মে 16, 2020

প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলি বিশ্লেষণ :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। ‘রিট্রেইন অন্য দ্য ফ্লাই’ এই প্রকাশ আছে। ঠিক এটাই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প করেছেন ১৪ মে। এর আগে তিনি অনেক বলেছেন এবং এমনকি দুর্বল ডলারের সুবিধা সম্পর্কেও মাঝে মধ্যে বলতেন, যা বিদেশের বাজারে আমেরিকান প্রডাক্টের প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি করতে পারে এবং একটি ফেডকে ঠেলতে পারে একটি নমনীয় আর্থিক নীতিতে। এবং এখন, তিনি ফক্স টিভি-তে একটি সাক্ষাৎকারে হঠাৎ ঘোষণা করেছেন : ‘এখন শক্তিশালী ডলার থাকা ভালো। এই সময়ে শক্তিশালী ডলার থাকা দুর্দান্ত!’ ফেডারেল রিজার্ভের প্রধান জেরোম পাওয়েলও প্রেসিডেন্টকে সমর্থন করেছেন, বলেছেন যে নিয়ামককে নেতিবাচক সুদের হারে সুইচের সম্ভাব্যতা বিবেচনা করার দরকার পড়েনি এবং পড়ে না।
    এই 180 ডিগ্রি বৈপরীত্যের প্রধান কারণ হল কোভিড-১৯ অতিমারির ফলে যে সংকট তৈরি হয়েছে সেটাই ডলারের সুদ বৃদ্ধি করে একে ‘নিরাপদ স্বর্গ মুদ্রা’য় পরিণত করেছে এবং স্রোতের বিরুদ্ধে সাঁতারের মতো তাকে আটকানোর চেষ্টা করছে। এই সঙ্গে, মার্কিন কর্তৃপক্ষ পূর্ণ ক্ষমতায় প্রিন্টিং প্রেসের দিকে ঘুরেছে, এবং এটা তাদের জন্য এখন গুরুত্বপূর্ণ তাদের নিজস্ব কারেন্সিতে আগ্রহ বজায় রাখা। তারা ভীত যে হয়তো কেউ পাশাপাশি গৌণ বাজারে বিশাল সংখ্যা ডলার ঢালবে এবং এটা এড়াতে তারা সতর্কভাবে বিনিয়োগকারীদের আত্মবিশ্বাস জোগাচ্ছে যে এই কারেন্সির বিকাশ ঘটবে।
    এতদসত্ত্বেও ইউরো/মার্কিন ডলার কোট খুব পরিবর্তিত হয়নি, কেননা ইউরো টার্কিশ লিরা বা ব্রাজিলিয়ান রিয়াল নয়, বরং এমন এক কারেন্সি যা ডলারের সঙ্গে পরিমাপে ও বিশ্বস্ততায় পাল্লা দিতে পারে। এবং যদি এই জোড়া সাইড চ্যানেল 1.0750-1.1000 আগে যেতে পারে, এর অসিলেশনের পরিধি এখন হ্রাস হয়েছে 1.0770-1.0890-এ। জোড়াটি ক্রমান্বয়ে জমাট বাঁধছে 1.0800 দিগন্তের কাছে, দুমাসের চার্টে একটি ত্রিভুজ গঠন করছে এবং সপ্তাহের চূড়ান্ত তারকে রাখছে 1.0820-তে।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। পাউন্ড অনুমান কাকতালীয়ভাবে বাস্তবের সঙ্গে মিলেছে। ব্রিটিশ কারেন্সি চাপে আছে। ব্রেক্সিট সংক্রান্ত সমস্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে করোনা ভাইরাস মহামারির জন্য, এবং জিডিপি-র পতন ঘটেছে। পাউন্ডেরও পতন হয়েছে। এই সপ্তাহে জিবিপি/মার্কিন ডলার জোড়া প্রায় 285 পয়েন্ট হারিয়েছে, সাত-সপ্তাহের করিডোর 1.2165-1.2650-এর নিম্নসীমা পেরোনোর চেষ্টা করছে এবং বাণিজ্য সেশন শেষ করছে 1.2120-তে।
