অগাস্ট 4, 2019

প্রথমে, গত সপ্তাহের ঘটনাগুলোর একটা পর্যালোচনা:

  • USD।গত সপ্তাহে দুটি ঘটনা ঘটেছিল, আরও সুনির্দিষ্ট করে বললে, বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার যথাক্রমে 01লা ও 02রা আগস্ট তারিখে, যা বাজারকে নাড়িয়ে দিতে পারত। কিন্তু তা হয়নি।
    বৃহস্পতিবার, 2008 সালের পর থেকে প্রথমবারের জন্য, US ফেডেরাল রিজার্ভ তাদের মূল রেট 2.50% থেকে কমিয়ে 2.25% করে দেওয়া হয়। ঘটনাটা যথেষ্টই প্রত্যাশিতও ছিল। বাজারগুলো সাধারণ এই ধরনের গতিবিধিতে কিছুটা পড়ে গিয়ে সাড়া দেয়। তবে, এই ক্ষেত্রে, পতনের পরিবর্তে, ডলার ঊর্ধ্বমুখী হয়েছিল, যদিও তা খুব বেশি হয়নি (EUR-র সাপেক্ষে এই বৃদ্ধি 100 পয়েন্টের সামান্য বেশি ছিল) এবং খুব বেশি দীর্ঘস্থায়ীও হয়নি (শুক্রবার অবধি, ইউরো 85 পয়েন্ট পুনরুদ্ধার করে নেয়)।
    মার্কিন মুদ্রার বৃদ্ধির মূল কারণ ছিল জেরোম পাওয়েলের মন্তব্য, যাতে ফেডেরাল রিজার্ভের কর্ণধার বলেন, 25 বেসিস পয়েন্টের এই রেট কমানোর ঘটনা ধারাবাহিক সহজ পলিসি তৈরির সূচনা করবে এমনটা জরুরি নয়। পরোক্ষভাবে বললে, তার কথা এই ঘটনায় সুনিশ্চিত হয়ে যায় যে, রেট মাত্র 0.25% কমানো হয়, 0.50% নয় এবং FOMC-র দুই সদস্য রেট কমানোর বিপক্ষে ভোট দেন।
    এইভাবে, ফেডেরাল রিজার্ভ অন্যান্য দেশগুলোর কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোর সহজ পলিসি তৈরির পটভূমির সাপেক্ষে “অত্যন্ত কম” নমনীয় ছিল, যা ডলারে একটা স্বল্পকালীন বৃদ্ধি এনেছিল।
    দ্বিতীয় পরিকল্পিত ঘটনাটা ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শ্রমবাজারের পরিসংখ্যান প্রকাশ। যেমনটা পূর্বানুমান করা হয়েছিল, NFP-র সামান্য পতন হয়েছিল (193K থেকে 164K), যার প্রতি বাজারের প্রতিক্রিয়াও ছিল বেশ আলস্যপূর্ণ, বিশেষ করে সপ্তাহের শেষে প্রধান নিউজমেকার যেহেতু ছিলেন – অনেকের জন্যই অপ্রত্যাশিত! – ডোনাল্ড ট্রাম্প। (তবে, উনি ছাড়া আর কে-ই বা হত!)
    শুরু হিসেবে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট পাওয়েলের আচরণকে বিশ্বাসঘাতকতা বলে আখ্যা দিয়েছিলেন, আর তারপর মার্কিন-চীন বাণিজ্য-যুদ্ধের ঠুনকো সাময়িক যুদ্ধবিরতিতে একটা ইতি টেনেছিলেন চীনা পণ্যসামগ্রীতে অতিরিক্ত 10% শুল্ক চাপিয়ে, 1লা সেপ্টেম্বর অবধি যার পরিমাণ ছিল $300। ট্রাম্পের এই ধরনের পদক্ষেপ ফেডেরাল ব্যাংকের আর্থিক নীতিকে আরও সহজ তৈরির সুযোগকে স্পষ্টতই বাড়িয়ে তোলে, পাওয়েলের মন্তব্য সত্ত্বেও। এইভাবে, পরবর্তী রেট কমার সম্ভাবনা সেপ্টেম্বরে 64% থেকে 92% হওয়ার এবং ডিসেম্বরে 42% থেকে 75% হওয়ার সম্ভাবনা আরও বেড়ে যায়।
