নভেম্বর 24, 2019

প্রথমে, গত সপ্তাহের ঘটনাগুলোর একটা পর্যালোচনা:

  • EUR/USD। মনে করে দেখুন আগের কয়েকটি পূর্বাভাসে যে অনিশ্চয়তার ব্যাপারে বলা হয়েছিল সম্প্রতি   তাই-ই বাজারকে গ্রাস করে রয়েছে। সেই সময়, বুল-এর সমর্থকদের দল বিয়ারদের থেকে মাত্র 10% ভারি ছিল। 55% বিশেষজ্ঞ ইউরোপীয় মুদ্রার বৃদ্ধির পক্ষে মত দিয়েছিল, আর বিরুদ্ধে ছিল 45%। যেন তারা শক্তিগুলির ভারসাম্য রক্ষার চেষ্টা করছিল, এই জুটি 11ই নভেম্বর, সোমবার, সামান্য ওঠে, 1.0900-র স্তরে পৌঁছে একটি পার্শ্বমুখী প্রবণতার দিকে চলে যায়। সেটা শুক্রবার অবধি সেখানেই ছিল, যখন, ইউরোপ থেকে দুর্বল পরিসংখ্যাগুলি (PMI) নতুন ECB প্রধান ক্রিস্টিন ল্যাগার্ডের দেওয়া ভাষণের কারণ, এর খাঁড়া পতন ঘটে। তবে, এটি 1.1000-র অবলম্বন ভেঙ্গে বেরোতে পারেনি এবং পাঁচ দিনের পর্যায়কাল 1.1020-এ শেষ করে।
    মিস ল্যাগার্ড বাজারে আরও ধোঁয়াশা ও অনিশ্চয়তা যোগ করেন, এই বলে যে, ইউরোপের নতুন অর্থনৈতিক সংশোধনের প্রয়োজন আছে এবং ইউরোপের নিয়ামকেরা শীঘ্রই তাদের নতুন পরিকল্পানার কথা জানাবে। কিন্তু সেই নতুন পরিকল্পনা কী হবে তা একেবারেই স্পষ্ট নয়, বিশেষ করে এই কথা মাথায় রেখে যে, ECB গভর্নিং কাউন্সিলে একটি আলোচনা হয়েছিল যাতে কোয়ান্টিটেটিভ ইজিং (QE)-এর উপর কোন ঐক্যমত্যে পৌঁছানো যায়নি;
  • GBP/USD। UK তাদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে, যার উপর Brexit ও দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি দুই-ই নির্ভর করছে। ইউরো-র ব্যাপারে এই মুহূর্তে কোন স্পষ্ট খবর নেই। অতএব, বুল এবং বিয়ার উভয়েই এই জুটিকে হয় নিচে নয় উপরে ঠেলতে পারে, যা অর্থনৈতিক খবরের বিষয়।
    গত সপ্তাহের ফলাফলগুলিকে একত্রিত করলে, সাফল্য বিয়ার-এর দিকেই ঝুঁকে থাকে। পরিষেবা ক্ষেত্রে প্রাথমিক PMI ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের সূচক 50.0-র নিচে চলে গিয়ে 48.6-এ পৌঁছে যাওয়ার খবরের সুযোগ নিয়ে, তারা তাদের জুটিকে 1.2822-এর স্তরে ঠেলে ফেলেছে। সপ্তাহের অন্তিম তারটা 1.2835-র স্তরে বাঁধা ছিল;
  • USD/JPY। যেমনটি আগেই উল্লেখিত হয়েছে, ইয়েন প্রায় গোটা শরৎকাল জুড়েই পড়েছে এবং এই জুটি উপরে উঠে চলেছে, চার ঘণ্টার সময়সীমায় MA200-র উপর ভরসা রেখেছে। এই সমর্থনকে ভাঙ্গার অন্তত চারটি প্রয়াস ব্যর্থ হয়েছে। আর পঞ্চম প্রচেষ্টা কেমনভাবে শেষ হবে, যেমনটি গত সপ্তাহে লিখেছিলাম, তা নির্ভর করছে মার্কিন ও চীনের মধ্যে বাণিজ্যচুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার সম্ভাবনার উপর। তবে, একাধিক আশাব্যঞ্জক মন্তব্য সত্ত্বেও, সুনির্দিষ্ট কোন ফল কিন্তু এখনও চোখে পড়ছে না। আমেরিকার মধ্যস্থতাকারীরা তৈরিই আছে বলে মনে হচ্ছে কিন্তু তারা চীনের তরফে এই আশ্বাস পাবার অপেক্ষায় রয়েছেন যে তারা মেধাস্বত্ব ও প্রযুক্তির সংরক্ষণে দায়বদ্ধতা দেখানো ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের থেকে কৃষিপণ্য ক্রয়ের ব্যাপারে প্রস্তুত থাকবে। চীন তা করবে কিনা বা করলেও কীভাবে করবে, এখন সেটাই প্রশ্ন। আর তাই গত সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়ে দায়িত্বগ্রহণ করা МА200-কে ভেঙ্গে বেরনোর পঞ্চম প্রয়াসও ব্যর্থ হয়। 108.27-এর স্তরে পতিত হয়ে, এই জুটি ঘুরে দাঁড়ায় এবং তার ওই সপ্তাহের নির্দিষ্ট গতিবিধির গড় কিছুটা উপরে রেখে শেষ করে, যা 108.63 ছিল;
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। প্রধান “পূর্বাভাস”-কে, যা অতিসম্প্রতি শোনা গেছে, মাত্র দুটি শব্দেই ব্যাখ্যা করা যেতে পারে: "সাবধানতা" এবং "হতাশা"। আমরা আশা করি যে, কারবারি ও বিনিয়োগকারীরা আমাদের প্রথম পরামর্শটি মেনে চলেছিলেন, কারণ দ্বিতীয়টা নিজেকে আবারও পুরোপুরি যুক্তিগ্রাহ্য করে তুলেছে: নিচের দিকে গত শুক্রবার, 22শে নভেম্বর তারিখে, বিটকয়েন প্রায় 20% মূল্য হারায়, $8,500 থেকে $6,820-এ পড়ে গিয়ে। ওই ধরনের নিম্নমুখী গতিবিধির (বিয়ারিশ ব়্যালি) কারণ হল, একাধিক বিশেষজ্ঞের মতে, সেই সমস্ত মাইনাররা যারা সক্রিয়ভাবে তাদের ক্রিপ্টো-সম্পদগুলিকে বেচতে শুরু করে দেয়। তাদের কয়েকজনের ভেসে থাকার ও কাজ করে যাবার জন্য শক্তির জোগানের দরকার ছিল এবং এবং বাকিরা বাজার ত্যাগ করতেই চেলেছিল।
    এই বিক্রির কারণের পিছনে আরেকটা কারণ ছিল চীনা সাংহাইয়ে থেকে ছড়িয়ে পড়া একটা গুজব যাতে বিটকয়েন ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জ-এ পুলিশ আসার খবর ছিল।
    শীর্ষস্থানীয় অল্টকয়েন, যেমন রিপল (XRP/USD), ইথিরিয়াম (ETH/USD) এবং লিটকয়েন (LTC/USD), নির্বিরোধে তাদের "বড় ভাই” বিটয়কেনের পদাঙ্ক অনুসরণ করে। ফলস্বরূপ, ক্রিপ্টোবাজারের মোট মুলধন 15.8% কমে, $239 বিলিয়ন থেকে $201 বিলিয়নে চলে আসে।

