জুলাই 5, 2020

প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলির পর্যালোচনা :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। সর্বশেষ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিয়োগ তথ্য শুধু আশাবাদীই নয়, বরং অতিরিক্ত আশাবাদী : প্রায় 4.8 মিলিয়ন মানুষ কাজে ফিরেছেন জুনে। বেকারি হার কমেছে 13.3. শতাংশ থেকে 11.1 শতাংশ – 1939 সালে রেকর্ড করা শুরুর পর কৃষিক্ষেত্রের বাইরে এটাই শ্রেষ্ঠ বৃদ্ধি।
    তাহলে কী? কিছুই না! বাজার প্রায় বন্ধ হেয় গেছে ম্যাক্রোইকোনমিক ইন্ডিকেটরের প্রতিক্রিয়ায় কেননা এর আছে নতুন, আউটপারফর্মিং ইন্ডিকেটর : নতুন করে কোভিড-19 সংক্রমণের সংখ্যা এবং এই ভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা। এবং এখানে ইউরোপ ও চীন উভয়কে পেছনে ফেলেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এর ফলে, মার্কিন অর্থনীতি জটিল আবর্তে পড়েছে : যত বেশি নিয়োগ, ততই নতুনভাবে খোলা ব্যবসা, যত বেশি মানুষ কাজে গেছেন, রেস্তোরাঁয় গেছেন, বাস ও সাবওয়েতে ভ্রমণ করেছেন এবং আরও... করোনা ভাইরাসে নতুনভাবে সংক্রমিত হয়েছেন। শুধু বৃহস্পতিবার 2 জুলাই এর সংখ্যা ছিল 57 হাজার – এপ্রিলে এর শীর্ষের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি।
    চীন ও ইউরোপে বিষয়টি তাৎপর্যপূর্ণভাবে উন্নততর, এবং সেজন্য তারা তাদের অর্থনীতিকে আরও সক্রিয়ভাবে পুনরুদ্ধার করতে পারে। উলটোদিকে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, বাধ্য হয়েই এই প্রক্রিয়া ধীরে করবে। জুলাইয়ের জন্য ইতিবাচক পরিসংখ্যা হয়তো উপরে উঠবে, যার পর নতুন পতন হতে পারে। কংগ্রেশনাল বাজেট অফিসের মতে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দরকার হবে অন্তত দশ বছর, অতিমারির আগের অবস্থায় বেকারির হারকে (3.5  শতাংশ) ফিরিয়ে নিয়ে যেতে।
    সিদ্ধান্ত গঠনের জন্য অন্যান্য চালকের অনুপস্থিতিতে, বাজার এসে দাঁড়িয়েছে ক্রসরোডে, প্রত্যাশা হল কোভিড-19 পরিস্থিতি কীভাবে আরও উন্নত হয় এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্ব অতিমারির দ্বিতীয় ঢেউ সামলাতে কী পদক্ষেপ করে সেটা দেখা। বিশেষজ্ঞদের অনুমানে এটা প্রতিফলিত যে বিনিয়োগকারীরা কোনো দিক গ্রহণে অক্ষম, এর পতন ঘটেছে 40 শতাংশ এবং সাইড ট্রেন্ড 30 শতাংশ। একই সময়ে, যে চ্যানেলের বাউন্ডারিতে এটি জুনের গোটা দ্বিতীয়ার্ধে ঘোরাফেরা করছিল - 1.1170 এবং 1.1350 সেটাই ধরা হয়েছে সাপোর্ট ও রেজিস্ট্যান্সের প্রধান স্তর হিসেবে। বাস্তবে, গতিশীলতা ছিল আরও কম, জোড়াটি 1.1185-1.1300–এর ওপরে যায়নি এবং সপ্তাহটি শেষ করেছে 1.1245-এ, মার্চ ২০১৯-এর মতো প্রায় সেই একই পিভট পয়েন্টে, 1.1240।