ডিসেম্বর 28, 2018

কি ঘটেছিল- সাল  2018

যথারীতি, ডয়েস ব্যাংকের বিশেষজ্ঞরা ডিসেম্বরের শেষে এই বছরটির পর্যালোচনা করেছেন। এবং ফলাফল চমৎকার ছিল, নেতিবাচক অর্থ সহ। 2018 সালের জানুয়ারীর তুলনায় 93% শেয়ারের পতন হয়েছিল, এবং এই সংখ্যা বিগত 118 বছরে সবথেকে খারাপ ছিল, এমনকি 1920 সালের 84% পতনকে ছাপিয়ে গিয়েও। 

বিশেষজ্ঞরা বলেন যে এই মন্দার মূল কারণ হল “অত্যন্ত নরম আর্থিক নীতি,” যাতে আর্থিক আঁটোসাঁটোর মধ্যে বৃদ্ধি পেয়েছিল। ইউএস ফেডারেল রিজার্ভ দ্বারা চারবার ইউএস সুদের হার বৃদ্ধিই বেশীরভাগ শেয়ারবাজারের দারুণ পতনের জন্য পর্যাপ্ত ছিল, যার ফলে দীর্ঘায়িত মন্দা অবস্থায় পরিণত হয়েছিল। ইউএস রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প এই হারের বৃদ্ধির সমাপ্তের ডাক দিয়ে প্রকাশ্যে ফেড সভাপতি জেরোম পাওয়েল এবং তার সহকর্মীদের পাগল বলেছিলেন। কিন্তু, যেমন হয়েছে, রাষ্ট্রপতি ব্যংকারদের প্রতি আদেশ জারি করতে পারেন না, এবং 19শে ডিসেম্বরে, ফেডারেল ওপেন মার্কেট কমিটি (FOMC) আরো 0.25% সুদের হারের বৃদ্ধি ঘোষণা করেছিল। এছাড়াও, এটি দেখা গিয়েছিল যে 2019 সালে এই কমিটির মাত্র দুজন সদস্য সুদের হারের 2.5% বৃদ্ধি দেখছেন, ছয়জন 2.75%-এর, চারজন 3.25%-এর, তিনজন 3.30%-এর, এবং দুজন FOMC সদস্য মনে করেন যে এই সুদের হারের বৃদ্ধি 3.6% পর্যন্ত ছুঁতে পারে!          

এই ফলাফলে এটি স্পষ্টঃ বছরের শেষে, যেসব কিছুর পতন হওয়ার কথা ছিল শেয়ারবাজারে সেগুলিরই পতন হচ্ছে। 1930 দশকের বিশাল মন্দাবস্থার পর থেকে, ডাউ জোনস ইন্ড্রাস্ট্রিয়াল অ্যাভারেজের এই ডিসেম্বরের পরিসংখ্যান সবথেকে খারাপ হয়েছে। ব্লুমবার্গের হিসাব অনুযায়ী, এই ধসের ফলে বিশ্বের 500জন সেরা ধনী ব্যক্তি 511 বিলিয়ন ডলার খুঁইয়েছেন, এবং ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা জুকেরবাগের সবথেকে বেশী ক্ষতি হয়েছে, তার 23 বিলিয়ন ডলার সম্পত্তির ক্ষতি হয়েছিল।    

বিদেশী বিনিময় মুদ্রাবাজারের কথা বলতে গেল, 2018 সালের শুরুতে ইউএস ডলারের তুলনায় ইউরো লক্ষ্যণীয়ভাবে শক্তিশালী হয়েছিল। 16ই ফেব্রুয়ারীতে একদম শীর্ষে গিয়ে EUR/USD মুদ্রাজুড়ি 1.2555-এ পৌঁছিয়েছিল। কিন্তু তারপরে ফেড এবং ইসিবি-র আর্থিক নীতির পার্থক্য, ব্রেক্সিট চুক্তির বিষয়ে অসুবিধা, ইতালীর সমস্যা এবং সামগ্রিকভাবে ইউরোজোনের অর্থনীতির ঢিমেতাল ডলারের দিকে ঝুঁকেছিল, এবং এই মুদ্রাজুড়ি নীচের দিকে নেমে গিয়ে 1.1215-এ মধ্য-নভেম্বরের তলদেশে পৌঁছিয়েছিল।    

GBP/USD মুদ্রাজুড়ির ক্ষেত্রেও একই ওঠানামা দেখা গিয়েছিল। এটি 17শে এপ্রিলের সর্বোচ্চ দর 1.4375-এ পৌঁছিয়েছিল এবং 12ই ডিসেম্বরে সর্বনিম্ন দরে ছিল, যখন এই মুদ্রাজুড়ির 1.2475-এ পতন হয়ে আট মাসে 1,900 পয়েন্ট খুঁইয়েছিল।

