এপ্রিল 11, 2020

প্রথমে, গত সপ্তাহের ঘটনাগুলোর একটা পর্যালোচনা:

  • EUR/USD পুরনো ও নতুন বিশ্বের মধ্যে প্রতিযোগিতা জারি রয়েছে কারা তাদের অর্থনীতিতে বেশি পয়সা ঢালবে। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পুরনো ইউরোপের তুলনা কী! 10ই এপ্রিল, বৃহস্পতিবার, বহু দিন ধরে চলা আলোচনার পর, EU-এর অর্থমন্ত্রীরা কোনক্রমে একটা সমঝোতায় আসতে পেরেছেন, তাদের দেশগুলিকে "মোটামুটি" €500 বিলিয়ন অঙ্কের সহায়তা দেবার মতো ব্যবস্থা তৈরির সিদ্ধান্তে উপণীত হয়ে। একই সময়ে, মার্কিন ফেডেরাল রিজার্ভ আরও $2.3 ট্রিলিয়ন সহায়তা কার্যক্রমের ঘোষণা করেছিল। একই সময়ে, ফেডেরাল রিজার্ভ প্রধান জেরোম পাওয়েল বলেন, তার দপ্তর খুব সম্ভবত সেখানেই থেমে থাকবেন না এবং এই মহামারির সংকট কেটে যাবার পর যত দ্রুত সম্ভব মার্কিন অর্থনীতিকে তার আগের জায়গায় ফিরিয়ে আনার জন্য সম্ভাব্য সবকিছু করবেন।
    এ ব্যাপারে পাওয়েলের কথার উপর ভরসা করা যায়। আর এখানে বিষয়টা শুধুই COVID-19 নয়, বরং 2020 হল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পরবর্তী রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের বছর, এবং ডোনাল্ড ট্রাম্প নিঃসন্দেহে দ্বিতীয়বারের জন্য হোয়াইট হাউজে থাকতে চান। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আর্থিক উন্নতির জন্য লড়াই করা তার রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থীর হওয়ার ব্যাপারে প্রধান মূলধন হয়ে থেকেছে।
    মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কোয়ান্টিটেটিভ ইজিং কর্মসূচির অপ্রতিরোধ্য গতি ডলারের উপর চাপ ফেলা ছাড়া কিছু করতে পারেনি, এবং গত 09ই এপ্রিল তারিখে USDX সূচক তার মনস্তত্তিক স্তর 100.0-র নিচে কারবার করছিল। EUR/USD জুটির ক্ষেত্রে, সোমবার থেকে শুরু করে ডলার পিছু হটতে থাকে। তবে, এই পিছু হটা ততটা ভয়ের সঞ্চার করেনি যতটা মার্চের শেষ সপ্তাহে করেছিল, যখন এই জুটি 510 পয়েন্ট ছাড়িয়ে এসেছিল। এখন ইউরো 200 পয়েন্টের কিছু কম উঠেছে, যার পর এই জুটি তাদের পাঁচ দিনের সপ্তাহটা 1.0940-র অঞ্চলে শেষ করে, এবং উল্লেখযোগ্য স্তর 1.1000-এ পৌঁছাতে পারেনি;
  • GBP/USD ডলার সেই সঙ্গে পাউন্ডের সাপেক্ষেও পিছু হটে। উপরের বিষয়টির পাশাপাশি, আরও একটা অতিরিক্ত বিষয় ছিল যেটা ব্রিটিশ মুদ্রাকে অবলম্বন জুগিয়েছিল, সেটা হল লন্ডনে পাউন্ডের ঋণ গ্রহণের হারে বৃদ্ধি এবং মার্কিন ডলারের ঋণ গ্রহণের হারে হ্রাস।
    মনে করে দেখুন যে, গত সপ্তাহের পূর্বাভাস দেবার সময়, বিশেষজ্ঞদের মধ্যে 20% প্রত্যাশা করেছিলেন এই জুটি 1.2245-1.2485-র পরিসরে তাদের পার্শ্ববর্তী গতিই বজায় রাখবে, এবং আরও 30%-র মত ছিল – এর গতি এই চ্যানেলে নিচ থেকে উপরের দিকে প্রান্তসীমায় হবে, যার মধ্যে প্রতিরোধ হিসেবে 1.2475 স্তরটা থাকবে। ফলত, এই সব বিশেষজ্ঞদের পূর্বাভাসগুলি সামগ্রিকভাবে সঠিক প্রতিপন্ন হয়েছে: 1.2200-র অবলম্বনের নিচে নামতে ব্যর্থ হয়ে এই জুটি উত্তর দিকে ঘুরে যায় এবং 1.2470-এর কারবারি সময়কালের (ট্রেডিং সেশন) মধ্যে প্রবেশ করে;
