মার্চ 28, 2020

প্রথমে, গত সপ্তাহের ঘটনাগুলোর একটা পর্যালোচনা:

  • EUR/USD। সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে এই জুটির উত্থানকে কিছুটা অ্যাক্রোব্যাটিক্সের সঙ্গে তুলনা করা যেতে পারে: প্রথমে, একেবারে খাঁড়া উত্থান 630 পয়েন্টের, তারপর শীর্ষবিন্দু 860 পয়েন্টে পৌঁছানো এবং এখন একপ্রস্থ লাফ 445 পয়েন্টের।
    ডলারের খাঁড়া পতনের পিছনে একাধিক কারণ রয়েছে। এর মধ্যে প্রধান কারণটা হল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফেডেরাল রিজার্ভের নেওয়া পদক্ষেপগুলি, যারা সুদের হারকে 0.25%-এ নামিয়ে নিয়ে এসেছিল এবং মার্কিন অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার জন্য একাধিক কর্মসূচি গ্রহণ করেছিল, বহু বিলিয়ন ডলার অর্থনীতিতে ঢেলে এবং দেশের নাগরিকদের মধ্যে অর্থ বিতরণ করে। ফলস্বরূপ, ফেডেরাল রিজার্ভের ব্যালেন্স শিট 4.5 ট্রিলিয়ন ডলার পার করে গেছে, এবং অর্থনীতিবিদদের হিসেব অনুযায়ী, তা 6 ট্রিলিয়নেও পৌঁছে যেতে পারে। ফলত, মার্কিন শেয়ারসূচকগুলি ঊর্ধ্বমুখী হয়, S&P500 এক লাফে 20% অবধি ওঠে, যা EUR/USD জুটিকেও সঙ্গে টেনে তোলে: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বের দ্বারা নেওয়া পদক্ষেপগুলিতে বিনিয়োকারীরা ইতিবাচকভাবে সারা দেয় এবং ডলারকে একটি নিরাপদ সম্পদ হিসেবে ভাবা সরে আসে, বর্তমান সময়ে আরও আকর্ষক সম্পদগুলিকে পছন্দের তালিকায় নিয়ে আসে।
    করোনা ভাইরসা সংক্রান্ত ECB-র সিদ্ধান্তও ইউরোপের অর্থনীতির জন্য সহায়ক হয়। অতীতে, কোয়ান্টিটেটিভ ইজিং (QE) কর্মসূচির অধীনে ECB দেশের সরকারি ঋণের এক-তৃতীয়াংশের বেশি কিনতে কিনতে পারত না, কিন্তু এখন ব্যাংক সেই সীমা তুলে দিয়েছে, যার একটা ইতিবাচক প্রভাব ইউরোবন্ডগুলিতে পড়েছে এবং ইউরোর বৃদ্ধিতে যোগদান দিয়েছে।
    এটি লক্ষ্য করতে হবে যে, বিশেষজ্ঞদের 60% প্রত্যাশা করেছিলেন এই জুটি এক মাসের মধ্যেই 1.1000-1.1240-এর অঞ্চলে ফিরে যাবে, এবং 75% প্রত্যাশা করেছিলেন তা ত্রৈমাসিকের মধ্যে ঘটবে। কিন্তু, কাজে যেমনটা দেখা গেল, COVID-19 অতিমারি একা অনুঘটক বা চালকের মতো কাজ করল, বাজারপ্রক্রিয়াকে বারংবার গতি প্রদান করে। তাই, এইবার সেটা ঘটল: এই জুটি সেই লক্ষ্যে ত্রৈমাসিকে নয়, এমনকি মাসেও নয়, বরং মাত্র পাঁচদিনেই পৌঁছে গেল, গত শুক্রবার, 27সে মার্চ, অন্তিম বিন্দু 1.1140-এ নিয়ে এসে;
