জুলাই 20, 2019

-প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলী পর্যালোচনা করা যাকঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। মনে করুন তো সংখ্যাগরিষ্ঠ বিশেষজ্ঞগণ (65%) ডলারের আবারও শক্তিশালী হবার আশা করেছিলেন এবং এই মুদ্রাজুড়ির 1.1150-1.1200-এর অঞ্চলে নেমে যাবার কথা ভেবেছিলেন। এবং এই জুড়ির পতন হয়ে 16-17ই জুলাইয়ের রাতে 1.1200-এর স্তরে পৌঁছিয়েছিল। তবে, মন্দাবাজারের শক্তি সেখানেই শেষ হয়ে গিয়েছিল এবং, দুইদিন পরে, তেজিবাজার এই মুদ্রাজুড়িকে সেখানেই পৌঁছে দিয়েছিল যেখানে এটি সোমবার, 15শে জুলাই থেকে শুরু করেছিল এবং 1.1285-এর স্তরে পৌঁছি গিয়েছিল। এইভাবে, পরপর দুই সপ্তাহ ধরে, এই মুদ্রাজুড়ি এক মোটামুটি সংকীর্ণ পার্শ্ব-চ্যানেলে রয়েছে যার ফলে এর ওঠানামা 1.1190 এবং 1.1285-এর সীমানায় সীমিত রয়েছে। এরকম এক আপাতঃ শান্তভাব (সম্ভবতঃ ঝড়ের পূর্বে) বিনিয়োগকারীদের গ্রীষ্ম অবকাশের কারণে নয়, কিন্তু বৃহস্পতিবার 25শে জুলাইয়ের ইসিবি (ECB) বৈঠক থেকে তাদের প্রত্যাশা ঘিরে হয়েছে, যেখানে ইউরোপীয়ান নিয়ন্ত্রক সুদের হার হ্রাস করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন;  
  • GBP/USD মুদ্রাজুড়ি। যদি আপনি D1 চার্টের দিকে তাকান, আপনি বলতে পারেন যে পাউণ্ডের গত সপ্তাহে আরেক প্রযুক্তিগত সংশোধন হয়েছে। এর কারণ হল ইউকে-র মজুরী এবং খুচরো বিক্রির বিষয়ে প্রকাশিত শক্তিশালী ডেটা। কিন্তু মোটামুটি, প্রত্যেক বিষয় সেইভাবেই অগ্রসর হচ্ছিল যেরকম সংখ্যাগরিষ্ঠ বিশেষজ্ঞগণ (60%) ভেবেছিলেন। মধ্য-মার্চ থেকে নিম্নগামী প্রবণতা থাকার কারণে, এই মুদ্রাজুড়ি প্রথমে আবারও 1.2440-এর সহায়ক স্তরে পৌঁছিয়েছিল, তারপরে, এটিকে অতিক্রম করে, 3রা জানুয়ারী, 2019-এর নিম্ন অবস্থান 1.2405-এর স্তরে পৌঁছিয়েছিল, যার পরে এটি আরো 25 পয়েন্ট খুঁইয়েছিল এবং 1.2380-এর তলদেশে নেমে গিয়ে ঘুরে দাড়িয়েছিল। সংশোধনের অংশ হিসাবে, এই মুদ্রাজুড়ি প্রায় 180 পয়েন্ট অর্জন করেছিল, এবং এই সপ্তাহে 1.2500-এর অঞ্চলে শেষ করেছিল;
