সেপ্টেম্বর 7, 2019

প্রথমে, গত সপ্তাহের ঘটনাবলির একটি পর্যালোচনা

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। 1.1025-1.106 বিস্তারকে গত দেড় মাসের পিভট পয়েন্ট জোন বলা যায়। এটা ছিল সেখানে যে সপ্তাহের ট্রেডিং সেশনের শেষের মধ্যে পেয়ার ফেরত এসেছিল, যা ইঙ্গিত দেয় বাজারে অনিশ্চয়তা বিরাজ করছে।
    এটা সবাই জানে যে পরিস্থিতি এখন সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ট্রাম্প বাণিজ্য যুদ্ধ এবং ইউএস ফেডারেল রিজার্ভ নীতি দ্বারা। খবর ছিল যে ওয়াশিংটন ও বেইজিং অক্টোবরের প্রথমদিকে সমঝোতা শুরু করতে পারে যা স্টক মার্কেটে ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছিল : S&P500 ইনডেক্স ওপরে উঠেছিল এবং ফের 3000-এর কাছে চলে যায়, আর 10-বছরের ইউএস ট্রেজারি বন্ডের বৃদ্ধির হার হয়েছিল গত তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। একইসঙ্গে, ডলার শক্তিশালী হয়েছিল, ইউরোর তুলনায় পৌঁছেছিল এর সর্বোচ্চ সীমায় মে 2017-এ। এর ফল হল, ৩ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার ইউরো/মার্কিন ডলার জুটি ফের একবার নীচে নামল, পৌঁছল 1.0925-এর স্তরে।
    যদিও আরও প্রতিফলনের ওপর দেখা যায় এটা ফিরেছে যে সাধারণভাবে অনুমানের কোনো বিশেষ কারণ নেই। চীনের থেকে কোনো গুরুতর ছাড় আপনার অবশ্যই গণনা করা উচিত নয়, মার্কিন অর্থনীতির সমস্যা দূর হয়নি এবং ধারাবাহিক বাণিজ্য যুদ্ধের প্রেক্ষিতে একমাত্র গভীর মন্দা বৃদ্ধির আশঙ্কা আছে। এবং এটা অপরিহার্যভাবে অবশ্যই হারে পতন ঘটাবে এবং ফেড-এর আর্থিক নীতিতে গুরুতর সহজতা আনবে।
    বিনিয়োগকারীরা আশা করছেন সপ্তাহের শেষে লেবার মার্কেট ডেটার ভিত্তিতে কিছু দিক নির্দেশনা পাবেন। যদিও নন-ফার্ম পেরোলস (এনএফপি)-এর মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি ইন্ডিকেটরের পারফর্ম্যান্স দেখিয়েছে... এর পতনে কিছুই ঘটবে না, এটা খুব খুউব ছোট (159K থেকে 130K পর্যন্ত)। ফলত ইউরোপিয়ান কারেন্সির তুলনায় ডলার হারিয়েছে মাত্র 40 পয়েন্ট। এরপর শুক্রবার, 6 সেপ্টেম্বর ফেড চেয়ারম্যান জেরোম পাওয়েলের ভাষণে বাজার উত্তর খোঁজার চেষ্টা করেছে। কিন্তু কিছুই পাওয়া যানি। এর ফলাফল, পয়েন্ট স্থির হয়েছিল 1.1025-এ।
  • জিবিপি/ইউএসডি। ব্রিটিশ কারেন্সি রেট প্রথম নির্ধারণ করা হয়েছিল অনুমান নং 1 দ্বারা – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-চীনের বোঝাপড়ার ধারাবাহিকতা সংক্রান্ত এবং তারপর অনুমান 2 দ্বারা – ব্রেক্সিটের ওপর ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের বোঝাপাড়া সংক্রান্ত। মনে রাখতে হবে যে অধিকাংশ বিশেষজ্ঞ আশা করেছেন যে পেয়ার আবার 12 আগস্ট 2019-এর মতো, 1.2015, নীচে যাচাই হবে।  D1-এর গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণ ইঙ্গিত দেয় পেয়ারের অক্টোবর 2016-র 1.1945-এর চেয়ে আরও বেশি পতনের সম্ভাব্যতায়। এবং এই ভবিষ্যদ্বাণী প্রযোজ্য হয়েছিল সপ্তাহের শুরুতে : অনুমান নং 1-কে ধন্যবাদ, পেয়ার পড়েছিল 1.1958-এ। এবং তারপর এটা ঘুরে দাঁড়ায় এবং অনুমান নং 2-কে ধন্যবাদ, পাউন্ড সক্ষম হয়েছিল ডলার থেকে প্রায় 400 পয়েন্ট জিতে নিতে বুধবারের মাঝামাঝি। চূড়ান্ত অবস্থান দেখাচ্ছে এটা 1.2290 উচ্চতায় পৌঁছেছে।