  • GBP/USD মাইক্রোইকোনমিক সূচকগুলি যেমন ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের সূচক (PMI) UK-এর অর্থনীতিক সংকুচিত হওয়ার একটা ইঙ্গিত দিয়েছিল, যাকে আটকাতে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড দু’-দু’বার সুদের হার কমিয়েছে এবং গত দু’মাসে বন্ড কেনার পরিমাণ £200 বিলিয়ন বাড়িয়ে দিয়েছে। তবে, শেষ বৈঠকে, নিয়ামক সংস্থাগুলির অধিকর্তাগণ সুদের হার আর কমানো এবং তা 0.1%-এ রেখে দেবার ব্যাপারে একযোগে মত দিয়েছেন। সেই সঙ্গে বন্ড কেনার পরিমাণ অপরিবর্তিত, £645 বিলিয়নের স্তরে, রাখার ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এর থেকে এই ইঙ্গিত মেলে যে, এই পর্যায় অবধি যা যা ব্যবস্থা গৃহীত হয়েছে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড তাকে সমর্থন করছে।
    UK-এর অর্থনীতির উপর করোনা ভাইরাসের প্রভাব আরও স্পষ্ট হবে যখন আমরা 2020-র প্রথম ত্রৈমাসিকের ফল জানতে পারব। এখনও অবধি, এখানকার পরিস্থিতি EU ও US-এর থেকে কিছুটা ভালই দেখাচ্ছে। বন্ডকে অলবম্বন এখন এই দেশের সরকারের নিজেদের মুদ্রা ছাপাবার ক্ষমতাও দিচ্ছে, যখন তাদের এ জন্য আর EU-এর কোন চুক্তি মানতে হচ্ছে না।
    গত সপ্তাহে GBP/USD জুটির লাফিয়ে উপরে ওঠার ঘটনা EUR/USD-র বৃদ্ধির চেয়েও অনেক বেশি চমকপ্রদ ছিল: ব্রিটিশ পাউন্ড ডলারের থেকে 830 পয়েন্টেরও বেশি ছিনিয়ে নেয়। মনে করে দেখুন যে, গত 20শে মার্চ তারিখে এটা তার 230 (!) বছরের সর্বনিম্ন মূল্যে পড়ে গেছিল, এবং 70% থেকে 80% বিশ্লেষক মনে করেছিলেন এই যুদ্ধ শেষ হলে পাউন্ড আগামি এপ্রিল-মে মাসে 1.2725-1.3025-এর অঞ্চলে ফিরে যাবে। এখনও অবধি এই পূর্বাভাস যুক্তিগ্রাহ্য: এই জুটি তাদের জন্য নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রার দিকেই তাদের পাঁচ-দিনের সময়কাল পার করেছে, 1.2470-এর স্তরে;
  • USD/JPY মার্চের শেষটা জাপানি মুদ্রার জন্য ভাল প্রতিপন্ন হল, যার দর, স্বাভাবিকভাবেই, বিনিয়োগকারীদের ঝুঁকির খিদের উপর, তেলের দামের উপর এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি বন্ডগুলির লাভের উপর নির্ভর করে।
    সেই পূর্বাভাস, যাকে বেশিরভাগ বিশেষজ্ঞ সমর্থন করেছিলেন, 100% না হলেও 99%-ই সত্যি প্রতিপন্ন হয়েছে। সেই পূর্বাভাস অনুযায়ী, এই জুটির দক্ষিণমুখে যাওয়ার কথা এবং 107.00-107.70-এর অঞ্চলের দিকে এগোন উচিৎ। বস্তুত সেটাই ঘটেছে: 111.60-এর প্রতিরোধ ভাঙ্গার একাধিক চেষ্টার পর, ঊর্ধ্বগতি (বুল) হাল ছেড়ে দেয়, এবং নিম্নগতি (বিয়ার) অত্যন্ত দ্রুত এই জুটিকে 385 পয়েন্ট নামিয়ে আনে – 107.75-এর স্তর অবধি, যার কাছাকাছি – 107.95-এর স্তরে – এটি তার কারবারি সময়কাল শেষ করে;