  • মার্কিন ডলার /জেপিওয়াই। মার্কিন ডলার/জেপিওয়াই জমাট বাঁধছে 107.00-কে ঘিরে, এই তত্ত্বকে নিশ্চিত করছে যে ডলার বা ইউরোর মতো ইয়েনও বিনিয়োগকারীদের জন্য একইরকম নিরাপদ স্বর্গ কারেন্সি। উপরন্তু, ইউরোর ওপর জাপানি কারেন্সির পরিষ্কার সুবিধা আছে, যদি ইউরোপিয়ান কারেন্সি ডলারের কাছে এই অবস্থান হারায় শেষ বা দেড় বা দুমাস আগে, উলটোদিকে, ইয়েন পেছন থেকে জিতছিল। এবং ইউরো/জেপিওয়াই ক্রস-পেয়ারের মার্চের শেষ থেকে 500 পয়েন্টেরও বেশি পতন ঘটেছে (121.00 থেকে 116.00)। যেমন গত সপ্তাহে, জাপানি কারেন্সি ছিল ডলার পিছু সংকীর্ণ পরিধি 106.50-107.75 ইয়েন সমগ্র পাঁচ-দিনের পর্বে, এবং শেষ করেছে 107.20-তে।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। স্টার্টারদের জন্য কিছু তথ্য। গ্লাসনোড অনুযায়ী, বিটকয়েন অ্যাড্রেসের সংখ্যা নজর দিয়েছে 1 বিটিসি-র চেয়ে কম ব্যালান্সে যা বৃদ্ধি পেয়েছে 2016-র দ্বিতীয় অর্ধ থেকে মোটামুটি 100%। 0.01 বিটিসি-র (100 ডলারের চেয়ে কম) চেয়ে কম ব্যালান্সের ওয়ালেট দেখিয়েছে বৃহত্তম বৃদ্ধি। এরকম অ্যাড্রেস গত চার বছরে লাফিয়ে বেড়েছে 235% এবং 10 মিলিয়ন পার করেছে। এটা দুর্দান্ত ভালো খবর। কিন্তু আমরা যদি সরল গণনা করি, আমরা এই কৃতজ্ঞতা পাব এরকম অগুন্তি কিন্তু ‘স্মল ফিশ’কে, ক্রিপ্টো মার্কের ক্যাপিটালাইজেশন বিকশিত হয়েছে মাত্র 0.5-1.0 বিলিয়ন ডলার। মহাসাগরে একটি বিন্দু! কিন্তু বিশাল ক্রিপ্টোকারেন্সি দখলকারীর সংখ্যা, বাস্তব ‘তিমি’ যাদের কাছে আছে 1,000 বিটিসি কয়েনেরও বেশি, চার বছরে বৃদ্ধি পেয়েছে 13%, যা দেখায় বিশাল সংস্থাগত বিনিয়োগকারীদের অনাগ্রহ।
    মাত্র একটি উদাহরণ, আরেকদিন টিউডর ইনভেস্টমেন্ট হেড ফান্ডের প্রতিষ্ঠাতা পল টিউডর জোনাস, যার ফরচুন ধার্য হয়েছে 5.1 বিলিয়ন ডলার, সিএনবিসি-তে বলেছেন যে বিটকয়েন হল অবশ্যই একটি দুর্দান্ত অনুমান, কিন্তু তিনি একে বিবেচনা করেন ক্ষুদ্র হিসেবে, মাত্র 1-2%, তাঁর পোর্টফোলিওর অংশ।
    ক্রিপ্টো বিনিয়োগকারী এবং বিশ্বের প্রধান নিয়ামকরা সন্তুষ্ট নয়। সেজন্য, মার্কিন এসইসি-র সঙ্গে পাশে সরেছে, টেলিগ্রাম মেসেঞ্জারের মালিক পাভেল ডুরভকে টিওএন ক্রিপ্টোকারেন্সি চালু করা থেকে বিরত রেখেছে। ফেসবুক দ্বারা প্রবর্তিত লিব্রা কয়েনের ভাগ্যেও একই ঘটেছে, যদিও এটা সত্য যে এই প্রকল্প সমর্থন করেছি আরও ২৬টা শক্তিশালী কোম্পানি যেমন ইবে, উবর, বুকিং.কম, ভোডাফোন এবং অন্যরা। এরা সবাই বলেছি যে মার্কিন কর্তৃপক্ষের ডলারের প্রতিদ্বন্দ্বী একেবারেই দরকার নেই, এবং এরকম কিছুর উদ্ভবকে আটকাতে তারা সর্বাত্মক চেষ্টা করবে।
    বিটকয়েন নেটওয়ার্কে 11 মে হাভিং বাজারে কোনো আশা দিতে পারেনি। এবছর শুরু থেকে, এই ইভেন্টের কারণে প্রচুর বিতর্ক এবং অনুমান হয়েছিল যে এরপর প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সির জন্য কী অপেক্ষা করছে। এবং প্রচুর ইতিবাচক ভবিষ্যদ্বাণী থাকলেও কয়েন সাক্ষী থেকেছে 9,000-র নীচে হাভিঙের। প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সি গত সপ্তাহে কোনো পদচ্ছাপ রাখতে পারেনি 10,000 ডলার সাইন লেভেলের ওপর, কয়েক মিনিটের জন্য শুধু 10,003 ডলারের উচ্চতায় ছিল।
