অক্টোবর 12, 2019

প্রথমে, গত সপ্তাহের ঘটনাগুলোর একটা পর্যালোচনা:

  • EUR/USD। গত সপ্তাহটা দুটো ঘটনার দ্বারা চিহ্নিত হয়ে গেছে। প্রথমটা হল, US ও চীনের মধ্যে বাণিজ্য সমঝোতা পরবর্তী ধাপে পৌঁছানো, যার শুরুটা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ভাষায় “খুব খুব ভাল”। আর দ্বিতীয়টা হল, Brexit সমঝোতায় একটা সাফল্য আসা। UK-র নিয়ন্ত্রিতভাবে প্রস্থানের আশা বাড়ায় পাউন্ডের দাম বাড়ে, ইউরোপীয় মুদ্রার থেকেও একটা উত্তরমুখী টান আসার পর। যাকে আরেকটু সহজ করে দেয় বৃহস্পতিবার, 10ই অক্টোবর তারিখে প্রকাশিত হওয়া ECB বৈঠকের কার্যবিবরণী, যাতে এটি নিশ্চিত করা হয়েছে যে, ব্যাংক সহজকরণ নীতি (ইজিং পলিসি) শেষ করে দিতে চলেছে (QE)।  ফলত, এই জুটি 1.1062-তে উঠে আসতে সক্ষম হয়;
  • GBP/USD। খালি 35% বিশেষজ্ঞই প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের কাথায় বিশ্বাস করেছিলেন এবং অলৌকিক কিছুর উপর ভরসা রেখেছিলেন। আর এইবার সেই অলৌকিক ঘটনা ঘটল, এবং এমনকি তা সমস্ত প্রত্যাশাকেই ছাপিয়ে গেল। বিশ্লেষকগণ এই জুটির 1.2525-এ ওঠার জন্য অপেক্ষায় ছিলেন, বাস্তবে, পাউন্ড 500 পয়েন্টেরও বেশি উঠে 1.2708 উচ্চতায় পৌঁছে যায়। কারণটা ছিল আইরিশ সীমান্তে চলা সমঝোতায় একটা সাফল্য, যার পর-পরই আইরিশ প্রধানমন্ত্রী লিও ভারাদকার বলেন তারা “খুবই ইতিবাচক এবং প্রতিশ্রুতিবান।” এটা সম্ভব যে, জনসন উত্তর আয়ারল্যান্ডের জন্য বিশেষ শর্তাবলী চালু করতে প্রস্তুত রয়েছেন এবং Brexit-এর পর চার বছর পর্যন্ত একে ইউরোপিয়ান কাস্টমস ইউনিয়ন-এর জন্য বজায় রাখবেন।
    বিশেষজ্ঞদের মতে, GBP/USD জুটি এতটাই মাত্রাতিরিক্ত বিক্রি হয়েছিল যে, যে কোন ইতিবাচক খবরই পাউন্ডের দাম বাড়িয়ে দিতে পারত। আর এই ক্ষেত্রে, সমঝোতায় ইতিবাচক মোড় আসায় তা একটা ট্রিগারের কাজ করেছিল, মাত্র কয়েকটা দিনের মধ্যেই ব্রিটিশ মুদ্রাকে 4%-এর বেশি ভারি করে তুলে;
  • USD/JPY। কিন্তু ইয়েনের ক্ষেত্রে, পাউন্ডের বিপরীতে, মনে হচ্ছে, কঠিন সময় এসে গেছে: ঝুঁকি মনোবৃত্তি বেড়ে যাওয়াকে ধন্যবাদ, জাপানের মুদ্রা ব্যাপকভাবে বিক্রির সম্মুখীন হতে হয়, যার ফলস্বরূপ এর দর 200 মতো পড়ে যায়, যে স্তরটা ছিল 108.62 ইয়েন প্রতি মার্কিন ডলার। কারণগুলি বিবিধ। এগুলির মধ্যে রয়েছে US-চীন বাণিজ্য-যুদ্ধ থেকে অনুকূল পরিণামের আশা, Brexit সমঝোতায় অগ্রগতি, ECB বৈঠকের সর্বশেষ কার্যবিবরণী এবং US বন্ডের আয়ে চড়া বৃদ্ধি;
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। ক্রিপ্টোকারেন্সি বাজারে মুলধনায়ন ($234 বিলিয়ন) এখনও চিরাচরিত বাজারগুলির তুলনায় অনেক কম (সোনার বাজারের যার পরিমাণ $9 ট্রিলিয়ন, শেয়ার বাজারে যার পরিমাণ $66 ট্রিলিয়ন, বন্ড বাজারে যার পরিমাণ $86 ট্রিলিয়ন) এবং তা ওই বাজারগুলির মোট সম্পদের এক-দশমাংশকেও অতিক্রম করে না। কিন্তু, এতদসত্ত্বেও, ক্রিপ্টোকারেন্সির বিষয়টা প্রতিনিয়তই বিশ্ব রাজনীতির চূড়ায় উঠে আসছে।