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। আগের পূরাবভাসে আমরা পরামর্শ দিয়েছিলাম যে, ডলারকে নিয়ে তৈরি প্রধান প্রধান জুটিগুলির পূর্বাভাসের ক্ষেত্রে বিটকয়েনের দরকে মুখ্য সূচক হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। তার প্রধান ভাবনা ছিল এই যে, আর্থিক ঝঞ্ঝা চলাকালীন ক্রিপ্টোবাজারের নিদ্রাবস্থা প্রবণতা বদলের ব্যাপারে বা EUR/USD জুটির দরে সংশোধনের ব্যাপারে অগ্রণী ভূমিকা নিতে পারে। ধ্বনিত তত্ত্ব অনুযায়ী, অন্যান্য বাজারগুলিতে নিরন্তর চলতে থাকা অস্থিরতার পরিস্থিতিতে BTC/USD জুটির অনুভূমিক অবস্থানে চলে আসার ঘটনা এই ইঙ্গিত দিতে পারে যে, ডলার তার সংকটপূর্ণ মূল্যে চলে এসেছে, এবং ফাটকা কারবারিদের বৃহত্তর অংশের ধারণা নেই কী করা উচিৎ, BTC বিক্রি করে ডলার সম্পদ বাড়িয়ে নেবে, নাকি তার উল্টোটা করবে, মানে, তাকে ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বদলে নেবে।
    নিঃসন্দেহে এটা একটা তত্ত্বই, বহু বিরুদ্ধ মত সমেত, কিন্তু গত সপ্তাহে এটা নিশ্চিত হয়েছে: চার্টে ক্রিপ্টোবাজারের অনুভূমিক অবস্থান দেখা গেছে এবং EUR/USD-এর জন্য প্রবণতা ঘুরে যাবার স্পষ্ট পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।
    গত সাত দিনের মধ্যে বিটকয়েনের দাম 9%-এর কম, রিপল (XRP/USD) – 10%-এর কম, লিটকয়েন (LTC/USD) – 3%-এর কম এবং ইথিরিয়াম (ETH/USD) 1%-এরও কম বেড়েছে।
    যাহোক, ইথিরিয়ামের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ভিতালিক বুতেরিন সম্প্রতি আগামি 5-10 বছরের মধ্যে ETH-এর উন্নতির একটি পথনির্দেশ উপস্থিত করেছেন। সেই সঙ্গে, তিনি ইথিরিয়াম ও অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলির মধ্যে একটি বিকেন্দ্রীকৃত সেতু তৈরির জন্য ও BTC ও ETH বিনিয়ের জন্য একটি “বাস্তবিক” বিকেন্দ্রীকৃত বিনিময়কেন্দ্র (DEX) নির্মাণের ব্যাপারেও আহ্বান জানিয়েছেন। তবে, ইথিরিয়ামের দরগুলিকে বিশ্লেষণ করে বলা যায়, তার এই ধারণা এখনও বিনিয়োগকারীদের হৃদয় ও পকেট অবধি পৌঁছাতে পারেনি।

 

আগামি সপ্তাহের পূর্বাভাসের ক্ষেত্রে, একাধিক বিশেষজ্ঞদের মতামতগুলোকে, ও সেই সঙ্গে প্রযুক্তিগত ও গ্রাফিক্সভিত্তিক বিশ্লেষণের বহুবিধ পদ্ধতির ভিত্তিতে করা পূর্বাভাসগুলোকে একত্রিত করে, আমরা নিম্নোক্ত কথাগুলো বলতে পারি:

