মার্চ 2, 2019

-প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলী পর্যালোচনা করা যাকঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। সপ্তাহের প্রথমার্ধে, ইউরোর এই কারণে বৃদ্ধি হচ্ছিল এই প্রত্যাশায় যে ইইউ থেকে ইউকে-র প্রস্থান অনির্দিষ্টকালের জন্য মুলতুবি থাকবে। এই মুদ্রাজুড়ি মাঝারি-মেয়াদের 1.1300-1.1500-এর পার্শ্ববর্তী চ্যানেলের কেন্দ্রীয় রেখার উপরে উঠেছিল। তবে, শীতের শেষ দিন, 28শে ফেব্রুয়ারীতে নিজস্ব বোঝাপড়া করেছিল যার ফলে ডলারের সমর্থকদের আশা জাগিয়েছিল। পূর্বাভাসের থেকে 2018 সালের ইউএস জিডিপির অনুমান অনেক বেশী হয়েছিল। শিকাগোতে ব্যবসায়িক কার্যকলাপের এক দৃঢ় সূচক ডলারের পক্ষে গিয়েছিল। এর ফলে, এই মুদ্রাজুড়ির পতন হয়েছিল, কিন্তু মন্দাবাজারের আনন্দ ক্ষণস্থায়ী হয়েছিল। এই আবেগ এতই দুর্বল ছিল যে এটি এমনকি 1.1300-এর সহায়ক স্তরের কাছাকাছি আসতে পারে নি। এবং 1লা মার্চে আইএসএম (ISM) বিজনেস অ্যাক্টিভিটি সূচক প্রকাশিত হবার পরে, যা পূর্বেকার দরের থেকে আরো খারাপ হয়েছিল, এবং পূর্বাভাসের থেকেও বেশী, তাই এই জুড়ি আবার উর্ধ্বগামী হয়েছিল। এর পরে তেজিবাজারের প্রতিরোধ ভাঙ্গার আরেকটি অসফল প্রচেষ্টা হয়েছিল, যার পরে এই মুদ্রাজুড়ি এই সপ্তাহটি 1.1365-তে শেষ করেছিল;
  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। তাই, ব্রিটিশ পার্লামেন্ট প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে-র ইইউ-এর সাথে কোন চুক্তি করা ছাড়াই ব্রেক্সিটের অস্বাভাবিকতার সাথে সাথে ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন থেকে দেশকে প্রত্যাহার মুলতুবির প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে ভোটের প্রস্তাবে রাজি হয়েছে। অনুগ্রহ করে মনে রাখবেনঃ এটি ব্রেক্সিটের তারিখের মুলতুবি নয়, কিন্তু তা হল কেবলমাত্র এই বিষয়টিকে ভোটে দেওয়া। কিন্তু এটাই পাউণ্ডের 300 পয়েন্ট বৃদ্ধির জন্য এবং সপ্তাহের মাঝামাঝি 1.3350-এর উচ্চতায় পৌঁছানোর জন্য পর্যাপ্ত ছিল আর তারপরে ইউরোর ক্ষেত্রে যেমন হয়েছিলঃ ডলারের অবস্থানের কিছুটা পুনরুদ্ধার হয়েছিল, তারপরে শুক্রবারে ইউএস থেকে দুঃখের খবর এসেছিল, এবং এর ফলে এই মুদ্রাজুড়ি এই সপ্তাহটি 1.3200-এর স্তরে শেষ করেছিল;      
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। গত সপ্তাহে জাপানী মুদ্রার দর দুটি অপ্রীতিকর কারণে প্রভাবিত হয়েছিল। প্রথমে, এটি হল বিনিয়োগকারীদের ঝুঁকি নেওয়ার প্রতি ক্রমাগত ক্ষিধে এবং উন্নয়নশীল অর্থনীতির দেশে মূলধন সরানো। দ্বিতীয় ধাক্কা ছিল বৃদ্ধির, বৃহস্পতিবারে প্রকাশিত ইতিবাচক পরিসংখ্যানের কারণে, ইউএস ট্রেজারী বণ্ডে আয়।
    মনে করুন তো গত সপ্তাহে 70% বিশেষজ্ঞ ইয়েনের আরো পতনের এবং এই মুদ্রাজুড়ির 111.50-112.50-এর স্তরে পৌঁছানোর পক্ষে পূর্বাভাস করেছিলেন। এই কারণগুলির জন্য, এই পূর্বাভাস সঠিক বলে প্রতিপন্ন হয়েছিল, এবং এই মুদ্রাজুড়ি এই সপ্তাহটিতে 112.07-এর উচ্চতার রেকর্ড করেছিল, যার পরে এটি 111.90-এ পাঁচ দিনের সপ্তাহটি শেষ করেছিল; 
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। এই বাজারে প্রায়শই যেমন হয়ে থাকে, সপ্তাহান্তিক অবকাশে দরের সর্বেোচ্চ উল্লম্ফন হয়ে থাকে, যার পরে কাজের দিনগুলিতে এই বাজারের পতন হয়ে শীতঘুমে ঘুমিয়ে থাকে। এইবারও তাই ঘটেছিল। শনিবার, 23শে ফেব্রুয়ারীতে 4,280$-এর উচ্চতায় উঠেছিল, যার পরে ধ্বসে গিয়ে 3,810$-এ নেমেছিল, এর পরে তির্যক গমনের দিকে গিয়েছিল, 4,000$-এর মূল দিগন্তের দিকে একবার এগিয়ে গিয়ে আর একবার সেখান থেকে পিছিয়ে গিয়ে। অন্যান্য শীর্ষ ক্রিপ্টোমুদ্রা, Ethereum, Litecoin, Ripple এবং অন্যান্যরা একই সক্রিয়তা দেখিয়েছিল। ঠিক একই সময়ে, LTC/USD এবং XRP/USD ক্রিপ্টোজুড়ি সাত দিনের লেনদেনের সপ্তাহটি প্রায় একই স্থানে শেষ করেছিল যেখান থেকে তারা শুরু করেছিল, আবারও একবার এই পূর্বাভাসকে নিশ্চিত করে যে সত্যিকারের কোন গুরুত্বপূর্ণ চালিকা নেই যারা পুরো ক্রিপ্টোবাজারে এক শক্তিশালী প্রবণতা  তৈরী করতে পারে।
    এই সপ্তাহে ক্রিপ্টোবাজারে মোট মূলধন বিনিয়োগের 7.8% পতন হয়েছিল, 141 বিলিয়ন ডলার থেকে 130 বিলিয়ন ডলারে নেমে গিয়েছিল।        

