অক্টোবর 10, 2020

প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলি পর্যালোচনা :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। ইউরো শক্তিশালীকরণে ইসিবি-র ভীতি প্রসঙ্গে আমরা বারবার লিখেছি, কেননা এটি ইউরোজোন অর্থনীতির পুনরুদ্ধারে একটি হুমকিস্বরূপ হয়ে উঠেছে। যদিও ইসিবি প্রধান ক্রিস্টিন লাগার্ডে কিংবা তাঁর সহকর্মীরা, কেউই ইউএস ফেডারেল রিজার্ভের সঙ্গে কারেন্সি যুদ্ধ শুরু করতে চান না। সুতরাং, চারপাশের বাজারকে ঘোরানোর চেষ্টা করে ক্রিয়াকলাপে নয়, বরং কথায়।
    ইসিবি-র সেপ্টেম্বরের বৈঠকের কার্যবিবরণী ছিল বিনিয়োগকারীদের আশ্বস্ত করা যে, কোভিড-19-এর দ্বিতীয় ঢেউ থেকে অর্থনীতি রক্ষা, অনতিভবিষ্যতে রেগুলেটর কোয়ান্টিটিভ ইজিং (কিউই) কর্মসূচি সম্প্রসারণ করবে এবং এমনকি সুদের হার হ্রাস করতে পারে। এবং এই উক্তি দ্বারা বিবেচনা করলে, প্রথমেই বাজার এসবে বিশ্বাস করেছিল : ইউরো/মার্কিন ডলার পড়ে গিয়েছিল এবং ডলারের উত্তরণ ঘটেছিল। কিন্তু এগুলো দীর্ঘস্থায়ী হয়নি : 80 পয়েন্ট হারিয়ে এটি পৌঁছেছিল 1.1725 অঞ্চলে, জোড়াটি ফিরে আসে এবং ফের উত্তর গিয়েছিল, পাঁচদিনের পর্ব শেষ করে 1.1825-এ। এর ফলে, এটি ফিরেছিল সাইড চ্যানেল 1710-1.1920-এর কেন্দ্রীয় অঞ্চলে, যার সীমানা আগস্টের একেবারে প্রথমে টানা হয়েছিল।
    খুব সম্ভবত, প্রবণতায় এরকম একটি পরিবর্তন ৩ নভেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচনের ফলাফল সম্পর্কিত অনুমানের সঙ্গে জড়িত। জো বাইডেনের জয়ের প্রত্যাশা স্টক মার্কেটকে টেনে তুলেছিল এবং আমেরিকান কারেন্সিতে ফের পতনের কারণ এটিই। সেজন্য, S&P500 এক এক-দেড় সপ্তাহে উঠেছিল 265 পয়েন্ট আর দুসপ্তাহে ডলার নেমে যায় 210 পয়েন্ট। যদিও, সম্ভবত এসবকিছুই ঘটেছে আবেগের বশে। এবং এটা কেউ ব্যাখ্যা করতে পারে না যে মার্কিন অর্থনীতির জন্য ট্রাম্পের চেয়ে কেন বাইডেন উন্নততর পছন্দ।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। সাধারণভাবে, এই জোড়ার ডায়নামিক্স ইউরো মার্কিন ডলারের গতিবিধি পুনরাবৃত্ত করে, যা বোঝায় যে পরিচিত ইউরোপিয়ান অথবা ব্রিটিশ কারেন্সির আচরণের ওপর সবকিছু নির্ভর করে না বরং এই মুহূর্তে নির্ভর করছে মার্কিন ডলারের ওপর।
    ব্রিটিশ অর্থনীতির সবকিছু লাল করেছে ম্যাক্রোস্ট্যাটিস্টিক্স। নির্মাণ ক্ষেত্র, শিল্পজাত উৎপাদন, জিডিপি ডেটা – সবই ছিল নেতিবাচক অঞ্চলে। ব্রেক্সিট সমঝোতায়ও কোনো নির্দিষ্ট অগ্রগতি ঘটেনি। কিন্তু কোনোভাবেই এসব তথ্যে বাজার কোনা প্রতিক্রিয়া দেখায়নি। এবং আমরা যদি গত সপ্তাহের ফলাফলের দিকে তাকাই, পাউন্ড, যদিও খুব সামান্যই, ডলারকে পেছনে ফেলেছিল, 100 পয়েন্টেরও বেশি শক্তিশালী হয়েছে। এর কারণ হল মার্কিন স্টক মার্কেটের বিকাশ, যা আমেরিকান কারেন্সির (ডিএক্সওয়াই সূচক 25 সেপ্টেম্বর 94.63 থেকে 9 অক্টোবর নেমেছিল 93.06-এ) সাধারণ দুর্বলতার কারণ। জিবিপি/মার্কিন ডলার জোড়া শেষ করেছিল 1.3045-এ, গত দশ সপ্তাহের পিভট পয়েন্ট অঞ্চলে। 
