজ্ঞ সমর্থন করেন, পাশাপাশি 70 শতাংশ ইন্ডিকেটরও। বিশ্লেষকদের অনুমান খুব বেশি প্রভাবিত করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে করোনা ভাইরাস অতিমারির পরিস্থিতি, যা এখন সরাসরি প্রভাব ফেলেছে ট্রাম্প দম্পতির ওপর। এবং সেটাও দেশের প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচনের মাত্র এক মাস আগে। যদিও পরিস্থিতি খুব দ্রুত বদলাতে পারে, এবং চিত্রটি বোঝা যাবে, যার জন্য মাত্র 15 শতাংশ বিশেষজ্ঞ ভোট দিয়েছেন, যে অনুযায়ী জোড়াটি বৃদ্ধি পাবে এবং দ্রুত 106.55-107.00 অঞ্চলে পৌঁছবে।

  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। বিটকয়েনের সংখ্যা 18.5 মিলিয়ন ইউনিট অতিক্রম করেছে। মোট ইস্যুর মাত্র 12 শতাংশের নীচে অথবা 2.5 মিলিয়নের কম কয়েন উৎপাদনের জন্য লভ্য, যা পরবর্তী চার বছরে মাইনড হতে পারে এবং শেষ কয়েনটি 2140-তে।
    বিটকয়েনের স্রষ্টা সাতোশি নাকামোতো দ্বারা প্রতিষ্ঠিত অ্যালগরিদম অনুযায়ী স্মরণ করলে, কয়েনের মোট পরিমাণ 21 মিলিয়ন, এবং প্রতি চার বছর অন্তর উদ্ভব হাভিং ঘটে – মাইনারদের জন্য রিওয়ার্ড হাভ হয়। হাভিঙের মূল কাজ হল ক্রিপ্টোকারেন্সি ও এর ইনফ্লেশন নিয়ন্ত্রণ করা।
    বিটকয়েন মাইনাররা আশা করছেন মূল কয়েনের মিছিল পুনরাবৃত্তি হবে তিন বছর আগের মতো। বহু বাজার প্রতিনিধি আত্মবিশ্বাসী যে ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেটের জন্য সমস্ত শর্ত রয়েছে এখন সক্রিয় বিকাশের। এটা হল মূল কয়েনকে 20000 ডলারে টেনে আনা।
    ক্রিপ্টো কোয়ান্ট ট্রেডিং প্ল্যাটফর্ম প্রধান কি ইয়োং জু উল্লেখ করেছেন যে গ্রীষ্মের মাঝামাঝি বাজারে একটি বুলিশ সেন্টিমেন্ট ফিরে আসার ইঙ্গিত রয়েছে, কিন্তু শক্তিশালী বাহ্যিক উপাদানগুলি তখন কয়েনের মূল্য বৃদ্ধির বিরোধিতা করবে। ‘এটা অনস্বীকার্য ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেটের ওপর মাইনিং পুলের তাৎপর্যপূর্ণ প্রভাব আছে। এটা মনে করা মূল্যবান যে এই মাসে হাভিঙের পারম্পর্য, যখন মূল কয়েনের হ্যাশরেট কিছু সময়ের জন্য পতন ঘটেছিল। এরকম পরিস্থিতিতে বৃদ্ধি অসম্ভব হয়ে ওঠে, সেজন্য বিনিয়োগকারী এবং সম্পদধারীরা অপেক্ষা করো-দেখো কৌশল নিয়েছেন। এখন পরিস্থিতি সম্পূর্ণ আালাদা, মাইনার পজিশন ইনডেক্স (এমপিআই) ধারাবাহিকভাবে শক্তিশালী হচ্ছে। তারা যত বেশি সম্ভব ব্লক মাইন করার চেষ্টা করছে যাতে সর্বাধিক রিওয়ার্ড পাও। বিটকয়েনের হ্যাশরেটও এইসঙ্গে উচ্চ মূল্যে রয়েছে’, বলেছেন জো।
    ব্লুমবার্গ ইন্টেলিজেন্স চিফ কমোডিটি স্ট্র্যাটেজিস্ট মাইক ম্যাকগ্লোনও বৃদ্ধি আশা করছেন। তাঁর বিশ্বাস যে প্রথম ক্রিপ্টোকারেন্সির 15000 ডলার মূল্য হওয়া উচিত। তিনি এই উপসংহারে এসেছেন 2017 সালের পর থেকে সক্রিয় অ্যাড্রেসিদের সংখ্যা বৃদ্ধির ডায়নামিক্সের ভিত্তিতে। পাশাপাশি, তাঁর হিসেবে বিকল্প পরিস্থিতির সম্ভাবনা কম।
    বর্তমান অনুমানের ক্ষেত্রে, এখানে সবকিছুই প্রায় একই : বিটিসি মার্কিন ডলার জোড়ার ট্রেডিং রেঞ্জের নিম্নতর সীমা হল 9500 ডলার, মূল সাপোর্ট 10000 ডলার, মূল রেজিস্ট্যান্স 11000 ডলার। একই সময়ে, এই উচ্চতায় বুলসের পরবর্তী আক্রমণের সম্ভাবনা, বিশেষজ্ঞদের মতে, মোটামুটি 70 শতাংশ, এবং এই স্তরের ওপরে জমাট বাঁধার সম্ভাবনা দ্বিগুণ কম।

 

নর্ডএফএক্স অ্যানালিটিক্যাল গ্রুপ

 

বিজ্ঞপ্তি : এসব তথ্য আর্থিক বাজারে কাজের জন্য বিনিয়োগ বা পরামর্শ হিসেবে কোনো সুপারিশ নয় : এগুলি একমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং এর ফলে ডিপোজিটকৃত ফান্ডের পরিপূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)