জাপানি ইয়েনের কথা বলতে গেলে, বিনিয়োগকারীরা যদি ইউএসএ এবং চীনের মধ্যে বাণিজ্যিক যুদ্ধের ত্বরাণ্বিত হলে পরে এটিকে মূলত একটি নিরাপদ স্বর্গ হিসাবে দেখেছিলেন। তবে, এক্ষেত্রে যেহেতু কোন বিশেষ পরিবর্তন দেখা যায় নি, USD/JPY মুদ্রাজুড়ি বছরের শেষে  111.00-এর অঞ্চলে গত দুবছরের মূল বিন্দুতে মিলেছিল। এইভাবে, 2018 সালের শুরুর তুলনায়, এই মুদ্রাজুড়ি মাত্র 200 পয়েন্ট খুঁইয়েছিল। 

 

কি ঘটবেঃ সাল 2019

অনেক বিশ্লেষকদের মতে, বিগত বছরে যা হয়েছে তা হল এক সাধারণ দীর্ঘকালীন মন্দা অবস্থা। সর্বপ্রথমে, আমেরিকার পূর্বাভাসের কথা ধরলে, দুই-বছরের ট্রেজারী বণ্ড থেকে আয়ের পরিমাণ ইতিমধ্যে হ্রাস পেয়েছে, এবং একইভাবে দশ-বছরের সিকিউরটির উপর আয়ও গত সাত-মাসের সর্বনিম্ন অবস্থানে এসে পৌঁছিয়েছে, যাকে মন্দাবাজারের লক্ষণ হিসাবে গণ্য করা হয়।

ইউরোজোনের পরস্থিতি তবু কিছুটা ভাল, এটি হওয়া সত্ত্বেও যে মুদ্রাস্ফীতি এবং নিম্নমুখী আর্থিক বৃদ্ধির পূর্বাভাসে ইসিবি কিছুটা সংশোধন এনেছে। গত বছর দেখিয়েছে যে ট্রাম্প দ্বারা উদ্ভূত বাণিজ্য যুদ্ধ পুরানো বিশ্বের পক্ষে ততটা খারাপ হয় নি যতটা ভাবা হয়েছিল। তবে, ইউরোপীয়ান মুদ্রা এবং ব্রিটিশ পাউণ্ড উভয়েরই ব্রেক্সিটের কারণে উদ্ভূত সমস্যার কারণে প্রভাবিত হওয়া জারি থাকবে।

অপরপক্ষে, আমেরিকা এবং চীনের মধ্যেকার 90-দিনের যুদ্ধবিরতি শীঘ্রই শেষ হয়ে যাবে,যার কারণে ডলার বিনিময়ে হারে অতিরিক্ত অনিশ্চয়তা দেখা যাবে।

ইতিমধ্যে, অগ্রণী বিশ্ব ব্যাংক এবং সংস্থার কৌশলবিদদের দ্বারা প্রদত্ত পূর্বাভাস, বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই একই দেখাচ্ছে।  

ব্লুমেবার্গ ইউরোপীয়ান রপ্তানী, জামার্নীর গাড়িশিল্পের উন্নত অবস্থা এবং গড়পড়তা মজুরীর ত্বরিত বৃদ্ধির সদর্থক সক্রিয়তার ভিত্তিতে তার পূর্বাভাস করেছে। এইসবের কারণে ইউরোজোনের আর্থিক নীতির স্বাভাবিক অবস্থা হতে পারে এবং বছরের শেষে ইউরোর বৃদ্ধি 1.20$-এর স্তরে যেতে পারে।

মরগ্যান স্ট্যানলীও 2019 সালকে ডলারের পক্ষে অসুবিধাজনক হবে বলে মনে করছে এবং ইউরোজোনের মুদ্রাস্ফীতির পূর্বাভাসের মাঝে ইউরোর পরিপ্রেক্ষিতে ডলারের বিক্রির পরার্শ দিচ্ছে। EUR/USD মুদ্রাজুড়ির আশু লক্ষ্য হবে 1.18$-এর অঞ্চল।

এটি অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে, বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই বিশ্লেষকরা পরবর্তী 3-মাস সময়কালের জন্য ইউরোর এক আশাপ্রদ পূ্র্বাভাস করছেন। Societe Generale এবং CIBC Capital Markets 1.17$-এর স্তরে পূর্বাভাস করছে, TD Securities-এর পূর্বাভাস 1.18$-এ রয়েছে, Unicredit-এর 1.19$-এর পূর্বাভাস রয়েছে, এবং পরিশেষে, Lloyds Bank 1.24$-এর রেকর্ড দরের পূর্বাভাস করেছে। 