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। সাধারণভাবে, এই মুদ্রাজুড়ির সক্রিয়তা বিশেষজ্ঞদের পূর্বাভাসের সাথে মিলে গিয়েছিল। তবে, যেমন আশা করা হয়েছিল, অনিশ্চয়তা তার থেকে সামান্য কম হয়েছিল। তাই, Dow Jones Industrial Average সূচকের শক্তিশালী বৃদ্ধির নিরিখে, এক-তৃতীয়াংশ বিশেষজ্ঞ অপেক্ষা করেছিলেন যে এই মুদ্রাজুড়ির সপ্তাহের শুরুতে 108.50-109.00-এর অঞ্চলে উত্থান হবে। তবে, এই তেজিবাজার কেবলমাত্র 108.37-এর উচ্চতায় উঠতে পেরেছিল। এর পরে, মন্দাবাজার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিল এবং, যেমনভাবে 70% বিশ্লেষক আশা করেছিলেন, এই মুদ্রাজুড়ি দক্ষিণদিশার দিকে চলতে শুরু করে জুন মাসের নিম্ন অবস্থানে 106.75-107.00 অঞ্চলের আশেপাশে পৌঁছিয়েছিল। কিন্তু এখানে লক্ষ্যমাত্রা থেকে মাত্র 20 পয়েন্ট দূরে গিয়ে থেমেছিল। এই পতন 107.20-এ এসে থেমেছিল। এর পরে আরেকটি বিপরীত প্রবণতা হয়েছিল, এবং এই মুদ্রাজুড়ি সপ্তাহের শেষে 107.70-এর কাছাকাছি অবস্থানে থেমে গিয়েছিল;
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। ইউএস কর্তৃপক্ষ আক্ষরিক অর্থে ফেসবুকের নিজস্ব ক্রিপ্টোমুদ্রা লিব্রা শুরু করার অভিপ্রায়ের বিরুদ্ধে সক্রিয় হয়েছে। এছাড়াও, হাউস অফ রিপ্রেজেনটেটিভের আর্থিক পরিষেবা কমিটি কেবলমাত্র যে ফেসবুকের ক্ষেত্রে নয়, 25 বিলিয়ন ডলারের বেশী বার্ষিক লাভসম্পন্ন এরকম অন্য যেকোন সংস্থা দ্বারা (উদাহরণস্বরূপ, গুগল) নিজস্ব ক্রিপ্টোমুদ্রার প্রবর্তনের শুরু নিষিদ্ধ করে একটি বিল পেশ করার প্রস্তুতি নিয়েছে। যদি ট্রাম্প এই আইনে স্বাক্ষর করেন, তাহলে এই আইন উল্লঘনকারীরা প্রতিদিন 1 মিলিয়ন ডলার করে জরিমানা দেবেন। এবং যদিও ফেসবুকের লিব্রা থেকে আয় এই পরিমাণ জরিমানার থেকে হয়তো বেশী হতে পারে, সংস্থা এই কর্তৃপক্ষের সাথে সম্পর্ক তিক্ততা না করতে চেয়ে প্রকল্পটি বাতিল করে দিতে পারে।
    এই পরিপ্রেক্ষিতে, Bitcoin-এর পতন হওয়া বজায় রয়েছে এবং চার-সপ্তাহের নিম্ন অবস্থান 9.080$-এর আশেপাশে পৌঁছিয়েছে। সত্যিই, তারপরে এটি সজোরে উর্ধ্বমুখী হয়ে ঘুরে গিয়েছিল, যার ফলে BTC/USD মুদ্রাজুড়ির ক্ষতির হ্রাস পেয়েছিল এবং সাত দিনে প্রায় 11% হ্রাসপ্রাপ্ত হয়েছিল।
    Ethereum (ETH/USD) এবং Ripple (XRP/USD)-ও নিম্নমুখী হয়েছিল। কিন্তু সপ্তাহের দ্বিতীয়ার্ধে Litecoin (LTC/USD) তার মূল অবস্থানে ফিরে আসতে সক্ষম হয়েছিলঃ বৎসরের অর্ধভাগ অর্থাৎ আগস্টের প্রাক্কালে, বিনিয়োগকারীরা দেখতে পেলেন যে এই বিকল্প মুদ্রার দর নীচের দিকে রয়েছে এবং এটির ক্রয় করা শুরু করেছেন।