    তাই, প্রখ্যাত মার্কিন ধনকুবের ড্যানিয়েল স্টিভেন পেনা বলেছেন, ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলির উৎপত্তি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রর বিরুদ্ধে রাশিয়ার ষড়যন্ত্রের ফলস্বরূপ হয়ে থাকতে পারে, এবং বিটকয়েন সৃষ্টির পিছনে স্বয়ং প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন রয়েছেন। এই মন্তব্যটি মার্কিন কংগ্রেসের হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভ-এর সদস্যদের দ্বারা ফেডেরাল রিজার্ভের প্রধানের উদ্দেশ্যে করা একটি আপীলের মধ্যে দিয়ে অনুরণিত হয়েছিল, একটি ক্রিপ্টো-ডলার চালু করার প্রস্তাব-সহ। এই পদক্ষেপের মধ্যে দিয়ে এই আপীলের রচয়িতারা মার্কিন অর্থনীতিকে অন্য কারো বৈরীতাপূর্ণ ক্রিপ্টোকারেন্সির হাত থেকে রক্ষা করতে চান।
    অনুরূপ একটি উদ্যোগ জার্মানির ভাইস-চ্যান্সেলার ও অর্থমন্ত্রী ওলাফ স্কলৎজও নেন, যিনি ডিজিটাল ইউরো প্রবর্তনের ডাক দেন। “এই স্থানটা আমাদের চীন, রাশিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বা কোন বেসরকারি সরবরাহকারীর জন্য ছেড়ে রাখা উচিৎ হবে না”, তিনি বলেন।
    ক্রিপ্টো-ডলার এবং ক্রিপ্টো-ইউরো সুদূর ভবিষ্যতের ব্যাপার, কিন্তু এর মধ্যেই সরকারগুলি এবং কেন্দ্রীয় সরকারি ব্যাংকগুলি সক্রিয়ভাবে শক্তিশালী স্বতন্ত্র প্রতিযোগীদের বিরুদ্ধে লড়াই শুরু করে দিয়েছে। জুকারবার্গের (ফেসবুক) নিজস্ব লিব্রা কয়েন চালু করার বিষয়টি তীব্র চাপের মুখে পড়েছিল। এর পরবর্তী সারিতেই রয়েছে TON-কয়েন, যা চালু করার ব্যাপারে টেলিগ্রাম দ্রুততার সঙ্গে এগিয়ে যাচ্ছে।
    এখনকার মতো, যে মূল ক্রিপ্টোকারেন্সির ভিত্তির উপর গোটা বাজারটা দাঁড়িয়ে আছে, তা নিশ্চিতভাবেই বিটকয়েন। গত সপ্তাহের পূর্বাভাসে, যাকে বেশিরভাগ বিশেষজ্ঞই (75%) সমর্থন করেছিল, BTC/USD জুটির একটি পার্শ্বীয় গতির অনুমান করা হয়েছিল খানিকটা নিম্নমুখী গতি (বিয়ার) সহ, যা এই জুটিকে $7,500-7,700-এ নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়। তবে, সোমবার বিটকয়েন একটি স্থানীয় নিম্নস্তর $7,795-এ পৌঁছায়, এবং তারপর ঘুরে দাঁড়ায় এবং উপরে ওঠে। প্রবণতার এই পরিবর্তন বিনান্স (Binance)-এর p2p প্ল্যাটফর্ম চালু করার কারণে হয়ে থাকতে পারে, যেখানে চীনা ইউয়ানের জন্য বিটকয়েন ও ইথিরিয়াম কেনাবেচা হবে।
    বুধবার, 09ই অক্টোবর, এই জুটি $8,350 অঞ্চলের একটি দু-সপ্তাহের প্রতিরোধকে কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হয় এবং শুক্রবার তা $8,815 উচ্চতায় পৌঁছে যায়। তারপর, এই জুটি $8,350-র হরাইজনে ফিরে যায়, যা এখন এই জুটির একটা নতুন শক্তিশালী অবলম্বন।
    অল্টকয়েন বাধ্য ছেলের মতোই অনুরূপ ক্রিপ্টোকারেন্সি গতির পুনরাবৃত্তি করেছিল গোটা সপ্তাহ জুড়ে। তবে, ইথিরিয়াম (ETH/USD) এবং রিপল (XRP/USD)-এর দোলাচল (স্যুইং) যেখানে প্রায় 71% ছিল, সেখানে লিটকয়েন (LTC/USD) অনেকটাই শান্ত আচরণ করে, অস্থিরতার (ভোলাটিলিটি) স্তর 13%-এ দেখিয়ে।