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। মাত্র 15 শতাংশ বিশ্লেষক এই জোড়ার বিকাশের পক্ষে ছিলেন গত অনুমান-এ। যদিও সপ্তাহের শুরুতে এটা তাঁদের কথা শুনেছে এবং উত্তর থেকে গিয়েছিল 106.00 অঞ্চলে। আপাতভাবে, বিনিয়োগকারীরা শান্ত জাপানি বন্দরে থাকতে চায়নি এবং ঝুঁকিপূর্ণ সেন্টিমেন্টকে অগ্রাধিকার দিয়েছিলে। যদিও, পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়েছিল, জোড়াটি চলে যায় সাইডওয়ে ট্রেন্ডে এবং এটা সপ্তাহের শেষে ফিরে আসে সেই জায়গায় যেখানে এটি বারবার ছিল 25 সেপ্টেম্বর থেকে 7 অক্টোবর, সেটি হল 105.60 অঞ্চলে। সেজন্য গত দুই সপ্তাহের ফলাফলকে নিরাপদে বলা যায় শূন্য।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। হয়তো বিটকয়েন ইতিমধ্যে পরিপূর্ণ প্রতিরক্ষামূলক সম্পদে পরিণত হয়েছে? বহু বিশেষজ্ঞ ও বিনিয়োগকারী এই প্রশ্ন করেন। প্রকৃতপক্ষে এটা টানা পাঁচ সপ্তাহ 11000 ডলারের সীমার ওপর যেতে পারেনি, কিন্তু এটা খুব নীচেও যায়নি, গঠন করছে একটি ‘আরোহণ ত্রিভুজ’ বিন্যাস।
    প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পরিবার করোনা আক্রান্ত কিংবা হ্যাকার আক্রমণ কিংবা রেগুলেটরদের আক্রমণ কোনোকিছুতেই এর কোট প্রভাবিত হয়নি। অন্যতম বৃহত্তম ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জ বিটমেক্সে আর্থিক প্রতারণার জন্য ফেডারেল প্রসিকিউটর দপ্তরের সঙ্গে একত্রে আমেরিকান সিএফটিসি রেগুলেটর অভিযুক্ত এই তথ্যে বিটকয়েন কীভাবে প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করেছিল? এটা করেনি। অথবা এই খবরে – কুকয়েন হংকং এক্সচেঞ্জ থেকে 200-350 মিলিয়ন ডলার চুরির ক্ষেত্রে। আগে, একটা বোমা বিস্ফোরণও এতে প্রভাব ফেলত, আর এখন শুধুই নীরবতা।
    সুপরিচিত অ্যান্টিভাইরাস ম্যাকঅ্যাফি-র উদ্ভাবকের গ্রেফতার প্রসঙ্গে কথা বলার কোনো প্রয়োজন নেই, যিনি ক্রিপ্টো-দুনিয়ায় পরিচিত ছিলেন তাঁর কেচ্ছামূলক অনুমান ও জুয়ার জন্য। জন ম্যাকঅ্যাফি (লিবারেটেরিয়ান পার্টির প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্সিয়াল প্রার্থী) ক্রিপ্টোকারেন্সির সাহায্যে কর দেওয়া এড়িয়ে গিয়েছিলেন। তাতে কী? খবরটা অবশ্যই কৌতূহলকর। কিন্তু বিটকয়েনের হার পতনের এটা কোনো কারণ নয়।
