জানুয়ারী 12, 2019

-প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলী পর্যালোচনা করা যাকঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। বুধবার, 9ই জানুয়ারীতে বারংবার চেষ্টার পরে, এই মুদ্রাজুড়ি মধ্যবর্তী পার্শ্ব চ্যানেলের উর্ধ্বসীমা ভেঙ্গে ফেলতে সমর্থ হয়েছিল যেখানে এই জুড়ি নভেম্বর 2018-এর শুরু থেকে অবস্থিত ছিল। 1.1500-এর অঞ্চলে প্রতিরোধক স্তর অতিক্রম করার পরে, এই মুদ্রাজুড়ি 1.1570-এর উচ্চতায় উঠেছিল, যার পরে এদের এক বিপরীত প্রবণতা অনুসরণ করতে দেখা গিয়েছিল, এবং এই মুদ্রাজুড়ি আবারও একবার উপরোক্ত চ্যানেলের মধ্যে থাকতে সমর্থ হয়েছিল, এবং সপ্তাহটির শেষে 1.1470-এ স্থিত হয়েছিল।
    ডলারের দুর্বল হওয়া অনেকগুলি কারণের জন্য প্রভাবিত হয়েছিলঃ ইউএস সরকারের অপরিকল্পিত “ছুটির দিন“, ওয়াশিংটনে ইকনমিক ক্লাবের বৈঠকে ফেড সভাপতি জেরোম পাওয়েলের খুব সতর্ক, “কৌশলপূর্ণ“ বক্তব্য, যেখানে তিনি “ধৈর্য্য“ কথাটি পাঁচবার আউড়িয়ে ছিলেন। কিন্তু, অনেক বিশেষজ্ঞদের মতে, মূল বিষয়টি হল আমেরিকার সাথে প্রত্যাশিত বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষরিত হবার আগে চীনা ইয়ুয়ানের শক্তিশালী হওয়া;
  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। মনে করুন তো যে কেবলমাত্র 15% বিশ্লেষকরা গত সপ্তাহে তেজিবাজারের পক্ষে মত দিয়েছিলেন। কিন্তু তারা সঠিক ছিলেন। ডলারের জন্য অস্পষ্ট সম্ভাবনা ব্রেক্সিটের সাথে দুঃশ্চিন্তাকে ছাপিয়ে গিয়েছিল। শুক্রবার 11ই জানুয়ারীতে ইতিবাচক ইউকে জিডিপি ডেটা প্রকাশিত হওয়ার দ্বারা পাউণ্ড সমর্থিত হয়েছিল। এর ফলে এই মুদ্রাজুড়ি প্রায় 150 পয়েন্ট উপরে উঠে 1.2865-এর উচ্চতায় উঠেছিল, যার পরে সামান্য ঘুরে গিয়েছিল, এবং এদের দর নেমে গিয়ে 1.2840-এর অঞ্চলে ফিরে এসেছিল;  
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। লিক্যুইডিটির অভাবের কারণে, “নববর্ষের ঝড়”-এর পরে জাপানী মুদ্রা সম্পূর্ণভাবে শান্ত থেকে মোটামুটি ভাল পার্শ্ববর্তী চ্যানেলে 107.75-109.10-এর সংকীর্ণ পরিসরের মধ্যে অবস্থিত ছিল।  এই মুদ্রাজুড়ি এই সপ্তাহটি যেখান থেকে শুরু করেছিল সেখানেই থেমে গিয়েছিল, মূল বিন্দু 108.50-এর কাছাকাছি। এর কারণটি হল ইয়েনের নিরাপদ-স্বর্গের মুদ্রা হিসাবে কাজ করার আকর্ষণীয়তা এবং ইউএস ও চীনের মধ্যে কোন চুক্তি সম্পন্ন হলে পরে অন্যান্য দারুণ লাভ আনয়নকারী মুদ্রার প্রতি ক্রমবর্ধমান উৎসাহের মধ্যেকার উদীয়মান ভারসাম্য।
