জুন 20, 2020

প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলির পর্যালোচনা :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। সম্প্রতি ফিনান্সিয়াল টাইমসে একটি প্রবন্ধে বলা হয়েছে যে বিশ্লেষকদের সমস্যা শুরু হয়েছে যেহেতু ফোরেক্স আগের মতো মৌলিক উপাদানগুলিতে প্রতিক্রিয়া দেখানো বন্ধ করেছে। বিশ্বের আর্থিক বাজারে অনিশ্চয়তার প্রেক্ষাপট বিনিয়োগকারীদের ঝুঁকির মেজাজে প্রভাব ফেলেছে, যা নির্ধারিত হয়েছে একদিকে কোয়ান্টিটিভ ইজিং (কিউই)-এর নিয়ামকদের পদক্ষেপ দ্বারা এবং অন্যদিকে কোভিড-19 অতিমারির দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রতি ভীতি। এবং এই ভীতি শক্তিশালী হচ্ছে চীনে করোনা ভাইরাসের নতুন দৃষ্টান্তের জন্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন প্রদেশে সংক্রমিতের সংখ্যা বৃদ্ধির ফলে।
    ইউরো/মার্কিন ডলার চার্টে বিনিয়োগকারীদের এই বিভ্রান্তি স্পষ্টতই দৃশ্যমান। সপ্তাহের শুরুতে ছিল সাইড ট্রেন্ড, তারপর 150 পয়েন্ট বৃদ্ধি, এরপর ‘সিঁড়ি’ অবনমিত পরিষ্কার চারটি ধাপে। শেষপর্যন্ত শেষ করে 1.1180-এ যা পাঁচ-দিনের পর্বের শুরুর বিন্দু থেকে 80 পয়েন্ট নীচে (দুসপ্তাহের আগের কথা স্মরণ করতে হয়, এই জোড়ার আর্থিক ওঠানামা ছিল ডলারের পক্ষে মাত্র 30 পয়েন্ট)।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। বৃহস্পতিবার, 18 জুন ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের বৈঠকের প্রেক্ষিতে নির্দিষ্ট প্রত্যাশা ফিকে হয়ে গেছে। কিছু বিনিয়োগকারী আশা করেছিলেন যে খোলা বাজারে বন্ড ক্রয় কর্মসূচিতে 200 বিলিয়ন পাউন্ড বৃদ্ধি হবে এবং এমনকি সুদের হার হ্রাসের সম্ভাব্যতাও। যদিও কিছুই ঘটেনি। রেগুলেটর এই হার রেখেছেন 0.1 শতাংশে এবং কোয়ান্টিটিভ ইজিং (কিউই)-এর অধীনে সম্পদ ক্রয় বৃদ্ধি হয়েছে 645 বিলিয়ন পাউন্ড থেকে 745 বিলিয়ন পাউন্ডে। ক্রয়ের গতি এখন এক সপ্তাহ হল 13 বিলিয়ন পাউন্ডের ওপরে, সেজন্য মাত্র 8 সপ্তাহের কিউই-র সাপেক্ষে আয়তন বৃদ্ধি হয়েছে 100 বিলিয়ন পাউন্ড।
    ব্রিটিশ অর্থনীতির অবস্থা সম্পর্কে কিছু আশাবাদী মন্তব্য সত্ত্বেও প্রকৃতপক্ষে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড, সমস্যাকে ছেড়ে রেখেছে এর সাপোর্ট মুক্ত করে, বলছে যে আবশ্যকতা অনুযায়ী নির্দিষ্ট কিছু পদক্ষেপ করা হবে। এই অবস্থান বাজারকে আকর্ষণ করতে পারেনি এবং সেজন্য পাউন্ডে আরেকবার সেল-অফ দেখে গেছে, যার ফলে সপ্তাহের শেষে জোড়াটির পতন হয় 1.2350-এ।