  • USD/JPY। বিশ্লেষকদের 60%-এর প্রত্যাশা ছিল এই জুটি 108.70-এর প্রতিরোধ ভেঙ্গে বেরোবে এবং ডলার 111.65-র স্তরে চলে গিয়ে শক্তিশালী হবে। সাফল্য এসেছিল, তবে, জাপানি মুদ্রার অস্থিরতার পরিমাণ ছিল বিস্ময়কর রকমের নিচে, এবং এই জুটির বৃদ্ধি 109.37-র উচ্চতায় গিয়ে থেমে যায়, যার পর এরা সেই জায়গায় ফিরে যায় যেখান থেকে এরা সোমবার শুরু করেছিল, 108.40-র অঞ্চলে;
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। কিছু বিশেষজ্ঞ, বিটকয়েনের নিরাপদ সম্পদের মর্যাদার উন্নতির চেষ্টায়, আমাদের এটা বুঝিয়েছিলেন যে, ডিজিটাল সোনা বিনিয়োগকারীদের জন্য আসল সোনার মতোই নিরাপদ সম্পদ হয়ে উঠতে পারে। এইভাবে, ব্যবস্থাপনা কোম্পানি VanEck Global-এর বিশেষজ্ঞরা এই সিদ্ধান্তে এসেছিলেন যে, COVID-19 অতিমারির সংকটের প্রেক্ষাপটে "বিটকয়েনের সঙ্গে সোনার পারস্পরিক সম্পর্ক একটি অভূতপূর্ব স্তরে পৌঁছে গেছে”।
    বস্তুত, এই দুই সম্পদেরই দর এখন বাড়ছে। XAU/USD এবং BTC/USD চার্টগুলিতে দেখা যাচ্ছে যে, 16ই মার্চ, 2020 থেকে সোনার দাম 16% বেড়েছে, যেখানে বিটকেয়নের দাম 55% অবধি বেড়েছে। তবে, আপনি যদি মাত্র 4 দিন এগিয়ে যান এবং 16ই মার্চ থেকে হিসেব না শুরু করে বরং 20শে মার্চ থেকে শুরু করেন, তাহলে ছবিটা সম্পূর্ণ আলাদা হয়ে যাবে: সোনার দাম প্রায় 14% বেড়েছে কিন্তু গত তিন সপ্তাহ ধরে বিটকয়েনের বৃদ্ধিটা... শূন্য।
    এর থেকে এই ইঙ্গিত মেলে যে, চরম অস্থিরতার বৈশিষ্ট্য-সহ বিটকয়েন এখনও স্বল্পমেয়াদি ফাটকার জন্য খুব ভাল একটা হাতিয়ার। কিন্তু এটাকে একটা নিরাপদ সম্পদ হিসেবে ব্যবহার করা, এমনকি আরেকটু বেশি বললে, বিনিয়োগের একটা বস্তু হিসেবে দেখা, এখনও প্রশ্নের অপেক্ষা রাখে। প্রসঙ্গত, VanEck Global-এর বিশ্লেষকরা এ ব্যাপারে একমত পোষণ করেছেন এ কথা উল্লেখ করে যে, তারা শুধুমাত্র স্বল্প সময়ের কথাই বলেছিলেন। দীর্ঘমেয়াদে, XAU/USD ও BTC/USD-র মধ্যেকার পারস্পরিক সম্পর্ক খুব কমই থেকে যাবে।
    আমাদের আগের পূর্বাভাসে, আমরা এটা উল্লেখ করেছিলাম যে, মার্চের 20 তারিখ থেকে শুরু করে, প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সি $7,000 স্তরের উপরে তার পা রাখার বিফল চেষ্টা করে চলেছে। গত সপ্তাহও তার ব্যতিক্রম ছিল না। ঊর্ধ্বগতি (বুল) এই প্রতিরোধকে গত 06ই এপ্রিল ভেঙ্গে দেয় এবং এমনকি $7,440-র উচ্চতায়ও পৌঁছে যায়, কিন্তু তারা আবার শুক্রবার তাদের অবস্থান হারায়, এবং এই জুটি $6,850-6,900-র অঞ্চলে পড়ে যায়।
    ক্রিপ্টোবাজারের মোট মূলধনের ক্ষেত্রে, গত এক সপ্তাহে সেটা খুব একটা বদলায়নি এবং সেটা মোটামুটি $193 বিলিয়ন। ক্রিপ্টো ফিয়ার অ্যান্ড গ্রিড সূচকেও কোন বদল আসেনি, এটা এখনও বাজারে প্রবল ভয়ের ইঙ্গিত দিচ্ছে, গত সপ্তাহে যেটা মাত্র এক পয়েন্ট উঠেছে, 14 থেকে 15 হয়েছে।
    রিপল (XRP/USD), লিটকয়েন (LTC/USD) ইথিরিয়াম (ETH/USD) ইত্যাদির মতো শীর্ষস্থানীয় অল্টকয়েনগুলো প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সিকে অনুসরণ করে, কিন্তু, তার বিপরীতে, শুক্রবারের বিকালে, 10ই এপ্রিল তারিখে, সেগুলো তখনও সবুজ অঞ্চলেই ছিল, যা এদের সাপ্তাহিক বৃদ্ধি 5% (লিটকয়েন ও রিপল) থেকে 10% (ইথিরায়াম) দেখাচ্ছিল।