 

আগামি সপ্তাহের পূর্বাভাসের ক্ষেত্রে, একাধিক বিশ্লেষকদের মতামতগুলোকে, ও সেই সঙ্গে প্রযুক্তিগত ও গ্রাফিক্সভিত্তিক বিশ্লেষণের বহুবিধ পদ্ধতির ভিত্তিতে করা পূর্বাভাসগুলোকে একত্রিত করে, আমরা নিম্নোক্ত কথাগুলো বলতে পারি:

  • EUR/USD। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বেকারভাতার জন্য আবেদনের সংখ্যা আবার বেড়ে গেছে। চতুর্থ ত্রৈমাসিকে GDP বৃদ্ধির হার এমনকি এখনও অবধি 0.5%-ও নয়। এই সবকিছু মিলিয়ে বিনিয়োগকারীরা আমেরিকাতে মন্দার সূচনা দেখছে। আগামি সপ্তাহে আমরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে পরবর্তী মাইক্রোইকোনমিক সূচকগুলি প্রকাশিত হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছি, যা জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারীতে ফেডেরাল রিজার্ভ আরও এক প্রস্থ সুদের হার কমাবে কিনা সেই সম্ভাবনাগুলিকে নিশ্চিত বা বাতিল করবে। অধিকন্তু, সেই কমানো "চিরাচরিত" 0.25%-এ আটকে না-ও থাকতে পারে, বরং তার দ্বিগুণ, 0.5%-ও হতে পারে।
    নিশ্চিতভাবেই, এটি বহুলাংশেই চতুর্থ ত্রৈমাসিকের ও সেই সঙ্গে গোটা 2019-এর চূড়ান্ত ফলাফলগুলির উপর নির্ভর করছে। কিন্তু এটা ভুললে চলবে না যে, 2020 সালটা আমেরিকাতে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের সাল, এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতি নির্ভর করবে ট্রাম্প হোয়াইট হাউজে আরেকবারের জন্য থাকবেন কিনা তার উপর। এখনকার মতো, তার চাপে, ফেডেরাল রিজার্ভ সহজীকরণ নীতিটিকে (ইজিং পলিসি) ধাপে ধাপে বাস্তবায়িত করছে এবং অর্থনীতিতে ডলারের জোগান দিয়ে চলেছে। একই রকমের একটা পরিস্থিতি 2000 সালের গোড়ার দিকে ছিল। তারপর, সূদের হার কমিয়ে, ফেডেরাল রিজার্ভ উৎপাদন বাড়ানোর চেষ্টা করে, এবং তার ফলে বন্ধকী ঋণদানের ঘটনা বেড়ে যায়, যার বিস্ফোরণ ঘটে 2007-2008-এর মহাসংকটের জন্ম দেয়।
    এই মুহূর্তে, সূচকগুলির বেশিরভাগটাই লাল রং রাঙানো রয়েছে। কিন্তু উপরে উল্লেখিত সংকটের পরিস্থিতির ক্ষেত্রে, বিশেষজ্ঞরা এই জুটির 1.1000-র অবলম্বন ভেঙ্গে বেরনোর আশা করছে না। H4 এবং D1-এর উপরে গ্রাফিক্স সহযোগে করা বিশ্লেষণও এই ইঙ্গিত দিচ্ছে যে, তার একটি বা দুটি অসফ চেষ্টা হবে, এই জুটি ঘুরে দাঁড়াবে এবং উপরে উঠবে: প্রথমে 1.1090-র প্রতিরোধ অঞ্চলে এবং তারপর আরও উপরে, 1.1175-এর হরাইজনে।