    গত দুবছরে মূল ক্রিপ্টোকারেন্সির গতিময়ত এর সর্বনিম্ন স্তরে পৌঁছেছে। কয়েনমেট্রিক্স অ্যানালিটিক্যাল সার্ভিস টিমের একটি রিপোর্ট বলে যে প্রেক্ষাপটের বিপরীতে, বিনিয়োগকারীরা কয়েন্ট বিক্রির চেয়ে ধরে রাখতে পছন্দ করছেন। এটা মার্চের বিপর্যয়ের পর ঘটেছে। গত কয়েক মাসে বিনিয়োগকারীরা এক্সচেঞ্জ থেকে বিটকয়েন ট্রান্সফার করছে কোল্ড ওয়ালেটে, যা ক্রিপ্টোকারেন্সির দীর্ঘমেয়াদি স্টোরেজে সুইচ করার আকাঙ্ক্ষা প্রতিফলিত করে। এক বছরেরও বেশি বিটিসি ধারকদের ঠিকানার সংখ্যা এক দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছেছিল গত মাসে – 63.5 শতাংশ বিটকয়েন 2019-এর শরৎ থেকে কোথাও যায়নি।
    গত সপ্তাহে, বিটিসি মার্কিন ডলার জোড়া, 10500 ডলারের নীচে আসেনি, আরেকটা প্রচেষ্টা করেছিল 11000 ডলারের প্রতিরোধ ভাঙার, আমাদের বিশেষজ্ঞদের প্রস্তাবিত চিত্রের সঙ্গে যা সাধারণভাবে মানানসই। এই অনুমান লেখার সময়, মূল ক্রিপ্টোকারেন্সির কোট 11100 ডলারে আছে। যদিও, এটা পরিষ্কার নয় যে এই অঞ্চলের ওপরে এটা পা রাখতে সমর্থ হবে কি না, কেননা শনিবার ও রবিবার আছে সামনে, যখন সংকীর্ণ বাজারে শক্তিশালী মূল্য গতিবিধির উদ্ভব ঘটতে পারে।
    ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেটের মোট ক্যাপিটালাইজেশন সাত দিনে 330 বিলিয়ন ডলার থেকে বৃদ্ধি হয়েছে 349 বিলিয়ন ডলারে। এর ওপরে, এই চার্ট প্রায় বিটিসি/মার্কিন ডলার চার্টের মতোই, যা ফের একবার মনে করিয়ে দেয় কোন কয়েন বাজারে প্রাধান্য বিস্তার করেছে। ক্রিপ্টো ফিয়ার অ্যান্ড ইনডেক্সের ক্ষেত্রে, এটা 48-এ, স্কেলের একেবারে কেন্দ্রের কাছেই। স্মর্তব্য যে সেপ্টেম্বরের প্রথম দিনগুলি থেকে, এই সূচক কখনো কেন্দ্রীয় অঞ্চলের উপরে যায়নি, বরাবর ছিল 40 থেকে 50 রেঞ্জে, যা বিটিসি/মার্কিন ডলার জোড়ার বর্তমান নিম্ন গতিময়তার সঙ্গে পূর্ণ মানানসই এবং নিশ্চিত করে এই দুটি ইন্ডিকেটরের ঘনিষ্ঠ আন্তঃসম্পর্ক।

 

আগামী সপ্তাহের অনুমানের ক্ষেত্রে, বেশকিছু সংখ্যক বিশেষজ্ঞের মতামতের সংক্ষেপের পাশাপাশি টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে আমরা বলতে পারি :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন রাষ্ট্রপতি নির্বাচন ক্রমশ এগিয়ে আসছে, 3 নভেম্বর X সময়ে হওয়ার কথা। কিন্তু এটা দ্রুত কী পরিবর্তন করতে পারে? তত্ত্বের দিক থেকে, আমরা আলোচনা করছি মানিটারি নীতির স্বাভাবিকতা সম্পর্কে, যা মার্কিন কারেন্সিকে অবশ্যই শক্তিশালী করবে। কিন্তু বাস্তবে, ফেড-এর সামর্থ্য ইতিমধ্যেই ভয়ংকভাবে সীমিত হয়ে গেছে।