  • EUR/USD গত দু’সপ্তাহের লোকসানের 50% পুনরুদ্ধার করার পর, এই জুটি কালক্রমে তাদের পিভোট পয়েন্ট 1.1100-র অঞ্চলে ফিরে যায়, যার আশেপাশে এই জুটি অনেক মাস ধরেই ঘোরাফেরা করছে, সেই 2019-এর জুলাই মাসের শেষের দিক থেকেই। এর থেকে এই ইঙ্গিত মেলে যে, করোনা ভাইরাস এবং তার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেমে পড়া সরকারগুলির থেকে আর কী কী প্রত্যাশিত সে ব্যাপারে বাজার অবগত নয়।
    অন্যদিকে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আমরা বরফধ্বসের মতো করে রোগের প্রকোপ বাড়তে দেখতে পারি, এবং রাষ্ট্রপতি ট্রাম্প ও তার প্রশাসনের সেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণেরই শুধু নয় তা সত্যিই শোধরানো শক্তি ও সক্ষমতা থাকবে কিনা সে ব্যাপারটা অজানা। উল্লেখযোগ্য যে পরিমাণ টাকা ফেডেরাল রিজার্ভ দেশের অর্থনীতিতে ঢালছে তার প্রায় সবটাই বেকারদের সুযোগ-সুবিধা দিতে এবং সেই সব লোকেদের এককালীন অর্থসাহায্য দিতে চলে যাচ্ছে যারা... পৃথক হয়ে রয়েছেন এবং তা খরচ করতে পারছেন না। ফলত, এই টাকা অদূর ভবিষৎ অবধি অর্থনীতির প্রকৃত ক্ষেত্রগুলিতে পৌঁছাবে না। মার্কিন ট্রেজারি সচিব স্টিভেন নুচিন কিছুটা আশার বাণী শুনিয়েছেন এই বলে যে, বর্তমান পরিস্থিতিটাকে এখনও আর্থিক সংকটের নাম দেওয়া যায় না। তবে, ফেডেরাল রিজার্ভের প্রধান জেরোম পাওয়েল ইতিমধ্যেই এই বিষয়ে সহমত পোষণ করেছেন যে, মার্কিন অর্থনীতি “হয়ত অনেকটাই মন্দার কবলে চলে গেছে”, এবং অবস্থাটা এখন পুরোপুরি ভাইরাস-চালিত। আর এটা সম্ভব যে, একটা তীব্র মন্দা একটা সময় গিয়ে অর্থনৈতিক হতোদ্যমতার মধ্যে পড়তে পারে।
    অন্যদিকে, ইউরোপের পরিস্থিতিও ভাল নয়। গত 26শে মার্চ, বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হওয়া EU সম্মেলনকে কিছু বিশ্লেষক "নিতান্তই ভয়ানক” বলে বর্ণনা করেছেন। বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিরা একটি সাধারণ মতৈক্যে পৌঁছাতে পারেননি, ইউরোপীয়দের "করোনা-বন্ধন” নামক ধারণাটি কবরস্থ হয়েছে (অন্তত কিছু সময়ের জন্য তো বটেই), এবং ইউরো অঞ্চলে স্থিতিশীলতা বজায় রাখার ব্যাপারে ECB-কে বেশ বেগ পেতে হচ্ছে। একাধিক বিশেষজ্ঞের মতে, EU-এর সদস্য দেশগুলির মধ্যে এই ধরনের অনৈক্য ইউরোপীয় মুদ্রার শক্তিশালী হওয়ার সুযোগকে সাংঘাতিকভাবে সীমাবদ্ধ করে দেবে।
    এই মুহূর্তে, গ্রাফিক্স সহযোগে করা বিশ্লেষণগুলি উত্তর অভিমুখী, সূচকগুলিরও বেশিরভাগই ওই দিকেই মুখ ফিরিয়ে রয়েছে, এবং H4 ও D1-এর উপরের অসিলেটরগুলির মাত্র 15% EUR/USD জুটির মাত্রাতিরিক্ত বিক্রির সংকেত দিচ্ছে।
