মে 30, 2020

প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলির পর্যালোচনা:

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। গোটা সপ্তাহ ধরেই ইউরোপিয়ান কারেন্সির বিকাশ ঘটেছে, এমনকি ইউরো জোন অর্থনীতির দুর্বল পরিসংখ্যান সত্ত্বেও। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে পুনরুদ্ধার পন্থা সহ প্রত্যক্ষ নির্গমন পরিচালনা এবং এর বাজেটের সত্যিকারের সম্প্রসারণে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের পরিকল্পনা দ্বারা জোড়াটি সুবিধা পেয়েছিল 1.0750-1.1000  করিডোরের ঊর্ধ্বসীমা ভাঙতে এবং 1.1145 উচ্চতায় পৌঁছতে। সুইস ব্যাংক, যার তাদের জাতীয় কারেন্সির বিনিময়ে ইউরো কেনে, তারাও ইউরোকে সমর্থন করেছে।
    সপ্তাহ শেষে চীনের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নয়া নীতি সম্পর্কে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিবৃতিতে আপাত ঠান্ডা পরিবেশেও বুকের কার্যকলাপ গতি পেয়েছিল। ওয়াশিংটন ও বেইজিঙের মধ্যে যতবার বচসা হয় ততবার ইউরোর পতন ঘটে, এমন যে এটা যেন ইউরোপের নতুন আর্থিক সমস্যার ইঙ্গিত। কিন্তু বেশ কিছুসংখ্যক বিশ্লেষকের মতানুযায়ী, ইউরোপিয়ান কারেন্সির কোট ইতিমধ্যে এত পড়ে গেছে যে দক্ষিণে ফের গুরুতর পদক্ষেপ করতে বিয়ারের বৃহৎ প্রচেষ্টা দরকার। এর ফলে, জোড়াটি শুধুমাত্র চারদিনের ঊর্ধ্ব চ্যানেলের কেন্দ্রের সামান্য নীচে গিয়েছিল এবং শেষ করে 1.1100 স্তরের কাছে।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। গত সপ্তাহে, ডলার শুধু ইউরোকে হঠিয়েই দেয়নি, বরং এইসঙ্গে পাউন্ড ও ইয়েনের সঙ্গে জুটি বেঁধেছিল। ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের মানিটারি পলিসি কমিটির সদস্য মাইকেল সন্ডার্সের ‘ডোভিস’ মন্তব্য সত্ত্বেও ব্রিটিশ কারেন্সি তার অবস্থান ধরে রেখেছে। এরকম উন্নতি ভেবেছিলেন বিশ্লেষকদের 30 শতাংশ, তাঁদের মতে, এই জোড়ার ফিরে আসা উচিত 1.2165-1.2650 চ্যানেলের কেন্দ্রীয় স্থানে। সবচেয়ে নিখুঁত অনুমান প্রদান করেছেন D1-এর গ্রাফিক্যাল অ্যানালিস্টরা, তাঁরা এই জোড়াকে 1.2350 উচ্চতার স্তরে খুঁজে পেয়েছেন। এটা ছিল সেই অঞ্চল যেখানে ট্রেডিং সেশনের অধিকাংশ সময় বিরাজ করছিল পাউন্ড, সেখানেই এটা সেট করে তার চূড়ান্ত কর্ড।
