মার্চ 21, 2020

প্রথমে, গত সপ্তাহের ঘটনাগুলোর একটা পর্যালোচনা:

  • EUR/USD করোনা ভাইরাস বিশ্বমহামারি এখনও বিশ্বের বাজারগুলোকে চালিত করে চলেছে। সৌদি আরব ও রাশিয়ার মধ্যে চলা তেলযুদ্ধ, যা, নিঃসন্দেহেই, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সক্রিয় মধ্যস্থতা ছাড়া চলতেই পারে না, যেটা এই অস্থিতিশীলতাকে আরও বাড়িয়েছে। এই দেশের অপরিশোধিত তেল, যা রাশিয়ার আক্রমণের অন্যতম লক্ষ্যবস্তু, এখন সৌদি ও রুশদের মধ্যে দামের লড়াইয়ে অন্যতম মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা অবলম্বন করতে পারে।
    Covid-19 মার্কিন অর্থনীতিতে বড়সড় ধাক্কা দিয়েছে, কিন্তু অন্যান্য দেশের অর্থনীতি তার চেয়েও বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বৃহস্পতিবার, 18ই মার্চের পর থেকে, পরিস্থিতি কিছুটা স্থিতিশীল হয়েছে, ব্রেন্ট অয়েল-এর দাম ও সেই সঙ্গে NASDAQ এবং S&P500 সূচকগুলিতে সামান্য বৃদ্ধি দেখা গেছে। ডলারের ক্ষেত্রে, এটা পরপর গত দু’সপ্তাহ ধরে সমানে বেড়ে চলেছে, এবং এই সময়টাকেই গত 2008 সালের সংকট পরবর্তী এর সবচেয়ে ভাল সময় হিসেবে উল্লেখ করা যেতে পারে। গত 09ই মার্চের পর থেকে, ইউরো-র তুলনায় মার্কিন মুদ্রা প্রায় 800 পয়েন্ট বৃদ্ধি পেয়েছে, যেখানে ডলারের সূচক 3.3%-এরও বেশি বেড়েছে। মার্কিন ফেডেরাল রিজার্ভ, যারা গত সোমবার সুদের হার 1.25% থেকে কমিয়ে 0.25%-এ নিয়ে আসে, গত বৃহস্পতিবার থেকে বহু দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলির জন্য সোয়াল লাইন আবার চালু করেছে, যেটা, তেলযুদ্ধে মধ্যস্থতার সাথে সাথে, বাজারকে কিছুটা হলেও শান্ত করে থাকবে। যদিও এর সম্ভাবনা নেই বললেই চলে যে, কেউ-ই এখানে কোনরকম গ্যারান্টি দিতে চাইবেন।
    এই মুহূর্তে পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করাটা খুবই কঠিন, প্রমাণ কৌশলগুলো প্রায় খাটেই না, কিন্তু বেশিরভাগ বিশেষজ্ঞ (55%), যাকে H4-এর উপরকার 85% অসিটলেটর এবং প্রবণতার সূচকগুলোও সমর্থন করে, গত সপ্তাহে একেবারে সঠিক পূর্বাভাসই দিয়েছিল, যা ছিল EUR/USD জুটির আরও পতন। তবে, বাস্তব সমস্ত প্রত্যাশাকেই ছাপিয়ে গেছিল: বিশেষজ্ঞরা ফেব্রুয়ারী মাসের সর্বনিম্ন স্তর 1.0750-এ অন্তিম লক্ষ্য হিসেবে অভিহিত করেছিলেন, কিন্তু পতন ছিল তার থেকেই গভীরে এবং এই জুটি তাদের স্থানীয় নিম্নস্তরেরও 100 পয়েন্ট নিচে পড়ে যায়, এবং তাদের পাঁচ বছরের সময়কাল 1.0695-এ এসে শেষ করে;
