মার্চ 30, 2019

-প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলী পর্যালোচনা করা যাকঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি।  জিডিপি ডেটার অবনমন হওয়া সত্ত্বেও,ইউএস ডলারকে এই সপ্তাহে অনেক আত্মবিশ্বাসী বলে মনে হয়েছে। এবং এটি ইউএস রাষ্ট্রপতি বা ফেড-এর কারণে হয় নি, হয়েছে মূলতঃ গ্রেট ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী এবং পার্লামেন্টের আচরণের দ্বারা, যারা স্থির করতে পারছেন না কিভাবে এই অচলাবস্থা থেকে বেরিয়ে আসবে, আর এটাই হল কারণ।
    স্বাভাবিকভাবেই, ব্রেক্সিটের বিষয়ে দোদুল্যমানতা ইউরোপীয়ান মুদ্রার উপরে চাপ রেখেছিল, যার সারা সপ্তাহ জুড়েই পতন হয়েছে। এবং প্রবণতার পরিবর্তনের জন্য তেজিবাজারের যেকোন প্রচেষ্টা নিম্নমুখী প্রতিরোধক রেখায় স্থিত ছিল (1.1447-1.1230) । এবং মাত্র শুক্রবারেই, ব্রিটিশ পার্লামেন্টের ঠিক পূর্বে, এই মুদ্রাজুড়ি পার্শ্ববর্তী দিকে গমন করেছিল। এইরূপে, 20শে মার্চ থেকে শুরু করে, এটি প্রায় 235 পয়েন্ট খুঁইয়ে 1.1209 পয়েন্ট স্তরের পতনে স্থিত হয়েছিল যা গুরুত্বপূর্ণ সহায়ক/প্রতিরোধক স্তর 1.1200-এর খুব কাছাকাছি ছিল; 
  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। প্রাচীন প্রবাদবাক্যে ব্রিটেনের ধূসর কিন্তু সাদাটে কুয়াশার প্রভাবের কথা শুধু শুধু উল্লেখ নেই। ব্রিটিশরা ব্রেক্সিট প্রক্রিয়াটিকে এতটাই ধোঁয়াটে করে তুলেছে যে হাতের কাছে অবস্থিত ইইউ থেকেও সেই পথটি পরিষ্কারভাবে দেখা অসম্ভব হয়ে উঠেছে।
    29শে মার্চ, শুক্রবারের শেষে, আমরা নিম্নলিখিত বক্তব্য রাখতে পারিঃ পার্লামেন্ট তিনবার থেরেসা মে দ্বারা প্রস্তাবিত ইইউ-র সাথে চুক্তির বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে। কিন্তু তার সাথে সাথে, কোন চুক্তি ছাড়াই প্রত্যাহারের বিরুদ্ধেও ভোট দিয়েছে। দেশের নেতৃত্বকে 12ই এপ্রিলের মধ্যে পরবর্তী পরিকল্পনার বিষয়ে অবশ্যই চিন্তা করতে হবে অথবা কোন চুক্তি ছাড়াই প্রত্যাহার করতে হবে (কিন্তু পার্লামেন্ট এরকম কোন প্রস্থানের বিরুদ্ধে)। মিসেস মে-র ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন চুক্তির ধারা 50 অনুসারে ভিত্তিতে ব্রেক্সিটের সময়সীমা বৃদ্ধি করার প্রস্তাব পেশ করার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু তাহলে ইউকে-কে ইউরোপীয়ান নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে হবে, যেটিকে আবার পার্লামেন্টের প্রতিনিধিরা বিরোধ করছেন।