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। অধিকাংশ বিশেষজ্ঞ (65%) আশা করেছেন মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই জোড়া ফিরে আসবে 6 মার্চের নিম্নস্থানে 106.00 অঞ্চলে। এবং শুক্রবারের শুরুতে, 29 মে, এটা চলে গিয়েছিল, কিন্তু পৌঁছল মাত্র 107.07-এ। সেজন্য, এই জোড়ার সাপ্তাহিক গতিময়তা ছিল 90 পয়েন্টের কম। এবং এই সত্য সত্ত্বেও যে দুমাস আগে এটা মাত্র পাঁচদিনে এর দশগুণের চেয়ে বেশি গিয়েছিল।
    হ্যাঁ, কোভিড-19 অতিমারী অবস্থা ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে। কিন্তু এর সঙ্গে প্রধান কারেন্সিগুলোর মাঝে নিয়ামক পরিস্থিতির ব্যবধান ক্রমশ অদৃশ্য হচ্ছে। প্রধান G3 সুদের হারের দিকে শুধু তাকান। সুতরাং, মার্কিন ডলারের বিপরীতে জাপানি কারেন্সির গতিময়তা মার্চের সমান আর নেই।
    যদি আমরা এই সপ্তাহের ফলাফল নিয়ে কথা বলি, জোড়াটি নিজেকে ফের খুঁজে পেয়েছে 107.30-108.00-এর করিডোরের সংকীর্ণ দিকে। চূড়ান্ত পয়েন্ট হয়েছে 107.80।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। আসুন পবিত্রতম খবর দিয়ে শুরু করা যাক, বিটকয়েনের দিন শেষ হয়ে এসেছে, বলেছেন টুইটার ইউজার মাস্টার চ্যাং। যিনি গোপন চাবি তোলা দ্বারা ক্রিপ্টো ওয়ালেট হ্যাকের চেষ্টা করছেন। তাঁর মতে, মূল ডিজিটাল কয়েনের কোড তাঁর দ্বারা ৫ বছরের মধ্যে ক্র্যাক হয়ে যাবে। ‘আমি এখন প্রতি সেকেন্ডে 600 মিলিয়ন চাবির মাধ্যমে সংক্ষেপ করছি, কিন্তু প্রতি দুবছরে কম্পিউটার প্রযুক্তির প্রতিনিয়ত আপডেটের জন্য বাছাইয়ের গতি বৃ্দ্ধি পাবে মোটামুটি 10 গুণ’ লিখেছেন মাস্টার চ্যাং।
    কিন্তু গোটা বিষয়টা এত ভয়াবহ নয়, এবং বিটকয়েন আরও কিছুদিন বেঁচে থাকবে। ‘টেকনিক্যালি একটি প্রাইভেট কি তুলে নেওয়া সম্ভব। যদিও এতে প্রচুর সময় লাগবে’, বলেছেন বিটকয়েন কোর ডেভেলপার লিউক ড্যাশহার। তাঁর গণনা অনুযায়ী, মিডল-ক্লাশ ভিডিয়ো কার্ড ব্যবহার করে একটি সাধারণ পুরনো বিটকয়েন ওয়ালেট ক্র্যাক করতে লাগবে 38593493520073954175290747912192 বছর।
    ক্যাশ অ্যাপ-এর ডেভেলপার ড্যানি ডিকরোয়েজার, হ্যাকিঙের পরিকল্পনার সাফল্য সম্পর্কে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। তিনি বিশ্বাস করেন যে এমনকি যদি মাস্টার চ্যাংও প্রযুক্তির গণনাশক্তি বৃদ্ধি করতে পারেন এক বিলিয়ন গুণ এবং 100 বছরের জন্য কি পিক করেন, তাহলে ওয়ালেট হ্যাকিঙের জন্য উপযুক্ত কি খুঁজে বের করার সম্ভাবনা 0.00000000000000000000000000000000000001%।