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। এটা কি ছিল স্বল্পস্থায়ী সংশোধন নাকি জুনের 20-দিন ডাউনট্রেন্ডের বিপরীত? বেশকিছু বিশেষজ্ঞের মতে, ব্রেক্সিট-উত্তর পর্বে বোঝাপড়া ভালোই হচ্ছে এবং মনে হচ্ছে ইউরোপিয়ান কোর্ট অব জাস্টিসের রায় মেনে নিতে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন তৈরি। ব্রিটিশ কারেন্সির ভবিষ্যৎ সম্পর্কে এটি বিনিয়োগকারীদের একটি নির্দিষ্ট আশায় প্রেরণা দেয়, যা এর কোটে প্রতিফলিত : ইউরো ও ডলারের সাপেক্ষে পাউন্ড বৃদ্ধি হচ্ছে। সোমবার, জুন 29-এ জিবিপি/মার্কিন ডলার জোড়া ছিল স্থানীয় নিম্ন 1.2250-এ, তারপর এটি দৃঢ়ভাবে উপরে ওঠে, বৃহস্পতিবার, 2 জুলাই পৌঁছয় 1.2530 উচ্চতায়। শেষপর্যন্ত 1.2480-এর আশেপাশে, যা পাউন্ডকে এক সপ্তাহে মার্কিন কারেন্সি থেকে 145 পয়েন্ট জিততে দিয়েছে।  
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। জাপানের স্টেট পেনশন ফান্ড (জিপিআইএফ), এক্ষেত্রে পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি, ঘোষণা করেছে 2020-এর প্রথম ত্রৈমাসিকে রেকর্ড ক্ষতি, যার পরিমাণ ¥17.7 ট্রিলিয়ন (165) বিলিয়ন ডলার)। এর ক্ষতির কাঠামোর ভিত্তিতে কিছু বিশ্লেষণাত্মক মন্তব্য করা যায়। সেজন্য, জিপিআইএফ এর শেয়ার বিদেশি কোম্পানিতে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে কমেছে 22 শতাংশ (¥10.2 ট্রিলিয়ন), জাপানি স্টক মার্কেটে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে 18 শতাংশ (¥7.4  ট্রিলিয়ন) এবং জাপানি সরকারি সিকিউরিটিতে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে মাত্র 0.5 শতাংশ (¥185 বিলিয়ন)। অতিমারির কারণে, আমেরিকান S&P500 সূচকের পতন ঘটেছে 20 শতাংশ, জাপনি টোপিক্স সামান্য কম – ১৮ শতাংশ, দশ-বছর ইউএস ট্রেজারির ফল এই সময়ে কমেছে 125 বেসিস পয়েন্ট, এবং এক্ষেত্রে জাপানে একই রকম সরকারি সিকিউরিটি বৃদ্ধি পেয়েছে 3 বিপিএস। ইয়েনও প্রথম ত্রৈমাসিকে শক্তিশালী হয়েছে – ডলারের তুলনায় 1 শতাংশ এবং ইউরোর সাপেক্ষে 3 শতাংশ। এই সংখ্যা বেশ অলংকারপূর্ণ যেখানে জাপানি সম্পদকে বাস্তব স্বর্গ হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে।
    মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই জোড়ার গত সপ্তাহের ব্যবহারের জন্য, বিশেষ কোনো ইভেন্ট ছিল না : ইয়েন ও ডলার খোঁড়াচ্ছে বিনিয়োগকারীদের ফান্ডে সাফল্য সহ, যাঁরা ঝুঁকি নিতে চান না, এর ফলে, জোড়াটি 107.50 অঞ্চলের পিভট পয়েন্টে ধারাবাহিক চলাফেরা করেছে। এজন্যই এটা এখানে ট্রেডিং সেশন শেষ করেছে।