    কয়েনমেট্রিক্সের মতে মাইনার্স’ রিওয়ার্ডের হাভিং ইতিমধ্যে এগিয়েছে বিটকয়েন হ্যাশরেটে 30% পতনে। ফান্ড উইথড্র করে ক্রিপ্টো বিনিয়ম খুব সক্রিয়ভাবে শুরু হয়েছিল, কোটের 8100 ডলারে পতন ঘটেছে এবং ক্রিপ্টো মার্কেটের মোট মার্কেট ক্যাপিটাইলাইজেশন সপ্তাহের মাঝে চলে গিয়েছিল 270 বিলিয়ন ডলার থেকে 234 বিলিয়ন ডলারে (-13.3%)। এই পরিস্থিতি যদিও সপ্তাহ শেষ হবার আগে থিতু হয়েছিল, ক্যাপিটালাইজেশন পৌঁছেছিল 260 বিলিয়নে, এবং বিটিসি/মার্কিন ডলার জোড়ার লক্ষ্য ছিল ফের একবার 10000 ডলারের উচ্চতায় পৌঁছনো। গোটা সপ্তাহে ক্রিপ্টো ফিয়ার ও গ্রিড ইনডেক্সের পতন ঘটেছে 11 পয়েন্ট, 55 থেকে 44।
    শীর্ষস্থানীয় প্রধান অল্টকয়েনের চার্ট প্রথম নজরে, বিটিসি/ইউএসডি-র ডায়নামিক্স পুনরাবৃত্তি করে, কিন্তু তাদের রিকভার অনেক শ্লথ। বিটকয়েনের মতো নয় ইথেরিয়াম (ইটিএইচ/ইউএসডি), রিপল (এক্সআরপি/ইউএসডি) ও লাইটকয়েন (এলটিসি/ইউএসডি) এগুলি সমর্থ হয়েছিল 10 মে-র ব্যর্থতার পর ক্ষতির অর্ধেক পুনরুদ্ধারে।

 

আগামী সপ্তাহের অনুমানের ক্ষেত্রে, বেশকিছু সংখ্যক বিশেষজ্ঞের মতামতের সংক্ষেপের পাশাপাশি টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে আমরা বলতে পারি :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। দুর্বল ঝুঁকি সেন্টিমেন্ট এবং এক্সচেঞ্জ-ট্রেড ফান্ডের সেলিং ডলারকে শক্তিশালী করে। এটা এখন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সমর্থন করেছেন, চীনের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক না রাখার হুমকি দ্বারা, এবং ফেডারেল রিজার্ভ, এর প্রধান হারকে নেতিবাচক মূল্যে রাখতে সম্মত হয়নি। এমনকি জার্মানির কনস্টিটিউশনাল কোর্টের বিচারপতি পিটার হুবের সাহায্য করেছেন মার্কিন কারেন্সিকে, বলেছেন যে ইসিবি ‘ব্রহ্মাণ্ডের প্রভু’ নয় যে এর সব সিদ্ধান্ত মানতে হবে।
    এসবই বিশ্লেষকদের 65 শতাংশকে উদ্বুদ্ধ করেছে সমর্থন করতে এবং অসিলেটরদের 60 শতাংশকে এবং D1-এ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরদের 100% রয়েছে বিয়ার্সের সঙ্গে এবং ইউরো মার্কিন ডলারের পতনের দিকে ভোট দিয়েছে। নিকটতম লক্ষ্য হল 1.0750 এবং 1.0650।