    বিশেষজ্ঞদের মধ্যে, বেশিরভাগই (60%) এই জুটির বৃদ্ধি জারি থাকার ব্যাপারে মত দিয়েছে, যেখানে বাকি 40% এর পতনের পক্ষে মত দিয়েছেন। প্রতিরোধের স্তরগুলি হল (বর্তমান অস্থিরতাকে বিবেচনার রেখে) 1.1240, 1.1365 এবং 1.1500, অবলম্বনের স্তরগুলি হল 1.1000, 1.0850, 1.0775 এবং 1.0635। বেশ, দুটো সম্ভাব্য অর্জনযোগ্য নয় এমন লক্ষ্য রয়েছে (যদিও, এই মুহূর্তে, সবই সম্ভব): ঊর্ধ্বমুখীতা (বুলিশ) – 1.1800, নিম্নমুখীতা (বিয়ারিশ) – 1.0550।
    মাইক্রোইকোনমিক সূচকগুলি প্রকাশের প্রসঙ্গে বলি, জার্মানির ও সামগ্রিকভাবে ইউরোজোনের বেকারিত্ব ও উপভোক্তা বাজার সংক্রান্ত ডেটা সোমবার, 30শে মার্চ ও মঙ্গলবার, 31শে মার্চ হাতে আসবে। আর সপ্তাহের দ্বিতীয় অর্ধে মার্কিন শ্রমবাজারের মহিরূহ পতনের গোটা চিত্রটা আমাদের হাতে এসে যাবে। বলতে দ্বিধা নেই যে, প্রায় সব ক্ষেত্রেই পূর্বাভাসগুলি একেবারেই হতাশাজনক। উদাহরণস্বরূপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কৃষিক্ষেত্রের (NFP) বাইরে তৈরি হওয়া কর্মসংস্থানের সংখ্যা ধনাত্মক 273K থেকে পড়ে ঋণাত্মক 123K-তে নেমে আসবে বলে মনে করা হচ্ছে;

  • GBP/USD ব্রিটিশ অর্থনীতির সম্ভাবনার মূল্যায়ন করে IHS Markit-এর প্রধান অর্থনীতিবিদ ক্রিস উইলিয়ামসন প্রায় সেটারই পুনরাবৃত্তি করেছেন যা জেরোম পাওয়েল মার্কিন নাগরিকদের ব্যাপারে যা বলেছিলন। "আধুনিক ইতিহাসের অভূতপূর্ব স্কেলে মন্দা শুরু হওয়ার বিষয়টি আরও সম্ভাবনাময় হয়ে উঠছে," – এটাই উইলিয়ামসনের ভবিষ্যদ্বাণী। আর UK-এর EU থেকে বেরিয়ে আসাও অর্থনীতির উপর ততটা বিরূপ প্রভাব ফেলেনি যতটা COVID-19 ফেলেছে।
    এই প্রসঙ্গে, মধ্যমেয়াদি পূর্বাভাস থাকা সত্ত্বেও, 60% বিশ্লেষক পরের সপ্তাহে প্রবণতা ঘুরে নিচের দিকে যাবে এবং পাউন্ডের পতনের একটা নতুন অধ্যায় শুরু হবে বলে মনে করছেন। আমরা যদি প্রযুক্তিগত বা ব্যবহারিক বিশ্লেষণের ব্যাপারে বলি, তাহলে H4 সময়কাঠামোয় সবুজের প্রাধান্য দেখব, কিন্তু অসিলেটরগুলির 20% ইতিমধ্যেই মাত্রাতিরিক্ত ক্রয়ের অঞ্চলে রয়েছে। D1-এর উপরের অসিলেটর ও প্রবণতার সূচকগুলির সংকেতগুলিকে বহুমুখী হিসেবে বর্ণনা করা যেতে পারে।
    উভয় সময়কাঠামোর গ্রাফিক্স সহযোগে করা বিশ্লেষণ নিম্নগতির পূর্বভাসকে সমর্থন করে, কিন্তু তারা ধরে নেয় যে এই জুটি খাঁড়াভাবে নিচের দিকে যাবার আগে কিছু সময়ের জন্য 1.2250-1.2600-এর পরিসরে থাকবে।