 

-আসন্ন সপ্তাহের পূর্বাভাসের বিষয়ে, অনেক বিশ্লেষকদের মতামতের সাথে সাথে প্রাযুক্তিক ও রৈখিক বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে কৃত পূর্বাভাসগুলিকে সংক্ষিপ্ত করে আমরা নিম্মলিখিত বক্তব্য রাখছিঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। পরিসংখ্যান দেখায় যে 2018 সালে ইউএস অর্থনীতি 2.9% বৃদ্ধি পেয়েছিল। রাষ্ট্রপতি ট্রাম্প প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যে সালে এর বৃদ্ধি চলতে থাকবে এবং 3.0%-এ পৌঁছানোর কথা বলেছেন। যুক্তি পরামর্শ দেয় যে এরকম পরিস্থিতিতে সক্রিয়ভাবে ডলার কেনার প্রয়োজন আছে। তবে, ট্রাম্পের মতের বিপরীতে, ফেড এক মন্দ অর্থনীতির পূর্বাভাস করেছে এবং জিডিপি-র 2.3%-এ পতনের আশঙ্কা জাগিয়েছে। যদি আমরা এর সাথে ইউরোজোন অর্থনীতির 2019 সালের প্রতি ত্রৈমাসিকে 0.5%-এর এক স্থিতিশীল বৃদ্ধির বিষয়ে ইসিবি-এর আশ্বাস যোগ করি, এই পরিস্থিতি আর কোনভাবেই স্পষ্ট হয় না।
    বিশ্লেষকদের পূর্বাভাসগুলিকেও একই ধরণের অস্পষ্ট বলে মনে হচ্ছে, তাদের পূর্বাভাস একদম সমান দুভাগে বিভক্ত হয়ে গিয়েছে, 50% এই মুদ্রাজুড়ির বৃদ্ধির পক্ষে রয়েছেন, আর বাকি 50% পতনের পক্ষে। আর ঠিক সেই সময়ে, উভয়েরই মতানুসরে, এই মুদ্রাজুড়ির 1.1300-1.1500-এর সংকীর্ণ প্রান্তে অবস্থান করার সম্ভাবনা রয়েছে, যেখানে 2018 সালের অক্টোবর থেকে সরে যাচ্ছে। অবশ্যই একদম চরম অবস্থায় নির্গমনের কথা বাদ দেওয়া যাচ্ছে না, তবে এই ক্ষেত্রে দোদুল্যমান সূচকের পরিসর সামান্য বিস্তৃত হবে - 1.1215-1.1570।
    যদি আমরা সাপ্তাহিক থেকে মাঝারি-মেয়াদের পূর্বাভাসে ফিরে যাই, ইতিমধ্যেই ইউরোপীয়ান মুদ্রার সমর্থকরা গরিষ্ঠতা (65%) পেয়ে গিয়েছে, যারা এই মুদ্রাজুড়ির 1.1700-1.1800-এর অঞ্চলে বৃদ্ধির পূর্বাভাস করেছেন। এখন প্রাযুক্তিক বিশ্লেষণের বিষয়ে কয়েকটি কথা বলা যাক। 80%-এর বেশী নির্দেশক-এ সবুজ রং দেখাচ্ছে, কিন্তু ইতিমধ্যে D1-এ 15% দোদুল্যমান সূচক এই ইঙ্গিত দিচ্ছে যে এই মুদ্রাজুড়ির অধিক ক্রয় হয়েছে। রৈখিক বিশ্লেষণের কথা বলতে গেলে, এটি এই জুড়ির দৈনন্দিন সময়কালের মধ্যে 1.1215-1.1455-এর চ্যানেলে তরঙ্গের মত ওঠানামা অঙ্কন করছে।