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা।আমাদের পর্যালোচনা অন্যদের পর্যালোচনার তুলনায় মৌলিকভাবে আলাদা কারণ এটি কোন এক বিশ্লেষকের মত নয়। আমাদের বিশ্লেষণ, আমরা যতবেশী সম্ভব বিভিন্ন বিশেষজ্ঞদের মতামত সংগ্রহ করার চেষ্টা করে থাকি যাতে করে ক্ষতিকারক “গোলমাল” থেকে দূরে থাকা যায়, আমরা মূল প্রবণতাকে শনাক্ত করতে পারি যা মুদ্রাজুড়ির এক বা অন্য অভিমুখে গমনাগমন নির্ধারিত করে থাকে। তবে, এটি এখন  উদাহরণস্বরূপ, ক্রিপ্টোমুদ্রার ক্ষেত্রে খুব কঠিন হতে পারে।
    কিছু বিশেষজ্ঞ গত সপ্তাহে মূল ক্রিপ্টোমুদ্রাজুড়িগুলির পতনকে ইতিবাচক সংশোধনের সমাপ্তি বলে মনে করেছিলেন যা মধ্য-ডিসেম্বর 2018 থেকে শুরু হয়েছিল, এবং বাজারের নেতিবাচক সক্রিয়তায় ফেরৎ আসা বলে ধরেছিলেন। আর কেউ কেউ, পক্ষান্তরে, এটিকে ছুটির-পরের লক্ষণ বলে অভিষিক্ত করেছিলেন, যার পরে কিছু দর আবার দৌড় দিয়ে উপরের দিকে যাবে বলে মনে করেছিলেন।
    যাই হোক না কেন, ক্রিপ্টোবাজারের মোট মূলধন বিনিয়োগের পরিমাণ 6ষ্ঠ জানুয়ারীর 123 বিলিয়ন ডলার থেকে শুক্রবার 11ই জানুয়ারীতে 123 বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছিল যা হল প্রায় 11% কম। Bitcoin, Litecoin, Ethereum, Ripple এবং আরো অন্যান্য বৃহৎ ক্রিপ্টোমুদ্রার দরেরও পতন হয়েছিল। এইরূপে, BTC/USD ক্রিপ্টোজুড়ির প্রায় তিন-সপ্তাহের মধ্যেকার কম দরে 3,700$-এর অঞ্চলে লেনদেন হয়েছিল।
    এই পতনের কারণগুলি হল যেসব বিনিয়োগকারীরা উৎসবের ফাঁকে লাভ হবে বলে আশায় ছিলেন তারা হতাশগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন, এবং এখন তারা তাদের অবস্থান বন্ধ করেছিলেন, এবং Gate.io এক্সচেঞ্জ থেকে প্রায় 40,000 ইথেরিয়াম মুদ্রার চুরি যাওয়া। জাপানী নিয়ন্ত্রক FSA-এর ক্রিপ্টোমুদ্রার ভিত্তিতে ETF শুরু করায় ব্যর্থতার খবরও এই পতনের কারণ হিসাবে যুক্ত হতে পারে। সাধারণভাবে বলতে গেলে, অনেক কারণই থাকতে পারে, কিন্তু মূল বিষয়টি হল যে সমস্ত মূল altcoin-গুলি লাল খাতার দিকে যেতে শুরু করেছে এবং 5%  থেকে 23% অবধি লেনদেনে পতন হয়েছে, যেমন ETH ক্রিপ্টোমুদ্রার ক্ষেত্রে হয়েছে।  