  • GBP/USD ব্রিটিশ মুদ্রা এত দ্রুত আগে কখনও পড়েনি! 230 বছর আগে, 1791 সালে, পাউন্ডের দাম ছিল $4.555, 1900-তে - $4.864, 2000-এ - $1.515, গত 20শে মার্চ সেটা ছিল মাত্র $1.141। আমরা যখন পাউন্ডের পতন 1.1960-এ নির্ধারিত করেছিলাম, তখন আমরা সতর্ক করেছিলাম যে, সেটা কিন্তু পতনের অন্তিম সীমা নয়, আর আমরা সঠিক ছিলাম। সাপ্তাহিক নিম্নস্তর 1.1409-এ নথিবদ্ধ করা হয়েছে। আর পাউন্ড যদি গত 23শে জুন, 2016 তারিখে 1,900 পয়েন্ট পড়ে থাকে, Brexit নিয়ে গণভোটের পর, তাহলে গত দুই সপ্তাহে GBP/USD জুটি প্রায় 1,800 পয়েন্ট পড়েছে। সাম্প্রতিকতম পতনের ধাক্কাটা আসে এই খবর থেকে যে, ব্যাংক অব ইংল্যান্ড সুদের হার 0.25% থেকে কমিয়ে 0.10%-এ নিয়ে আসছে এবং কোয়ান্টিটেটিভ ইজিং কর্মসূচিকে £200 বিলিয়ন অঙ্কে প্রসারিত করছে। সপ্তাহের অন্তিম তারটা 1.1635-র স্তরে বাঁধা ছিল;
  • USD/JPY এই জুটির ক্ষেত্রে দেওয়া পূর্বাভাসও সামগ্রিকভাবে সঠিক প্রতিপন্ন হয়। এখানে, বিশেষজ্ঞদের 70% এই মত দিয়েছিলেন যে, জাপানি মুদ্রা তাদের অবস্থান হারাবে, এই জুটি 108.30-109.75-এর অঞ্চলের মধ্যে দিয়ে যাবে যেমন মাখনের মধ্যে দিয়ে ছুরি চলে যায় এবং 112.00-112.40-এর স্তরে গিয়ে পৌঁছাবে। বিশেষজ্ঞরা পরবর্তী 1-2 মাসকে সময়সীমা বা ডেডলাইন হিসেবে অভিহিত করেছেন, কিন্তু এই জুটি এই পথের প্রধান অংশটা মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যেই পার করে ফেলেছে, 111.50-এর উচ্চতায় উঠে এবং কারবারি সময়কালকে 110.70-এর হরাইটনে শেষ করে;
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে EUR/USD-এর গতিবিধি যদি ব্রেটন্ট, NASDAQ বা S&P500-এর গতিবিধিগুলিকে প্রায় হুবহু পুনরাবৃত্তি করে, তাহলে সম্ভবত BTC/USD জুটি খুব স্বতন্ত্র একটা জীবন কাটাতে চলেছে। ডলার যখন গত 24শে ফেব্রুয়ারী থেকে 01লা মার্চ অবধি নিচে নেমেছে, বিটকয়েনও তার সাথে সাথে নেমেছে। 02রা থেকে 08ই মার্চ অবধি, ডলার সমানে পড়েছে, যেখানে বিটকয়েন, তার বিপরীতে, বেশ শান্ত থেকেছে এবং এমনকি কিছুটা বৃদ্ধিও দেখিয়েছে। তারপর, গত 09ই মার্চ থেকে 15 মার্চ অবধি, মুদ্রার প্রবণতা একেবারে 180 ডিগ্রি ঘুরে যায়, ডলার দ্রুত গতিতে বাড়তে থাকে, এবং বিটকয়েনের দাম পড়ে যেতে থাকে, যাকে বর্তমান সংকটের পরিস্থিতি দিয়ে ব্যাখ্যা করা যেতে পারে, লোকেরা ক্রিপ্টোকারেন্সি ঝেড়ে ফেলতে চাইছে, সেগুলিকে প্রকৃত সম্পদে রূপান্তরিত করার মধ্যে দিয়ে। আর 16 থেকে 22শে মার্চের সপ্তাহটা ছিল এইরকম: ডলারের বৃদ্ধি জারি ছিল, এবং বিটকয়েন প্রথম সমতল রেখায় চলছিল এবং তারপর কিছুটা হলেও বৃদ্ধি দেখিয়েছিল।
    এর মানে কী?
