মে 30, 2017

- তথ্যপ্রমাণ করে যে বেশিরভাগ সফল ট্রেডার্সরা হলেন আদর্শস্বরূপ ষাড়, অর্থাত্, তারা বাজারের লাভের উপর বাজী ধরা পছন্দ করেন। এটি বিশেষকরে শেয়ারবাজারের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। এর ফলস্বরূপ, সর্ববৃহত্ হেজ্ ফাণ্ডের (লেনদেনের মাধ্যমে লোকসান বাঁচানোর তহবিল)ম্যানেজারদের সাথে সাথে সাধারণ খেলোয়াড়রা যারা সবসময় অনবরত কম মূল্য দেখানোর শেয়ারের (আণ্ডারভ্যালুড স্টক) খোঁজ করতে থাকেন, যা আয়ত্ত্ব করা গেলে বিশাল লাভ দিতে পারে।

-তবে, এটি কেবলমাত্র শুধু ক্রমবর্ধমান বাজারেই যে আপনি অর্থ উপার্জন করতে পারেন তা নয়ঃ একটি পতনশীল, ‘মন্দা’ বাজারও আকর্ষণীয় বলে প্রমাণিত হতে পারে। বিখ্যাত সিনেমা ‘দি বিগ শর্ট‘ বিশদভাবে তাই বর্ণনা করে। বিস্তারিতভাবে, কিন্তু এমন একটি উপায়েও যা সাধারণ শ্রোতৃবর্গের কাছে সবসময় বোধগম্য নাও হতে পারে।

-সিনেমার পাণ্ডুলিপি আমেরিকান লেখক এবং অর্থ সংক্রান্ত সাংবাদিক মাইকেল ল্যুইসের একই নামের বইয়ের উপরে নির্মিত হয়েছে, যিনি বলেছিলেন যে শ্রোতৃবর্গের কাছে কেবলমাত্র জটীল ধারণা বিশ্লেষণ করাই যথেষ্ট নয়ঃ শ্রোতৃবর্গের সেগুলিকে উপলব্ধিও করাও প্রয়োজন। এই সিনেমায় বিশেষ করে আমেরিকায় বন্ধকের সহায়তায় ঝুঁকিপূর্ণ বাজারের সঙ্কটের সামষ্টিক অর্থনৈতিক সমস্যাগুলিকে পরিস্ফুট করা হয়েছে। এবং যদিও ফোর্বসের বিশেষ কলমলেখক স্টীভ ড্যানিং এই সিনেমার অত্যন্ত উঁচু মানের ঐতিহাসিক নির্ভুলতার প্রশংসা করেছেন, বইয়ের লেখকের মতই, সেই ভদ্রলোকটিকে উল্লেখ করতে ব্যর্থ হয়েছেন যিনি এই সঙ্কটের পটভূমিতে সবথেকে বেশি অর্থ উপার্জন করেছিলেন, বিলিওনেয়ার জন পলসন।

-পলসন বিখ্যাত ভাল্লুক সারির মধ্যে যে একা রয়েছেন তা নয়। প্রথমে, আসুন মনে করা যাক্, কোথা থেকে ভাল্লুক পরিভাষাটি উদ্ভূত হল।

-প্রথম ব্যাখ্যা (এবং সবথেকে পরিচিত ব্যাখ্যা) হল যে একটি ভাল্লুক, যা ষাঁড়ের থেকে আলাদা যেটি কোন প্রতিদ্বন্দীর বিরুদ্ধে তার শিংগুলি উঁচিয়ে ধরে উপর থেকে তার থাবা দিয়ে শত্রুকে এলোপাথারি আঘাত করে। তবে,এটি সম্ভব যে এই পরিভাষার মূলটি কিছুটা বিভিন্ন হতে পারে। উদারহণস্বরূপ,অর্থ সংক্রান্ত ঐতিহাসিক, ই. মরগ্যান, বিশ্বাস করেন যে এই পরিভাষার মূল শব্দটিকেসপ্তদশ শতাব্দীতে পাওয়া গিয়েছিল, যখন লণ্ডনের কফি হাউসে প্রথম শেয়ারবাজার স্থাপিত হয়েছিল। প্রায় ঐ সময়েই, কিছু নির্দিষ্ট সংখ্যক ডিলারগণ শেয়ার বিক্রি করতেন যেগুলির তারা প্রকৃত মালিক ছিলেন না। বলা হত যে এই লোকেরা এখনও-মৃত্যু-হয়-নি এরকম ভাল্লুকের চামড়া বিক্রয় করতেন। (বর্তমানে এই ধরণের চামড়াকে যথার্থভাবে ফিউচার্স (ভবিষ্যতে চুক্তিমত সময় এবং মূল্যে শেয়ার ক্রয়-বিক্রয় করা) এবং অপশনস্ (শেয়ার ক্রয়-বিক্রয়ের অধিকার) বলা হয়ে থাকে)।

-তাই,আপনি কিভাবে চামড়া বিক্রয় করে অর্থ উপার্জন করবেন যেই চামড়া আপনার নয়?