 

আগামি সপ্তাহের পূর্বাভাসের ক্ষেত্রে, একাধিক বিশেষজ্ঞদের মতামতগুলোকে, ও সেই সঙ্গে প্রযুক্তিগত ও গ্রাফিক্সভিত্তিক বিশ্লেষণের বহুবিধ পদ্ধতির ভিত্তিতে করা পূর্বাভাসগুলোকে একত্রিত করে, আমরা নিম্নোক্ত কথাগুলো বলতে পারি:

  • EUR/USD এটা বলা নিস্প্রয়োজন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের করোনা ভাইরাস মহামারি পরিস্থিতি খুবই কঠিন জায়গায় রয়েছে, এবং এই দেশের অর্থনীতি চরম মন্দার দিকে এগিয়ে চলেছে। এখানকার উৎপাদকদের সহায়তার জন্য, ফেডেরাল রিজার্ভ একটি কোয়ান্টিটেটিভ ইজিং কর্মসূচি চালু করেছে এবং, 16ই মার্চ থেকে শুরু করে, ইতিমধ্যেই ট্রেজারি বন্ডে $1.19 ট্রিলিয়ন কিনে ফেলেছে। আগামি সপ্তাহে এই নিয়ামক সংস্থা আরও $150 বিলিয়ন মূল্যের সিকিউরিটি কিনবে, যা ডলারের উপর চাপ বাড়িয়ে যেতে থাকবে। এই জন্যই বিশেষজ্ঞদের 65% EUR/USD-র ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা বজায় থাকবে বলে প্রত্যাশা করছেন। প্রতিরোধের স্তরগুলি হল 1.1000 এবং 1.1240, 1.1150।
    অন্যদিকে, এই সংকটের মধ্যেও ডলার এখনও সেরা মুদ্রা। এই সত্যটাই গত সপ্তাহে এর সক্রিয় বিক্রিকে থামিয়ে দেয় এবং এটি যথেষ্ট ক্ষমতা রাখে, বাকি 35% বিশ্লেষকদের মতে, প্রবণতাটাকে আবার দক্ষিণ দিকে ঘুরিয়ে দেবার। লক্ষ্যগুলি হল 1.1100 এবং 1.1175;
    এই জুটির তালিকার দিকে তাকিয়ে যে কেউ বুঝতে পারে সূচকগুলো কী দেখাতে চাইছে। D1-এ, সবকিছুই বেশ রঙিন: সবুজ, লাল, এবং নিরপেক্ষ ধূসর, প্রায় সব রঙই কিছু না কিছু সেখানে রয়েছে। H4-এ, অবশ্যই, সবুজের প্রাধান্য রয়েছে, কিন্তু অসিলেটরগুলির প্রায় 25% ইতিমধ্যেই মাত্রাতিরিক্ত ক্রয়ের জোনে চলে গেছে।
    মাইক্রোইকোনমিক সূচকগুলি অনুযায়ী, আমাদের প্রথমেই খুচরো বিক্রিগুলোর দিকে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বেকারিত্বজনিত দাবির প্রাথমিক সংখ্যাটার দিকে নজর দিতে হবে, যেগুলো সম্পর্কে যথাক্রমে আগামি 15 এবং 16ই এপ্রিল জানা যাবে। সেই সঙ্গে, চীনের GDP ডেটাও অর্থনীতির উপর করোনা ভাইরাসের প্রভাব সম্পর্কে অনুমানে সাহায্য করবে, যেটা আগামি শুক্রবার, 17ই এপ্রিল প্রকাশিত হবে;
  • GBP/USD আন্তঃব্যাংক ঋণদানের বাজারে এই মুহূর্তে পাউন্ড ও ডলারের দরগুলোর মধ্যে তফাতের কারণে ব্রিটিশ মুদ্রার বেশ ভাল চাহিদা রয়েছে। তবে, সবকিছুই হঠাৎ করেই বদলে যেতে পারে। সেই জন্যই বিশেষজ্ঞদের পূর্বাভাসগুলোকে কোন সাধারণ অঙ্কে দেখানো সম্ভব হচ্ছে না: 40% এই জুটির বৃদ্ধির পক্ষে মত দিয়েছে, 35% দিয়েছেন এর পতনের পক্ষে এবং বাকি 25% শুধু কাঁধ ঝাঁকিয়েছেন।