    আসন্ন সপ্তাহের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাবলীর কথা বলতে গেলে বৃহস্পতিবার, 7ই মার্চের ইসিবি-র বৈঠকের প্রতি অবশ্যই মনোয়োগ রাখতে হবে, যার শেষে এটি বোধহয় সুস্পষ্ট হবে এই ব্যাংকের পরবর্তী চেয়ারপার্সন কে হবেন। এছাড়াও, ঐতিহ্যগতভাবে, বৃহস্পতিবারে ইউরোজোনের জিডিপি-র ডেটা এবং শুক্রবার, 8ই মার্চে ইউএস শ্রমবাজারের পরিসংখ্যান প্রকাশের উপর বাজারের ওঠানামা যুক্ত হবে।
  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। অবশ্যই, পাউণ্ডের বিষয়ে গত সপ্তাহের আশার ব্যঞ্জনা এক অস্থায়ী বিস্ময়কর ঘটনা ছিল। ব্রেক্সিটের সম্ভাবন্য মুলতুবি বিলম্বের বেশী আর কিছু নয়, এবং কোন সমাধান নয়। এবং এটি কেবলমাত্র মাসের মাঝামাঝি পরিস্কার হবে এটি আদৌ হবে কি না। 12ই মার্চে, এই চুক্তির উপরে দ্বিতীয়বার ভোট হবে, এবং যদি মিসেস মে আবারও ব্যর্থ হন, 13ই মার্চে প্রশ্ন উঠে আসবে যুক্তরাজ্য ইউ থেকে কোন চুক্তি ছাড়া বেরিয়ে আসতে পারে না। যদি পার্লামেন্ট এরকম কোন সিদ্ধান্ত নেয়, পরের দিনে আইনকর্তারা আলাপআলোচনা দেরী করার জন্য ভোট দিতে সমর্থ হবেন যার অর্থ হল ব্রেক্সিট পরের কোন এক সময়ের জন্য পিছিয়ে যাবে।
    কেউই জানে না ব্রেক্সিটের নিজের এবং এর মুলতুবী ব্রিটিশ যুক্তরাজ্যের অর্থনীতির উপরে কি প্রভাব ফেলবে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত, মন্দাবাজার সামান্য এগিয়ে রয়েছেঃ 60% বিশ্লেষক পূর্বাভাস করছেন যে এই মুদ্রাজুড়ির 1.3115-এর স্তরে পতন হবে, পরবর্তী সহায়ক স্তর হবে 1.2965  এবং 1.2830। বাকি 40% বিশ্লেষক বিশ্বাস করেন যে পাউণ্ডের 1.3200-এর সহায়ক স্তর থেকে ধাক্কা খেয়ে সরে আসবে এবং এর এখনও বৃদ্ধি পেতে পারে এবং 1.3315, 1.3470-এর স্তরে পৌঁছাতে পারে এবং মাঝারি-মেয়াদে 1.3615-এ পৌঁছাতে পারে; 
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। ক্রমবর্ধমান ঝুঁকির ক্ষিধে এবং তেলের মূল্যের কারণে গরিষ্ঠ সংখ্যায় বিশেষজ্ঞরা (65%) ইয়েনের আরো পতনের এবং এই মুদ্রাজুড়ির 112.25-113.25-এর স্তরে বৃদ্ধির পূর্বাভাস দিচ্ছেন। চূড়ান্ত লক্ষ্যমাত্রা হবে 114.20। D1-তে রৈখিক বিশ্লেষণও এই ঘটনাবলীর গতিপ্রকৃতির সাথে সহমত হয়েছে। তবে, ইতিমধ্যে প্রায় 20% দোদুল্যমান সূচক H4 এবং D1-তে ইঙ্গিত দিচ্ছে যে এই মুদ্রাজুড়ির অধিক বিক্রয় হয়েছে, যা হল এক মোটামুটি শক্তিশালী নিম্নগামী সংশোধনের পূর্বাভাস। তাই, মাসিক পূর্বাভাসের রূপান্তরে ইতিমধ্যে 70% বিশ্লেষক এই প্রবণতার বিপরীত দিকে এবং এই মুদ্রাজুড়ির 110.25-এ পতনের প্রতি সমর্থন দিচ্ছেন। পরবর্তী সহায়ক স্তর হবে 109.15; 