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। ব্রিটিশ ইনভেস্টমেন্ট ফার্ম বায় শেয়ার্স-এর মতে, গত পাঁচ বছরে বিশ্বের অগ্রগণ্য ইনডাইসগুলিকে গড়ে 70 বার টপকে গেছে বিটকয়েন। এই সময়ে, প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগ এনেছে 3400 শতাংশেরও বেশি লাভ। একই সময়ে, নাসডাক সূচক বেড়েছে 96 শতাংশ। S&P500 সূচক, যার বাস্কেটে অন্তর্ভুক্ত মার্কিন এক্সচেঞ্জের 505 নির্বাচিত কোম্পানিতে দেখা গেছে এমনকি আরও কম রিটার্ন – 46 শতাংশ। ডাও জোনস ইন্ডাস্ট্রিয়াল গড়েরও একইরকম ফল – 42 শতাংশ। উপরের থেকে সবচেয়ে খারাপ ফল দেখিয়েছে ব্রিটিশ স্টক এক্সচেঞ্জ FTSE100 – জুন 2015 থেকে এখন পর্যন্ত, এর কোট পড়েছে প্রায় 7 শতাংশ।
    যদিও, বিটকয়েনের অতীতের গুণাবলি মোটেও বর্তমান ও ভবিষ্যৎ গুণাবলির গ্যারান্টি নয়। প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সি টানা সাত সপ্তাহ ধরে ধারাবাহিকভাবে ঘোরাঘুরি করছে 9,000-10,000  ডলারের সংকীর্ণ পরিসরে। এরকম সাইডওয়ে প্রবণতা বারবার হলে শেষ হয় বিপর্যয়ে। সেজন্য, বিটকয়েন খুব বিপজ্জনকভাবে চাপ দিয়েছে চ্যানেলের নিম্ন সীমাতে গোটা গত সপ্তাহ জুড়ে, 9,285 ডলার দিগন্তের ওপরে যায়নি। উপরন্তু, বিয়ার বেশ কয়েকটি ব্রেকআউট প্রচেষ্টা করেছিল, যখন বিটিসি-র মূল্য নেমে গিয়েছিল 8840 ডলারে, যা বিনিয়োগকারীদের দিয়েছিল অস্বস্তিকর অনুভব। এরকম ডায়নামিক্স মাইনারদের সন্তুষ্ট করতে পারে না মে হাভিঙে ক্ষতির পর।
    উপরে বিটকয়েনের ফিরে আশার দুর্দান্ত পরিসংখ্যান সত্ত্বেও, বিশ্লেষকরা স্টক মার্কেটের সঙ্গে ক্রিপ্টোকারেন্সির সমন্বয়ের কথা বলেই চলেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অতিমারির দ্বিতীয় ঢেউয়ের বিপজ্জনক প্রত্যাশার প্রেক্ষাপটের বিপরীতে, সপ্তাহ শেষে স্টক ইনডাইস চলে গেছে লাল অঞ্চলে : বিনিয়োগকারীর ঝুঁকির খিদে অদৃশ্য হচ্ছে। সেরকমই, বিটকয়েনে তাঁদের আগ্রহ কমছে। ক্রিপ্টো মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন প্রায় অপরিবর্তিত : 19 জুনে 266 বিলিয়ন ডলার, 26 জুনে 263 বিলিয়ন ডলার, 3 জুলাইয়ে 260 বিলিয়ন ডলার (মনে রাখবেন যে ঠিক দুবছর আগে, জুন-জুলাই 2018, ক্রিপ্টো মার্কেট ঠিক একইরকম পরিমাণ দেখিয়েছিল)। ক্রিপ্টো ফিয়ার অ্যান্ড গ্রিড সূচকও শ্লথ ব্যবহার করছে : এর তির 41-এ (19 জুনে 39 এবং 26 জুনে 40)।
    এখন অল্টকয়েন সম্পর্কে। সব ধরনের ক্রিপ্টো কয়েনের মোট সংখ্যা আজ একটি দৈতাকৃতি সংখ্যা, 5687। বিটকয়েন বাজারে প্রাধান্য করে, মোট পরিমাণের 64.4 শতাংশ ধরে রেখেছে। এর পর রয়েছে ইথেরিয়াম (ইটিএইচ) 9.70 শতাংশ। এই কয়েনের চাহিদা বেড়েছে এর সৃষ্টিকর্তা ভিটালিক বুটেরিনের প্রতিশ্রুতির জন্য, প্রতি সেকেন্ডে নেটওয়ার্ক ব্যান্ডউইদ বৃদ্ধি পাবে 100 হাজার লেনেদেনে। এর পর সবচেয়ে জনপ্রিয়টি রিপলকে পেছনে ফেলে হয়ে উঠেছে টেদার স্টেবলকয়েন (ইউএসডিটি), যা ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেটের জন্য কঠিন সময়েও ইতিবাচক ডায়নামিক্স দেখায়। গত সপ্তাহের শেষে ইউএসডিটি-র ক্যাপিটালাইজেশন ছিল 3.55 শতাংশ, যেখানে রিপল (এক্সআরপি)-র ক্যাপিটালাইজেশন ছিল মাত্র 3.04 শতাংশ।

 