 

-আসন্ন সপ্তাহের পূর্বাভাসের বিষয়ে, অনেক বিশ্লেষকদের মতামতের সাথে সাথে প্রাযুক্তিক ও রৈখিক বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে কৃত পূর্বাভাসগুলিকে সংক্ষিপ্ত করে আমরা নিম্মলিখিত বক্তব্য রাখছিঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। ইউএস ফেডারেল রিজার্ভ এবং ইসিবি দ্বারা সুদের হারের দ্রুত হ্রাসের আশা বাজারকে নিয়ন্ত্রণ করে চলছিল। যেমন বলা হয়েছিল, বাজার এটির সম্ভাবনা বাতিল করছে না যে ইউরোপীয়ান নিয়ন্ত্রক পরের বৃহস্পতিবার, 25শে জুলাইয়ে এটি ইতিমধ্যেই ঘোষণা করে দেবে। যদিও অনেক বিশেষজ্ঞ মনে করেন যে সেপ্টেম্বরের শেষ হওয়া পর্যন্ত এই দর একই স্তরে থাকবে, অর্থাৎ, শূন্য স্তরে। প্রথম ক্ষেত্রে, এই মুদ্রাজুড়ি দ্রুত নীচে নেমে যেতে পারে। দ্বিতীয় ক্ষেত্রে, দরের তীব্র ওঠানামা আশা করা হবে না। এছাড়াও, মন্দাগতির আর্থিক বৃদ্ধি থাকা সত্ত্বেও, ইউরোঅঞ্চলের অবস্থা ততটা খারাপ নয়ঃ উৎপাদনকারীদের মূল্যের এখনও বৃদ্ধি হচ্ছে, এবং জুনে কারেন্ট লেনদেন প্রায় অতিরিক্ত 30 বিলিয়ন ইউরো ছিল (এপ্রিলে 22.5 বিলিয়ন ইউরোর তুলনায়)। এবং এটি বাণিজ্য যুদ্ধ থাকা সত্ত্বেও!
    ইউএস এই পরিস্থিতিতে কি করবে সেটি দেখাই এখন আগ্রহের? রাষ্ট্রপতি তার ট্যুইটারে ক্রোধান্বিত হয়ে বলেছেন যে ইসিবি দ্বারা পরিমাণগত সহজায়ন নীতি (অধিক বণ্ড ক্রয় করা) এবং ডলারের তুলনায় ইউরোর মূল্যহ্রাস ইইউ-কে "অন্যায্যভাবে আরো সহজে আমেরিকার সাথে প্রতিদ্বন্দিতা করার জন্য" সহায়তা করবে। "ইউরোপ চীন এবং অন্যান্যদের সাথে বহু বছর ধরে এটি করে ছাড় পেয়ে আসছে!" - ট্রাম্পের লিখেছেন, যা ডলারের অবমূল্যায়ন এবং ফেড দ্বারা দর হ্রাসের বিষয়ে বিনিয়োগকারীদের প্রত্যাশাকে শক্তিশালী করেছে।
    ইউরো না ডলার – কোন অভিমুখে কাঁটা ঘুরছে? উত্তরের থেকে বেশী প্রশ্ন রয়েছে। এছাড়াও, ট্রাম্প যা বলছেন এবং লিখছেন ইউএস ট্রেজারী সচিব স্টীফেন ন্যুসিনের বিবৃতি তার সরাসরি বিপরীত। তাই, ফ্লান্সে অনুষ্ঠিত সাম্প্রতিক জি7 অর্থমন্ত্রীদের বৈঠকের পরে, ন্যুসিন সংবাদদাতাদের আশ্বস্ত করেছেন যে এই মুহূর্তে শক্তিশালী ডলার নীতির কোন পরিবর্তন হচ্ছে না।
    ইতিমধ্যে, অপ্রতিরোধ্য সংখ্যাধিক্যের বিশেষজ্ঞরা (75%!) আশা করেন যে এই মুদ্রাজুড়ি 1.1350-1.1415-এর উচ্চতায় উঠবে। নিকটমত প্রতিরোধক স্তর হল 1.1285।
    বাকি 25% বিশেষজ্ঞ এবং 90% দোদুল্যমান সূচক এবং D1-তে 100% প্রবণতা নির্দেশক দৃঢ়ভাবে এই পূর্বাভাসের সাথে দ্বিমত পোষণ করছে। তারা সবাই আশা করছে যে এই মুদ্রাজুড়ির বসন্তের নিম্ন অবস্থান 1.1100-1.1115-এর অঞ্চলে পতন হবে।
    যেসব ঘটনা স্বল্প-মেয়াদী প্রবণতার গঠনকে প্রভাবিত করতে পারে, অর্থাৎ এই সপ্তাহে সেসব নিম্নলিখিত ডেটা প্রকাশিত হবে তার প্রতি নজর রাখতে হবেঃ 23শে জুলাই – ইউরোঅঞ্চলের ব্যাংক ঋণপ্রদান অধ্যয়নের ফলাফল, 24শে জুলাই – জার্মানীর ব্যবসায়িক সূচক এবং ইউরোঅঞ্চলের সূচকসমূহ, এবং ইউএস জিডিপির বার্ষিক ডেটা, যা শুক্রবার, 26শে জুলাইয়ে প্রকাশিত হবে।