    এবং এখন, ঠান্ডা হওয়ার পর, আমরা গত সপ্তাহের জন্য বিশেষজ্ঞরা যে অনুমান করেছিলেন তাতে ফিরে যাচ্ছি। তাঁদের ভোট ছিল মোটামুটি সমানভাবে বণ্টিত 8,400 ডলার থেকে 10,000 ডলার বিস্তৃতির মধ্যে। বাস্তবে তাই ঘটেছে, শুধু সামান্য সংকীর্ণ পরিধিতে। প্রথমে, বিটকয়েন কোট পড়ে গেছিল, 25 মে পৌঁছেছিল স্থানীয় নিম্ন 8600 ডলারে। এর পর এই প্রবণতা বিপরীত হয়, এবং বিটিসি মার্কিন ডলার জোড়া 29 মে 9600-র প্রতিরোধ অতিক্রম করে। যেমন কিছু বিশ্লেষকের বিশ্বাস, এরকম বিকাশ ঘটেছিল বিশাল লেনদেনের জন্য : হোয়েলঅ্যালার্টের মতে, 11660 বিটিসি (মূল্য 111 মিলিয়ন ডলারের বেশি) ট্রান্সফার হয়েছিল দুটি অজানা ওয়ালেটের মাঝে।
    শুক্রবার, 29 মে সন্ধ্যায়, বিটকয়েন কোট ছিল 9,400 ডলার অঞ্চলে। ক্রিপ্টো মার্কেটের মোট ক্যাপিটালাইজেশন সাত দিনে ২৪৬ বিলিয়ন ডলার থেকে ২৬৫ বিলিয়ন ডলারে (+7.7%) বৃদ্ধি পেয়েছিল, এবং ক্রিপ্টো ফিয়ার অ্যান্ড গ্রিড ইনডেক্স উঠেছিল ৬ পয়েন্ট – ৪২ থেকে ৪৮।
    এবং আরও কিছু পরিসংখ্যান। পেমেন্ট কোম্পানি রিভোলাট অনুযায়ী, মার্চে 52 শতাংশ বাণিজ্য পরিমাণ পতনের পর, ক্রিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিঙের গ্রাহকের সংখ্যা এপ্রিলে বৃদ্ধি পেয়েছে 68 শতাংশ। মাসটির শেষে, তাঁদের প্রত্যেকের দ্বারা ডিজিটাল অ্যাসেট ক্রয় বৃ্দ্ধি পেয়েছে গড়ে 57 শতাংশ। এই মাসগুলিতে সব লেনদেনের 51 শতাংশ ছিল বিটকয়েন (বিটিসি মার্কিন ডলার), রিপল (এক্সপিআর মার্কিন ডলার)-20 শতাংশ, এবং ইথেরিয়াম (ইটিএইচ মার্কিন ডলার)-এ আরও 14 শতাংশ। সব লেনদেনের 8 শতাংশ নিয়ে চতুর্থ স্থানে ছিল লাইটকয়েন (এলটিসি মার্কিন ডলার)।
    রিপলের চাহিদা কিছু বিস্ময়কর কারণ গত 12 মাসে এর দাম হ্রাস পেয়েছিল প্রায় 60 শতাংশ, যেখানে বিটকয়েন, সব মোচড় ও ঘূর্ণন সত্ত্বেও শূন্যতে দাঁড়িয়ে ছিল, এটি মে 2019-এ শেষ করেছে 9000 ডলার অঞ্চলে। এবং এটা হয়েছে কয়েনের সর্বাধিক পরিমাণের 30 শতাংশে এক্সআরপি এমিশন পৌঁছনো সত্ত্বেও, যা বিটিসি-র জন্য 87.5 শতাংশ। যদিও, সম্ভবত, সক্রিয় রিপল ক্রয় হয়েছে কারণ বিনিয়োগকারীরা এই অল্টকয়েনকে বিবেচনা করেছেন আপাত-চাপা হিসেবে এবং আশা করেছেন যে এর দ্রুত বিস্ফোরক বিকাশ ঘটবে।