    BTC-কে একটি নিরাপদ সম্পদ হিসেবে দেখার বিকল্প আমরা ত্যাগ করেছি, যা প্রায় সমস্ত ক্রিপ্টোগুরুই খুব সক্রিয়ভাবে আমাদের বলে আসছিলেন। 12ই ফেব্রুয়ারী থেকে 13ই মার্চের মধ্যে মাত্র একমাস সময়কালের মধ্যেই, প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সির দাম 58% পড়েছে, $10,340 থেকে পড়ে $4,300-এ এসে দাঁড়িয়েছে। কিছু কিছু এক্সচেঞ্জে, এই পতন আরও বেশি ছিল – $3,815 অবধি এবং লোকসান 63%-এ পৌঁছেছিল। বিটকয়েন মাত্র একদিনেই, 12 থেকে 13 মার্চের মধ্যে, তার দামের প্রায় অর্ধেক পড়ে যায়, যা গোটা ক্রিপ্টো-বাজারকে টেনে নামিয়ে আনে,  যার মধ্যে ইথিরিয়াম (ETH/USD), লিটকয়েন (LTC/USD) এবং রিপল (XRP/USD)-এর মত শীর্ষস্থানীয় অল্টকয়েনগুলি ছিল। বেশ নিরাপদস্থল!
    কিন্তু BTC/USD জুটিকে একটি নির্ণায়ক সূচক হিসেবে ব্যবহার করার বিষয়টি অবশ্যই আরও ভেবে দেখার দরকার আছে। নিঃসন্দেহে এটা এখনও একটা তত্ত্ব নয়, কিন্তু এর কিছুটা ভিত্তি আছে বৈকি। অন্যান্য বাজারগুলির চূড়ান্ত অস্থির পরিস্থিতির মধ্যে BTC/USD জুটির ফ্ল্যাট অবস্থায় চলে যাওয়া এই ইঙ্গিত দেয় যে, এই মুহূর্তে কী করা উচিৎ সে ব্যাপারে প্রধান প্রধান কারবারিদেরও কোন ধারণা নেই – তারা ক্রিপ্টোসম্পদ কিনবে না বিক্রি করবে, আর এটাই EUR/USD এবং ডলারের সঙ্গে অন্যান্য প্রধান প্রধান জুটিগুলোর ক্ষেত্রে প্রবণতা বদলানোর (বা কঠোর সংশোধনের) একটা সম্ভাব্য সংকেত হতে পারে।
    গত সপ্তাহের ক্ষেত্রে, বিটকয়েনের জন্য স্থানীয় নিম্নস্তর $4,465-এ নির্দিষ্ট করা ছিল, এবং উচ্চস্তর ছিল প্রতি বিটকয়েন $6,900 করে। 20শে মার্চ, শুক্রবারের শেষে, বিটকয়েনের বাজারি মূলধনের পরিমাণ $91.459 বিলিয়ন থেকে বেড়ে $103.590 বিলিয়ন হয়েছে এবং BTC/USD জুটির দর $6,140-এর স্তরে থেকেছে।

 

আগামি সপ্তাহের পূর্বাভাসের ক্ষেত্রে, একাধিক বিশেষজ্ঞদের মতামতগুলোকে, ও সেই সঙ্গে প্রযুক্তিগত ও গ্রাফিক্সভিত্তিক বিশ্লেষণের বহুবিধ পদ্ধতির ভিত্তিতে করা পূর্বাভাসগুলোকে একত্রিত করে, আমরা নিম্নোক্ত কথাগুলো বলতে পারি:

  • EUR/USD সত্যিকারের একটি বিশ্বজনীন সংকটের মধ্যে, ডলার দেখিয়ে দিয়েছে যে সেই-ই, ইউরো বা ইয়েন নয়, বিনিয়োগকারীদের জন্য সবচেয়ে আকর্ষণীয় রক্ষণশীল সম্পদ। সে কি তার এই অবস্থা ধরে রাখতে পারবে, আর সে কি তার বৃদ্ধই জারি রাখবে?
