জুন 27, 2020

প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলির পর্যালোচনা :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। কোভিড-19 তার দ্বিতীয় আক্রমণ ধারাবাহিক রেখেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। অন্তত সাতটি প্রদেশে পরিলক্ষিত হয়েছে সংক্রমণের নতুন বৃদ্ধি। এবং তিনটি সবচেয়ে জনবহুল প্রদেশ, সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা বেড়েছে রেকর্ড গতিতে, দুসপ্তাহের মধ্যে মৃত্যুহার বৃদ্ধিরও আশঙ্কা। হাউস্টন (টেক্সাস) কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করেছে যে হাসপাতালগুলিতে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটগুলি (আইসিইউ) প্রায় পূর্ণ। এটা স্পষ্ট যে নতুন সংক্রমণের সঙ্গে মে মাসের শেষে কোয়ারান্টাইন তুলে দেবার সম্পর্ক রয়েছে। এবং হোয়াইট হাউস বা গভর্নররা আর কোয়ারান্টাইনে ফিরতে চান কি না সেটা ব্যাপার নয়, তাঁদের এটা করতে হবে তার সম্ভাবনাই বেশি।
    এই প্রেক্ষাপটের বিপরীতে, রিস্ক সেন্টিমেন্ট দুর্বল হতে শুরু করেছিল, স্টক মার্কেট ও সরকারি বন্ডের সুফলের পতন ঘটেছিল, এবং ডলার, যা এখন প্রধান প্রতিরোধক কারেন্সির মর্যাদা পায়, উলটোদিকে, বেড়ে গিয়েছিল। বিনিয়োগকারী ডলারে বিশ্বাস করে এজন্য প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নীতিকে ধন্যবাদ, যিনি তাঁর নিজস্ব অর্থনীতির স্বার্থে, ফের অন্যান্য দেশগুলির ওপর চাপ বৃদ্ধি করছেন, বাণিজ্য ট্যারিফের আরেকটি অংশ নিয়ে তাঁদের হুমকি দিচ্ছেন। শুধু চীন নয়, বরং এইসঙ্গে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, গ্রেট ব্রিটেন ও কানাডাও ইতিমধ্যে আক্রমণের মুখে পড়েছে।
    এবং যদি সপ্তাহের শুরুতে ইউরোপিয়ান কারেন্সির তুলনায় ডলার সামান্য পড়ে যায়, এটা পতনের অধিকাংশটাই ফিরিয়ে আনতে পেরেছিল মঙ্গলবার, 23 জুন থেকে। প্রতি-আক্রমণের ফলাফল হিসেবে ইউরো/মার্কিন ডলার জোড়া ফিরেছিল 1.1240-এর শক্তিশালী সাপোর্ট/রেজিস্ট্যান্স অঞ্চলে, যার চারপাশে এটি ওঠানামা করেছিল মার্চ 2019-এ, এবং পাঁচ-দিনের পর্ব শেষ করছে 1.1225-এ।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। যদি দূরত্ব, যা পাস হয়েছে সপ্তাহের দ্বিতীয়ার্ধে ইউরো মার্কিন ডলার ছিল মোটামুটি 160 পয়েন্টে, ব্রিটিশ পাউন্ডের অবনমন ঘটেছিল আরও দ্রুত, 230 পয়েন্ট। এমনকি পরিষেবা ক্ষেত্রে ব্যবসায় ক্রিয়াকলাপের মার্কিট সূচকে 60 শতাংশ বিকাশও পাউন্ডকে সাহায্য করতে পারেনি, ব্রেক্সিট সমস্যার কারণে এনিয়ে বাজারের গুরুতর শঙ্কা আশ্চর্যের কিছু নয়। যদিও, সপ্তাহের শেষে, জোড়াটির 22 জুন থেকে 24 জুন পর্যন্ত বিকাশের হিসেব করা আবশ্যক, একটি কারণ ছিল সেন্ট্রাল ব্যাংকের ফেড অব সোয়াপের টেপারিং, লিকুইডিটি বজা রাখতে খুলেছিল মার্চে। প্রদত্ত এই বিকাশ, সপ্তাহের চূড়ান্ত ফল হল শূন্যের কাছে, 1.2350 থেকে শুরু করে জোড়াটি শেষ করে 1.2335-এ, ডলারের পক্ষে ন্যূনতম 15 পয়েন্ট মার্জিন রেখে।