 

আগামী সপ্তাহের অনুমানের ক্ষেত্রে, বেশকিছু সংখ্যক বিশেষজ্ঞের মতামতের সংক্ষেপের পাশাপাশি টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে আমরা বলতে পারি:

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। এটা পরিষ্কার যে গত সপ্তাহের শেষে H4 ও D1-এ 90% থেকে 100% ইন্ডিকেটর তাকিয়ে ছিল। এবং অসিলেটরদের মাত্রদের 10% সংকেত দিয়েছিল যে জোড়াটি অতিরিক্ত বিক্রীত। কিন্তু বিশ্লেষকদের প্রায় অর্ধেকের সন্দেহ ছিল ইউরোর ফের বিকাশের সম্ভাব্যতা সম্পর্কে। বাজারের ঝুঁকির চাহিদা শুকনো হয়ে গেছে, এবং যদি মার্কিন ডলার যায় চায়নার পথে, ইউরো মার্কিন ডলার জোড়া হয়তো ফের দক্ষিণে ঘুরতে পারে। এটা মনে রাখতে হবে যে বিশেষজ্ঞদের মাত্র 45% এই সপ্তাহে ডলার শক্তিশালী হবে বলেছেন, কিন্তু যখন মাসিক সময়পর্বে যায় তাদের সংখ্যা বৃদ্ধি হয়েছে 70 শতাংশে। বিয়ারের এই মুহূর্তের কাজ হল জোড়াটিকে চ্যানেল 1.0750-1.1000-এ নিয়ে আসা এবং 1.1065, 1.1065 সাপোর্টে ফিরিয়ে আনা এবং 1.0900 চ্যানেলের কেন্দ্রীয় লাইনে। রেজিস্ট্যান্স অবস্থান করছে 1.1145 ও 1.1240 স্তরে।
    আগামী সপ্তাহে যেসব ঘটনার দিকে তাকাতে হবে তার মধ্যে রয়েছে ইউএস (আইএসএম)-এ ব্যবসায় ক্রিয়াকলাপের ওপর ডেটা প্রকাশ, নির্মাণ শিল্পের এই ডেটা প্রকাশিত হবে 1 জুন এবং পরিষেবা ক্ষেত্রের ৩ জুন, জার্মান ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন লেবার মার্কেটের ডেটা প্রকাশ হবে 3 জুন, ইসিবি মিটিং এবং সাংবাদিক সম্মেলন 4 জুন এবং ইউএস লেবার মার্কেট (এনএফপি সহ) থেকে ডেটা – প্রথাগতভাবে মাসের প্রথম শুক্রবার, 5 জুন।