  • GBP/USD মুদ্রাজুড়ি। মঙ্গলবারে, ইউকে-র আর্থিক নীতি কমিটির বৈঠকের মিনিটস্ প্রকাশিত হবে। তবে, তুলনায় বরং আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ নথি প্রকাশের ঘটনা যা ঐদিন হতে চলেছে যা নজরে পড়ার সম্ভাবনা কমই রয়েছে। 23শে জুলাইয়ে, ভোট গণনার পরে ব্রিটিশ কনজার্ভেটিভ পার্টি নতুন প্রধানমন্ত্রীর নাম ঘোষণা করতে চলেছে। মনে রাখবেন যে এই পদের জন্য দুইজন প্রার্থী রয়েছেনঃ লল্ডনের প্রাক্তন মেয়র এবং প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী, বরিস জনসন, এবং বর্তমান বিদেশমন্ত্রী, জেরেমি হান্ট। এবং ব্রেক্সিটের ভাগ্য নির্ভর করবে তাদের মধ্যে কে ঐ পদের দায়িত্ব নেবেন - কিভাবে ইইউ পরিত্যাগের প্রক্রিয়া এগোবে, এটা কি সমাপ্ত হবে এবং হলে কি কি শর্তে।
    বেশীরভাগ বিশেষজ্ঞ (65%) আশা করছেন যে পাউণ্ড শক্তিশালী হবে এবং এই মুদ্রাজুড়ির 1.2650-1.2750-এর অঞ্চলে উত্থান হবে। নিকটতম প্রতিরোধক স্তর হল 1.2575। বাকি 35% বিশেষজ্ঞ বিশ্বাস করেন যে এটির উর্ধ্বমুখী হবার আগে, এই মুদ্রাজুড়ির 1.2380-1.2405-এর অঞ্চলে এখনও ফেরৎ যাওয়া উচিৎ হবে। D1-তে রৈখিক বিশ্লেষণ আরো কট্টরবাদী অবস্থানের ইঙ্গিত দিচ্ছে। এই পূর্বাভাস অনুযায়ী, এই মুদ্রাজুড়ি 1.2400-এর অঞ্চলে সহায়ক স্তর ভাঙ্গতে পারে এবং দুই সপ্তাহের মধ্যে আরো  200 পয়েন্টের পতন হতে পারে;
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। এই মুদ্রাজুড়ির জন্য D1-তে রৈখিক বিশ্লেষণ প্রথমে 106.75-108.35-এর পরিসরে একটি গমনাগমনের রেখচিত্র আঁকছে, এবং তারপরে 109.00-এর উচ্চতায় উঠছে। তবে, মাত্র 40% বিশেষজ্ঞ এই পূর্বাভাসের সাথে সহমত হয়েছেন, তাদের অভিমত সম্প্রতি প্রকাশিত বৃহৎ অর্থনীতির পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে তৈরী হয়েছে।
    মনে রাখবেন ব্যাংক অফ্ জাপানের উদ্দেশ্য হল মুদ্রাস্ফীতির হারকে 2% করা। তবে, এর সাফল্য কেবলমাত্র কল্পনাই করা যেতে পারে। জুন 2019-এ মুদ্রাস্ফীতি এক বছরের আগের মতই পুরোপুরি একই রয়েছে এবং মাত্র 0.7% রয়েছে। এরকম এক পরিস্থিতিতে, জাপানী নিয়ন্ত্রক সুদের হার কমানোর কথা চিন্তা করতে পারে, যেহেতু তাদের এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের সহযোগীরা যে্মন, অস্ট্রেলিয়া, ভারত, ইন্দোনেশিয়া এবং দক্ষিণ কোরিয়া ইতিমধ্যেই তা করেছে।
    বাকি 60% বিশ্লেষক বিশ্বাস করেন যে ব্যাংক অফ্ জাপান দ্বারা এরকম কোন ওঠানামার সম্ভাবনা কম। তাদের মতে, 31শে জুলাইয়ে ইউএস ফেডারেল রিজার্ভ বৈঠকে ডলার হার হ্রাসের সম্ভাবনা উল্লেখযোগ্যভাবে প্রবল রয়েছে। এই ক্ষেত্রে, এই মুদ্রাজুড়ি যে কেবলমাত্র 106.75-এর দিগন্তে পতন হতে পারে তাই নয়, কিন্তু এছাড়াও, এটিকে ভেঙ্গে দিয়ে, জানুয়ারী 2019-এর নিম্ন অবস্থান 105.00-এর অঞ্চলে পৌঁছাতে পারে। 90% দোদুল্যমান সূচক এবং D1-তে 100% নির্দেশক মন্দাবাজারের দিকে হেলে রয়েছে;