    চীনের সঙ্গে চলতি যুদ্ধে আরেক প্রস্থ শত্রুতার হুমকি আমেরিকার শেয়ার বাজারকে নামিয়ে আনে, এবং বিনিয়োগকারীরা আরও একবার তাদের মনোযোগ কোন নিরাপদ মুদ্রার প্রতি কেন্দ্রীভূত করে, যেমন জাপানি ইয়েন, যা সপ্তাহের শেষের দিকে ডলারের বিপরীতে 275 পয়েন্ট শক্তিশালী হয়েছিল;
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। নিঃসন্দেহেই, বিটকয়েন-ই ডিজিটাল কারেন্সি হিসেবে 1 নম্বর স্থানে ছিল, আছে এবং থাকবে, যা ক্রিপ্টো বাজারে রাজ করে, নিজের মূলধনীকরণের বেশিরভাগটাই তৈরির মধ্যে দিয়ে এবং অল্টকয়েন বা বিকল্প মুদ্রাগুলির বিশাল সংখ্যাগরিষ্ঠের প্রবণতা ও দর নির্ধারণ করে দেবার মধ্যে দিয়ে। আর, যদিও অনেক সময়, উদাহরণস্বরূপ, এথিরিয়ামকে পূর্ণাঙ্গ মুদ্রার মর্যাদা দেবার কথা শোন যায়, বিটকয়েনের পাশেই তাকে স্থান দিয়ে, কিন্তু তা অদূর ভবিষ্যতে হওয়ার কোনই সম্ভাবনা নেই।
    খবরের প্রেক্ষাপটের ক্ষেত্রে বলতে গেল, যা প্রায়শই একটা নির্দিষ্ট প্রবণতার কথা বলে, সেটা সম্প্রতি বেশ দ্ব্যোর্থক হয়ে উঠেছে। এইভাবে, সর্ববৃহৎ সোশাল নেটওয়ার্ক Facebook এটি ঘোষণা করেছে যে, তাদের নিজস্ব ডিজিটাল মুদ্রা লিব্রা (Libra) প্রকল্পের সূচনা নিয়ামক সংস্থা, US সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (SEC)-র উল্লেখযোগ্য রকমের চাপের কারণে হয়ত বাতিল করে দেওয়া হতে পারে।
    একদিকে, বিটকয়েনের জন্য সেটা ভাল বলে মনে হচ্ছে: একটা শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বী কমে যাবে। অন্যদিকে, লিব্রা দমনের পর কর্তৃপক্ষ সামগ্রিকভাবে গোটা ক্রিপ্টো বাজারের ক্ষেত্রেই কড়া মনোভাব দেখাতে পারে। এ সংক্রান্ত দাবি এক মিনিটের জন্যও থামেনি। উদাহরণস্বরূপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজস্ব পরিষেবা বা দ্য ইউনাইটেড স্টেটস রেভেনিউ সার্ভিসেস (IRS) সম্প্রতি 10 হাজারেরও বেশি বিনিয়োগকারীর কাছে এই মর্মে দাবি জানিয়ে চিঠি পাঠিয়েছে যে, তাদেরকে তাদের আয়কর রিটার্নের সঙ্গে তাদের কাছে থাকা ক্রিপ্টোকারেন্সি সম্পদ সংক্রান্ত তথ্য অন্তর্ভুক্ত করতে হবে, অন্যথায় উল্লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে জরিমানা করা হবে। ইতিমধ্যে, BTC/USD জুটি $10,500-এর প্রতিরোধকে কাটিয়ে ওঠার প্রয়াসে সাইড চ্যানেলে তাদের গতি বজায় রেখেছে। প্রধান প্রধান বিকল্প মুদ্রাগুলোর, লাইটকয়েন (LTC/USD), এথিরিয়াম (ETH/USD) এবং রিপল (XRP/USD)-সহ, গতি অল্প অস্থিরতাসহ পার্শ্বমুখী। এটা ধরে নেওয়া যেতে পারে যে, এই ধরনের দাবির প্রধান কারণ হল গ্রীষ্মের মাঝামাঝি সময়, যখন বিনিয়োগকারীরা, আইনপ্রণেতারা এবং এমনকি ট্যাক্স ইন্সপেক্টরেরাও ছুটিতে থাকেন। যদিও এটা পরবর্তী ঝড়ের আগের শান্ত পরিবেশও হতে পারে।