    ইউরোপও বুঝতে পারছে না প্রকৃতপক্ষে কিভাবে এই রকম অনিশ্চয়তার পরিস্থিতিতে পদক্ষেপ নিতে হবে,যার কারণে একটি জরুরী ইইউ শীর্ষবেঠক ডাকা হয়েছে। এবং ব্রিটিশ পাউণ্ড এখনও পর্যন্ত পাঁচ-দিনের 1.2960-1.3350-এর পার্শ্ববর্তী সংকীর্ণ প্রান্তের নিম্নতর সীমায় গড়িয়ে গিয়েছে, কিন্তু সেটিকে পরিত্যাগ করে নি, পরে লড়াই করে 55 পয়েন্ট উঠে গিয়ে আর তারপরে পাঁচ-দিনের সময়কাল সমাপ্ত করার পরে 1.3030-এর স্তরে স্থিত হয়েছিল;
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি।  ডলারের শক্তিশালী হওয়া এবং ঝুঁকিপূর্ণ বিনিয়োগের জন্য বিনিয়োগকারীদের ক্ষিধে হ্রাস না পাওয়ার কারণে ইয়েন প্রভাবিত হয়েছে। মনে করুন তো গত সপ্তাহের শেষে H4 এবং D1-তে 15% দোদুল্যমান সূচক ইতিমধ্যেই ইঙ্গিত দিয়েছিল যে এই মুদ্রাজুড়ির অধিক বিক্রয় হয়েছে, যা বিপরীত প্রবণতার প্রতি একটি মোটামুটি যথাযথ পূর্বাভাস ছিল, এবং রৈখিক বিশ্লেষণ এই জুড়ির 110.75-এর বেশী বৃদ্ধি পাবার ইঙ্গিত দিয়েছিল। সবকিছুই এই দৃশ্যকল্প অনুযায়ী ঘটেছিলঃ এই মুদ্রাজুড়ি প্রথমে উত্তরদিশায় ঝাঁপ দিয়ে 109.70-এর স্তর থেকে 110.90-এ উঠেছিল। চূড়ান্ত অবস্থান 110.85-এ পৌঁছিয়েছিল;
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। গত সপ্তাহে  পূর্বাভাস জানিয়েছিল যে গুরুত্বপূর্ণ খবরের অনুপস্থিতিতে, BTC/USD ক্রিপ্টোজুড়ি 3,900$-এর নীচে নামবে না কিন্তু 4,200$-এর অঞ্চলের প্রতিরোধক স্তরটিকে অতিক্রম করার চেষ্টা করবে। সোমবার, 25শে মার্চে এই জুড়ির দর 3,938$-এ পতন হয়ে এই ক্রিপ্টোজুড়ি আবারও ঘুরে দাড়িয়েছিল এবং বাকি দিনগুলিতে উপরের দিকে উঠে শুক্রবার 4,190$-এ পৌঁছিয়েছিল, এবং এইভাবে দু-সপ্তাহের চক্রটিতে সেই একই স্থানে সমাপ্ত করেছিল যেখান থেকে এই জুড়ি শুরু করেছিল।
    Bitcoin-কে অনুসরণ করে Ethereum (ETH/USD) এবং Litecoin (LTC/USD) একই রকমের সক্রিয়তা দেখিয়ে তাদের সাম্প্রতিক ক্ষতির প্রায় 100% পুনরুদ্ধার করতে পেরেছিল। এবং কেবলমাত্র Ripple (XRP/USD) 16ই মার্চের উচ্চতর অবস্থান 0.328$-এ ফিরতে পারে নি, এবং বিগত 10-সপ্তাহের মূল বিন্দু 0.318$-এর সামান্য নীচে গিয়ে থেমেছিল।