    ওয়াল স্ট্রিট জার্নান গণনা করেছে যে অধিকাংশ বিশ্লেষক (57 শতাংশ) বিশ্বাস করেন যে হোয়াইট হাউসে কে বসবেন সেটা কোনো ব্যাপার নয়, লেবার মার্কেট সক্ষম হবে না পূর্ণ নিয়োগে ফিরে যেতে, খুব দ্রুত হলেও সেটা 2023-র আগে নয়। এবং এটা ডলারের দুর্বলতার আশঙ্কা এবং ইউরো/মার্কিন ডলার জোড়ার আরও বৃদ্ধি প্রকাশ করে। এবং আবার ফেড ও ইসিবি-র কারেন্সি মতান্তর সম্পর্কে কথাবার্তা শুরু হয়েছে।
    যেমন ইতিমধ্যে উল্লেখিত, ইউরোপিয়ান সেন্ট্রাল ব্যাংক দুর্বল ডলার ও শক্তিশালী ইউরো মোটেও চায় না, এবং এটা খুশি হবে যদি জোড়াটি দক্ষিণে ঘোরে। যুক্তি হিসেবে বলা যায় যে বিনিয়োগকারীদের এটা করতে আশ্বস্ত করত এই প্রবণতা, বিশেষজ্ঞরা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ইউরোপে কোভিড-19-এর অতিমারি পরিস্থিতির মারাত্মক দুরবস্থা উল্লেখ করেন, পাশাপাশি ওল্ড ওয়ার্ল্ড অর্থনীতির নেতিবাচক মূল্যায়নও, যা ইসিবি-র স্টিমুলাস পন্থার সম্প্রসারণ ঘটাতে পারে, যার অন্তর্ভুক্ত সুদের হার হ্রাস ও কিইউ কর্মসূচিতে প্রস্তুতি।
    এবং আরেকটি চরম শক্তিশালী উপাদান হল ইউএস স্টক মার্কেটের বিকাশ। যতদিন এর বিকাশ বজায় থাকে। কিন্তু যদি হঠাৎ, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের আগে বা এর ফলাফলের পর, বিনিয়োগকারী একসঙ্গে লাভ স্থির করতে শুরু করে, তাতে ডলারের দ্রুত উত্থান ঘটবে এবং ইউরো সহ অন্যান্য কারেন্সির পতন হবে।
    আগামী সপ্তাহের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও আগ্রহের ঘটনার মধ্যে, যে কেউ লিখে রাখতে পারেন 12 ও 13 অক্টোবরে ইসিবি প্রধান ক্রিস্টিন লাগার্ডের বক্তব্য, 13 ও 16 অক্টোবরে ইউএস উপভোক্তা বাজারের ওপর ম্যাক্রো পরিসংখ্যান প্রকাশের পাশাপাশি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীদের বিতর্কও, যা অনুষ্ঠিত হবে কাজের সপ্তাহের শেষদিনটিতে, শুক্রবার, 16 অক্টোবর।
    ইউরো/মার্কিন ডলার। H4 ও D1-এ 100 শতাংশ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরের রং সবুজ। অসিলেটরদের অধিকাংশই (75 শতাংশ) উত্তরে ইঙ্গিত করে, কিন্তু 25 শতাংশ ইতিমধ্যে সংকেত দিয়েছে যে জোড়াটি অতিরিক্ত ক্রীত। গ্রাফিক্যাল অ্যানালিসিস সংকেত দেয় যে জোড়াটি পরের কয়েকদিনে ঘুরবে 1710-1.1920 চ্যানেলে, তারপর এটি নামবে 25-28 সেপ্টেম্বরের নিম্নে যা 1.1600 অঞ্চল। বিশেষজ্ঞদের অধিকাংশই (60 শতাংশ) বিশ্বাস করেন যে এই জোড়া, নামার আগে, প্রথমে নির্দিষ্ট চ্যানেলের উপরের সীমায় উঠবে। বাকি 40 শতাংশের আশা এর দ্রুত পতন হবে 1.1600-এ।