  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। শুক্রবার 19শে জুলাইয়ে, BTC/USD ক্রিপ্টোজুড়ি এক শক্তিশালী চার-সপ্তাহের সহায়ক স্তর 10,500$-এ (এবং বর্তমানে ইতিমধ্যেই প্রতিরোধক স্তরে) ছিল। এবং যদিও এই মুহূর্তে কোন নির্দিষ্ট মতামত গঠন করা অসম্ভব, এক অপ্রতিরোধ্য সংখ্যাগরিষ্ঠ বিশেষজ্ঞ (65%) এই ক্রিপ্টোজুড়ির উত্থানের পক্ষে সমর্থন জোগাচ্ছেন।
    এই ক্ষেত্রে, ফেসবুক, গুগল এবং অন্যান্য বৃহৎ সংস্থার নিজস্ব বিকল্প মুদ্রা প্রবর্তন করার সমস্যায় bitcoin-এর সুবিধা হতে পারে। লিব্রার মত না হয়ে, bitcoin হল একটি বিকেন্দ্রিত ক্রিপ্টোমুদ্রা, এবং তাই ইউএস  সরকার এর প্রকাশনা এবং নিয়ন্ত্রণের ব্যাপারে কাউকে দোষারোপ করতে পারবে না। এছাড়াও, ষড়যন্ত্রের তত্ত্ব আবারও ভেসে উঠেছে যে এই bitcoin-এর পৃষ্ঠপোষক ইউএস ট্রেজারী ছাড়া আর অন্য কেউ নয়, যে এই উল্লেখ্য ডিজিটাল পরিসম্পদের প্রতিদ্বন্দীদের অপসারণের জন্য যাকিছু সম্ভব সবই করবে।

 

-রোমান বাটকো, NordFX

 

-বিজ্ঞপ্তিঃ এই লেখনীগুলিকে আর্থিক বাজারে লেনদেন করার জন্য বিনিয়োগ বা নির্দেশিকার জন্য সুপারিশ হিসাবে গণ্য করা উচিত হবে নাঃ এগুলি শুধুমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং ঝুঁকিপূ্র্ণ এবং এতে গচ্ছিত অর্থের সম্পূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।  


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)