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। ইয়েনে সক্রিয় সুদ যেন শান্ত আর্থিক বন্দর, যা আমরা দেখেছে 8 থেকে 12 জুন পর্যন্ত। এর ফলে, জোড়াটি ফিরে এসেছিল মোটামুটি দীর্ঘ মাঝারি-মেয়াদের চ্যানেলে, যা শুরু হয়েছিল এপ্রিলে, এবং গোটা সপ্তাহে চলেছে 106.55-107.65 –এর সংকীর্ণ করিডোরের সঙ্গে, যার মধ্যে 106.85 স্তরে এটি ট্রেডিং সেশন শেষ করে।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভেতরে ট্রাম্প ও তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বীদের মধ্যে বিরোধের ধারাবাহিক অস্ত্র হয়ে উঠেছে বিটকয়েন। যেমন 2018 সালে, ট্রেজারি সেক্রেটারি স্টিভেন এমনুচিনকে ট্রাম্প নির্দেশ দিয়েছিলেন বিটকেয়ন বাণিজ্য শেষ করতে। এক বছর পর, এমনুচিন ক্রিপ্টো সম্পদে তাঁর আক্রমণ বজায় রাখেন, এগুলিকে বলেন মানি লন্ডারিং হাতিয়ার। এবং এখন, ফোর্বস এডিটর-ইন-চিফ স্টিভ ফোর্বসও বিটকয়েনকে একটি হাতিয়ার বলেন, যদিও বিয়োগ থেকে যোগ-এ বদলাচ্ছে লক্ষণ। তাঁর মতে, ক্রিপ্টোকারেন্সি হল প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত ‘সাহায্যের জন্য চিৎকার’ এবং সরকার দ্বারা সৃষ্ট নড়বড়ে আর্থিক নীতির বিরুদ্ধে একটি হাতিয়ার, মুক্ত ঋণ এবং কোয়ান্টিটিভ ইজিং বণ্টনের সমাধান।
    ক্রিপ্টো সম্পদের ক্ষেত্রে সবচেয়ে আকর্ষণীয় বিষয় হল সংকটের সময় এখানে বিনিয়োগ, কিছু বিশেষজ্ঞ বলেন স্টেবলকয়েন – এক ধরনের ক্রিপ্টোকারেন্সি যার মূল্য জড়িয়ে রয়েছে মূল্যবান ধাতু অথবা ফিয়াট মানিতে, সাধারণত 1:1 অনুপাতে – উদাহরণ স্বরূপ একটি স্টেবলকয়েন হল এক ডলারের সমান। এই ডিজিটাল ক্ষেত্রে সবচেয়ে জনপ্রিয় হল টেদার (ইউএসডিটি) – একটি কয়েন যা বর্তমানে মার্কেট ক্যাপিটাইলাজেশনে চতুর্থ স্থানে রয়েছে। মেসারি-র মতে, থিতু ডিজিটাল কয়েনের মোট পরিমাণ বর্তমানে 11 বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করেছে, ফেব্রুয়ারি থেকে 100% বৃদ্ধি।
    যদিও স্টেবলকয়েন এখনও বিটকয়েনের থেকে অনেক দূরে রয়েছে। বিশ্লেষকদের পোর্টাল ব্লকচেইনসেন্টার-এর মতে, বিশ্বব্যাপী বিটিসি-র জন্য গুগুল অ্যাকাউন্টে সব ক্রিপ্টোকারেন্সি-সংক্রান্ত অনুরোধের গড় মোটামুটি 80.8 শতাংশ। এরপর রয়েছে ইথেরিয়াম, ইন্ডিকেটর 13.7 শতাংশ, এবং প্রথম তিনটি স্থানের শেষে রয়েছে রিপল – 7.7 শতাংশ। বিটকয়েনে জনসংখ্যার সুদে প্রথম দুটি স্থানে রয়েছে কেনিয়া (94.7%) ও ব্রাজিল (92.6%)। প্রথম দশের কাছেই রয়েছে পোল্যান্ড, ইন্ডিকেটর 86.4 শতাংশ। ক্রিপ্টোকারেন্সিতে সবচেয়ে বেশি আগ্রহশীল দেশ হয়ে উঠেছে দক্ষিণ আফ্রিকা।
    এটা সত্যি যে গোটা জুন মাস জুড়ে বিটকয়েন তার ভক্তদের সন্তুষ্ট করতে পারেনি। বিটিসি/মার্কিন ডলার জোড়া অবশ্যই, এবং যদি মাসের প্রথম দশদিনে 9,500 ডলার স্তর সাপোর্ট হিসেবে ভূমিকা পালন করেছে, তাহলে পরের দশদিন সেটি হয়েছে রেজিস্ট্যান্স লেভেল।