 

-আসন্ন সপ্তাহের পূর্বাভাসের বিষয়ে, অনেক বিশ্লেষকদের মতামতের সাথে সাথে প্রাযুক্তিক ও রৈখিক বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে কৃত পূর্বাভাসগুলিকে সংক্ষিপ্ত করে আমরা নিম্মলিখিত বক্তব্য রাখছিঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। যদি এই মুদ্রাজুড়ি 1.1200-এর সহায়ক স্তর অতিক্রম করতে পারে, এটি আরো পতন বজায় রাখতে সমর্থ হবে। 75% বিশেষজ্ঞ, 100% প্রবণতা নির্দেশক এবং H4  ও D1-তে 15% দোদুল্যমান সূচকের সহায়তায় এর সাথে সহমত হয়েছে। নিকটতম লক্ষ্য হবে 2018-19 সালের নিম্ন অবস্থান, যা 7ই মার্চে 1.1175-এর রেকর্ড করেছিল। পরবর্তী সহায়ক স্তর এর 50 পয়েন্ট নীচে অবস্থিত থাকবে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।
    কিন্তু, এসব সত্ত্বেও যদিও মনে হচ্ছে এগুলি তেজিবাজারের পক্ষে পরিস্কারভাবে যাচ্ছে, সবকিছুই কিন্তু অত সোজা বলে মনে হচ্ছে না। ইতিমধ্যে এখনই, 10% দোদুল্যমান সূচক ইঙ্গিত দিচ্ছে যে এই মুদ্রাজুড়ির অধিক বিক্রয় হয়েছে। D1-তে রৈখিক বিশ্লেষণও এই ইঙ্গিত দিচ্ছে যে এই জুড়ি 1.1175-এর মত কোন শক্তিশালী স্তরকে অতিক্রম করতে পারবে না এবং 1.1340-এর দিগন্তে গিয়ে থামবে। মাঝারি-মেয়াদে, 60% বিশেষজ্ঞরা 1.1300-1.1500-এর অঞ্চলে ফিরে আসার পূর্বাভাস দিচ্ছেন।
    অর্থনৈতিক ঘটনাগুলির কথা বলতে গেলে, ইউরোজোন এবং আমেরিকার সোমবার, 1লা এপ্রিলের পরিসংখ্যান প্রকাশের সাথে সাথে ইউএস শ্রমবাজারের ডেটার (NFP সহ) প্রতি নজর রাখা উচিৎ হবে যা 5ই এপ্রিলে প্রকাশিত হবে। বিশেষজ্ঞরা আশা করছেন যে কৃষিক্ষেত্রের বাইরে নতুন কর্মসংস্থান ফেব্রুয়ারীর তুলনায় মার্চে দারুণভাবে বৃদ্ধি পেয়ে 20 হাজার থেকে 175 হাজারে পৌঁছাবে, এমনকি যদিও গড়পড়তা মজুরির বৃদ্ধি একই স্তরে থাকবে। এইসব ডেটার ফলে ডলারের শক্তিশালী হওয়া উচিৎ হবে, কিন্তু এটি অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে শেয়ারবাজার প্রায়শই আগাম হিসাবে তার দরে এই পূর্বাভাসগুলিকে বিবেচনা করে থাকে।