 

আগামি সপ্তাহের পূর্বাভাসের ক্ষেত্রে, একাধিক বিশ্লেষকদের মতামতগুলোকে, ও সেই সঙ্গে প্রযুক্তিগত ও গ্রাফিক্সভিত্তিক বিশ্লেষণের বহুবিধ পদ্ধতির ভিত্তিতে করা পূর্বাভাসগুলোকে একত্রিত করে, আমরা নিম্নোক্ত কথাগুলো বলতে পারি:

  • EUR/USD। Us-চীন বাণিজ্য সমঝোতার পরিণাম প্রসঙ্গে বলতে গেলে, বাজারগুলি উচিৎ সংযম দেখাচ্ছে, এই প্রত্যাশা থেকে যে এই অনন্ত বিবাদ চলতেই থাকবে, এবং হতে পারে, এই সমঝোতা সম্পূর্ণ ভেঙ্গে যাবে এবং নতুন শুল্ক চালু হয়ে যাবে। আগামি সপ্তাহে, আমরা গুরুত্বপূর্ণ কিছু খবরেরও আশা করছি যা সংশ্লিষ্ট মুদ্রাগুলির উপর একটা মজবুত প্রভাব ফেলবে। সেগুলির মধ্যে রয়েছে, 14ই অক্টোবর, সোমবার ও 18ই অক্টোবর, শুক্রবার চীন থেকে আসা পরিসংখ্যানগুলি, সেই সঙ্গে 15ই অক্টোবর, মঙ্গলবার এবং 17ই অক্টোবর বুধবার UK এবং ইউরোজোন থেকে আসা মুদ্রাস্ফীতির বিবরণগুলি। বৃহস্পতিবার, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিল্পগত উৎপাদনের রিপোর্ট বাজারের ক্রমবর্ধমান অস্থিরতাকে আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে। এই সূচকে একটি উল্লেখযোগ্য হ্রাসের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে: 0.6% থেকে 0.1%। আর প্রকৃত পরিমাণ যদি পূর্বাভাসের সঙ্গে মিলে যায়, তাহলে ডলারের পতন আশা করা যেতে পারে।
    70% বিশেষজ্ঞ ডলারের পতন এবং এই জুটির উত্থান প্রত্যাশা করছেন, যাদের পূর্বাভাসকে 75% অসিলেটরগুলোর ব্যাখ্যা এবং H4 ও D1-এর উপর গ্রাফিক্স সহযোগে করা বিশ্লেষণ সমর্থন করছে।  এই জুটি যদি উন্নতি করে সেক্ষেত্রে তার অবলম্বন অঞ্চল (সাপোর্ট জোন) হল 1.1000। লক্ষ্যমাত্রাগুলি হল 1.1075, 1.1100 এবং 1.1160।
    30% বিশ্লেষক এবং 20% অসিলেটর এর বিপরীত ধারণা রাখে, যারা এই জুটি মাত্রাতিরিক্ত কেনা হচ্ছে বলে সংকেত দিচ্ছে। তাদের লক্ষ্যমাত্রাগুলি হল 1.1000, 1.0940, 1.0925 এবং 01লা অক্টোবরের নিম্নস্তর 1.0880।