 

-আসন্ন সপ্তাহের পূর্বাভাসের বিষয়ে, অনেক বিশ্লেষকদের মতামতের সাথে সাথে প্রাযুক্তিক ও রৈখিক বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে কৃত পূর্বাভাসগুলিকে সংক্ষিপ্ত করে আমরা নিম্মলিখিত বক্তব্য রাখছিঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। আপনি যেমন জানেন, ইউরোপীয়ান মুদ্রার তেল এবং ধাতব পদার্থের সাথে এক দৃঢ় পারস্পরিক সম্পর্ক রয়েছে। এবং পণ্যবাজারেও, আমরা একটি ইতিবাচক প্রবণতা দেখতে পাচ্ছি, বিশেষ করে শক্তির বিষয়ে। OPEC-এর বাজার থেকে অতিরিক্ত তেল সম্পূর্ণরূপে তুলে নেবার যে অভিপ্রায় ব্যক্ত হয়েছে তাতে তেলের দাম আবারও বৃদ্ধি পেতে পারে, যা ইউরোর হাতই বর্তমানে সক্রিয় করবে। ফেড দ্বারা ইউএস ডলারের ঋণ দেবার দরের বৃদ্ধির বিষয়ে থমকে যাওয়া বিনিয়োগকারীদের দুঃশ্চিন্তায় ফেলেছে।
    এর ফলে, এই মুহূর্তে 65% বিশ্লেষক, 90% দোদুল্যমান দোলক এবং D1-তে  70% প্রবণতা নির্দেশকের সমর্থনে, এই মুদ্রাজুড়ির 1.1500-এর অঞ্চলের উপরে উত্থানের পক্ষে সমর্থন জানাচ্ছেন, এবং এই বৃদ্ধি প্রথমে 1.1550-এর উচ্চতায় এবং তারপরে 1.1625-এর স্তরে।
    যেসব বিশেষজ্ঞ এখনও ইউএস মুদ্রার প্রতি বিশ্বস্ত রয়েছেন, তারা বিশ্বাস করেন যে 1.1300-1.1500-এর মধ্যবর্তী চ্যানেলে ফেরৎ এসে, অনেকদিন ধরে এখানেই বিদ্যমান থাকবে। আর সেই কারণেই এই মুদ্রাজুড়ির পতনের আশা করা হছে, প্রথমে 1.1400-এর কেন্দ্রীয় রেখায়, আর তারপরে আরো 100 পয়েন্ট নীচে; 