    10 শতাংশ বিশেষজ্ঞ এবং 30 শতাংশ অসিলেটর নিরপেক্ষ অবস্থানে রয়েছেন, তাদের মতামত হল যে জোড়াটি জমাট বাঁধবে 1.0800 দিগন্তে। এবং শেষপর্যন্ত বিশ্লেষকদের বাকি 25 শতাংশ ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন যে জোড়াটি সাইড করিডোর 1.0750-1.1000-এর ঊর্ধ্ব সীমায় ফিরে আসবে, D1-এ তাদের সমর্থন করেছে 10 শতাংশ অসিলেটর যার সংকেত হল জোড়াটি ওভারসোল্ড।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। অধিকাংশ বিশেষজ্ঞের মতে, পাউন্ড মোটেও সেই কারেন্সি নয় যখন রিস্ক সেন্টিমেন্টের পতন ঘটে সেটা ইনভেস্ট করা যায়। এটি আর্থিক ঝড় থেকে অনেক পিছিয়ে আছে। ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন বর্তমানে ব্যস্ত এর সাত-বছরের বাজেট গঠনের প্রক্রিয়া এবং এর আর্থিক সমস্যা নিয়ে, ইসিবি বর্তমানে জড়িয়ে পড়েছে জার্মান কনস্টিটিউশনাল কোর্টের সঙ্গে বচসায় এবং ব্রাসেলস মোটেও ব্রেক্সিট-সংক্রান্ত সমস্যার নিষ্পত্তি চায় না। এবং যুক্তরাজ্য, ইউরোপিয়ান থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া ছাড়াও ধারাবাহিকভাবে জিডিপি-র পতন ঘটছে, বেকারি বাড়ছে এবং বিদেশি বাণিজ্যে নেগেটিভ ব্যালান্স।
    এর ফলে, 65 শতাংশ বিশেষজ্ঞ আশা করছেন ব্রিটিস কারেন্সির আরও দুর্বলতা এবং 1.2000 দিগন্তে এর অবনমন। এই গুরুত্বপূর্ণ স্তরে ব্রেকআউটের ঘটনায়, জোড়াটি মার্চের লো-তে দ্রুত চলে যাবে : 1.1640 এবং 1.1450। H4 ও D1-এর ইন্ডিকেটররা বিয়ারিশ সেন্টিমেন্ট সমর্থন করেছেন, বিরল ঐক্য দেখিয়েছেন : 85 শতাশ অসিলেটর এবং 100 শতাংশ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরের রং লাল।
    বিপরীত মতামত দিয়েছেন 35 শতাংশ বিশ্লেষক, 15 শতাংশ অসিলেটর ইঙ্গিত দিয়েছেন যে জোড়াটি ওভারসোল্ড, এবং উভয় সময়পর্বে গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণ। তাঁদের মতে, 1.2165-1.2650 চ্যানেলের নীচের সীমার ব্রেকডাউন হয়, এবং জোড়াটি আশা করা হচ্ছে দ্রুত ফিরবে এই চ্যানেল 1.2245-1.2465-এর কেন্দ্রীয় অঞ্চলে এবং তারপর, সম্ভবত, ঊর্ধ্ব সীমায় উঠবে।

  • ইউএসডি/জেপিওয়াই। ইয়েন হিমায়িত, অপেক্ষা করছে বাণিজে্যর পরের রাউন্ডের জন্য এবং এখন চীন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক লড়াই জোরালো হচ্ছে। আমাদের এটা ভোলা উচিত নয় যে এর কোটও সমানভাবে প্রভাবিত হয়েছে বাজারের রিস্ক সেন্টিমেন্টের স্তর দ্বারা। এইসঙ্গে তেলের দামে 10-বছরের ইউএস ট্রেজারি বন্ড ও জাপানি অর্থনীতির ওপর নির্ভরতার সঙ্গে একটি আন্তঃসম্পর্ক আছে। এরকম পরিত্যক্ত উপাদানগুলি সম্ভব করতে পারেনি 107.00-এর অঞ্চলে কনসোলিডেশন জোনের ব্রেকথ্রুর সম্ভাব্য গতি চিহ্নিত করতে। এই মুহূর্তে, এই জোড়ার বিকাশের সমর্থকদের সামান্য সুবিধা (40%) রয়েছে, H4-এ 65 শতাংশ অসিলেটর সমর্থন করেছে, 20 শতাংশ বিশ্লেষক তাদের চোখ ঘুরিয়েছেন দক্ষিণে এবং আরও 40 শতাংশ পূর্বে।
    নিকটবর্তী সাপোর্ট স্তের হল 106.75, 106.00 এবং 105.00। রেজিস্ট্যান্স স্তর হল 107.45, 108.00, 108.50 এবং 109.35;