আগামী সপ্তাহের অনুমানের ক্ষেত্রে, বেশকিছু সংখ্যক বিশেষজ্ঞের মতামতের সংক্ষেপের পাশাপাশি টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে আমরা বলতে পারি :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। আগামী সপ্তাহে বিশেষ কোনো আর্থিক ঘটনা আশা করা হচ্ছে না। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বেকার ভাতার জন্য নতুন আবেদনের সংখ্যা, পাশাপাশি এই দেশের পরিষেবা ক্ষেত্রে আইএসএম ব্যবসার কিছু তথ্য, এবং জার্মানির শিল্পজাত উৎপাদনের তথ্য জানা যাবে। যদিও, খুব সম্ভবত, এরা বাজারকে খুব বেশি ঝাঁকুনি দিতে সক্ষম হবে না। কারণ হল সব সুদের হার প্রায় শূন্য, বন্ড ফসের ছড়ানোতেও খুব বেশি প্রতিক্রিয়ার কিছু নেই। এবং যেমন আগে বলা হয়েছে, কোভিড-19 সম্পর্কে খবরে বিনিয়োগকারীদের প্রতিক্রিয়া প্রভাব ফেলবে ইউরো/মার্কিন ডলার জোড়ার ব্যবহারের ওপর।
    আরেকটি কৌতূহলকর বিষয় আছে যা ডলারে প্রভাব ফেলতে পারে, সেটা হল মার্কিন প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচনের ফলাফল, যা দেশের আরও আর্থিক নীতি নির্ধারণ করবে। কিন্তু সেটা এখনও চার মাস দূরে, এবং শরৎ শুরু হলেই গুরুতর পুনরুদ্ধার আশা করা যেতে পারে। যদিও ডোনাল্ড ট্রাম্প পরিচিত যে কোনো মুহূর্তে সবচেয়ে অভাবিত বিস্ময় উপস্থাপনের জন্য। যদিও এই ‘প্যারামিটার’ সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করা প্রায় অসম্ভব।
    সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে ইউরো মার্কিন ডলার জোড়ার ব্যবহারে ইন্ডিকেটর রিডিঙে গুরুত্ব দেওয়ার কিছু নেই, এবং এটা প্রায় অসম্ভব, কেননা তাদের প্রধান রং H4 ও D1 উভয়েই হয়ে উঠেছে নিরপেক্ষ ধূসর। গ্রাফিক্যাল অ্যানালিসিসও কোনো কাঠামো প্রত্যাখ্যান করেছে। কিন্তু বিশ্লেষকদের মধ্যে ডলারে বিশ্বাস এখনও রয়েছে। সুতরাং, তাঁদের 45 শতাংশ এর বিকাশ এবং ইউরো/মার্কিন ডলার জোড়ার পক্ষে, প্রথমে 1.1170 চ্যানেলের নিম্ন সীমা এবং যদি এটা ব্রেকডাউন হয় – আরও 70-100 পয়েন্ট নীচে। বিশেষজ্ঞদের 25 শতাংশ আশা করছেন যে এই জোড়াকে দেখা যাবে 1.1400 উচ্চতায়, এবং বাকি 30 শতাংশের অনুমান এর জমাট বাঁধার ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে পিভট পয়েন্ট 1.1240 অঞ্চলে।

  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। সুতরাং আসুন এই পর্যালোচনার প্রথম অংশে যে প্রশ্ন করা হয়েছিল সেটা পুনরাবৃত্ত করি : এটা কি ছিল স্বল্পস্থায়ী সংশোধন অথবা জুনের ডাউনট্রেন্ডের বিপরীত?’ H4-এ গ্রাফিক্যাল অ্যানালিসিস প্রত্যয়ের সঙ্গে উত্তর দেয় : ‘একটি বিপরীত’ এবং জোড়াটির আরও আরোহণ 10 জুনের 1.2810-এ। D1-এ, অনুমান কিছুটা পৃথক – প্রথমে, 1.2245 সাপোর্টে পতন, তারপর 1.2480 স্তরে ফেরা।