    নিশ্চিতভাবেই, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে পরবর্তী দফার বাণিজ্যিক আলোচনার ফলাফল, যা বেইজিং 28শে নভেম্বরের, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থ্যাংক গিভিং-এর, আগেই করতে চাইছে, দরগুলিকে ভীষণভাবে প্রভাবিত করতে পারে। বিশ্লেষকদের মধ্যে 65% মনে করেন যে, এই বছরের শেষের দিকে এই বিষয়ে নির্দিষ্ট কিছু ঐক্যমত প্রতিষ্ঠিত হবে, যার পরিণাম হিসেবে ডলার উঠবে এবং EUR/USD জুটি 1.0800-1.0900-এর অঞ্চলে পতিত হবে;
  • GBP/USD। 12ই ডিসেম্বর UK-তে সংসদ নির্বাচন এবং Brexit নিলম্বিত হয়ে যাওয়ার অনুমান করে, এই জুটি পঞ্চম সপ্তাহের জন্য 1.2780-1.2980-র পার্শ্ববর্তী চ্যানেলে এগিয়ে চলেছে। প্রবণতার সূচকগুলি এবং D1 অসিলেটরগুলি নিরপেক্ষ ধূসর রংয়ে রাঙানো হয়েছে। বিশেষজ্ঞদের পূর্বাভাসগুলিকেও "ধূসর" (50% থেকে 50%) বলা যেতে পারে। আগামি 27শে নভেম্বর, বুধবারে মুদ্রাস্ফীতি সংক্রান্ত রিপোর্ট প্রকাশও এই জুটিকে এই চ্যানেলের বাইরে ঠেলে ফেলতে পারবে এমনটা সম্ভব নয়। আগামি সপ্তাহের পরিস্থিতি UK-র তুলনায় US-এর পরিস্থিতির উপরেই নির্ভর করবে। আর মার্কিন-চীন বাণিজ্যিক আলোচনার স্পষ্ট অগ্রগতি এই জুটিকে একটি মজবুত বিয়ারিং বা নিম্নমুখী ধাক্কা দিতে পারে, একে 1.2650-র অবলম্বন অঞ্চলে নামিয়ে এনে;
  • USD/JPY। ফেডেরাল রিজার্ভ বাজারে ডলারের জোগান দিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ব্যাংক অব জাপানও মুদ্রাস্ফীতি বাড়িয়ে উৎপাদন বাড়ানোর জন্য বহু বছর ধরে একই কাজ করে আসছে। একইসঙ্গে, ইয়েনের জন্য জাপানি নিয়ামকদের নির্ধারণ করে দেওয়া সুদের হারও ডলারের চেয়ে অনেকটাই কম। তাই আর্থিক ঝড়ঝাপটা সামাল দেবার জন্য বিনিয়োগকারীদের কাছে শুধুমাত্র জাপানি মুদ্রাই আকর্ষণের বিষয়। তবে, চার্ট মোতাবেক, গ্রীষ্মের শেষের দিক থেকে শুরু করে এখনও অবধি তেমন বড়-সড় কোন ঝড় লক্ষ্য করা যায়নি, এবং তাই ইয়েনের পতন ঘটছে, এবং এই দরের রেখা একনাগাড়ে উপরের দিকে উঠে চলেছে।
    আর এখন ইয়েন প্রতি ডলারের দরে 108.60-এর অঞ্চলে একটা স্থিতিশীলতা এসেছে। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের মধ্যে বাণিজ্যচুক্তি স্বাক্ষরের অগ্রগতির সাথে সাথে এই জুটি আরও উপরে উঠে 108.50-এর স্তরে চলে যাতে পারে। এই সেই গতি যা বেশিরভাগ বিশেষজ্ঞ (65%) অদূর ভবিষ্যতে প্রত্যাশা করছে।
    এটি খেয়াল রাখা উচিৎ যে, মধ্যমেয়াদে, এমনকি আরও বেশি বিশ্লেষক (70%) এই জুটির দক্ষিণ দিকে যাবার এবং 105.70-106.70-এর অঞ্চলে ফিরে আসার অপেক্ষায় রয়েছে। আর শেষ পর্যন্ত, এই প্রত্যাশা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক সূচকের অবনতি ও ফেডেরাল রিজার্ভ দ্বারা কোয়ান্টিটেটিভ ইজিং-এ আরও বৃদ্ধির সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত।