  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। এটি স্পষ্ট যে নির্দেশকদের চূড়ান্ত গরিষ্ঠতা বর্তমানে সবুজ রং দেখাচ্ছে। তবে, ইতিমধ্যে D1-এ 10% দোদুল্যমান সূচক ইঙ্গিত দিচ্ছে যে এই মুদ্রাজুড়ির অধিক বিক্রয় হয়েছে। রোজকার সময়তালিকাতেও রৈখিক বিশ্লেষণ দ্বারা 1.2600-এর দিগন্তে পতনের সম্ভাবনা নির্দেশিত হচ্ছে। বিশেষজ্ঞদের কথা বলতে গেলে, তেজি বা মন্দাবাজারের পক্ষে কোন সুস্পষ্ট সুবিধা দেখাচ্ছে না। তাদের 55% এই মুদ্রাজুড়ির উত্থানের পক্ষে রয়েছেন, এবং 45% এদের পতনের দিকে সমর্থন করছেন।
    মঙ্গলবার, 15ই জানুয়ারীতে, ব্রিটিশ পার্লামেন্টে ব্রেক্সিটের উপরে ভোট হবে। এটির সম্ভাবনা রয়েছে যে প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে-দ্বারা ইইউ-র সাথে প্রস্তাবিত চুক্তির সংকলন প্রত্যাখ্যাত হবে, এবং আরেকবারও বিলম্ব হবে। আর ঠিক একই সময়ে, এটি আরো স্পষ্ট হচ্ছে যে ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের সাথে একটি কঠোর বিচ্ছেদ কোন সরকারী পরিকল্পনায় নেই, যা ইতিবাচকভাবে ব্রিটিশ মুদ্রার দরকে প্রভাবিত করছে। তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে পাউণ্ডের জন্য অতিরিক্ত সমর্থন পাওয়া যাচ্ছে।
    যতক্ষণ না পর্যন্ত ভোটের ফলাফল জানা যায়, কোন পূর্বাভাস দেবার অর্থ হয় না। তবে কেবলমাত্র মূল স্তরগুলিকে নির্দিষ্ট করে বলা যায়ঃ সহায়ক স্তর - 1.2780, 1.2720, 1.2660  এবং 1.2600, প্রতিরোধক স্তর হল 1.2925 এবং 1.3050;
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। D1-তে নির্দেশক এবং রৈখিক বিশ্লেষণ জাপানী মুদ্রার শক্তিশালী হবার পূর্বাভাস করেছে, যার সাথে 65% বিশেষজ্ঞরা একমত হয়েছেন, তারা মনে করছেন যে এই মুদ্রাজুড়ির 107.50-107.80-এর অঞ্চলে পতন হবে এবং তারপরে আরো নীচে গিয়ে 106.70-এর সহায়ক স্তরে।
    অপর পক্ষে, জাপানে কম সুদের হার হওয়ার কারণে, এই মুদ্রাজুড়ি খুবই দৃঢ়ভাবে বৃহৎ বিশ্বজনীন শেয়ার সূচকের সাথে সম্পর্কিত রয়েছে। এবং এই বাজারে উর্ধ্বমুখী প্রবণতা বোঝায় যে এই মুদ্রাজুড়ির 109.10 এবং 109.45-এর স্তরে সম্ভাব্য বৃদ্ধি হবে, এবং যদি পরের স্তরে ভেঙ্গে পড়ে, এই জুড়ির স্থানান্তরণ 110.25-110.80-এর অঞ্চলে থাকবে;    
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। ক্রিপ্টোবাজারে মূলধন বিনিয়োগের পরিমাণের পতন হওয়া সত্ত্বেও, Bitcoin-এর গ়ড়পড়তা দৈনিক লেনদেনের সংখ্যা গত সপ্তাহে 280,000-এর কাছাকাছি হয়েছিল, যা 2018 সালের চূড়ান্ত উত্থানের সাথে তুলনীয়। তাই, ক্রিপ্টোমুদ্রার মাপকাঠির শেষের বিষয়ে এবং নিশ্চিতভাবে সম্পূর্ণ বাজারের পূর্বাভাস করা কদাচিৎ অর্থবহ হবে। কিন্তু BTC/USD ক্রিপ্টোজুড়ির 3,700$-এর সহায়ক স্তর ভাঙ্গনের এবং মধ্য-ডিসেম্বরের নিম্ন স্থানে 3,250$-এর স্তরে ফিরে আসার সম্ভাবনা খুবই রয়েছে। এই পরিস্থিতিকে 45% বিশেষজ্ঞ সমর্থন দিচ্ছেন।
    বেশীরভাগ বিশ্লেষক বিশ্বাস করেন যে পরের সপ্তাহে এই ক্রিপ্টোজুড়ি 3.685-4.385$-এর তিন-সপ্তাহের “ফাটকাবাজি”-র অঞ্চলে থাকতে সমর্থ হবে। তবে, তারা খুবই সতর্কতার সাথে 5,000$-এর স্তরে উত্থানের কথা বলেছেন এবং তা কেবলমাত্র দীর্ঘমেয়াদী সময়ের জন্য।
    Ethereum-এর থেকে প্রত্যাশা কিছুটা ভাল। বিশেষজ্ঞরা আশা করেন যে কন্সট্যান্টিনোপল নামে শক্ত দ্বিধা-বিভক্তির পরে, ETH/USD ক্রিপ্টোজুড়ির উত্থান হবে।    

 

-রোমান বাটকো, NordFX

 

-বিজ্ঞপ্তিঃ এই লেখনীগুলিকে আর্থিক বাজারে লেনদেন করার জন্য বিনিয়োগ বা নির্দেশিকার জন্য সুপারিশ হিসাবে গণ্য করা উচিত হবে নাঃ এগুলি শুধুমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং ঝুঁকিপূ্র্ণ এবং এতে সমস্ত গচ্ছিত অর্থের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে।  


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)