    প্রতিরোধের স্তরগুলি হল 1.2600, 1.2750, 1.3025, 1.3200 এবং 1.3515। অবলম্বনের স্তরগুলি হল 1.2250, 1.2200, 1.1800 এবং 1.1450।
  • USD/JPY। এই জুটি গত সপ্তাহে শক্তিশালী অবলম্বন/প্রতিরোধের স্তর 108.00-এর কাছাকাছি শেষ করেছিল এবং বেশিরভাগ বিশ্লেষক (60%), EUR/USD এবং GBP/USD-র ক্ষেত্রে, প্রবণতা ঘুরে যাবার ও পরবর্তীতে ডলারের শক্তিশালী হবার ব্যাপারে প্রত্যাশা করেছিলেন। সেটা যদি ঘটে, তাহলে এই জুটির কাছে এখনও বেশ কিছুটা সুযোগ আছে 111.60-112.00-র অঙ্ক পার করে যাবার এবং তার থেকেও 100 পয়েন্ট উপরে ওঠার। নিকটবর্তী মজবুত প্রতিরোধের অঞ্চল হল 109.70-110.00।
    বাকি 40% বিশেষজ্ঞ, যাদের H4-এর উপর গ্রাফিক্স সহযোগে করা বিশ্লেষণগুলিও সমর্থন করছে, নিম্নগতির পক্ষে মত দিয়েছেন। 106.70-107.25 এবং 104.70-105.00-এর অঞ্চলগুলিতে অবলম্বন রয়েছে, পরবর্তী লক্ষ্যগুলি হল 103.00 এবং 101.00, যা 09ই মার্চের সর্বনিম্ন স্তর;
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। ক্রিপ্টো ফিয়ার অ্যান্ড গ্রিড সূচক গত সপ্তাহ জুড়ে মাত্র 3 পয়েন্ট সরেছে, 9 থেকে 12-এ, এবং এখনও বাজারে প্রবল ভয় রয়েছে বলেই সূচিত করছে। একই সময়ে, গত মাস জুড়ে Baidu ও Google-এর মতো সার্চ ইঞ্জিনগুলোতে "Bitcoin” শব্দটা খোঁজার সংখ্যা ব্যাপকভাবে বেড়েছে, এবং বেশিরভাগ ব্যবহারকারীই ক্রিপ্টোকারেন্সি কেনার ব্যাপারে উৎসাহী। অতএব, গত এক মাস ধরে Baidu-তে খোঁজার সংখ্যাটা 138% বেড়েছে এবং Google-এ সেটা বেড়েছে 57%।
    স্বাভাবিকভাবেই, সমস্ত ধরনের ক্রিপ্টোগুরুরাই আলোচ্য ক্রিপ্টোকারেন্সির বৃদ্ধির ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন, বিশেষকরে, এখন যেহেতু তাদের সঙ্গে অত্যন্ত ক্ষমতাশালী একজন ব্যক্তির মিত্রতা তৈরি হয়েছে যার নাম COVID-19 করোনা ভাইরাস। তাই, খ্যাতনামা বিশ্লেষক জোসেফ ইয়ং মার্কিন অর্থব্যবস্থাকে চাঙ্গা করার জন্য ফেডেরাল রিজার্ভের নেওয়া পদক্ষেপগুলি যে বিটকয়েনের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে সে ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী। "ফেডেরাল রিজার্ভ বাজারে টাকা ঢাকার জন্য অফুরন্ত টাকা ছাপাচ্ছে — এটা বিটকয়েনের জন্য ভাল। শেষ অবধি ডলারের অবমূল্যায়ন কিন্তু বিটকয়েনের জন্য ভাল। স্বল্পমেয়াদি সম্ভাবনা এই ক্রিপ্টোকারেন্সির জন্য আশাব্যঞ্জক না হলেও, দীর্ঘমেয়াদি ভবিষ্যৎ কিন্তু বেশ উজ্জ্বল," তিনি বলেন।