  • ইউএসডি/জেপিওয়াই। ব্রিটিশ পাউন্ডের মতো নয়, এর ভয়াবহ বৃদ্ধি সহ ইয়েন আচরণে বেশ শান্তভাবে 105.50-107.00 করিডোরে যাচ্ছে আগস্টের শুরু থেকে। এবং এই রেঞ্জের বাইরে বিরল নির্গমণের প্রধান কারণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-চীনের বাণিজ্য যুদ্ধের গতিবিধি, যা ট্রাম্প প্রকাশ করেছেন তাঁর টুইটারে।
    যেমন বিশেষজ্ঞরা আশা করেছেন, ইয়েনে আগ্রহে, নিরাপদ কারেন্সি হিসেবে, সম্প্রতি হ্রাস পেয়েছে, এবং এর ফলে বৃহস্পতিবার 107.23-তে উঠতে পেরেছে ডলার। যার পর সামান্য নেমেছে এবং পাঁচ-দিনের পর্ব পেয়ার শেষ করেছে 106.92 স্তরে।  
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। অনলাইন পাবলিকেশন ব্লক জার্নাল অনুসারে, লাভযোগ্যতার ক্ষেত্রে পাবলিক আইপিও-র মধ্য দিয়ে আইটি কোম্পানিতে বিনিয়োগ সবচেয়ে সুবিধেজনক, বিটকয়েন এমনকি তাকেও ছাপিয়ে গেছে। মার্চ 2010-এ প্রথম ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহৃত হয়েছিল প্রায় $0.003 খরচে। সেইভাবে বর্তমান বিনিময় হার $10,000-এর ওপরে, এর বৃদ্ধির পরিমাণ প্রায় 350,000,000% (তুলনার জন্য, অনলাইন অ্যাডভার্টাইজিং জায়ান্ট দ্য ট্রেড ডেস্ক-এর এই একই ইন্ডিকেটর হয় ‘মাত্র’ 1.317%)।
    গত সাত দিন ধরে, বিটিসি/ইউএসডি পেয়ার বৃদ্ধি পেয়েছে। এক সপ্তাহে প্রকাশিত একটি অনুমান চার্ট দেখায় যে বিশ্লেষকদের 70% আশা করেছিলেন যে পেয়ার উঠবে $11,000 জোনে, যা বাস্তবে ঘটেছে : শুক্রবারের মাঝামাঝি 6 সেপ্টেম্বরে, বিটকয়েন পেয়েছিল $1,250 এবং পৌঁছেছিল $10,925 স্তরে।
    বিটিসি/ইউএসডি পেয়ারের জন্য অনুমান সহ অ্যাল্টকয়েনের জন্য আমরা আরকেটি অনুমান প্রকাশ করেছি। বিশেষজ্ঞদের মতে, তাদের সম্ভাবনা, সে বিটকয়েন যেখানেই যাক না কেন, খুব ধূসর দেখায়। যদি বিটকয়েন পড়ে, ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেটে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহেরও সামগ্রিকভাবে পতন ঘটবে। এবং যদি বিটকয়েন বৃদ্ধি পেতে শুরু করে, তখন আমরা আশা করতে পারি উদ্ধৃত ক্রিপ্টোকারেন্সির জন্য অ্যাল্টকয়েনের সক্রিয় বিনিময়। এবং গত সপ্তাহে, অবশেষে, এরকম একটি পরিস্থিতির বৈধতা দেখা গিয়েছিল। বিটিসি/ইউএসডি পেয়ারের 13% বৃদ্ধির পাশাপাশি ইথেরিয়াম (ইটিএইচ/ইউএসডি) বৃদ্ধি পেয়েছিল মাত্র 4%, লাইটকয়েন (এলটিসি/ইউএসডি) বৃদ্ধি পেয়েছিল 3% এবং রিপল-এর (এক্সআরপি/ইউএসডি) বৃদ্ধি ছিল 0।