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। অধিকাংশ বিশ্লেষক (60%), ইন্ডিকেটরদের জন্য প্রায় পূর্ণ সমর্থন করেছেন, তাঁদের আশা ছিল এই জোড়াটি 106.00-এর দিগন্তে, এবং এই অনুমান 100% সঠিক হয়েছে, জোড়াটি মঙ্গলবার, 23 জুন পৌঁছেছিল নীচে, 106.05-এ। এর পর, এটি ঘুরে দাঁড়ায় এবং ওঠে 107.45 উচ্চতায়, যার পরে সংশোধিত হয়েছে এবং শেষপর্যন্ত ছিল 107.20-তে, সঙ্গে ডলারের পক্ষে সামান্য সুবিধা, 25 পয়েন্টের।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। সাইবার সিকিউরিটি কোম্পানি ক্লিয়ারস্কাই-এর বিশেষজ্ঞরা হিসেব করেছেন যে হ্যাকারদের একটি গ্রুপ, নাম ক্রিপ্টোকোর (লিরি টার্টল নামেও পরিচিত) গত কয়েক বছরে চুরি করেছে 200 মিলিয়ন ডলারেরও বেশি, ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জ আক্রমণ এবং ক্রিপ্টো ওয়ালেট ক্র্যাক করে। এটা মনে রাখতে হবে যে বহু ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জে নিরাপত্তা হল প্রকৃতই একটি দুর্বল জায়গা, যা নর্ডএফএক্স ব্রোকারেজ কোম্পানি সম্পর্কে বলা যায় না। 10 বছরেরও বেশি কাজ করে এর বিশেষজ্ঞদের বিশাল অভিজ্ঞতা হয়েছে যা দিয়ে হ্যাকারের আক্রমণ প্রতিহত করা যায়, সবচেয়ে আধুনিক প্রযুক্তিগত সাপোর্ট আমাদের গ্রাহকের ফান্ডের সর্বাধিক প্রতিরক্ষা সম্পর্কে কথা বলতে অনুমোদন দেয়। 2008 থেকে নর্ডএফএক্স-এ একটিও হ্যাকিঙের ঘটনা ঘটেনি, এবং এটি গ্রাহকের মার্কিন ডলার এবং বিটিসি ও ইটিসি উভয় অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য।
    অপরাধের খবরের সঙ্গে, ডয়েশ ব্যাংক আমাদের কাছে সমস্যার খবর এনেছে। এর বিশেষজ্ঞরা, ক্রিপ্টোকারেন্সির ভবিষ্যৎ অনুমান করছেন, সমস্বরে, অন্যদের সঙ্গে, একটা সম্পূর্ণ ইঙ্গিতপূর্ণ চিত্র। তাঁদের মতে, সূর্যে আউটব্রেক দ্বারা এই গ্রহের ইলেকট্রনিক্স একটা সময়ে গুরুতর ক্ষতিগ্রস্ত হবে, যার কারণে বিটকয়েন অদৃশ্য হবে যেমন, ফিয়াট মানির মতো নয়, এটা আর ব্যবহার করা যাবে না অতিরিক্ত অ্যাপ্লায়েন্স এবং শক্তি উপভোগ ছাড়া।
    এদিকে, সৌর ক্রিয়াকলাপের বিস্মরণে, প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সি ধারাবাহিকভাবে টানা ষষ্ঠ সপ্তাহ ধরে নড়াচড়া করে 9000-10000 ডলারের পরিধিতে। 10000 ডলার রেজিস্ট্যান্স ভাঙার আরেকটা প্রচেষ্টা 22 জুন, সোমবার ব্যর্থ হয়েছে, যার পর বিয়ারের হাতে প্রচেষ্টা চলে গেছিল, যে চ্যানেলের নীচের সীমান্তে কোট ড্রপ করেছে।