  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। জোড়ার আনুভূমিক নড়াচড়ার চরিত্রে ইন্ডিকেটর রিডিঙে যদি নির্দিষ্ট জল্পনা চলে, বিশ্লেষকদের দৃষ্টি আরও স্পষ্ট। তাদের 25 শতাংশ সাইড প্রবণতা সমর্থন করছেন, আরও 25 শতাংশ পাউন্ডের আরও শক্তিশালী হওয়ার দিকে এবং এর পতনের দিকে 50 শতাংশ। শেষোক্তদের সমর্থন করছে D1-এ গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণ। অর্থনীতির সমস্যার সঙ্গে আরও যুক্ত হয়েছে ব্রিটিশ কারেন্সিতে ব্রেক্সিটের প্রভাব। ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টে ইউরোপিয়ান কমিশনার ফিল হোগান বলেছেন যে যুক্তরাজ্য হয়তো সিদ্ধান্ত নেবে যে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সঙ্গে কোনো বোঝাপড়ার পরিস্থিতি এখন নেই। যদিও তিনি আগামী সপ্তাহে বোঝাপড়া শুরু হলে পরিস্থিতি সামান্য স্পষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা তিনি উডিয়ে দেননি।
    এই মুহূর্তে সাপোর্ট লেভেল হল 1.2245, 1.2165 এবং 1.2075। রেজিস্ট্যান্স লেভেল 1.2365, 1.2465 এবং 1.2650।
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। যেমন উপরে উল্লেখ করা হয়েছে, বাজার ঝুঁকির চাহিদা ফের একবার বেশে কমেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট আরও একবার চীনের বিরুদ্ধে আগ্রাসী হতে, ডলার ফের দ্রুত উঠতে শুরু করেছে। কিন্তু ইয়েনের সঙ্গে সম্পর্ক রেখে নয়। বিনিয়োগকারীদের নিরাপদ স্বর্গ চাহিদা হয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের (বিশেষ করে যদি প্রটেক্টিভ বন্ডের ফসল পিছলে যায় নতুন নিম্নে) বিপরীতে জাপানি কারেন্সির অবস্থানে উন্নত হবে অথবা একই স্তরে থাকবে, যেমন গত দুমাসে ঘটেছে।
    বিশ্লেষকদের সমীক্ষা এবং ইন্ডিকেটরদের রিডিঙের ফলাফল একইরকম ‘হয় এটা, অথবা...’। একটি তৃতীয় নর্থ, একটি তৃতীয় সাউথ, একটি তৃতীয় ইস্ট। সাপোর্ট রেজিস্ট্যান্স লেভেল একই : বর্তমান কোটের নীচ থেকে 107.30, 106.80 এবং 106.20, উপর থেকে 108.00, 108.50 এবং 109.25।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। অনুমানের সময়ে, বিটকয়েন জমাট বাঁধছে 9,400 ডলার অঞ্চলে। এবং বিশ্লেষকদের মাত্র 30 শতাংশ আশা করছেন যে আগামী দিনে এটা শুধু 10000 ডলারের গুরুত্বপূর্ণ স্তর অতিক্রম করবে তাই নয়, এইসঙ্গে এর উপরে যাবে। তাঁদের বিশ্বাস, এটা ঘটবে বিটিসি-র ভবিষ্যৎ চুক্তিতে সুদের হার বৃদ্ধির ফলে, যা কয়েনের মূল্যকে উপরে ঠেলবে। বাকি 70 শতাংশের বিশ্বাস যে বিটিসি/ইউএসডি জোড়া 8600-9600 ডলার পরিধিতে চলতে থাকবে, যদিও তাঁরা এক দিক থেকে অন্যদিকে যাওয়ার সম্ভাবনা বাতিল করেননি।
    ক্রিপ্টো গুরুদের অনুমান, বরাবরের মতো, আশা করছে অদৃশ্য উচ্চতায় নতুন লাফ শুরু হবে। বিশাল ক্রিপ্টো ওয়েবসাইট রেডিট-এর নির্মাতা এবং বিখ্যাত টেনিস প্লেয়ার সেরেনা উইলিয়ামসের স্বামী অ্যালেক্সিস ওহানিয়ান বলেছেন যে ডিজিটাল সম্পদের বাজারের বর্তমান পরিস্থিতি পূর্ণ-রূপে ক্রিপ্টো বসন্তকে একত্র করছে। তিনি বলেছেন, ‘শুধু বিটকয়েনের তুলনামূলক দৃঢ় মূল্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে তাই নয়, এইসঙ্গে মার্চের শুরুতে ব্যর্থতার পর এর বিকাশ ঘটেছে। এপর্যন্ত, বিকাশের প্রবণতা দেখা গেছে নির্দিষ্ট একটি ফ্রিকোয়েন্সিতে, কিন্তু একটি গুরত্বপূর্ণ বাধা বিটকয়েন হাভিঙের রূপে অতিক্রম করা হয়েছে। আমাদের উচিত এর ছোটখাটো প্রাসঙ্গিকতাকে বাঁচানো এবং শিল্পকে ধারাবাহিকভাবে উন্নত করা,’ বলেছেন রেডিট প্রধান।

 

নর্ডএফএক্স অ্যানালিটিক্যাল গ্রুপ

 

বিজ্ঞপ্তি : এসব তথ্য আর্থিক বাজারে কাজের জন্য বিনিয়োগ বা পরামর্শ হিসেবে কোনো সুপারিশ নয় : এগুলি একমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং এর ফলে ডিপোজিটকৃত ফান্ডের পরিপূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)