    ক্রিপ্টো মার্কেটের মোট ক্যাপিটাইলাইজেশন প্রায় অপরিবর্তিত এবং 19 জুন এটি ছিল 266 বিলিয়ন ডলারে এবং সাত দিন আগে 268 বিলিয়ন ডলার। ক্রিপ্টো ফিয়ার ও গ্রিড ইনডেক্সের তিরও হিমায়িত এবং এখনও আছে ফিয়ার জোনে – এক সপ্তাহ আগের 38-এর তুলনায় 39-এ।

 

আগামী সপ্তাহের অনুমানের ক্ষেত্রে, বেশকিছু সংখ্যক বিশেষজ্ঞের মতামতের সংক্ষেপের পাশাপাশি টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে আমরা বলতে পারি :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। এটা বারবার বলা হয়েছে যে বর্তমান পরিস্থিতিতে অনেক বিনিয়োগকারী ডলারকে দেখছেন একটি প্রতিরক্ষাকারী মুদ্রা হিসেবে। এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চলতি মহামারি করোনা ভাইরাসের নতুন ঢেউয়ের ভীতিতে ইন্ধন জোগাচ্ছে। S&P500 ইনডেক্স মার্চের উচ্চতা প্রায় 3150 থেকে পড়ে গেছে, যা বোঝায় আবার স্টক মার্কেটের প্রয়োজনীয় পুনরুদ্ধার সম্পর্কিত বিনিয়োগকারীদের সংশয়।
    এই পরিস্থিতিতে গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণ দ্বারা 65 শতাংশ বিশেষজ্ঞকে সাপোর্ট করা হয়েছে এবং H4-এ 85 শতাংশ ইন্ডিকেটর আশা করছে ডলারের আরও শক্তিশালীকরণ এবং জোড়াটির অবনমন প্রথমে 1.1100 স্তরে এবং তারপর আরও 100 পয়েন্ট নীচে।
    H4–এ মাত্র 35 শতাংশ বিশ্লেষক ও 15 শতাংশ অসিলেটর ইঙ্গিত দিচ্ছেন যে জোড়াটির অতিরিক্ত বিক্রির, জোড়াটির বিকাশের দিকে মত দিয়েছেন। বুল-এর নিকটতম লক্ষ হল 1.1350 এবং 9 জুনের উচ্চতা 1.1425। ম্যাক্রোইকোনমিক ডেটার প্রকাশের প্রেক্ষিতে, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও জার্মানিতে ব্যবসায় কার্যকলাপের পরিসংখ্যান প্রকাশিত হবে বৃহস্পতিবার, 23 জুন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র লেবার মার্কেটের ডেটা ও প্রথম ত্রৈমাসিকের জিডিপি-ও 25 জুন বৃহস্পতিবার প্রকাশ পাবে। এইসঙ্গে এই একই দিনে ইসিবি মানিটরি পলিসি বৈঠকের ওপর একটি রিপোর্ট থাকবে।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। ইউরোপিয়ান পরিসংখ্যান ছাড়া ইউকে সার্ভিস বিজনেস অ্যাক্টিভিটি ইনডেক্স (পিএমআই) প্রকাশিত হবে মঙ্গলবার, 23 জুন। অনুমান অনুযায়ী, এই ইন্ডিকেটর বাড়তে পারে এক তৃতীয়াংশের বেশি – 29.0 থেকে 39.5 পর্যন্ত। ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের এখনও যথেষ্ট সময় আছে, অর্থনৈতিক পরিস্থিতির উন্নয়নের ওপর নির্ভরশীল, কিউই-র অধীনে বন্ড ক্রয়ের পরিমাণ হ্রাস করার কিংবা বৃদ্ধি করার এবং এমনকি এগুলিতে অন্যান্য সম্পদ যোগ করার। নেতিবাচক সুদের হারের প্রবর্তন হল আরেকটি শক্তিশালী রিজার্ভ। কিন্তু রেগুলেটর সম্ভবত এই পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন শেষ আশ্রয় হিসেবে, যদি দেশের অর্থনীতি বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়।