  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। এই পূর্বাভাস লেখার সময়, BTC/USD জুটি প্রায় ঠিক সেই জায়গাতেই রয়েছে যেখানে তারা এক মাস আগে ছিল, গত 25শে অক্টোবরের "স্থান" অপসারণের আগে। প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সির $10,500-এ পৌঁছানো এবং তারপর, তার সর্বোচ্চ বিন্দুতে 40% যোগ করার কথাগুলি মনে করে দেখুন, যার কারণ ছিল এই খবর যে, চীনা রাষ্ট্রপতি জি জিনপিং ব্লকচেইন-এর অগ্রগতিকে সমর্থন করেছিলেন।
    আপনারা যদি চার্টের দিকে তাকান, তাহলে এটি খুবই পরিষ্কার দেখতে পাবেন যে, 26শে জুন থেকে বিটকয়েন একটি নিম্নমুখী চ্যানেলের দিকে এগিয়ে চলেছে। আর সেই গতি যদি বজায় থাকে, তাহলে প্রথমে আমরা তার $7,300-র অঞ্চল বরবার একটি পার্শ্ববর্তী গতি দেখার এবং তারপর আরেকবার পতন, এবং এইবার $5,000-এ, দেখার প্রত্যাশা করতে পারি।
    বিনিয়োগকারীদের প্রধান আশা যেটা বিটকয়েনের বিনিময় দরকে অবলম্বন দিতে পারে তা হল 2020-তে এর অর্ধেক হয়ে যাওয়া। তাদের কয়েকজনের মতে, 2020-তে অর্ধেক হয়ে যাবার পর, এই ক্রিপ্টোকারেন্সির দর 4000% উপরে উঠতে পারে। তারা তাদের যুক্তি হিসেবে প্রধান ডিজিটাল সম্পদে তীক্ষ্ণ লাফের উদাহরণ দেখাচ্ছেন, যা গত দু’বার দর কমায় মাইনারদের পুরস্কার হিসেবে এসেছিল। প্রথমবার হ্রাসের পর এটি 3420% ওঠে। দ্বিতীয়বারের পর – 4080%।
    এই মুহূর্তে, বিটকয়েনের ক্রিপ্টো ফিয়ার অ্যান্ড গ্রিড ইন্ডেক্স নিচের দিকের লাল কোয়ার্টারে পড়ে গেছে এবং যা 23-এর সমান, যা “চূড়ান্ত ভয়”-কে নির্দেশ করে। সূচকগুলির সৃষ্টিকর্তাদের মতে, এই সূচকের মানে হল, বাজারে প্রবল ভয়ের আবহ রয়েছে, এবং এটি সম্ভব যে, বৃদ্ধি খুব দ্রুতই শুরু হবে। হাজার হোক, বড়-বড় যে সব ফাটকা কারবারিরা কয়েন কেনে, হ্রাসের ভরসায় করা কেনাবেচা কোন না কোন সময় অবশ্যই বৃদ্ধির কারণ ঘটায়। এটাই, বস্তুত, বাজারের যুক্তি।

 

রোমান বুটকো, NordFX

 

দ্রষ্টব্য: এই বিষয়বস্তুটিকে বিনিয়োগের সুপারিশ অথবা আর্থিক বাজারগুলিতে কাজ করার দিকনির্দেশ হিসেবে বিবেচনা করা উচিৎ হবে না: এগুলির উদ্দেশ্য শুধুমাত্র তথ্য সরবরাহ করা  আর্থিক বাজারগুলিতে কেনা-বেচা করা ঝুঁকিপূর্ণ কাজ এবং তা লগ্নীকৃত অর্থ পুরোপুরি হারানোর কারণ হতে পারে


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)