    H4-এ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটর (90%) এবং অসিলেটরদের (85%) অধিকাংশই সবুজ। D1-এ এরকম কোনো ঐক্য নেই : এখানে অগ্রাধিকার ধূসর নিরপেক্ষ গেছে এবং 15% অসিলেটর সংকেত দিয়েছে জোড়াটি অতিরিক্ত ক্রীত।
    বিশ্লেষকদের জন্য, তারা প্রথমে অপেক্ষা করবে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্যের বেরোনো সম্পর্কে পরের রাউন্ডের বোঝাপড়ার ফলাফলের জন্য। এর মধ্যে, তাঁদের 30 শতাংশের বিশ্বাস যে জোড়াটি যাবে ল্যাটারাল করিডোর 1.2245-1.2680-এর মধ্যে, কেন্দ্রীয় অঞ্চলে যেখানে এটি গত সপ্তাহে সমাপ্ত করেছিল। আরও 20 শতাংশের প্রত্যাশা এটা উঠবে 1.2810 উচ্চতায় এবং 50 শতাংশ বিশেষজ্ঞ প্রত্যাশা করেন জোড়াটির পতন ঘটবে 1.2160 সাপোর্ট এবং তারপর 100 পয়েন্ট নীচে।
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। এখানে বিশেষজ্ঞদের ভোট যেভাবে বণ্টিত হয়েছে তা দেওয়া হল : জোড়াটির বিকাশের পক্ষে – 40 শতাংশ, এর পতনের জন্য – 40 শতাংশ, সাইডওয়ে ট্রেন্ডের পক্ষে – 20 শতাংশ। H4-এ ইন্ডিকেটর রিডিং স্পষ্ট নয়, এবং একমাত্র রেফারেন্স পয়েন্ট হতে পারে D1-এ তাঁদের রিডিং। এই সময়সীমায় ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরদের মধ্যে 70 শতাংশ উত্তরে এবং অসিলেটরদের 85 শতাংশ। সাপোর্ট স্তর হল 107.30, 106.60 এবং সাইড চ্যানেলের নিম্ন সীমা হল 106.00। রেজিস্ট্যান্স স্তর 108.10, 109.30 এবং 109.85।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। মার্কেটের গুরুরা, বরাবরের মতো, তাঁদের মাথা তুলেছেন তারার দিকে, ভবিষ্যদ্বাণী হল বিটকয়েনের কসমিক টেকঅফ। ক্রিপ্টো রিসার্চ রিপোর্টের জুন ইস্যু একটি অনুমান উপস্থাপন করেছে যে বিটিসি-র মূল্য পরের দশ বছরে হতে পারে 400000 ডলার। শীর্ষস্থানীয় অল্টকয়েনগুলি, ইথেরিয়াম (ইটিএইচ), লাইটকয়েন (এলটিসি), বিটকয়েন ক্যাশ (বিসিএইচ) এবং স্টেলার (এক্সএলএম)-ও তাৎপর্যপূর্ণভাবে মূল্য বৃদ্ধি করবে। রিপোর্টে বলা হয়েছে, ‘আমাদের বিশ্বাস বিটকয়েন রয়েছে এর গ্রহণযোগ্য কার্ভের একেবারে শুরুতে। 2019-এর শেষে 7200 ডলার মূল্য ইঙ্গিত দেয় যে বর্তমানে বিটিসি রয়েছে মোট 212 ট্রিলিয়ন বাজারের 0.44 শতাংশ। যদি এই পেনিট্রেশন 10 শতাংশে পৌঁছয়, এর মূল্য হওয়া উচিত প্রায় 400000 ডলার।’ এর অর্থ  2030 সালের মধ্যে বিটিসি-র মূল্য 4000 শতাংশেরও বেশি হবে। ইটিএইচ, এলটিসি এবং বিসিএইচ-কেও এই পরিস্থিতিতে অত্যন্ত আশাবাদী দেখাচ্ছে, এগিয়েছে 1600%, 5000% এবং 5400%। বৃহত্তম বিকাশ এক্সএলএম দ্বারা দেখানো উচিত, 11,000% শতাংশের বেশি (0.07 ডলার থেকে 7.81 ডলার)।