    হয়তো এসব পন্থা ব্রিটিশ কারেন্সিতে বাজারের সক্রিয় সুদ ফেরত আনবে। এর মধ্যে, অধিকাংশ বিশ্লেষক (60%) সমর্থন পেয়েছেন H4 ও D1 উভয়ের ৮৫ শতাংশ অসিলেটর এবং প্রায় 100% ট্রেন্ড ইন্ডিকেটর দ্বারা, অপেক্ষা করছেন জিবিপি মার্কিন ডলার জোড়ার অবনমনের ধারাবাহিকতা মে-র নিম্নে প্রায় 1.2070-এ। নিকটতম সাপোর্ট হল 1.2265 এবং 1.2160।
    D1-এর গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণ রয়েছে বিয়ার-এর সঙ্গে। কিন্তু H4-এ এটি বুল-এর পাশে, বিশেষজ্ঞদের 40 শতাংশ এবং 15 শতাংশ অসিলেটর রয়েছেন অতিরিক্ত বিক্রি অঞ্চলে। রেজিস্ট্যান্স স্তর হল 1.2455, 1.2565 1.2650 এবং 1.2800।
  • মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই। মার্কিন অর্থনীতিতে কোভিড-19 ভাইরাসের নতুন ঢেউয়ের সঙ্গে বাজারের ভীতি সম্পর্কিত, এটা আর কিছু নয়, এই জোড়ার ভবিষ্যৎ অনুমানে প্রভাব ফেলেছে। সেজন্য বিশ্লেষকদের 60 শতাংশের বিশ্বাস যে হেভেন কারেন্সি হিসেবে ইয়েনের সম্ভাব্যতা ফুরিয়েছে বরং ডলারের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষেত্রে তাঁদের অগ্রাধিকার জাপানি কারেন্সি। যদি একটি শক্তিশালী নীচের দিকে গতি, তাঁদের মতে, আশা করা উচিত নয় এবং শেষ লক্ষ্য হবে 106.00 দিগন্ত। সাপোর্টের পরের স্তর 100 পয়েন্ট নীচে অবস্থিত, যদিও, এটা মনে হয় না অর্জন করা যাবে।
    বিশেষজ্ঞদের 40 শতাংশ ডলারের শক্তিশালীকরণ এবং জোড়াটির বিকাশের পক্ষে মত দিয়েছেন, আশা করছেন এটা উঠবে 108.00 অঞ্চল পর্যন্ত। নিকটতম রেজিস্ট্যান্স হল 107.65।
    টেকনিক্যাল বিশ্লেষণের জন্য, Η4-এ 90 শতাংশ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটর এবং D1-এ 100% –এর রং লাল। অসিলেটরদের মধ্যে চিত্রটি সামান্য আলাদা। এখানে তাদের 90 শতাংশ H4 এবং D1-এ 70 শতাংশ দক্ষিণে ইঙ্গিত করেছেন, বাকিদের ইঙ্গিত হল জোড়াটি অতিরিক্র বিক্রীত।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। বিটকয়েন বিপজ্জনক নাকি প্রতিরক্ষাকারী সম্পদ সেনিয়ে একটি বিতর্ক আছে। প্রকৃতার্থে, যদি আপনি বাজারের পরিস্থিতির সঙ্গে বিটিসি/মার্কিন ডলার চার্ট তুলনা করেন, আপনি একে দেখতে পারেন উভয় ভূমিকায়। একই সময়ে, এটা অনুমান করা যেতে পারে যে গুরুতর, ব্যাপক বিপর্যয়ে, বিনিয়োগকারীরা ঐতিহ্যবাহী সম্পদের পরিবর্তে ক্রিপ্টোকারেন্সি ছাড়তে চাইবেন।