    একদিকে, মার্কিন ফেডেরাল রিজার্ভ সুদের হার 0.25%-এ নামিয়ে এনে কারসাজি করার তাদের পরিসরটাকে ছোট করে এনেছে, বাজারে শস্তার নগদের জোগায় দিয়েছে এবং প্রতি সপ্তাহে ব্যাংকগুলোকে $1.42 ট্রিলিয়ন করে ঋণ দিয়েছে। বেকারির সংখ্যা বৃদ্ধিও ডলারের উপর চাপ বাড়িয়েছে: অনুমিত 9K-এর পরিবর্তে সুবিধা পাবার জন্য আবেদনের সংখ্যা বেড়ে 70K হয়েছে। ক্যালিফোর্নিয়া, টেক্সাস, নিউ ইয়র্ক এবং পেলসিলভেনিয়া সমস্ত রকমের গৌন ব্যবসা বন্ধ করে দিয়েছে, এবং সামগ্রিকভাবে এই রাজ্যগুলি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের GDP-র প্রায় 35% দিয়ে থাকে। G7 গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলি এবং অন্যান্য দেশগুলির কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলির সমন্বিত পদক্ষেপগুলিও মার্কিন মুদ্রাকে বেগ দিতে পারে যদি তারা একসঙ্গে ডলার থেকে নিজেদের মুক্ত করে নিতে চায়।
    অন্যদিকে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের স্টিমুলাস প্যাকেজ রয়েছে, যা সম্ভবত কংগ্রেসের অনুমোদন পেয়ে যাবে। আর, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, অন্যান্য দেশগুলির অর্থনৈতিক অবস্থা তো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের থেকেও খারাপ।
    আপনারা যদি গত বৃহস্পতিবারের এবং শুক্রবারের প্রথমার্ধের চার্টগুলো দেখেন, তাহলে আপনারা বুঝতে পারবেন যে, বাজার পড়তে শুরু করেছে, EUR/USD জুটি তাদের নিম্নস্তরে এসে গেছে, এবং সময় এসেছে এগুলোর উপর দীর্ঘমেয়াদি পজিশন খোলার। কিন্তু কাজের সপ্তাহের শেষটা ঊর্ধ্বগতির (বুল) উপর আরেকটা আঘাত পেয়েছিল: অর্ধেক দিনেই ইউরো তার ফিরে পাওয়া সমস্ত স্থানগুলি হারিয়েছিল, সপ্তাহের সর্বনিম্ন স্তরে ফিরে গিয়ে। আর তা থেকেই আমাদের ধারণা হয়েছে যে, ডলারের দর তাদের সর্বোচ্চ অঙ্কে এখনও পৌঁছায়নি, এবং এই জুটির নিম্নগতি এখনও বজায় থাকবে।
    এখানেও আবার, করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাফল্য অনেককিছু ঠিক করে দেবে। এখন অবধি, প্রবণতা সূচকগুলির 100% এবং H1 এবং D1-এর উপরের অসিলেটরগুলির 85%-এর রং লাল। অসিলেটরগুলোর বাকি 15% মাত্রাতিরিক্ত বিক্রির অঞ্চলে রয়েছে।