    দ্বিতীয় সপ্তাহের জন্যও এই জুটি পার্শ্ববর্তী চ্যানেলে রয়েছে, 1.2200-1.2485-র পরিসর ধরে রেখে, এবং সোমবার, 13ই এপ্রিল, এরা এদের উপরের প্রান্তসীমা থেকে শুরু করবে। H1-এর উপর গ্রাফিক্স সহযোগে করা বিশ্লেষণ প্রথমে এই জুটির 1.2600-এর হরাইজনে উত্থান দেখাচ্ছে, এবং তারপর 1.2200-এর অবলম্বনে পতনের ইঙ্গিত দিচ্ছে। ওঠানামার পরিসরটা D1-এ খানিকটা বড়: প্রথমে 1.2650-র উচ্চতায় ওঠা এবং তারপর 1.2175-র স্তরে পড়ে যাওয়া। সূচকগুলোর পরিস্থিতিও সাধারণত EUR/USD-র হিসেবের মতোই, দুই সময়কাঠামোতেই (টাইমফ্রেম) অসিলেটরগুলোর 25% এই জুটির মাত্রাতিরিক্ত ক্রয়ের ইঙ্গিত দিচ্ছে;
  • USD/JPY। বিশ্ব আর্থিক ব্যবস্থায় ডলারে সংখ্যা, মার্কিন ট্রেজারি বন্ড থেকে আয়, শেয়ার সূচকগুলো এবং তেলের দাম, চীনের অর্থনীতির অবস্থা - এই সব বিষয়গুলো ইয়েনের আকর্ষণকে প্রভাবিত করেছে একটা নিরাপদ মুদ্রা হিসেবে। গত সপ্তাহে USD/JPY-এর শূন্য ফলাফল এই ইঙ্গিত দেয় যে, জাপানি মুদ্রা নিয়ে কী করবে, কিনবে না বেচবে, সে ব্যাপারে বাজার এখনও কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি। খুব সম্ভবত, এই জুটি থেকে আমরা স্বতন্ত্র কোন গতিবিধি হয়ত দেখতে পাব না, এবং এই জুটির গতি মার্কিন ডলারের সাপেক্ষে সার্বিকভাবে বাজারের গতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণই থাকবে।
    ইতিমধ্যে, বিশেষজ্ঞদের 60%-ই ডলারের আরও দুর্বল হয়ে ওঠার এবং এই জুটির 107.00-র অঞ্চলে পতনের পক্ষে মত দিয়েছে। পরবর্তী অবলম্বন হল, 104.75-105.15-র অঞ্চলে। আরেকটি বিকল্প দৃষ্টিভঙ্গিকে বিশেষজ্ঞদের 40% সমর্থন করেছেন। প্রতিরোধের স্তরগুলি হল 109.35, 110.15 এবং 111.70।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। UnionBank-এর শীর্ষকর্তা এডুইন বতিস্তার মতে, ব্যাংক ক্ষেত্রগুলোর ক্রিপ্টোকারেন্সিতে চলে যাবার বিষয়টা করোনা ভাইরাস অতিমারির সংকটের পরিস্থিতিতে খুবই বাস্তবিক বলে মনে হচ্ছে। মুদ্রাবাজারের পরিস্থিতি যদি স্থিতিশীল না হয়, তাহলে এই পদক্ষেপই একমাত্র হাতে থাকবে যা পরিস্থিতিকে রক্ষা করতে পারে এবং অর্থনীতিকে চালু রাখতে পারে। "এখন প্রায় সমস্ত পণ্যের জন্য অনলাইনে পয়সা দিতে হচ্ছে। আমরা এমন সময় দেখতে পারি যখন আইনি মুদ্রার লেনদেন প্রায় সম্পূর্ণরূপে বন্ধ হয়ে যেতে পারে। ব্যাংকগুলো যদি সেই সব ছোট ছোট নিয়ামক সংস্থাগুলোর উদ্যোগগুলোকে সমর্থন করে যারা ইতিমধ্যেই ক্রিপ্টোকারেন্সি কোম্পানিগুলোর সঙ্গে সহযোগিতা করছে, তাহলে এই শিল্প একটা নতুন স্তরে পৌঁছে যাবে," বতিস্তার বিশ্বাস।