"তত্ত্বগতভাবে, সবকিছুই বরং সহজ বলে মনে হয়। ব্রোকারেজ সংস্থা, NordFX-এর একজন বিশেষজ্ঞ, জন গর্ডন ব্যাখ্যা করলেন, "ধরুন আপনি মনে করেন যে ভাল্লুকের অপরিশোধিত পশুচর্ম থেকে নির্মিত হাতাওয়ালা গরম পোশাক শীঘ্রই পুরানো কেতা হয়ে যাবে। এর ফলে স্বাভাবিকভাবে আপনি যা করবেন তা হল আপনার বন্ধুকে আপনি অনুরোধ করবেন তিনি যেন আপনাকে ছয় মাসের জন্য এরকম একটি হাতাওয়ালা গরম পোশাক ধার দেন। এই পোষাকটি পাবার পরে, আপনি এর চাহিদা থাকাকালীন অবিলম্বে এটিকে বিক্রয়ের ব্যবস্থা করলেন যার ফলে 1000 ডলার লাভ করলেন।

এখানে এক মুহূর্তের জন্য থামুনঃ আপনার আর ভাল্লুকের চামড়া-নির্মিত গরম পোশাক নেই, কিন্তু আপনার 1000 ডলার রয়েছে এবং আপনার বন্ধুকে ছয় মাসের মধ্যে ঐ গরম পোশাকটি ফেরত দিতে আপনার এক বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

-পরবর্তী ছয় মাসে, পশুর অধিকার রক্ষার কর্মীরা দারুণভাবে জয়লাভ করলেন এবং ভাল্লুকের চামড়া থেকে তৈরি গরম পোশাক পরিধান করা কেবলমাত্র কেতাদুরস্ত থাকল না, তাই নয়, এটি কুরুচিপূর্ণ বলেও পরিণত হল। এই সময়ে, আপনি বাজারে ফিরে গেলেন, একটি ভাল্লুকের লোমে তৈরি নতুন পোশাক 150 ডলারেরসুবিধাজনক দামে ক্রয় করে আপনার বন্ধুর কাছে নিয়ে গেলেন এবং তাকে কৃতজ্ঞতাপূর্ণ শব্দ দিয়ে ভরিয়ে দিলেন। এই লেনদেনটি এখন শেষ হল যাতে আপনি 850 ডলার লাভ করলেন।

-জন গর্ডন বলে চলেন, "এই ’ভাল্লুকগুলি’আধুনিক আর্থিক বাজারে এই পরিকল্পনা অনুযায়ী তাদের লেনদেন পরিচালনা করে থাকেন, কেবলমাত্র অপরিশোধিত পশুচর্মের পরিবর্তে তারা এখন ব্যাংক অথবা তহবিল থেকে শেয়ার এবং অর্থ ধার করেন, এবং কৃতজ্ঞতাপূর্ণ শব্দের পরিবর্তে তারা লেনদেনের আকার অনুযায়ী পাওনাদারকে সুদ ফেরত্ দেন।"

-সম্ভবত ফরেক্স বাজারে সবথেকে বিখ্যাত ’ভাল্লুক’লেনদেন হল ব্রিটিশ পাউণ্ডের পতন যা 1992সালে জর্জ সোরেসের দ্বারা ত্বরাণ্বিত হয়েছিল, যখন তিনি এবং তার বাঞ্ছিত পরিমাণ (কোয়ান্টাম) তহবিল তড়িঘড়ি বিশাল পরিমাণে ব্রিটিশ পাউণ্ড দিয়ে বাজার পরিপূর্ণ করার জন্য ধার করা তহবিলের ব্যবহার করেছিলেন, যার পরিমাণ 15বিলিয়ন ডলারের সমান ছিল।