    বিশ্লেষকদের পূর্বাভাসের ক্ষেত্রে, পরবর্তী সপ্তাহের জন্য তাদের থেকে কোন সুনির্দিষ্ট মতামত পাওয়া সম্ভব হয়নি। কিন্তু যখন বৃহত্তর সময়সীমার দিকে যাব, ঊর্ধগতির সমর্থকেরা যথেষ্ট উল্লেখযোগ্য রকমের সুযোগ পাবেন: বিশেষজ্ঞদের 60% প্রত্যাশা করেন এই জুটি গোটা মাস জুড়ে বৃদ্ধি পাবে, এবং 75% মনে করেন গোটা ত্রৈমাসিক জুড়ে। লক্ষ্যমাত্রা হল 1.1000-1.1240-এর অঞ্চলে ফিরে যাওয়া, নিকটবর্তী প্রতিরোধের অঞ্চল রয়েছে 1.0800-এর অঞ্চলে।
    নিকটবর্তী অবলম্বনের স্তর হল, নিঃসন্দেহে, 1.0600 এবং তার পরেরটা হল 100 পয়েন্ট উঁচুতে। নিম্নগতির (বিয়ার) জন্য প্রধান লক্ষ্যমাত্রা হল 2016-17-র সর্বনিম্ন স্তর 1.0350, যার পর ডলার ও ইউরো জুটির পথ 1.0000-এর জন্য খোলা হবে;
  • GBP/USD ইউরোর বিপরীতে, গত 18ই মার্চ তারিখ থেকে, ব্রিটিশ পাউন্ট 1.1450-1.1800-এর পার্শ্ববর্তী চ্যানেলে গিয়ে স্থিতিশীল হয়েছে এবং বর্তমানে পিভোট পয়েন্ট 1.1625 বরাবর এগিয়ে চলেছে। এই চ্যানেলের বিস্তৃতি 350 পয়েন্টটা কিছুটা বড় মনে হতে পারে, কিন্তু বর্তমানে, যখন এই জুটির রোজকার অস্থিরতার মাত্রা 500-600 পয়েন্ট ছাড়িয়ে যাচ্ছে, সেটা খুব একটা বেশি নয়।
    বিশ্লেষকদের বেশিরভাগ (65%) আশা করেন যে, আগামি সপ্তাহে তেমন অতি চমকপ্রদ কিছু ঘটবে না, এবং পাউন্ড উপরে উল্লেখিত চ্যানেলেই থেকে যাবে। একই সময়ে, তাদের মধ্যে 70% থেকে 80% এই প্রত্যাশা করেন যে, এপ্রিল-মে মাসে পাউন্ড 1.2725-1.3025-এর অঞ্চলে ফিরতে পারবে। প্রতিরোধের অঞ্চলগুলি হল 1.1800, 1.1875, 1.2125, 1.2325 এবং 1.2625। অবলম্বনগুলি 1.1425, 1.1300 এবং 1.1200-এ রয়েছে, কিন্তু এই স্তরগুলি বেশ শর্তসাপেক্ষ, কারণ, মনে করে দেখুন, ব্রিটিশ পাউন্ড গত 230 বছরে অতটা নিচে কোনদিন পড়ে যায়নি;
  • USD/JPY এই জুটির গতিবিধি বর্তমানে, প্রথমত, শুধুমাত্র ইয়েনের উপরে নয়, বরং ডলারের উপরে নির্ভরশীল। এই জুটি সেখানে যাবে যেখানে ডলার যাবে। মার্কিন মুদ্রার দরকে যে সব কারণগুলি প্রভাবিত করবে সেগুলির ব্যাপারে উপরে আলোচনা করা হয়েছে। ইতমধ্যে, এই জুটি গত 24শে ফেব্রুয়ারী থেকে 09ই মার্চ সময়কালের মধ্যে তার হারানো সমস্তটা ফিরে পেয়েছে, এবং এখন খেলাটা অমীমাংসীত অবস্থায় রয়েছে: দু’সপ্তাহে 1000 পয়েন্ট নিচে গেছে, আর ঠিক দু’সপ্তাহেই 1000 পয়েন্ট উঠেছে। আর এখন 55% ব্রোকার আগামি সপ্তাহে প্রবণতা ঘুরে যাবার এবং এই জুটি পড়ে গিয়ে 108.50-110.00-র অঞ্চলে চলে আসার অপেক্ষা করে আছে। আমরা যখন মাসিক পূর্বাভাসের দিকে যাব, ঊর্ধ্বগতির সমর্থকদের সংখ্যাটা বেড়ে 65% হয়ে যাবে। পরবর্তী লক্ষ্যমাত্রা হল, 107.00-107.70।