 

আগামি সপ্তাহের পূর্বাভাসের ক্ষেত্রে, একাধিক বিশ্লেষকদের মতামতগুলোকে একত্রিত করে, ও সেই সঙ্গে প্রযুক্তিগত ও গ্রাফিক্স সহযোগে নানাবিধ পদ্ধতিতে করা বিশ্লেষণগুলোর ভিত্তিতে দেওয়া পূর্বাভাসগুলোকে নিয়ে, আমরা যা বলতে পারি তা হল নিম্নরূপ:

  • EUR/USD। এই জুটির পতন এখন পিভোট পয়েন্ট 2015-2016-র কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। এবং, যদিও শুক্রবার, 02রা আগস্ট, উপরের দিকে প্রত্যাবর্তন করেছিল, H4-এর উপর সূচককে নিউট্রাল গ্রে রংয়ে রাঙিয়ে তুলেছিল, D1-এর উপর 90% অসিলেটর এবং প্রবণতা সূচকগুলো এখনও অবধি নিম্নমুখী প্রবণতা বজায় রাখার ব্যাপারেই স্থির রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মধ্যে 65%-ই একমত যে, মার্কিন মুদ্রার এখনও উন্নতির সম্ভাবনা রয়ে গেছে, এবং তা ইউরো-র উপর চাপ বজায় রেখে যাবে। এই জুটির আশু লক্ষ্য হল 1.0950 পয়েন্টে পৌঁছানো, আর তারপরেরটা হল 100 পয়েন্ট নিচে।
    এই মুহূর্তে, মাত্র 35% বিশ্লেষককেই বুল সাইডে দেখা যাচ্ছে, তবে, ফেডেরাল রিজার্ভ আর্থিক পলিসি সহজতর করতে পারে এই অনুমান থেকে, মধ্য-মেয়াদি পূর্বাভাসের দিকে যাওয়ার সময়, সেটা 55%-এ উঠে যায়।
    আমরা যদি গ্রাফিক্স সহযোগে করা বিশ্লেষণগুলোর দিকে মুখ ফেরাই, তাহলে দেখব সেখানে প্রথমে H4-এর উপর এই জুটির গতিবিধিকে 1.1070-1.1165 শ্রেণিতে, এবং তারপর 1.1225 হরাইজন-এর দিকে এর বৃদ্ধির দিকে এঁকেছে। পরবর্তী প্রতিরোধটা রয়েছে 1.1285-এ;
  • GBP/USD। এপ্রিল, 2018-র পর থেকে, মার্কিন মুদ্রার সাপেক্ষে ব্রিটিশ মুদ্রা 2,300 পয়েন্ট দুর্বল হয়েছে। শেষের দিনগুলোও তার ব্যতিক্রম হয়নি: 25শে জুলাই থেকে পাউন্ড 430 পয়েন্ট পড়েছে। কারণটা একই, ব্রেকিস্ট (Brexit)। বরিস জনসনের ক্ষমতায় আসা এবং 31শে অক্টোবর তারিখে “কঠিন” পরিস্থিতিতে EU থেকে আলাদা হওয়ার তার প্রতিশ্রুতি বিনিয়োগকারীদের ভয়ভীত করে তোলে এবং পাউন্ডের পতন হয়।
    বিশেষজ্ঞদের 75%-ই এই জুটিকে শীঘ্রই 1.2000 জোনে দেখবেন বলে প্রত্যাশা করেন। আর এই জুটি যদি সেই সমর্থন ভেঙ্গে বেরিয়ে আসতে সফল হয়, তাহলে তা আরও 100-150 পয়েন্ট নিচে “ঝাঁপ” দিতে পারে। এই ধরনের পরিণতি 95% প্রবণতা সূচক এবং D1-এর উপর 90% অসিলেটর সমর্থন করে।
    অসিলেটরদের বাকি 10% এই জুটির মাত্রাতিরিক্ত বিক্রির সংকেত দেয়। D1-এর উপর গ্রাফিক্স সহযোগে বিশ্লেষণ ও বিশ্লেষকদের মধ্যে 25%-র দ্বারা একটা বিরামও প্রত্যাশা করা হচ্ছে, যাদের মতে, কিছু সময়ের জন্য 1.2100-1.2250-র চ্যানেলে এই জুটির একটা পার্শ্বমুখী গতিবিধিও দেখা যেতে পারে। ব্রেক্সিট সংক্রান্ত যে কোন ধরনের ইতিবাচক খবরের ক্ষেত্রে, এই জুটির 1.2375 স্তর অবধি বৃদ্ধিকে অগ্রাহ্য করা হয়নি।
    মধ্য-মেয়াদি পূর্বাভাসের ক্ষেত্রে, 70% বিশ্লেষকদের মতে, কালক্রমে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডকে EU থেকে “কঠোরভাবে” বেরিয়ে আসার গুরুতর ঝুঁকিকে স্বীকার করে নিতে এবং আর্থিক নীতিকে অনেকাংশে লঘু করতে বাধ্য করা হবে। এইভাবে, এটাই হবে একামাত্র কেন্দ্রীয় সরকারি ব্যাংক যারা সূদের হার বাড়াবে, যা ব্রিটিশ মূদ্রার দরে কিছুটা বৃদ্ধির ও তাদের বৃদ্ধিকে 1.2800-র স্তরে তুলে আনার কারণ হওয়া উচিৎ। তবে, এটা একমাত্র তখনই হতে পারে যখন EC থেকে ব্রিটিশ মুদ্রার বেরিয়ে আসার অন্তত বুনিয়াদি শর্তগুলো প্রকাশ্যে আসবে;
  • USD/JPY। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বাণিজ্যিক প্রতিস্পর্ধা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাওয়া এবং মার্কিন ডলারের উপর সূদের হার হ্রাস পাওয়ার বিষয়গুলো একটি নিরাপদ মুদ্রা হিসেবে ইয়েনের আকর্ষণ বাড়িয়ে তুলেছে। অতএব, বিশ্লেষকদের 60%-ই আশা করেন যে, এই জুটি গত জানুয়ারী 2019-এর অবনতিতে, যা মোটামুটি 105.00 ছিল, পৌঁছানোর প্রয়াসের মধ্যে দিয়ে তাদের পতন বজায় রেখে যাবে। প্রবণতা নির্দেশকদের 100% এবং D1-এর উপর অসিলেটরদের 85% দক্ষিণ দিকেও দৃষ্টি রেখেছে। তবে, অসিলেটরদের 15% ইতিমধ্যেই এই জুটির মাত্রাতিরিক্ত বিক্রি হওয়ার ব্যাপারে সংকেত দিয়েছে। প্রতিরোধের স্তরগুলি হল 107.80, 109.00 এবং 110.00;

  • ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলো। বিটকয়েনের মালিকেরা এর ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার কারণ সন্ধানের প্রয়াস করছেন। এর জন্য যে কোন কারণই উপযুক্ত, এমনকি ফেডেরাল রিজার্ভের সূদের হার কমানোও: ডলারে আকর্ষণ হারিয়ে বিনিয়োগকারীরা আরও বেশি লাভজনক তথা ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদগুলোতে বিনিয়োগ করা শুরু করবেন, যেমন বিটকয়েন। যদিও, আপনরা যদি এ ব্যাপারে ভেবে দেখেন, আগে তাদের তা করার ব্যাপারে কে আটকেছিল? এক্ষেত্রে, 0.25% দর কমে যাওয়াটা খুবই দুর্বল একটা যুক্তি।
    ধনকুবের তথা ক্রিপ্টো ব্যাংক গ্যালাস্কি ডিজিটাল-এর কর্ণধার মাইক নোভোগ্রাজ ব্লুমবার্গকে দেওয়া একটা সাক্ষাৎকারে বলেছেন যে, এই বছর শেষ হওয়ার আগেই বিটকয়েনের দাম আবারও ঐতিহাসিক সর্বোচ্চ মূল্য $20 হাজার প্রতি ইউনিটে উঠবে। একই সাথে, তিনি নিলাম চলাকালীন 1 BTC-র দর $8500-এ পৌঁছে যাবার সম্ভাবনাকেই খারিজ করেননি। 2020-র মে মাসে, বিটকয়েনের উৎপদান অর্ধেক হয়ে যাবে, যা, তাঁর মতে, এই মুদ্রার মূল্য দ্রুত হারে বৃদ্ধির কারণ হবে, যার জন্য অর্ধেক হয়ে যাবার আগে এর আগ্রাসী ক্রয়গুলোর ধন্যবাদ প্রাপ্য।
    স্বল্প-মেয়াদি পূর্বাভাসের ক্ষেত্রে, গত 2রা আগস্ট তারিখে বিটকয়েন $10,650-এ পৌঁছে যাবার ঘটনা সত্ত্বেও, এই BTC/USD জুটি আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে $11,000-এর অঙ্ক পার করার পরই দীর্ঘমেয়াদি বৃদ্ধির দিকে এর গতি সম্পর্কে কথা বলা সম্ভব। ইতিমধ্যে, বিশেষজ্ঞরা দুটি সমান মাপেল শিবিরে বিভক্ত হয়ে গেছেন। কিন্তু তাঁদের সকলেই, আশাবাদী ও নিরাশাবাদী উভয় শিবিরই, $10,000-এর হরাইজন-কে পিভোট পয়েন্ট বলছেন।

 

রোমান বুটকো, NordFX

 

দ্রষ্টব্য: এই বিষয়বস্তুটিকে বিনিয়োগের সুপারিশ অথবা আর্থিক বাজারগুলিতে কাজ করার দিকনির্দেশ হিসেবে বিবেচনা করা উচিৎ হবে না: এগুলির উদ্দেশ্য শুধুমাত্র তথ্য সরবরাহ করা। আর্থিক বাজারগুলিতে কেনা-বেচা করা ঝুঁকিপূর্ণ কাজ এবং লগ্নীকৃত অর্থ হারানোর কারণ হতে পারে। 


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)