    Galaxy Digital-এর প্রতিষ্ঠাতা মাইক নোভোগ্রাৎজও ইয়ংয়ের সাথে সহমত পোষণ করেছেন। তিনি এ ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী যে, করোনা ভাইরাসের কারণে তৈরি হওয়া বিশ্বব্যাপী আর্থিক সংকট বিটকয়েনের জন্য ভাল সময়। "আগামি কয়েক মাস ধরে বিটকয়েনে অস্থিরতা জারি থাকবে, কিন্তু তা তৈরির কারণ হল মাইক্রোপইকোনমিক প্রেক্ষাপট। এই বছরটা হবে এবং হওয়া উচিৎ BTC-র বছর," এই ধনকুবের বলেন।
    Genesis Mining-এর পরিচালন অধিকর্তা ফিলিপ স্ল্যাটারও এই বক্তব্যগুলিতে সুর মিলিয়েছেন। তিনি এ ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী যে, বর্তমান আর্থিক সংকটের উপর দাঁড়িয়ে ব্যাংক ব্যবস্থার ঝুঁকিগুলি থেকে সম্পদ হেজ করার একটি হাতিয়ার হিসেবে বিটকয়েনের জনপ্রিয়তা বাড়বে। "আর্থিক সংকটের বাড়বাড়ন্তকে যদি প্রতিরোধ করাও যায়, তাহলেও তাতে বিটকয়েনের উপর কোন বড়সড় প্রভাব পড়বে না। তবে, সত্যিকারের কোন বিরাট পতন যদি ঘটেই যায়, তাহলে ক্রিপ্টোকারেন্সির উপর আগ্রহ হু-হু করে চড়তে থাকবে। প্রাচীন অর্থনীতির উপর সন্দেহ যত বাড়বে, বিটকয়েনের উপর আগ্রহও ততই বাড়বে।" এই জনপ্রিয় ক্লাউড মাইনিংয়ের শীর্ষস্থানীয় ম্যানেজার এই মত ব্যক্ত করেছেন।
    নিকটতম পূর্বাভাসের ক্ষেত্রে, সুপরিচিত কারবারি টন ওয়েইস এ ব্যাপারে নিশ্চিত যে, বিটকয়েনের বর্তমান দর অনুসারে তার $3800-এর নিচে পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা হল 20-25%। যদি বিটকয়েন $6800-এর স্তর পার করে ফেলে তাহলে প্রথম এই ক্রিপ্টোকারেন্সিটির ওই স্তরে পড়ে যাবার সম্ভাবনা খুবই কম থাকবে - মাত্র 15%। "$6800-এর স্তর পার করে গেলে তা আমাকে এ ব্যাপারে 85% আত্মবিশ্বাস দেবে যে, আমরা ওই স্তরের নিচে পড়ে যাব না," ওয়েইস বলেছেন। সাধারণভাবে, 55% বিশেষজ্ঞ মনে করেন আগামি কয়েক সপ্তাহের মধ্যে BTC/USD জুটি $7,500-8,000-এর অঞ্চলে পৌঁছে যাবে। বাকি 45% বিশ্লেষক, তার বিপরীতে, এই জুটির পতনের পূর্বাভাস দিয়েছেন। তাদের মতে, BTC/USD আরও একবার তাদের $5,700-এর অবলম্বনকে পরখ করে দেখতে চাইবে, এবং তাতে যদি তারা সফল হয়, তাহলে তারা আবার $5,000-এর স্তরে উঠে আসবে।

 

NordFX বিশ্লেষণ গোষ্ঠী

 

দ্রষ্টব্য: এই বক্তব্যগুলিকে আর্থিক বাজারে কাজ করার জন্য বিনিয়োগের পরামর্শ বা পথনির্দেশ হিসেবে দেখা উচিৎ নয় এবং এগুলির উদ্দেশ্য হল শুধুমাত্র তথ্য পরিবেশন করা। আর্থিক বাজারগুলিতে কেনা-বেচা করা ঝুঁকিপূর্ণ কাজ এবং তা লগ্নীকৃত অর্থ পুরোপুরি হারানোর কারণ হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)