-এই ক্রিয়াকাণ্ডের জন্য জার্মান বুন্দেসব্যাংক হেলমুট স্কেলেসিঙ্গারের প্রধানের একটি উদ্ধৃতি অনুঘটকের কাজ করেছিল, যা ‘দি ওয়াল স্ট্রীট জার্নাল‘ এবং ‘দি জার্মান‘ সংবাদপত্র দ্বারা ভাষান্তরিত হয়েছিল। এই প্রকাশনাগুলি লিখেছিল যে জার্মানীর সুদের হারের সংকোচনের পরেও একটি বা দুটি ইউরোপীয়ান মুদ্রার উপর চাপ আসতে পারে।

-সেটাই যথেষ্ট ছিল! আর কোন শব্দের প্রয়োজন ছিল না। সোরোস এবং বাকি আর্থিক দুনিয়া সিদ্ধান্তে এসেছিল যে এদের মধ্যে একটি মুদ্রা ব্রিটিশ পাউণ্ড হতে পারে, যা সেই সময়ে খুব বেশি পরিমাণে অধিক মূল্য  (ওভারভ্যালুড) হিসাবে গণ্য হত। সোরোস অবিলম্বে তার পাউণ্ড স্টারলিং বিক্রয় করা শুরু করলেন (অথবা আরো স্পষ্টভাবে বলতে গেলে, তিনি যে পরিমাণ পাউণ্ড স্টার্লিং ধার করেছিলেন তা বিক্রয় করতে শুরু করলেন)। এই উদাহরণ অনুসরণ করে অন্যান্য অর্থ যোগানদাররাও একই কাজ করা শুরু করলেন, এবং একটি নির্দিষ্ট মুদ্রাবিনিময়ের হার বজায় রাখার জন্য দি ব্যাংক অফ্ ইংল্যাণ্ড এই বিশাল পরিমাণ অর্থের জোগান ক্রয় করতে বাধ্য হয়েছিল।

-এই প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছিলঃ ব্রিটিশ মুদ্রা আত্মসমর্পণ করেছিল এবং শুধুমাত্র একটি নিরীহ উদ্ধৃতির জন্য যা সাংবাদিকদের দ্বারা প্রকৃতপক্ষে ভুলভাবে উদ্ধৃত করা হয়েছিল (এবং কিছুটা পরিমাণে সোরোসের সাহায্যে)এবং জার্মান মার্কের তুলনায় পাউণ্ডের15% এবং ইউএস ডলারের তুলনায় পাউণ্ডের25% পতন হয়েছিল। এর ফলে, বাঞ্ছিত পরিমাণ (কোয়ান্টাম) তহবিলের  15,000,000,000 ডলার মূল্যের অর্থ প্রথমে 19,000,000,000ডলারে পরিণত হয়েছিল এবং কয়েক মাস পরে, 22বিলিয়ন ডলারে!

-সোরোসের এই উদ্যোগ অর্থ যোগানদারদের মধ্যে একটি জনপ্রিয় প্রবচনকে পুরোপুরি যথার্থ বলে প্রমাণিত করেছিল, যথা, "মূল্য বাড়াবার জন্য অর্থের প্রয়োজন হয়, কিন্তু মূল্যের পতনের জন্য কেবলমাত্র তার নিজস্ব ওজনই যথেষ্ট।"

কৌতূহলপূর্বক, ইউকে-র এরকম ‘মন্দাবাজারে‘র আক্রমণের মুখে পড়ার বিষয়টি জন মেজরের সরকারের অভিজ্ঞতাই এ বিষয়ে প্রথম ছিল না। 1720 সালেও এরকম এক লক্ষ্যণীয় ঘটনা ঘটেছিল যখন ব্রিটিশ পার্লামেন্ট দ্বারা প্রবর্তিত রয়াল এক্সচেঞ্জ আইন গ্রহণের কারণে অনেক সংস্থার শেয়ার মূল্যের দরের তীব্র পতন হয়েছিল। এর ফলে, শুধু যে সাধারণ শেয়ারধারকদের যে বিপুল পরিমাণে অর্থের লোকসান হয়েছিল তাই নয়, অনেক ব্যবসায়ী, রাজনীতিক এবং এমনকি রাজ পরিবারের অনেক সদস্যরাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলেন। এবং বিখ্যাত বিজ্ঞানী আইজাক নিউটনের বিপুল পরিমাণে আর্থিক ক্ষতি হয়েছিলঃ : 20 000 পাউণ্ড স্টার্লিং (যা বর্তমানে প্রায় 2.5 মিলিয়ন), যার পরে তিনি দুঃখের সাথে মন্তব্য করেছিলেনঃ আমি তারা-নক্ষত্রদের গমনাগমন গণনা করতে পারি, কিন্তু জনগণের উন্মাদনা নয়! "