    কিছু বিশ্লেষকের মতে, এই পতনের কারণ বিটকয়েন অপশনে 1 বিলিয়ন ডলারের প্রত্যাশার দ্রুত অবসান। কোভিড-19 অতিমারির দ্বিতীয় ঢেউয়ের ভীতি, যা এখন বাজারে আরও আরও বেশি চাপ দিচ্ছে, একেবারেই উড়িয়ে দেওয়া যায় না। বহু বিনিয়োগকারীর চোখে, বিটকয়েন ছিল, রয়েছে এবং থাকবে বহুকাল ধরে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদ হয়ে যা তারা পাবে প্রথমেই। এদিকে, বিনিয়োগকারীরা ঐতিহ্যবাহী বাজার থেকে পরিষ্কারতর সংকেতের জন্য অপেক্ষা করছেন, ক্রিপ্টোমার্কেট মিটার্ড হয়েছে, একটি ককড ট্রিগারকে মনে করাচ্ছে। কিন্তু এটা পরিষ্কার নয়, কোন পথে বুলেটটা যাবে।
    24 জুন 276 বিলিয়ন ডলার থাকলেও, ক্রিপ্টো মার্কেটের মোট ক্যাপিটালাইজেশনে বস্তুত সাত দিনে কোনো পরিবর্তন ঘটেনি : এক সপ্তাহ আগে 266 বিলিয়ন ডলারের পাশে 26 জুন 264 বিলিয়ন ডলার। একই ব্যাপার ঘটেছে ক্রিপ্টো ফিয়ার ও গ্রিড ইনডেক্সে যা আছে 40-এ (সাত দিন আগে ছিল 39)।
    প্রধান অল্টকয়েনগুলির জন্য, সাধারণভাবে, তাদের কোটে ওঠানামা মূল ক্রিপ্টোকারেন্সির গতিবিধির নকল করে। যদিও যদি জুনে বিটিসি/মার্কিন ডলার জোড়ার গতিময়তা ছিল প্রায় 13 শতাংশ, লাইটকয়েন এবং রিপল দেখায় পতনের বেশি প্রবণতা : এলটিসি/মার্কিন ডলার – 18%, এক্সআরপি ইউএসডি – 17%। ইথেরিয়াম (ইটিএইচ/ইউএসডি), উলটোদিকে, ছিল অনেক দৃঢ় এবং সাইড চ্যানেলের বিস্তৃতি 2 জুনের উচ্চতা 13 শতাংশ অতিক্রম করেনি।

 

আগামী সপ্তাহের অনুমানের ক্ষেত্রে, বেশকিছু সংখ্যক বিশেষজ্ঞের মতামতের সংক্ষেপের পাশাপাশি টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে আমরা বলতে পারি :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। মার্কিন নির্বাচন যত কাছে আসছে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও তাঁর দলবলের ক্রিয়াকলাপ ততই বাড়ছে। হোয়াইট হাউস বিবেচনা করছে যে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও যুক্তরাজ্য থেকে 3 বিলিয়ন ডলারের বেশি পণ্যের ওপর শুল্ক আরোপ করার, এবং পিআরসি মিলিটারির সঙ্গে সন্দেহজনক যোগ থাকায় পেন্টাগন দ্বারা 20টা প্রধান চিনা কোম্পানিকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। অন্যদিকে, ইুরোপের, সবকিছুই নীচে চলে যাচ্ছে। ইসিবি আধিকারিকরা অনুমান করছেন আর্থিক বিকাশ আরও মন্থর হবে এবং গ্রাহক চাহিদা হবে দুর্বল। ইসিবি বোর্ড সদস্য ইভেস মার্শ্চের মতে, ‘ইউরোজোন আর্থিক পুনরুদ্ধারের সম্ভাবনায় অনিশ্চয়তা ঘিরে রয়েছে’ এবং এর ফলে, দীর্ঘমেয়াদি চিত্র বড্ড বেশি আশা হয়ে যায়। এসবের সঙ্গে মিলিছে ঝুঁকির খিদে হ্রাস কারণ কোভিড-19-এর দ্বিতীয় ঢেউ, এসবের জন্য ডলারের ফের বিকাশ ঘটা উচিত। এই সেন্টিমেন্ট নির্দিষ্ট করে দেখা যাচ্ছে মাসিক ও মাঝারি-মেয়াদের অনুমানে।