  • GBP/USD। বস্তুত, Brexit-এর সফল পরিণতি নিয়ে উল্লসিত হবার মতো সময় এখনও আসেনি। জনসনকে এখন EU-এর সঙ্গে চুক্তির শর্তাবলী পার্লামেন্ট থেকে অনুমোদন করিয়ে আনতে হবে। আর যেটা করতে, আমাদের মনে আছে, গ্রেট ব্রিটেনের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে, চার বার ব্যর্থ হয়েছিলেন। আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে চলা সমঝোতাও এখনও কোন পরিণতি পায়নি। সেই সঙ্গে, Brexit-এর উপর ইউরোপিয়ান কাউন্সিল-এর সম্মেলন আগামি বৃহস্পতি ও শুক্রবার হতে চলেছে। এই পদক্ষেপগুলির প্রত্যেকটাই একটি চুক্তি নিষ্পত্তির প্রক্রিয়াকে মন্থর করে দিতে পারে অথবা এমনকি এর পথে অলঙ্ঘ্য বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। পরের বিষয়টির ক্ষেত্রে, EU 2020-র গ্রীষ্মকাল অবধি সময় সম্প্রসারিত করার জন্য তৈরি যাতে করে EU থেকে UK-র বেরিয়ে আসাটা শৃঙ্খলাবদ্ধভাবে সম্পন্ন হতে পারে।
    এই জটিলতাগুলি, সেই সঙ্গে গত সপ্তাহে পাউন্ডের অত্যন্ত দ্রুত গতিতে উত্থান, এখন 75% বিশেষজ্ঞের প্রবণতা ঘুরে যাবার এবং ব্রিটিশ মুদ্রার 1.2200-র অঞ্চলে পতনের প্রত্যাশার কারণ হয়ে উঠছে। এই পরিস্থিতিকে D1-এর উপর গ্রাফিক্স সহযোগে করা বিশ্লেষণ এবং H4 ও D1-এর উপর অসিলেটরগুলোর 15% সমর্থন করছে, এই সংকেত দিয়ে যে, পাউন্ড মাত্রাতিরিক্ত ক্রয় করা হয়েছে।
    অসিলেটরগুলোর বড় একটা অংশ এবং প্রবণতা সূচক (ট্রেন্ড ইন্ডিকেটর), সেই সঙ্গে বিশেষজ্ঞদের 25%, যারা পাউন্ড শক্তিশালী হবার ও এই জুটির 1.2800-র উচ্চতায় উঠে আসার অপেক্ষায় ছিল, এখনও বরিস জনসনের ভাগ্যের উপর বিশ্বাস রাখছে।  স্বাভাবিকভাবেই, Brexit-এর ব্যাপারে সত্যিকারের ইতিবাচক খবরের আবির্ভাব, চুক্তি স্বাক্ষরের বিষয়টি উল্লেখ না করেই, পাউন্ডকে মহাজাগতিক উচ্চতায় তুলে দেবার মতো আরেকটা ধাক্কার কারণ হতে পারে;
  • USD/JPY। H4-এর উপর, প্রবণতা সূচকের 100%-ই উত্থান দেখছে, আর D1-এর উপর তা কিছুটা কম - 90%। H4 ও D1 উভয়ের উপরের অসিলেটরগুলোর 75%-ই সবুজ রংয়ে রাঙানো, বাকি 15% এই জুটি মাত্রাতিরিক্ত কেনা হচ্ছে বলে সংকেত দিচ্ছে। D1-এর উপর গ্রাফিক্স সহযোগে করা বিশ্লেষণ এই জুটির 106.65-এর হরাইজনে পতনের, এবং তারপর 108.40-এর উচ্চতায় প্রত্যাবর্তনের ইঙ্গিত দিচ্ছে।