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। এখানে, অন্যান্য কারেন্সির ক্ষেত্রে, অনুমান নির্ভর করে বিনিয়োগকারীদের ঝুঁকি প্রবণতার বিকাশ ও পতনের ওপর। GBR100 সক্ষম ছিল বিকাশে আমেরিকান ইন্ডাইসের পর। এবং যদি ইউএস স্টক মার্কেট ক্রমাগত বৃদ্ধি পায় এবং ডলারের পতন ঘটে, তাহলে জিবিপি/মার্কিন ডলার জোড়া ধারাবাহিকভাবে বৃদ্ধি পাবে। যদি আমেরিকার রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রেক্ষিতে স্টক মার্কেটে গণ লাভ-গ্রহণ শুরু হয়, তাহলে আমরা আশা করতে পারি নীচের দিকে যাওয়া। একটি শান্ত ভাব, সেই অনুযায়ী, শান্ত ভাবের কারণ হবে।
    টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক বিশ্লেষণের ক্ষেত্রে, তাদের রিডিংও ইউরো/মার্কিন ডলার জোড়ায় তাদের ‘সহকর্মীদের’ রিডিঙের সঙ্গে মিলে গেছে। এই দুটি জোড়ার আন্তঃসম্পর্ক বাতিলের কারণ মাত্র দুটি : 1) যদি ব্রেক্সিটের ক্ষেত্রে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রের মাঝে বোঝাপড়ায় অভাবনীয় কিছু ঘটে, অথবা 2) যদি ইসিবি উপায়হীন হয়ে ইউরোজোন অর্থনীতি ও ব্যাংক অব ইংল্যান্ডকে সমর্থন করতে নতুন পদক্ষেপ গ্রহণ করে, যেমন তারা বলে, ‘যেমন আছে থাকবে’, যার অর্থ, কোনো অতিরিক্ত ইনসেনটিভ পন্থা গ্রহণ করা হয়নি। পরের বক্তব্য এই রেগুলেটর প্রধান অ্যান্ড্রু বেইলির, যা সোমবার, 12 অক্টোবর, এবং এটা বাদ দেওয়া হয়নি যে তিনি পরের পর্বের জন্য ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের অগ্রাধিকার স্থির করবেন।
    যেমন বলা হয়েছিল, জোড়াটি গত সপ্তাহ শেষ করে মাঝারি মেয়াদের পিভট পয়েন্ট অঞ্চলে 1.3045 দিগন্তে। নিকটতম সাপোর্ট হল 1.3000, পরেরগুলো 1.2840, 1.2760 ও 1.2675। রেজিস্ট্যান্স স্তর 1.3120, 1.3185 এবং 1.3265।
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। গত দুই সপ্তাহের ফল বিবেচনা করলে, এই জোড়া জন্য নিকট ভবিষ্যতে কোনো স্পষ্টতা নেই, এবং বিশেষজ্ঞদের মতামত (50 থেকে 50 শতাংশ) কোনো উপসংহারে পৌঁছতে দেয়নি। যদিও, আমরা যদি D1-এ গ্রাফিক্যাল অ্যানালিসিসের রিডিং ও অসিলেটরদের দিকে তাকাই, সুবিধা এখনও বুলের দিকে রয়েছে, এবং এই জোড়ার একটি সুযোগ আছে প্রথমে 106.00-এর রেজিস্ট্যান্স এবং তারপর 106.40-এর রেজিস্ট্যান্সে ওঠার, এবং শেষ পর্যন্ত 107.20 উচ্চতায়।
    যদি আমরা সাপ্তাহিক থেকে মাসিক চিত্রে যাই, তাহলে বিশ্লেষকদের মধ্যে স্পষ্ট সুবিধা দেখা যাবে, বিপরীতে, বিয়ার্সের দিকে। এঁদের 70 শতাংশে আশা ইয়েন ঋজু হবে এবং জোড়াটি নেমে আসবে 21 সেপ্টেম্বরের নিম্নে 104.00-এ। সাপোর্ট হল 105.00 এবং 104.45।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। গত সপ্তাহে স্টক ইনডেক্স উঠেছিল এবং বিটিসি/মার্কিন ডলার জোড়ারও বৃদ্ধি হয়েছিল, যা আরও একবার বিটকয়েনের সঙ্গে S&P500 ও ডাও জোন্সের আন্তঃসম্পর্ক সম্পর্কে কথা বলার কারণ ঘটিয়েছিল। যদিও কিছু নামী বিশেষজ্ঞের বিশ্বাস যে এই নির্ভরশীলতা স্বল্পস্থায়ী।