    সেজন্য, জোড়াটির আসন্ন সপ্তাহে ব্যবহার সম্পর্কে বিশ্লেষকদের মতামত প্রায় সমানভাবে বিভাজিত : 30 শতাংশ জোড়াটির বিকাশের পক্ষে, 40 শতাংশ এর পতনের দিকে এবং 30 শতাংশ এর সাইড ট্রেন্ডের পক্ষে। একই সময়ে, সাপোর্ট ও রেজিস্ট্যান্সের প্রধান স্তর হল চ্যানেলের সীমানাগুলি যা গত দুই সপ্তাহে গিয়েছিল - 1.1170  এবং 1.1350।
    জুলাইয়ের অনুমানে যাওয়ার সময়, ডলারের সমর্থকদের সংখ্যা বেড়েছে 65 শতাংশে। তাঁদের মতে, জোড়াটি প্রথম পড়বে 1.1100-এ, তারপর 1.1000-এ, এবং তারপর স্থানীয় নিম্নে আরও 100 পয়েন্ট নীচে। এবং এখানে আমাদের বিবেচনায় রাখতে হবে অনেক সময় এরকম অনুমান মাসের প্রথম দুই সপ্তাহে প্রণীত হয়।
    বুলের লক্ষ্য হল 1.1350, যার পর 9 জুনের উচ্চতা 1.1425, এবং শেষপর্যন্ত 1.1500 উচ্চতা।
    আগামী সপ্তাহের ঘটনাগুলির মধ্যে যেখানে মনোযোগ দেওয়া উচিত তা হল জার্মানি ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের উপভোক্ত বাজারের তথ্য, যা প্রকাশিত হবে যথাক্রমে সোমবার, 29 জুন এবং মঙ্গলবার, 30 জুন। ইউএস ট্রেজারি সেক্রেটারি স্টিফেন এমুনচিন ও ফেড চেয়ারম্যান জেরোম পাওয়ালের বিবৃতির সূচি 30 জুন, যাতে বাজারের নিঃসন্দেহে আগ্রহ থাকবে। সপ্তাহের দ্বিতীয়ার্ধের জন্য, আমরা আশা করছি জার্মানি ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের লেবার মার্কেট এবং ব্যবসায় ক্রিয়াকলাপের একগুচ্ছ ডেটা, যার অন্তর্ভুক্ত এনএফপি-র মতো গুরুত্বপূর্ণ ইন্ডিকেটর, এনএফপি অর্থ হল মার্কিন কৃষিক্ষেত্রের বাইরে সৃষ্ট নতুন কাজের সংখ্যা।

  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। পরের সপ্তাহ, ব্রিটিশ পাউন্ডের প্রেক্ষিতে, গুরুত্বপূর্ণ খবরের ঝুঁকি আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে : ব্রেক্সিটের ফ্রেমওয়ার্কে রূপান্তরণ পর্বে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সঙ্গে বোঝাপড়া শুরু হবে। তাদের প্রত্যাশায়, বিশেষজ্ঞদের ভোট বণ্টিত হয়েছে ইউরো/মার্কিন ডলারের মতোই : জোড়ার বিকাশের পক্ষে 35 শতাংশ, পতনের পক্ষে 35 শতাংশ এবং সাইডওয়ে ট্রেন্ডের পক্ষে 30 শতাংশ।
    টেকনিক্যাল বিশ্লেষণ সামান্য আলাদা ছবি দেয়। H4 ও D1-এ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরদের প্রায় 100 শতাংশের রং লাল। অসিলেটরদের মধ্যেও প্রাধান্য লালের, যদিও এদের 15% সংকেত দিয়েছে জোড়াটি বেশি বিক্রীত, যা ইঙ্গিত দেয় বিপরীত ঊর্ধ্বগতির। জোড়াটির উত্তর দিকে যাওয়া এবং ফেরা 10 জুনের 1.2810 উচ্চতায়, এটিও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণ দ্বারা ইঙ্গিত দিয়েছে। সাপোর্ট লেভেল হল 1.2245, 1.2160  এবং 1.2070, রেজিস্ট্যান্স - 1.2470, 1.2545  এবং 1.2650।