 

আগামী সপ্তাহের জন্য অনুমান হিসেবে, বেশ কয়েকজন বিশ্লেষকের মতামতের সংক্ষেপের পাশাপাশি বৈচিত্র্যময় টেকনিক্যাল এবং গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের ভিত্তি যে অনুমান করা হয়েছে, তাতে আমরা নিম্নোক্ত কথা বলতে পারি :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। অসসিলেটর এবং D1-এ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটর উভয়ই লাল রঙের হওয়া সত্ত্বেও বিশ্লেষকদের ফোরকাস্ট হল নিরপেক্ষ ধূসর। এর পেছনে কারণ হল, এটা একটা ইভেন্টের প্রত্যাশা যা বিনিয়োগকারীর সেন্টিমেন্টে খুব প্রভাব ফেলতে পারে। বৃহস্পতিবার, 12 সেপ্টেম্বর, বেস ইন্টারেস্ট রেট ঘোষণা করবে ইসিবি। বর্তমানে এটি শূন্য স্তরে আছে, এবং বিশেষজ্ঞদের একটা অংশ 0.25 শতাংশ পয়েন্ট হ্রাস হয়ে -0.75% দাঁড়াবে প্রত্যাশা করছেন, অন্যরা এমনকি আরও হ্রাসের, -0.4%, সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেননি, এবং তৃতীয় ধারণা হল ইউরোজোনের অর্থনীতি মসৃণ করতে নির্দিষ্ট প্রতিকারের পরিবর্তে এই সময়ে ইসিবি সাধারণ প্রবাদ থেকে দূরে থাকতে পারে।
    উপরের সঙ্গে সংযোগ রেখে 12 সেপ্টেম্বর, আমরা এই পেয়ারের গতিবৃদ্ধি আশা করতে পারি, একটি বহনযোগ্য প্রবণতার উন্নয়ন এবং ইউরো কোটে 100 বা তার বেশি পয়েন্ট হ্রাস। নিকটতম সাপোর্ট হল 1.0925, পরেরটা 1.0830। জোনে রেজিস্ট্যান্স হল 1.1125 এবং 1.1250।
    সপ্তাহের অন্যান্য ইভেন্টের মধ্যে, যদিও তত তাৎপর্যপূর্ণ নয়, কেউ ইউএস কনজিউমার মার্কেটের পরিসংখ্যান প্রকাশ মনে রাখতে পারেন, যা 12 সেপ্টেম্বর এবং শুক্রবার 13-এ প্রকাশ পাবে।  
  • জিবিপি/ইউএসডি। মঙ্গলবার, 10 সেপ্টেম্বর, আমরা আশা করছি ইউকে লেবার মার্কেটের ওপর ডেটার প্রকাশ। কিন্তু অন্যান্য আর্থিক পরিসংখ্যানের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হল ব্রেক্সিট সংক্রান্ত খবর। সোমবার এই দেশের সংসদ থেকে প্রথম ভাগ এসে পৌঁছবে। সামগ্রিকভাবে, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সঙ্গে চুক্তি সংক্রান্ত টেনশন তাৎপর্যপূর্ণভাবে হ্রাস পেয়েছে, দ্বিতীয় একটি রেফারেন্ডামের জন্য আশা বাতাসে ভাসছে এবং 80% বিশেষজ্ঞ আশা করছেন পাউন্ড শক্তিশালী হবে এবং এই পেয়ার 1.2400-1.2525 জোনে উঠবে।
    আরেকটি বিকল্প দৃষ্টিভঙ্গি মাত্র 20% বিশ্লেষক উপস্থাপন করেছেন, গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণ এবং অসসিলেটরের 15% D1-এ, যা সংকেত দেয় পেয়ারটি অতিরিক্ত বিক্রীত। এই পরিস্থিতিতে প্রধান লক্ষ্য হল আগস্ট-সেপ্টেম্বরের পতনকে 1.1960-1.2060 অঞ্চলে ফের পরখ করা।  
  • ইউএসডি/জেপিওয়াই। কেউ বলতে পারবে না যে জাপানে কিছু ঘটছে না। ব্যাংক অব জাপান, চেষ্টা করছে পতন আটকানোর, সরকারি বন্ড ক্রয় হ্রাস করেছে 20 বিলিয়ন ইয়েন। সোমবার, 9 সেপ্টেম্বর, জাপানের জিডিপি-র বৃদ্ধির হারের পরিসংখ্যান আসবে, যা 2019-এর দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে 2.1%-এ  ত্বরান্বিত হয়েছে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে এটা এখন সম্পূর্ণ নির্ভর করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওপর। হ্যাঁ, পাশাপাশি চীনও। এবং এই দেশগুলোর মধ্যে বাণিজ্য চুক্তির আশা করা হচ্ছে যা জাপানি কারেন্সিকে নীচে ঠেলে দেবে এবং পেয়ার উঠবে। 90% বিশ্লেষককে (যা খুবই বিরল) সমর্থন করেছেন অসসিলেটর এবং D1-এর গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষকদের 90%, এঁরা বুল-এর সঙ্গে একপাশে এবং পেয়ারের পক্ষে রয়েছেন যে এটি উঠবে 107.25 স্তরে এবং তার উপরে রেজিস্ট্যান্স 107.80 এবং 108.50-তে।
    পেয়ারের 105.50 স্তরে পতন প্রত্যাশা করেছিলেন যথাক্রমে 10% বিশেষজ্ঞ ও 10% অসসিলেটর, সংকেত দিয়েছিলেন পেয়ার অতিরিক্ত বিক্রীত। আরও সাপোর্ট অবস্থিত 105.00 ও 104.45 জোনে।