    এর মধ্যে, কেউ রেফারেন্সি ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বৃহৎ বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের বিকাশ পর্যবেক্ষণ করতে পারেন। অ্যানালিটিক্যাল সার্ভিস গ্লাসনোড-এর মতে, 10000 বা তার বেশি কয়েনের ওয়ালেটে ‘তিমি’র সংখ্যা এখন প্রায় চলে এসেছে 2017 সালের শেষের স্তরের কাছে, যখন বিটকয়েনের দাম চলে এসেছিল 20000 ডলারের পাশে। সংস্থামূলক ক্রিয়াকলাপও শিকাগো মার্কেনটাইল এক্সচেঞ্জ (সিএমই) থেকে ডেটা দ্বারা নিশ্চিত করা হয়েছে, যেখানে বিটকয়েন অপশনের জন্য অ্যাপ্লিকেশন বৃদ্ধি পেয়েছে দশগুণ, 10 মে থেকে 10 জুনের মাঝে। এসবই বোঝায় যে সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে তুলনামূলক বন্ধ্যার পর আমরা গতিশীলতায় তীক্ষ্ণ লাফ আশা করতে পারি, এবং ‘তিমি’রা ইন্ধন জোগাতে পারে শক্তিশালী বিকাশ এবং কোটেশনের বিপর্যয়, উভয় ক্ষেত্রে, যে কোনো মুহূর্তে।
    সুপরিচিত ট্রেডার তথা বিশ্লেষক টোন ব্যাস গুরুত্বপূর্ণ মতামত প্রকাশ করেছেন, যাঁর বিশ্বাস যে বর্তমানের সেন্টিমেন্ট 2021-এ প্রথম ক্রিপ্টোকারেন্সির বিকাশে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। তাঁর মতে, ‘টু দ্য মুন’-এর অনুপস্থিতি, মানুষকে এত ক্রুদ্ধ করে তোলা উচিত যে তারা বিটকয়েন বিক্রি শুরু করেছে। ‘টু দ্য মুন’ অর্থ জ্যামিতিক হারে ক্রিপ্টোকারেন্সির হারের ধারাবাহিক বৃদ্ধি। এরকম বিকাশের অভাব যা ভবিষ্যতে এর দ্রুত আরোহণ সম্ভব করবে। বিশ্লেষকের মতে, ‘বিটকয়েনের আরোহণের জন্য মানুষকে অবশ্যই এটা ঘৃণা করতে হবে।’
    ‘যতক্ষণ না মূল্য 10000 ডলার ব্রেক করতে পারছে, আমি আশা করব মূল্যের পতন হবে,’ ফর্কলগ ইন্টারভিউ এভাবে শেষ করেছেন ভ্যাস - ‘যদি আমাদের পতন ঘটে গ্রীষ্মের শেষে, আমার ধারণা এটা হবে মোটামুটি 7000 ডলারের আশপাশে। কিন্তু প্রথম ক্রিপ্টোকারেন্সি 6000 ডলারের নীচে যাবে না।’
    বর্তমান পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে, বিশেষজ্ঞদের 55 শতাংশের বিশ্বাস যে জোড়াটি শক্তি অর্জন করতে সমর্থ হবে এবং ফের একবার যাবে 10000 ডলার স্তরে, বাকি 45 শতাংশ, বিপরীতভাবে, অপেক্ষা করছেন বিটিসি-র পতন ঘটবে 8500-8800 ডলারে। পরের সাপোর্ট লেভেল হতে পারে 8.350  ডলার অঞ্চলে 200-দিনের চলন্ত গড়।
    বিটকয়েনের সঙ্গে, ইথেরিয়াম সম্প্রতি বিশেষজ্ঞদের সত্যিকারের মনোযোগ কে়ড়েছে : কয়েনমেট্রিক্স গণনা অনুযায়ী, এই সংক্রান্ত লেনদের বিকাশ পৌঁছেছে 27-মাসের সর্বোচ্চ স্থানে। এটা ঘটেছে প্রাথমিকভাবে ডিসেন্ট্রালাইজড ফিনান্সিয়াল অ্যাপ্লিকেশন (ডিইএফআই)এবং টেদার স্টেবলকয়েন (ইউএসডিটি)-এর কারণে, লেনদেনের সংখ্যা যা ইথেরিয়াম ব্লকচেন বৃদ্ধি হয়েছে 450 শতাংশ 2020-এর প্রথমভাগ থেকে।

 

 

নর্ডএফএক্স অ্যানালিটিক্যাল গ্রুপ

 

বিজ্ঞপ্তি : এসব তথ্য আর্থিক বাজারে কাজের জন্য বিনিয়োগ বা পরামর্শ হিসেবে কোনো সুপারিশ নয় : এগুলি একমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং এর ফলে ডিপোজিটকৃত ফান্ডের পরিপূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)