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। যদি H4-এ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরদের 75 শতাংশ উত্তর দিকে দেখায়, যতটা D1-এ দক্ষিণ দিক। H4-এ অসিলটেরদের মধ্যে সবুজের প্রাধান্য, কিন্তু D1-এ সম্পূর্ণ সবুজ, লাল এবং নিরপেক্ষ ধূসর রঙের মেলবন্ধন।
    অধিকাংশ বিশ্লেষকই বিয়ারিশ : এদের 65 শতাংশ বিশ্বাস করেন যে ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদের সুদে পূর্ণমাত্রায় হ্রাস নিয়ে, বিনিয়োগকারীরা ফের একবার তাঁদের পুঁজি প্রত্যাহার করতে চাইবেন ইয়েনের মতো নিরাপদ স্বর্গে। এর ফলে, জোড়াটি ফের একবার 106.00 স্তরের স্বাদ পাবে। নিকটতম সাপোর্ট হল 106.75 অঞ্চল।
    বিশেষজ্ঞদের 35 শতাংশ ডলারের শক্তিশালীকরণ এবং জোড়াটির বিকাশের পক্ষে ভোট দেন, আশা করছেন যে এটা উঠবে 108.00 অঞ্চলে। নিকটতম রেজিস্ট্যান্স অবস্থান করেছে 107.45-107.60 অঞ্চলে।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। ক্রিপ্টো মার্কেনের নিম্নগতি ফের একবার স্টক এক্সচেঞ্জের ডায়নামিক্সের সঙ্গে সম্পর্কিত হয়েছে। এবং বেশকিছু সংখ্যক বিশেষজ্ঞের মেতে, ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদের বিক্রির কারণ করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রত্যাশার ফলে হয়েছে যা ক্রিপ্টোকারেন্সিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। এতদসত্ত্বেও, বরাবরের মতো, এখানে আশাবাদীও আছে। উদাহরণ স্বরূপ, গোল্ড বুলিয়ন ইন্টারন্যাশনালের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ড্যান টেপারিও বিশ্বাস করেন যে 4.6 ট্রিলিয়ন ডলারের কিছু অ্যান্টি-ক্রাইসিস যা গত ৩ মাসে ফেডারেল রিজার্ভ বণ্টন করেছে সহায়তা হিসেবে, সেটা বিটকয়েন কিনতে ব্যবহার করা যেতে পারে।
    11 মে বিটিসি হাভিং থেকে, সব প্রত্যাশা সত্ত্বেও, এটা 10000 ডলার বাধা অতিক্রমে সক্ষম হয়নি। এটা দেখায় যে বিখ্যাত ট্রেডার তথা বিশ্লেষক টোন ভ্যাস ছিলেন সঠিক যখন তিনি বলেছিলেন যে ‘বিটকয়েনকে উঠতে হলে মানুষকে এটা ঘৃণা করতে হবে’। এটা সম্ভব যে এটাই বড় অনুমানকারীরা অর্জন করতে চেষ্টা করছেন – হাভিং জোড়াটিকে রেখেছে 9000-10000 ডলার পরিধির মধ্যে, তারা অপেক্ষা করছে ছোট বিনিয়োগকারীদের জন্য, যারা টেক-অফ দেখেনি, বিটকয়েনের গণ-বিক্রি শুরু করতে, যা ‘তিমিদের’ অনুমোদন দেবে তাৎপর্যপূর্ণ ছাড় সহ কয়েন কিনতে এবং বাজারের পূর্ণ দখল নিতে। এবং তারপর.