    সেজন্য, ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কোম্পানি সোশাল ক্যাপিটাল চামাট পালিহাপিটিয়ার সিইও সিএনবিসি-তে একটি সাক্ষাৎকারে বলেন যে তিনি এখনও আধুনিক আর্থিক ব্যবস্থায় বিটকয়েনকে অগ্রগামী হিসেবে দেখেন। ‘মৌলিক স্তরে, ঐতিহ্যবাহী বাজারের সঙ্গে বিটিসি-র আন্তঃসম্পর্ক নেই কারণ এর ভিত্তি হল একগুচ্ছ বিশ্বাস যা আধুনিক বিশ্বকে পরিচালনার মানসিকতার ঠিক উলটো। এই বিমা আমাকে রাতে ভালোভাবে ঘুমোতে দেয় যদি কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলিতে এবং বিশ্ব কর্তৃপক্ষ কোনো বোমা পেরিয়ে আসে,’ বলেছেন পালিহাপিটিয়া।
    টেসলা-র শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে এক বিশেষজ্ঞ এআরকে ইনভেস্ট ফান্ডের মতে, বিটকয়েনের ক্যাপিটালাইজেশন 5 ট্রিলিয়ন ডলার অতিক্রম করতে পারে। এটা কয়েনকে নিয়ে যাবে ১০ বছর পর্যন্ত, কিন্তু বিশাল বিনিয়োগ আগেই শুরু হবে। এই অঙ্ক আগামী 5 বছরে পৌঁছতে পারে 1 ট্রিলিয়ন ডলারে, তারপর বিকাশ ঘটবে দ্রুততর গতিতে। এইসঙ্গে এটি সম্পদের মূল্যেও প্রভাব ফেলবে। সেজন্য, বিটকয়েন ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব ডিরেক্টর্সের সদস্য ববি লি-র মতে, 2028-এর মধ্যে প্রধান বিটকয়েনের মূল্য পৌঁছতে পারে 500000 ডলারে।
    ব্লুমবার্গ বিশ্লেষক মাই ম্যাকগ্লোনের অনুমান আরও চমকপ্রদ। তাঁর মতে, বিটকয়েনের হার ৫ বছরের মধ্যে 100000 ডলার অতিক্রম করতে পারে। এখানে যুক্তিটা খুব সহজ : 2011 সালে বিটিসি-র মূল্য ছিল মোটামুটি 10 ডলার, 2013-তে 1000 ডলার এবং 10000 ডলারে আসতে এর চার বছর লেগেছে, অর্থাৎ 2017। যার অর্থ, বিকাশের হার মন্থর হয়েছে, এবং এর পরের শীর্ষে পৌঁছতে চার নয়, আট বছর লাগবে। প্রদত্ত তিনটি ইতিমধ্যেই চলে গেছে, বিটিসি 2025 সালে পৌঁছবে 100000 ডলারে। মাইক ম্যাকগ্লোন এইসঙ্গে আশা করেন যে এবছরের শেষে বিটিসি 2019-এর উচ্চতা 14000 ডলারে ফিরবে।
    আগামী সপ্তাহের সাধারণ অনুমানের জন্য, পূর্ববর্তীর সঙ্গে তুলনায়, এটা ৫০০ পয়েন্ট উচ্চতর হবে : মূল সাপোর্ট আশা করা হচ্ছে 10500 ডলার, রেজিস্ট্যান্স 11500 ডলার। 12000 ডলারের আত্মবিশ্বাসী ব্রেকআউটের সম্ভাব্যতার পক্ষে রয়েছেন মাত্র 10 শতাংশ বিশ্লেষক।

 

নর্ডএফএক্স অ্যানালিটিক্যাল গ্রুপ

 

বিজ্ঞপ্তি : এসব তথ্য আর্থিক বাজারে কাজের জন্য বিনিয়োগ বা পরামর্শ হিসেবে কোনো সুপারিশ নয় : এগুলি একমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং এর ফলে ডিপোজিটকৃত ফান্ডের পরিপূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)