    কিন্তু UnionBank-এর শীর্ষকর্তার এই বক্তব্য খুব বেশি হলে একটা মধ্য-মেয়াদি পূর্বাভাস। আর অদূর ভবিষ্যতে আমাদের জন্য কী অপেক্ষা করে আছে? এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি সময় হল ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিবেদন প্রকাশের সময়। আর, কোম্পানিগুলোর আলাদা-আলাদা সূচকগুলো এবং অর্থনীতির গোটা ক্ষেত্রের সূচক উভয়ই অত্যন্ত নিচে থাকবে বলে মনে করা হচ্ছে। ফেডেরাল রিজার্ভ ও ECB শস্তার নদগের বন্যা বইয়ে চলেছে, যা অত্যন্ত প্রবল মুদ্রাস্থিতীর কারণ হবে।
    সেই পরিস্থিতিতে, এবং বিশেষকরে, আইনি মুদ্রার যদি মাত্রাধিক্য তৈরি হয়, সেক্ষেত্রে, ফাটকা কারবারিরা আবার বিটকয়েনের তাস খেলার সিদ্ধান্তন নিতে পারে এটাকে একটা নিরাপদ মুদ্রা ধরে নিয়ে। এই ক্ষেত্রে, বিটকয়েন অতি দ্রুত $7,000 ও $7,400-র স্তলগুলোকে ভেঙ্গেই দেবে না, বরং $8,000 অঙ্কের লক্ষ্যও তৈরি করে নেবে। বিশেষজ্ঞদের 60% এর পক্ষে মত দিয়েছে।
    উল্টো পরিস্থিতিরও অবশ্যই সম্ভাবনা রয়েছে, নিম্নগতির (বিয়ারিশ) পরিস্থিতির, যাকে বিশ্লেষকদের 40% সমর্থন করেছে। আর এর অনেকটাই নির্ভর করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কী হবে তার উপর, যেখানে চারটে প্রধান বিটকয়েন বিনিময়কেন্দ্র (এক্সচেঞ্জ) ও সাতটা ICO প্রকল্পের বিরুদ্ধে ক্লাস-অ্যাকশন মোকদ্দমা দায়ের করা হয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে Binance, BitMex ও EOS। এই মোকদ্দমাগুলোতে বিবাদীর (ডিফেন্ড্যান্ট) দ্বারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আইনের সম্ভাব্য উলঙ্ঘনের অভিযোগ রয়েছে, যার মধ্যে সিকিউরিটি প্রবর্তন ও প্রসার (ইসুয়েন্স অ্যান্ড সার্কুলেশন) সংক্রান্ত আইনভঙ্গের অভিযোগও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। আর এই মামলাকে SEC (US সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন) যদি কঠোর হাতে গ্রহণ করে, তাহলে বিটকয়েন দ্রুত তার $6,700-র অবলম্বনকে ভেঙ্গে দেবে এবং আমরা আবার এই জুটিকে $6,000-র অঞ্চলে দেখতে পাব।

 

NordFX বিশ্লেষণ গোষ্ঠী

 

দ্রষ্টব্য: এই বক্তব্যগুলিকে আর্থিক বাজারে কাজ করার জন্য বিনিয়োগের পরামর্শ বা পথনির্দেশ হিসেবে দেখা উচিৎ নয় এবং এগুলির উদ্দেশ্য হল শুধুমাত্র তথ্য পরিবেশন করা। আর্থিক বাজারগুলিতে কেনা-বেচা করা ঝুঁকিপূর্ণ কাজ এবং তা লগ্নীকৃত অর্থ পুরোপুরি হারানোর কারণ হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)