    বিশেষজ্ঞদের ক্ষেত্রে, তাদের মতামতগুলি সমানভাবে বিভক্ত: এক-তৃতীয়াংশ এই জুটির বৃদ্ধির পক্ষে, আরও এক-তৃতীয়াংশ এই জুটির পতনের পক্ষে এবং অবশিষ্ট এক-তৃতীয়াংশ এই জুটির পার্শ্ববর্তী গতির প্রবণতার পক্ষে মত দিচ্ছে। অবলম্বন অঞ্চলগুলি হল 107.00, 106.65 এবং 105.70, প্রতিরোধের অঞ্চলগুলি হল 109.00 এবং 109.85;
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। উপরে যেমনটি বলা হয়েছে, $8,350-এর দু-সপ্তাহের প্রতিরোধ ভেঙ্গে বেরিয়ে বিটকয়েন এই অঞ্চলটিকে এখন পর্যাপ্ত শক্তিশালী অঞ্চলে বদলে দিতে পারে। অধিকন্তু, ক্রিপ্টোকারেন্সির ফিয়ার অ্যান্ড গ্রিড ইন্ডেক্স, “চূড়ান্ত ভীতি”-র লাল অঞ্চল থেকে উঠে এসে, প্রায় “সাধারণ ভীতি”-র কমলা অঞ্চলকে অতিক্রম করে গেছে এবং এখন সেটা তার স্বাভাবিক অবস্থানের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। সেটা যদি ঘটে, তাহলে BTC/USD জুটির পরবর্তী লক্ষ্যবিন্দু হবে $9,000-এর অঞ্চলে স্থিতিশীল হবার। তবে, এই পূর্বাভাসকে মাত্র 35% বিশ্লেষকই সমর্থন করেন। তাদের বেশিরভাগই (65%) নিম্নমুখীতা (বিয়ার)-এর পক্ষে, যারা আশা করেন এই জুটি প্রথমে $8,000-এর হরাইজনে পড়ে যাবে এবং তারপর আরও $400 নিচে নামবে।
    আরেকটি “মহাজাগতিক” (কসমিক) পূর্বাভাস, যে ব্যাপারে আমরা নিয়মিতভাবে আলোচনা করি, ছিল বিখ্যাত অ্যান্টিভাইরাস নির্মাতা জন ম্যাকঅ্যাফির এই বিবৃতি যে, 2020-তে বিটকয়েনের দাম $1 মিলিয়নে পৌঁছে যাবে। ঊর্ধ্বমুখী গতিতে (বুলিশ ডাইনামিক্স) পৌঁছানোর ব্যাপারে প্রধান উদ্যমটি, তার মতে, হবে কয়েনের সীমিত সংখ্যা সেই সঙ্গে অল্টকয়েনের সংখ্যা হ্রাস পাওয়া, যা একমাত্র প্রধান কয়েনটিকেই বিশ্বাসযোগ্য ও স্থিতিশীল সম্পদে পরিণত করবে।
    TIE-র বিশ্লেষকেরাও অল্টকয়েনের জন্য একটি অন্ধকারময় ভবিষ্যতের পূর্বাভাস দিয়েছেন। তাদের পর্যবেক্ষণ মোতাবেক, অল্টকয়েনের ব্যাপারে আগ্রহ দ্রুত কমে আসছে, কিছু কিছু ক্ষেত্রে শূন্যে পৌঁছে যাচ্ছে। তাই, এটি সম্ভব যে, আর কয়েক মাসের মধ্যে হাজার-হাজার কয়েনগুলির মধ্যে খালি বড়-বড় কয়েকটিই, যেমন ইথিরিয়াম বা লিব্রা, বাজারে ভেসে থাকবে।

 

রোমান বুটকো, NordFX

 

দ্রষ্টব্য: এই বিষয়বস্তুটিকে বিনিয়োগের সুপারিশ অথবা আর্থিক বাজারগুলিতে কাজ করার দিকনির্দেশ হিসেবে বিবেচনা করা উচিৎ হবে না: এগুলির উদ্দেশ্য শুধুমাত্র তথ্য সরবরাহ করা আর্থিক বাজারগুলিতে কেনা-বেচা করা ঝুঁকিপূর্ণ কাজ এবং তা লগ্নীকৃত অর্থ হারানোর কারণ হতে পারে


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)