    ..এবং তারা মূল ক্রিপ্টো সম্পদকে পাঠাবে নতুন, স্পেস উচ্চতায়। উদাহরণ স্বরূপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যানালিটিক্যাল কোম্পানি ওয়েইস রেটিংসে বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন যে মূল ক্রিপ্টোকারেন্সি উঠবে 180000 ডলার মূল্যে। সিকিউরিটি, মবিলিটি ও ইউটিলিটির দিক থেকে, বিটকয়েন সোনার চেয়ে অনেক ভালো, এবং যদি এটা সোনার এক-তৃতীয়াংশ শেয়ার দখল করেন, এটা বাণিজ্য করবে বর্তমান স্তরের অন্তত 20 গুণ বেশি, তাঁদের বিশ্বাস এটা। গ্যালাক্সি ডিজিটাল ক্রিপ্টো ট্রেডিং ব্যাংকের প্রধান মাইক নোভোগ্রাটজও নতুন বিটকয়েন মিছিলের জন্য অপেক্ষা করছেন। কয়েনডেস্ক-এ একটি সাক্ষাৎাকরে, এই বিলিয়নিয়ার স্বীকার মেনে নিয়েছেন যে তিনি তিন বছর আগে তাড়াহুড়ো করেছিলেন ইনস্টিটিউশনালিস্টদের ডিজিটাল মার্কেটের দিকে আকর্ষণ করতে। যদিও, এখন, তাঁর মতে, একটি নতুন প্রচেষ্টার জন্য দুর্দান্ত মুহূর্ত এসেছে : ‘এটা প্রত্যাশার চেয়ে বেশি সময় নেবে, কিন্তু ইনটিউশন আমাকে বলে যে 6 থেকে 24 মাসের মধ্যে আমরা দুর্দান্ত (ইনস্টিটিউশনাল) বিকাশ পাব।’
    এক্ষেত্রে সংস্থামূলক বিনিয়োগকারীদের প্রভাব সন্দেহের ওপরে। চেইনঅ্যালাইসিস হিসেব অনুযায়ী, মাত্র 3.5 মিলিয়ন বিটিসি কয়েন বর্তমানে ট্রেডিঙের জন্য ব্যবহৃত (18.6 মিলিয়নের বাকিটা হয় দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ হিসেবে হিমায়িত না হলে সব হারিয়ে গেছে)। এবং এখানে এই 3.5 মিলিয়নের 85 শতাংশ ‘তিমিদের’ কাছে, যা তাঁদের নিজস্ব মার্কেট ট্রেন্ডের আকৃতি দেয়।
    এখন আগামী সপ্তাহের জন্য অনুমান। টেকনিক্যাল অ্যানালিসিস সাইড থেকে, 50-দিনের চলন্ত গড়ের গঠনে গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট চলে যায় 9,000  ডলার স্তরের মধ্য দিয়ে। এবং যদি জোড়াটি এই স্তরকে ভাঙে, আমরা আশা করতে পারি এটা 8,500-8,800 ডলার জোনের ভেতরে। এই ডেভেলপমেন্ট 30 শতাংশ বিশ্লেষক আশা করেন। আরও 25 শতাংশের বিশ্বাস ৬-সপ্তাহ সাইড ট্রেন্ড আরও থাকবে, জোড়াটিকে রাখবে 9,000-10,000  ডলার পরিধিতে। এবং বাকি 45 শতাংশ বিশেষজ্ঞ বিটকয়েনকে 10000 ডলারের মানসিক স্তরের ওপরে দেখার আশা ছাড়েননি।

 

নর্ডএফএক্স অ্যানালিটিক্যাল গ্রুপ

 

Notice: These materials are not investment recommendations or guidelines for working in financial markets and are intended for informational purposes only. Trading in financial markets is risky and can result in a complete loss of deposited funds.


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)