    এমনকি বিটকয়েনের একটি উচ্চতর মূল্য অনুমান করেছেন টিভি প্রেজেন্টার তথা বিটকয়েন ক্যাপিটালের প্রতিষ্ঠাতা ম্যাক্স কাইজার। স্মরণ করেছেন যে তিনি এই ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রচার শুরু করেছিলেন যখন এর মূল্য ছিল মাত্র 1 ডলার, এবং এখন কাইজারের মতে, একটি কয়েনের মূল্য পৌঁছতে পারে 500000 ডলারে। যদিও এর জন্য দরকার ‘মাত্র একটি ছোট্ট বিষয়’ – হ্যাশরেটের জন্য ইরান ও ভেনেজুয়েলার সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মাইনিং যুদ্ধ। টিভি প্রেজেন্টারের গণনা অনুযায়ী, বিশ্বের হ্যাশরেটের 3 শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করে ইরান, ভেনেজুয়েলা খুব দ্রুত হ্যাশরেটের 3-5 শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে, মাইনিঙের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রজকে দৌড়ে বাধ্য করতে পারে, এবং এতে প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্য বাড়বে।
    যদিও, অনতিভবিষ্যৎ এত গোলাপি নয় যতটা ম্যাক্স কাইজারের পছন্দ। আমরা ইতিমধ্যে বলেছি যে বৃহৎ ইনস্টিটিউশনাল ইনভেস্টরের চোখে বিটকয়েন, ছিল আছে এবং থাকবে দীর্ঘদিনের জন্য একটি ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদ, যেমন স্টক ইনডেক্স S&P500-র অনুযায়ী। এবং নিকট ভবিষ্যতে জেপি মর্গ্যান-এ বিশ্লেষকদের মতে, পেনশন ফান্ড তাদের অ্যাসেট শেয়ারে লিকুইডেট করতে পারে 175 বিলিয়ন ডলার মূল্যে, যা একটি ট্রিগারের মতো কাজ করবে, স্টক ও ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কে বিক্রির ঢেউয়ের কারণ হয়ে উঠবে।
    বিশেষজ্ঞদের কেউ বিটিসি/মার্কিন ডলার জোড়াকে আগামী সপ্তাহে 9000 ডলারের ওপরে দেখছেন না, বিশেষজ্ঞদের 40 শতাংশের আশা সাইডওয়ে ট্রেন্ড বজায় থাকবে 9,000-10,000 ডলার অঞ্চলে। অধিকাংশ বিশ্লেষকের (60%) বিশ্বাস জোড়াটির পতন ঘটবে 8,000-9,000 স্তরে।
    মাঝারি-মেয়াদের অনুমানের রূপান্তরে, বুল-এর সমর্থকদের সংখ্যা উঠেছে 55-60 শতাংশ। সেজন্য, উদাহরণস্বরূপ, ব্লুমবার্গ বিশ্লেষক মাইক ম্যাকগ্লোন ভাবেন যে বিটিসি-র মূল্য উঠতে পারে ১৩০০০ ডলারে এবং বছরের শেষে এমনকি 20000 ডলারের কাছে। এরপর, অনেক বিশেষজ্ঞের আশা, দীর্ঘ অবস্থানের একটি বিশাল ক্লোজার আসবে এবং জোড়াটির পতনের আশাপ্রদ রোলব্যাক ঘটবে।

 

নর্ডএফএক্স অ্যানালিটিক্যাল গ্রুপ

 

বিজ্ঞপ্তি : এসব তথ্য আর্থিক বাজারে কাজের জন্য বিনিয়োগ বা পরামর্শ হিসেবে কোনো সুপারিশ নয় : এগুলি একমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং এর ফলে ডিপোজিটকৃত ফান্ডের পরিপূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)