  • ক্রিপ্টোকারেন্সি।গত সপ্তাহ জুড়ে দৃঢ় বৃদ্ধি থাকলেও, শুক্রবারের শেষদিকে, 6 সেপ্টেম্বর, প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সি অপ্রত্যাশিতভাবে নীচে নেমে যায়, আক্ষরিক অর্থেই 20 মিনিটের মধ্যে প্রায় $600 পড়ে যায়। এটা আরও একবার এই তত্ত্ব নিশ্চিত করে যে সাচসুপার-গতিময়তা অনেক আগে বলা যায় না বিশ্বস্ত সম্পদ হিসেবে বিটকয়েনের ব্যবহার সম্পর্কে ঐতিহ্যবাহী বাজারের ঝুঁকি গ্রহণের জন্য, যা কমোডিটি, কারেন্সি ও স্টক সম্পর্কিত।  
    একই সময়ে, বিটকয়েন ক্রিপ্টো মার্কেটকে উষ্ণ করার প্রচেষ্টা থামায়নি তাদের চাঙ্গা করার অনুমান সহ। তাই, টিভি প্রেজেন্টার ও বিশেষজ্ঞ ম্যাক্স কাইজার সেদিন বলেছেন যে কোনো স্টক মার্কেট সংকট, যা ফের গতি অর্জন করে, ক্রিপ্টোকারেন্সিকে নিয়ে যেতে পারে $25,000-এর মূল্যে। যদিও, এর ঠিক বিপরীত একটি দৃষ্টিভঙ্গি আছে। উদাহরণ স্বরূপ, বিশ্লেষক ও ট্রেডার জন বোলিঙ্গার, যিনি সুপরিচিত টেকনিক্যাল ইন্ডিকেটর বোলিঙ্গার ব্যান্ডস তৈরি করেছেন, মেটাল ট্রেডার টার্মিনালে গঠিত, ঘোষণা করেছেন সম্পূর্ণ উলটো বিটকয়েন বিনিময় হার। বিশেষজ্ঞের মতানুযায়ী, ‘ক্রিপ্টো উইন্টার, যা মাত্র এই বছরের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে শেষ হয়েছে, হয়তো ফিরে আসতে পারে সবচেয়ে অপ্রত্যাশিত মুহূর্তে।’

 

রোমান বুটকো, নর্ডএফএক্স

 

দ্রষ্টব্য :   এই বিষয়বস্তুগুলোকে আর্থিক বাজারে গণ্য করা উচিত হবে না কোন বিলগ্নীকরণ বা পরামর্শ হিসেবে: এগুলি শুধু তথ্যপ্রদানের উদ্দেশ্যে প্রদত্ত। অর্থনীতির বাজারে ট্রেডিং ঝুঁকিপূর্ণ এবং এর ফলে আমানত করা টাকা লোকসান হয়ে যেতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)