    মার্কিন মুদ্রার সমর্থকদের বিপরীত লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে: প্রথমে এই জুটিকে 112.25 ইয়েন প্রতি ডলারে উঠে আসার, আর তারপর 100 পয়েন্ট উঁচুতে। লক্ষ্যমাত্রাটি 2018-র সর্বোচ্চ স্তর 114.55;
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন ক্রিপ্টো ফিয়ার অ্যান্ড গ্রিড সূচক প্রায় সেখানেই রয়েছে যেখানে সেটা ঠিক এক সপ্তাহ আগে ছিল, সম্ভাব্য 100-র 9 পয়েন্টের স্তরে। একদিকে, এটা খারাপ এবং বিনিয়োগকারীদের মধ্যে চরম ভয়ের ইঙ্গিত দেয়। অন্যদিকে, হতে পারে এটা ভাল একটা দিক, যেহেতু সূচকটা শূন্যয় নেমে আসেনি, বরং একটা জায়গায় দাঁড়িয়ে আছে – হতে পারে "সিংহ" ঝাঁপিয়ে পড়ার অপেক্ষায় রয়েছে, এবং আমরা শীঘ্রই এই মুদ্রার একটা চমকপ্রদ বৃদ্ধি দেখতে পাব?
    এটা সম্ভব কারণ, অন্যদিকে, মার্কিন ফেডেরাল রিজার্ভের ইজিং কর্মসূচিকে ধন্যবাদ, বাজারে নগদ ডলারের অতিরিক্ত পরিমাণ রয়েছে, এবং অন্যদিকে, ডলারের উপর সুদের হার এখন প্রায় শূন্যের কাছাকাছি রয়েছে। আর গত দু’সপ্তাহে ডলারের বৃদ্ধির সুযোগে যেসব কারবারিরা জ্যাকপট জিতে নিয়েছেন তারা তাদের নগদের কিছুটা অংশ তো ক্রিপ্টো সম্পদে স্থানান্তরিত করতেই পারেন।
    বিশেষজ্ঞদের 45% এই ধরনের অগ্রগতির পক্ষে, যারা BTC/USD জুটিকে $7,500-এর অঞ্চলে দেখার প্রত্যাশা করেন। সমপরিমাণ বিশ্লেষকদের ধারণা এই জুটি $5,000-5,500-এর স্তরে পড়ে যেতে পারে। বাকি 10% কোনরকম পূর্বাভাসের ব্যাপারে নিজেদের মনস্থির করতে পারেননি, তারা এর কারণ হিসেবে অভূতপূর্ব Covid-19 করোনা ভাইরাসজনিত পরিস্থিতিকে দেখিয়েছেন।

 

NordFX বিশ্লেষণ গোষ্ঠী

 

এই বিষয়বস্তুটিকে বিনিয়োগের সুপারিশ অথবা আর্থিক বাজারগুলিতে কাজ করার দিকনির্দেশ হিসেবে বিবেচনা করা উচিৎ হবে না: এগুলির উদ্দেশ্য শুধুমাত্র তথ্য সরবরাহ করা।  আর্থিক বাজারগুলিতে কেনা-বেচা করা ঝুঁকিপূর্ণ কাজ এবং তা লগ্নীকৃত অর্থ পুরোপুরি হারানোর কারণ হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)