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। দেখা যাচ্ছে, মাইনিঙের জন্য রিওয়ার্ড এক ব্লক হ্রাস করেছে বিটকয়েন হাভিং 6.25 কয়েনে। কিছু মাইনার ইতিমধ্যে ব্যবসা ছেড়েছে অথবা ক্ষতি মেটাতে সম্পদ বিক্রি করছে। এমনকি হাভিঙের আগে, মাইনিং বিটিসি-র জন্য বেশকিছু যন্ত্রপাতি দিয়েছে ন্যূনতম লাভ, এবং এখন এটা হয়ে উঠেছে সম্পূর্ণত অলাভজনক। এটা এমন দেখাচ্ছে যে মাইনিং মার্কেটে আরও মনোপোলাইজেশনের দিকে, যা ক্রিপ্টোকারেন্সি বিকেন্দ্রীকরণের ভাবনার বিপরীত। যদিও অনেক বিশেষজ্ঞের আশা যে কোভিড-19 যে সংকট সৃষ্টি করেছে এবং সেন্ট্রাল ব্যাংক দ্বারা ফিয়াটের প্রিন্টিং প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সিকে ওপরে ঠেলা ছাড়া আর কিছু করেনি।
    গ্যালাক্সি ডিজিটাল ক্রিপ্টো ট্রেডিং ব্যাংকের প্রধান বিলিয়নিয়ার মাইক নোভোগ্রাটজ বলেছেন, ‘বিটকয়েনের হাভিঙে বেঁচে থাকার ক্ষমতা ছিল যা চার বছর ধরে আশা করা হয়েছে, এবং এখন এটা নতুন সীমা গ্রহণে তৈরি।’ তাঁর মতে, প্রধান কয়েন ডিসম্বরের মধ্যে পৌঁছবে 20000  ডলার স্তরে এবং তারপর পুরো সম্ভাবনা রয়েছে এই সম্পদ এর চূড়ান্ত সর্বোচ্চ আপডেট করবে।
    নোভোগ্র্যাটজের সঙ্গে বিশেষজ্ঞদের অনেক আশাবাদী রয়েছেন যাঁরা মনে করেন বিটকয়েনে মাঝারি মেয়াদে উন্নতি ঘটবে। সুতরাং, স্ট্যাক-এ রিসার্চের প্রধান লিওনার্ড নিও-র মতে, বিটিসি আরোহণ শুরু হবে মোটামুটি হাভিঙের 6-9 মাস পর। প্রতমে, মাইনারদের নতুন ওয়ার্কিং কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে হবে, তারপর বিটকয়েন পূর্ণ বিকশিত হবে। ‘বিশ্ব অর্থনীতির আরও আরোহণ হয়তো এর ঊর্ধ্বগতিকে ত্বরান্বিত করবে’, বিশেষজ্ঞকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছে সিএনবিসি।
    নিকট ভবিষ্যতে, বিটিসি/মার্কিন ডলারের 1 নম্বর কাজ হবে 10000 ডলার উচ্চতা অতিক্রম করা, বিটকয়েন অবশ্যই শুধু এই লাইন গ্রহণ করবে না, বরং এইসঙ্গে এর উপরে একটি পদক্ষেপ অর্জন করবে আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে। একমাত্র এই ক্ষেত্রে আমরা এই জোড়ার আরও দ্রুত বিকাশ আশা করতে পারি। বিশ্লেষকদের 60 শতাংশ সম্মত হয়েছেন যে এটি মে-জুনে 10,500-11,000  ডলার স্তরে উঠতে সক্ষম হবে। বাকি 40 শতাংশ আশা করছেন এই জোড়া তাৎপর্যপূর্ণভাবে নীচে থাকবে 8,000-9,000  ডলার অঞ্চলে। এবং এখানে মনে রাখতে হবে যে বেশকিছু বিশেষজ্ঞ একসঙ্গে অ্যাপোকালিপটিক পেইন্টিং এঁকেছেন, বলেছেন যে প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সির ব্যর্থতা হবে মোটামুটি 6,500 ডলার স্তরে।

 

নর্ডএফএক্স অ্যানালিটিক্যাল গ্রুপ

 

বিজ্ঞপ্তি : এসব তথ্য আর্থিক বাজারে কাজের জন্য বিনিয়োগ বা পরামর্শ হিসেবে কোনো সুপারিশ নয় : এগুলি একমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং এর ফলে ডিপোজিটকৃত ফান্ডের পরিপূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)