  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। লেখার সময়, এই মুদ্রাজুড়ির পূর্বাভাস EUR/USD মুদ্রাজুড়ির পূর্বাভাসের মত প্রায় একই রয়েছে। এটি 75% বিশেষজ্ঞদের মন্দাবাজারের প্রতি মনোভাব এবং নির্দেশকদের লাল রংয়ের প্রদর্শনীর দ্বারাও প্রযোজ্য হয়েছে। ব্রেক্সিটের কুয়াশা ছাড়া, ইউকে-র গুরুতর বাণিজ্য ঘাটতি রয়েছে, সুদের হার কম রয়েছে, এবং পাউণ্ডে দারুণ ঝুঁকির সম্ভাবনা বিদ্যমান, যেই কারণে ব্রিটিশ অর্থনীতিতে বিনিয়োগ করা পরিহার করছেন।
    পাউণ্ড 1.3000-এর এক শক্তিশালী সহায়ক/প্রতিরোধক স্তরের কাছাকাছি গিয়ে সমাপ্ত করেছে। কিন্তু,ইউরোর থেকে ভিন্নভাবে, এটি এখনও 2018-2019 সালের নিম্ম অবস্থান থেকে অনেক দূরে আছে। তাই 1.3000 -এর কমে দারুণ কিছু সাফল্য পাউণ্ডকে 1.2830 এবং 1.2770-এর সহায়ক স্তরে নিয়ে আসতে পারে।
    এই সপ্তাহে ইউরোর সাথে এই জুড়ির সাদৃশ্য মন্দাবাজারের সাথে সাথে তেজিবাজার আসার দৃশ্যকল্পকেও চিন্তায় রেখেছে। এখানে, অধিক বিক্রয়ের বিষয়ে 10% দোদুল্যমান সূচকগুলি ইঙ্গিত দিচ্ছে, এবং রৈখিক বিশ্লেষণ দেখাচ্ছে যে, 1.2960-এ পতনের পরে, এই মুদ্রাজুড়ি ঘুরে দাড়াবে এবং পাঁচ-দিনের 1.2960-1.3350-এর সাপ্তাহিক সংকীর্ণপ্রান্তে অবস্থান করে 1.3150-এর অঞ্চলে কেন্দ্রের দিকে অগ্রসর হবে;   
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। এই মুদ্রাজুড়ির আসন্ন গমনাগমন 109.70-112.15-এর চ্যানেলে সীমিত থাকতে পারে। এই মুদ্রাজুড়ি এই মুহূর্তে কেন্দ্রীভূত রয়েছে, এবং কেবলমাত্র এই প্রশ্নটি হল যে এই জুড়ি কি নীচে নামবে না উপরে উঠবে।
    বেশীরভাগ প্রবণতা নির্দেশক এবং দোদুল্যমান সূচকগুলি H4-এ উত্তরদিশার প্রতি তাকিয়ে রয়েছে, অপরপক্ষে D1-তে তারা এক নিরপেক্ষ অবস্থান নিয়েছে। ঠিক একই সময়ে, H4-তে, 15% দোদুল্যমান সূচক ইঙ্গিত দিচ্ছে যে এই মুদ্রাজুড়ির অধিক বিক্রয় হয়েছে।
    বিশেষজ্ঞদের কথা বলতে গেলে, তাদের 65% H4-তে রৈখিক বিশ্লেষণের সমর্থনে মন্দাবাজারের পক্ষে রয়েছে। এবং D1-তে রৈখিক বিশ্লেষণের সমর্থনে বাকি 35% তেজিবাজারের পূর্বাভাস দিচ্ছে;
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। গত বছরের 15 ই ডিসেম্বর থেকে, ক্রিপ্টোবাজারের সর্বমোট মূলধন নিবেশ প্রায় 40% বৃদ্ধি পেয়ে বুধবার 27শে মার্চে 143.366 বিলিয়ন ডলারের মত সুউচ্চ স্থানে পৌঁছিয়েছে। এটি নিঃসন্দেহে একটি ভাল লক্ষণ এবং Bitcoin আশা জাগাচ্ছে যে এটি 4,200$-এর প্রতিরোধক স্তর অতিক্রম করতে পারবে এবং 4,200-4,280$-এর পরিসরে পা রাখতে পারবে। প্রায় 65% বিশেষজ্ঞরা এই পূর্বাভাসের সমর্থক। তেজিবাজারের পরবর্তী লক্ষ্যমাত্রা হল 4,365-4,385$-এর অঞ্চল, যেখানে 2018 সালের নভেম্বর-ডিসেম্বরের বৃদ্ধি দেখা যাচ্ছে। তবে আমরা মনে করতে পারি যে মাঝারি-মেয়াদের পূর্বাভাসে, ক্ষমতার ভারসাম্যের পরিবর্তন হয়ে থাকে, এবং এখানে, 70% বিশেষজ্ঞরা মন্দাবাজারকে সমর্থন করছেন যেখানে পূর্বাভাস হল এই ক্রিপ্টোজুড়ির 3,000$-এর লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছানো।

 

-রোমান বাটকো, NordFX

 

-বিজ্ঞপ্তিঃ এই লেখনীগুলিকে আর্থিক বাজারে লেনদেন করার জন্য বিনিয়োগ বা নির্দেশিকার জন্য সুপারিশ হিসাবে গণ্য করা উচিত হবে নাঃ এগুলি শুধুমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং ঝুঁকিপূ্র্ণ এবং এতে গচ্ছিত অর্থের সম্পূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।  


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)