-সমসাময়িক  ‘ভাল্লুকে‘র কথায় ফিরে এসে আমরা জিম শানোসের নাম না করে পারব না, যিনি একজন বরফ পরিষ্কারক হিসাবে তার জীবিকা শুরু করে নিজস্ব হেজ্ ফাণ্ড (লেনদেনের মাধ্যমে লোকসান বাঁচানোর তহবিল)"কিনিকোস্" যা গ্রীক "হতাশাবাদী" থেকে অনুদিত হয়েছিল, স্থাপন করার পূর্বে  ডয়েস্ ব্যাংকের সহ-সভাপতি পদে উন্নীত হয়েছিলেন।

-এই হতাশাবাদী নাম পুরোপুরি শানোসের কৌশলের সাথে মানানসইছিল, যা বিভিন্ন পরিসম্পদ বিক্রয়ের উপর একান্তভাবে কেন্দ্রীভূত করেছিল। ইউএস শক্তি সংস্থা এনরনের কুখ্যাত পতনের পরে কিনিকোস্ খুবই বিখ্যাত হয়ে ওঠে। 2014 সালে, শানোসের তহবিল সাফল্যের সাথে জ্বালানী এবং মূল্যবান পাথরের মূল্যের বিশাল পতনের উপর বাজি রেখেছিল।

-অন্যান্য উল্লেখযোগ্য খেলোয়াড়দের মধ্যে জেস লিভারমোর আছেন যার আলোর বেগের মত দ্রুত স্বল্প অবস্থান (শর্ট পজিশন – বিনিয়োগকারীর খোলা বাজারে ধারকরা শেয়ার বিক্রয় করা)বাজারকে কাঁপুনি দিয়েছিল, যার কারণে লিভারমোরের ডাকনাম ‘দি গ্রেট ওয়াল স্ট্রীট বিয়ার‘হিসাবে প্রসিদ্ধ হয়েছিল।

-সেঞ্চোরাস হেজ ফাণ্ডের (লেনদেনের মাধ্যমে লোকসান বাঁচানোর তহবিল)প্রধান, জন আর্ণল্ড হলেন আরেকজন নক্ষত্র ভাল্লুকঃ তিনি2006সালের গ্রীষ্মে গ্যাসের মূল্যের পতনে 317% লাভ করেছিলেন, এবং তার প্রতিদ্বন্দী অমরনাথকে দেউলিয়াগ্রস্ত করেছিলেন, যিনি এই প্রক্রিয়ায় এক সপ্তাহের মধ্যে প্রায় 6বিলিয়ন ডলার লোকসান করেছিলেন।

অর্থনৈতিক ওয়েবসাইট SumZeroনিয়মিতভাবে অগ্রগণ্য নিম্নমুখী-বাজি ধরার খেলোয়াড়দের মূল্যায়ন করে থাকে।

তাদের মধ্যে নিম্নলিখিত উল্লেখযোগ্য স্বতন্ত্র ব্যক্তিরা হলেনঃ

  • বার্ট রস (ওয়াগামন পরামর্শকারীগণ),যিনি 2013সালে তিনটি সফল লেনদেন সম্পন্ন করেছিলেন, সবথেকে সফলটি ছিল ওয়াল্টার এনার্জির শেয়ার মূল্য কমানোর বাজিঃ তাদের শেয়ার মূল্যের 99.52% লোকসান হয়েছিল।
  • আরেকজন হলেন বেন স্প্রিংগার (স্প্রুস পয়েন্ট ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট), যার সবথেকে ফলদায়ক লেনদেন হল জেমস রিভার কোল কোম্পানীর শেয়ার বিক্রয়ঃ এটি তাকে 99.92% লাভ দিয়েছিল।

-জে. গর্ডন সমাপ্ত করলেন, "আপনার যেমন দেখলেন, বাজারের পতন থেকে একজন ভাল উপার্জন করতে পারেন, এমনকি খুবই ভাল পরিমাণ অর্থ। যেমন গ্রীক বিলিওনেয়ার অ্যারিস্টটল ওনাসিস বলতেন, এটি করার জন্য আপনাকে কেবলমাত্র এমন কিছু জানতে হবে যা আর কেউ জানেন না..."


« ট্রেডারের সহায়ক
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)