  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। সাধারণভাবে, ক্রিপ্টোবাজারের কিছুটা অবনমন হওয়া সত্ত্বেও এই অঞ্চলের খবরের পরিপ্রেক্ষিত প্রকৃতই ইতিবাচক বলে মনে হয়। প্রথম ইউএস ব্যাংক হিসাবে জেপিমরগ্যান তার নিজের ডিজিটাল মুদ্রার সূচনা করার পরে, প্রত্যেকেই ফেসবুক এবং টেলিগ্রাম থেকে একই ধরণের প্রকল্পের বিষয়ে অপেক্ষা করছে। এবং হোয়াটসঅ্যাপে ক্রিপ্টোমুদ্রার সূচনা বিশ্বের জনসংখ্যার প্রায় 35%-এর কাছে বিস্তৃত হবে। এরকম এক পরিস্থিতিতে, ক্রিপ্টো উৎসাহীরা পরবর্তী ডিজিটাল মুদ্রার উত্থানের পূর্বাভাস করছেন। তাই উদাহরণস্বরূপ, ব্লকচেইন জেস লাণ্ড-এর পক্ষে আইবিএম-এর উপরাষ্ট্রপতির কথা অনুসারে, উল্লেখ্য ক্রিপ্টোমুদ্রার দর 2019 সালের শেষে 5,000$ অতিক্রম করবে, এবং তারপরে এটি দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পেতে শুরু করবে এবং পরিশেষে 1 মিলিয়ন ডলারে পৌঁছাবে।
    এটি স্পষ্ট যে 1টি BTC-এর মূল্যে এক মিলিয়ন ডলারে যাওয়া কোন পূর্বাভাস নয়, কিন্তু নিছক স্বপ্ন। কিন্তু অদূর ভবিষ্যতের বিষয়ে, বেশীরভাগ বিশেষজ্ঞরা (65%) ইতিবাচক রয়েছেন, এটি বিবেচনা করে যে Bitcoin-এর দর নিশ্চিতভাবে 4,000$-এর স্তরের উপরে উঠবে এবং 4,300-4,600$-এর অঞ্চলে বৃদ্ধি পাবে। তবে, হতাশবাদীদের সংখ্যাও, আগের মতই, অনেক বড়, 35%। তাদের মতে, আমরা শীঘ্রই দেখব যে BTC-এর দর 3,200-3,500$-এর কাছাকাছি থাকবে।

 

-রোমান বাটকো, NordFX

 

-বিজ্ঞপ্তিঃ এই লেখনীগুলিকে আর্থিক বাজারে লেনদেন করার জন্য বিনিয়োগ বা নির্দেশিকার সুপারিশ হিসাবে গণ্য করা উচিত হবে নাঃ এগুলি শুধুমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং ঝুঁকিপূ্র্ণ এবং এতে গচ্ছিত অর্থের সম্পূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।  


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)