তবে, আরো অনেক সতর্ক দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে। এইরূপে, Citi বিশেষজ্ঞরা মনে করেন যে ইউরোপীয়ান মুদ্রার দর এখনও অবধি তলদেশে এসে পৌঁছায় নি, এবং 2019 সালের 1থম ত্রৈমাসিকে, এটি 1.13$-এও নেমে যেতে পারে, আর তারপরেই এটি উঠতে থাকবে এবং বছরের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে 1.18$-এ এসে পৌঁছাবে। Barclays Capital আশা করছে যে 31শে মার্চের মধ্যে এর পতন হয়ে 1.12$-এ চলে আসবে, এবং ING Group-এর পূর্বাভাস হল যে এই পতন 1.11$-এ এসে স্থিত হতে পারে। 

JPMorgan Chase বিশ্লেষকরাও বিশ্বাস করেন যে ইউএস অর্থনীতি 2019 সালে মন্দার মধ্যে দিয়ে যাবে, যেহেতু ট্রাম্পের আর্থিক উদ্দীপনা নিঃশেষ হয়ে যাবে, এবং ফেড-এর আর্থিক নীতি আর কোন সস্তা অর্থ প্রদান করতে পারবে না। এইভাবে, ইউরোজোনের অর্থনীতির বৃদ্ধির হার তুলনায় এগিয়ে যাবে, এবং ইউরো বৃদ্ধি পেতে শুরু করবে ইসিবি থেকে আরো বেশী সুদের হার পাওয়ার প্রত্যাশায়, কিন্তু এগুলি কেবলমাত্র 2019 সালের দ্বিতীয়ার্ধে হবে।

সংখ্যার দিক থেকে দেখতে গেলে, পূর্বাভাসটি এইরকমঃ 2019 সালের প্রথম ত্রৈমাসিকে 1.11$-এ পতন হবে এবং চতুর্থ ত্রৈমাসিকের শেষে 1.18 $-এ উত্থান হবে।     

GBP/USD মুদ্রাজুড়ির কথা ধরলে, JPMorgan Chase-এর পূর্বাভাস মনে করছে যে প্রথম ত্রৈমাসিকে ব্রিটিশ মুদ্রার 1.30$-এ বৃদ্ধি হবে এবং বছরের শেষে 1.37$-এ পৌঁছাবে, এই শর্তে যে ব্রেক্সিট শান্ত থাকবে (40% সম্ভাবনা রয়েছে)। ইইউ পরিত্যাগের শর্তাবলীর চুক্তির অনুপস্থিতিতে, পাউণ্ড-স্টার্লিংয়ের দরের 10% পতন হবে, এবং পক্ষান্তরে, ব্রেক্সিট বাতিল হলে, এটির 10% বৃদ্ধি হবে।     

ভবিষ্যতের দিকে তাকালে ইয়েনের বিষয়ে পূর্বাভাস নেতিবাতক হয়েছে। তাই 2019 সালের প্রথমার্ধ্বে JPY/USD মুদ্রাজুড়ির প্রতি ডলারে 112 ইয়েন বৃ্দ্ধি হবে বলে মনে করা হচ্ছে, আর তারপরে 2016 সালের 118.00-এর দরে। বিশেষজ্ঞরা জাপানি মুদ্রার সম্ভাব্য দুর্বল হওয়ার ব্যাখ্যা করছেন জাপানি সংস্থাগুলি দ্বারা বিদেশী বিনিয়োগ এবং এক অধিকতর খারাপ বাণিজ্য ঘাটতির কারণে। দরের উপরে স্প্রেডের হারও বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করা হচ্ছে, যা ইয়েনের দরে এক বিরূপ প্রতিক্রিয়া ফেলবে।

একই প্রবণতার বিষয়ে Citi কৌশলবিদরাও পূর্বাভাস করেছেন। তাদের মতে, GBP/USD মুদ্রাজুড়ির 1.26-1.30-এর অঞ্চলে বৃদ্ধি পাওয়ার আশা রয়েছে, এবং JPY/USD মুদ্রাজুড়ির 113.00-115.00-এর অঞ্চলে।

 

জন গর্ডন, NordFX

 

-বিজ্ঞপ্তিঃ এই লেখনীগুলিকে আর্থিক বাজারে লেনদেন করার জন্য বিনিয়োগ বা নির্দেশিকার জন্য সুপারিশ হিসাবে গণ্য করা উচিত হবে নাঃ এগুলি শুধুমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং ঝুঁকিপূ্র্ণ এবং এতে সমস্ত গচ্ছিত অর্থের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে।  


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)